ঐশী, প্রগতিশীলদের দায়বদ্ধতা এবং আমার কিছু প্রশ্ন

রাহমান মনি
অতি সম্প্রতি একটি চাঞ্চল্যকর হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় কিশোরী ঐশী রহমান মিডিয়ায় স্থান করে নিয়েছে। তাকে নিয়ে গোয়েন্দাদের গলদঘর্ম হতে হচ্ছে, আড্ডায় বিতর্কের ঝড় উঠছে, পরিবারগুলোতে পিতা-মাতা, সন্তানদের মধ্যে বিশ্বাস-অবিশ্বাসের ভিড় জমছে পাহাড়সম। সবখানেই কেবল একই বিষয় আলোচিত হচ্ছে, যার প্রভাব পড়েছে প্রবাসেও।

জাপানিজ ভাষায় ঐশী শব্দের অর্থ হলো মজা, স্বাদ বা উপভোগ্য। কিন্তু বাংলাদেশে কিশোরী ঐশীকে নিয়ে আলোচিত/সমালোচিত ঘটনাবলি কিন্তু মোটেই মজাদার বা উপভোগ্য নয়। মাদকাসক্ত এক কিশোরীর নির্মম পরিণতি। আপাতদৃষ্টিতে সে তার জনক-জননীর হন্তারক। তাই তাকে নিয়ে চলছে বিভিন্ন জনের চুলচেরা বিশ্লেষণ, যার অধিকাংশজুড়েই ঐশীর নৈতিক চরিত্রের স্খলন। আবার এর বিপরীতে তার বয়সজনিত কারণে সহানুভূতি জানিয়েও অনেকেই লিখছেন। তাদের ভাষ্য হচ্ছে শিশু আইনে যেহেতু সে তখনও নাবালিকা (স্কুলে ভর্তি সনদ অনুযায়ী), তাই তার ক্ষেত্রে শিশু অধিকার লঙ্ঘন করা যাবে না। আবার কেউ বলছেন ঐশী নাবালিকা হলেও (যদিও মেডিক্যাল জন্ম নিবন্ধন অনুযায়ী ১৯ বছর ১০ দিন/ ২৪ আগস্ট ২০১৩ পর্যন্ত) তার দ্বারা ঘটিত অপরাধের মাত্রা বিবেচনায় আনা উচিত।

ঐশী দোষী কিংবা নির্দোষ বা দোষী হলেও তার শাস্তি কি হবে তার চুলচেরা বিশ্লেষণ করার দায়িত্ব বিচার বিভাগের, আমি নই। এটা আমার এখতিয়ারে পড়ে না। মহামান্য আদালতই রায় দিবেন উভয় পক্ষের যুক্তিতর্কের ভিত্তিতে ভালোমন্দের বিচার করে।

আমি শুধু ঐশীর ঘটনাবলি আমাদের সামাজিক ও পারিবারিক জীবনে প্রভাব আমার ব্যক্তিগত অভিজ্ঞতার কথা বলব।

ঐশী যে তার বয়সী কিশোর-কিশোরীদের বিশেষ করে ইংরেজি মাধ্যমের শিক্ষার্থীদের সমাজে, পারিবারিকভাবে সন্দেহের বীজ রোপণ করেছে, তা কি অস্বীকার করতে পারবেন কেউ? ঐশীর বয়সী ভাতিজি, ভাগ্নি, কাজিন বা সন্তান রয়েছে আমাদের সকলের। যাদের অনেকেই আবার ইংরেজি মাধ্যমে পড়াশুনা করছে। ঐশী কি তাদের ছোট করেনি। তারা কি বিব্রত বোধ করেনি ঐশীর ঘটনায়? তাহলে কি আমার… ও এমন ভাব জন্মাতে উদ্বুদ্ধ করেনি? অযথা সন্দেহের তীর ছোড়েনি। দুর্ভাগ্যক্রমে কিশোরী বয়সী আমারও একটি ভাগ্নি আছে যার নাম ঐশী।

এই ঘটনায় আরও একটি বিব্রতকর পরিস্থিতির শিকার হয়েছে পুলিশ প্রশাসন। খুন হওয়া মাহফুজুর রহমান স্পেশাল ব্রাঞ্চের (গোয়েন্দা বিভাগ) একজন পুলিশ কর্মকর্তা মাত্র। প্রথম শ্রেণীর সরকারি কর্মকর্তাও নন। তিনি যে বেতন স্কেল পেতেন তাতে সর্বসাকুল্যে তার মাসিক আয় (বেতন) ছিল মাত্র ২৫ হাজার টাকা। ২১ আগস্ট দৈনিক সকালের খবর পত্রিকায় অনলাইন সংস্করণ থেকে জানা গেল ঐশী বিভিন্ন অজুহাত দেখিয়ে প্রতিমাসে ৫০ হাজার টাকা হাতখরচ বাবদ নিত। তার বিলাসবহুল ফ্ল্যাট ভাড়া বাবদ গুনতে হতো ১৮৪০০ টাকা। নিয়মিত ছিটকেপড়া ঐশীর প্রাইভেট পড়ানো, ছোট ভাই ঐহীর পড়াশুনার খরচ, কাজের লোকের বেতন, সাংসারিক ও অন্যান্য সব মিলিয়ে তিনি সর্বমোট কত খরচ করতেন? নিশ্চয়ই কয়েক লাখ টাকার উপরে। বাকি টাকার যোগান আসত কোথা থেকে? তার কি কোনো জমিদারি ছিল?

পত্রিকা মারফত জানা যায় মৃত মাহফুজুর রহমান জাতিসংঘের শান্তি মিশনে দুই মেয়াদে মোট ২ বছর ১১ মাস কসোভো (প্রথম মেয়াদ ১ বছর ৯ মাস ২৮ দিন এবং দ্বিতীয় মেয়াদে ১৩ মাস) দায়িত্ব পালন করেন। এ সময় তিনি ৮৪ লাখ টাকা আয় করেন যার অধিকাংশই স্থায়ী আমানত হিসেবে গচ্ছিত রাখেন। সেখান থেকে প্রতিমাসে আরও ৩৫ হাজার টাকা আয় হতো। সব মিলিয়ে তার মাসিক আয় ছিল ৬০,০০০ টাকা। তারপরও ঘাটতি থেকে যায় মাসিক ব্যয়ে। গত ঈদে ঐশী পরিবারের কাছ থেকে ৩০ হাজার টাকা হাতিয়ে নেয়। কি পরিমাণ আয় এবং কোন পথে আয় হলে বখে যাওয়া একটি মেয়েকে তার অভিভাবক ঈদে ৩০ হাজার টাকা ঈদি দিতে পারেন? বৈধভাবে অর্জনকারী একজন অভিভাবক কখনোই তার বখে যাওয়া সন্তানকে ৩০ হাজার টাকার ঈদি দিবেন না। হয়ত তার চেয়েও বেশি অর্থ খরচ করবেন তার পিছনে কেনাকাটায়, বৈধভাবে যারা আয় করেন তারা জানেন অর্থ কামানোতে কত কষ্ট করতে হয়।

তাহলে, মৃত মাহফুজুর রহমান কি পুলিশ প্রশাসনকে প্রশ্নের সম্মুখীন করেননি। কিন্তু সব পুলিশ অফিসারই কি এক? নিশ্চয়ই সৎ অফিসারও রয়েছেন বাংলাদেশ পুলিশ বিভাগে। সংখ্যায় কম হলেও তারা পুলিশ বিভাগের সুনাম রক্ষা করে চলেছেন। অবশিষ্ট যেটুকু রয়েছে সেই সকল পুলিশ অফিসার কি সামাজিকভাবে বিব্রত হননি?

খুন হওয়ার পর ঐশী তার মায়ের গলা, কান, নাক থেকে এবং বাড়তি কিছু স্বর্ণালংকার ও নগদ টাকা নিয়ে বাড়ি থেকে বের হয়। তার মধ্য থেকে সিংহভাগ নয়ছয় (চোরের উপর বাটপারি) হওয়ার পরও ১০ ভরি অবশিষ্ট থাকে। প্রশ্ন হলো একজন পুলিশ কর্মকর্তার এত স্বর্ণালংকার জমা হয় কি করে?

কয়েক বছর আগে জাপানে আমার বাসায় বাংলাদেশের কয়েকজন পুলিশ কর্মকর্তা এসেছিলেন। দুর্ভাগ্য এবং একই সঙ্গে সৌভাগ্যক্রমে তাদের সঙ্গে ঘনিষ্ঠতা হওয়ার পর বিভিন্ন প্রসঙ্গ নিয়ে আলোচনার একপর্যায়ে জানা গেল তাদের কেউ ৩৫/৪০ হাজার টাকা মাসিক ভাড়ায়, কেউবা নিজস্ব ফ্ল্যাটে থাকেন। কৌতূহলবশত জানতে পারলাম তাদের বেতন সর্বসাকুল্যে ২৫ হাজার টাকার মধ্যে। জিজ্ঞেস করে জানতে পারলাম মাত্র ২৫ হাজার টাকা বেতন পেয়ে ৩৫ হাজার টাকা ভাড়া দিয়ে সংসার চালান কিভাবে। তারা বললেন, চলে যাচ্ছে আপনাদের দোয়ায় এবং আল্লাহর রহমতে। আল্লাহই চালিয়ে নিচ্ছে বলতে পারেন। আল্লাহর প্রতি তাদের অগাধ বিশ্বাস এবং অবৈধভাবে আয় করার নিঃস্বার্থ দোয়াদানকারী এই আমি অবাক হয়ে গেলাম। এই আল্লাহ কিন্তু সবাইকে সৎভাবে আয় করার তাগিদ দিয়েছেন প্রতিটি ধর্মগ্রন্থে। অথচ অবৈধভাবে আয় করে আল্লাহর দয়ার কথা জানিয়ে দিলেন নির্দ্বিধায়। আল্লাহ্ কতই না দয়ালু। অন্তত অবৈধ উপায়ে আয় রোজগারকারীদের বেলায়।

ঐশীর ঘটনায় প্রগতিশীল সমাজ নড়াচড়া দিয়ে বসেছেন। তাদের বোধোদয় হয়েছে বাংলাদেশে শিশু অধিকার হরণ হচ্ছে। অথচ এই সব মানবাধিকার কর্মীদের বাড়িতেও কিন্তু শিশু শ্রমিক কাজ করছে, মানবেতর জীবনযাপন করছে। তাতে দোষের কিছুই নেই। কারণ তা তো আর পত্রিকায় প্রকাশিত হয় না।

অবৈধভাবে উপার্জনে মনোনিবেশ করলে সে ঘরের এবং পরের খবর রাখতে ব্যর্থ হবে এটাই স্বাভাবিক। আর এই জন্য বাংলাদেশে অধিকাংশ গোয়েন্দা রিপোর্টই ব্যর্থ হয়। যার নির্মম বাস্তবতা সিটি কর্পোরেশনগুলোর নির্বাচন ফলাফলের পূর্ব জরিপ। আর এর খেসারত দিচ্ছে সরকার। দুর্নীতিপরায়ণ এসব গোয়েন্দার উপর অতিরিক্ত নির্ভরতা সরকারের ব্যর্থতার কারণ। কিন্তু কেন এত ব্যর্থতার পরও গোয়েন্দাদের উপর নির্ভর করতে হয়? আর কতদিন এভাবে চলবে?

মৃত মাহফুজুর রহমানকে বলা হচ্ছে মেধাবী পুলিশ অফিসার। মেধাবীর সংজ্ঞা কিন্তু বয়সভেদে পাল্টে যায়। পড়াশুনায় যতই ভালো রেজাল্ট করুক না কেন কর্মক্ষেত্রে যদি তার স্বাক্ষর রাখতে না পারে তাহলে তাকে আর মেধাবী বলা যাবে না। আবার ছাত্রাবস্থায় খুব ভালো রেজাল্ট না করেও কর্মক্ষেত্রে মেধার স্বাক্ষর রাখা যায়। যে গোয়েন্দা কর্মকর্তা বখে যাওয়া কন্যাকর্তৃক অসময়ে তিনবার ফল ও কফি পান করায় পীড়াপীড়ির মর্মার্থ বুঝতে ব্যর্থ হন, স্বাভাবিকতার তারতম্য সন্দেহের উদ্রেক না হয় তাহলে সত্যিকার অর্থে গোয়েন্দা হওয়ার উপযুক্ত হয়ে উঠতে পারেননি। কফির মধ্যে এতগুলো ট্যাবলেট মিশানোয় যে কফির স্বাদ বুঝতে না পারে, তার কফি পান করার যোগ্যতা নেই। কাজেই সবক্ষেত্রেই সে একজন ব্যর্থ। যেমন ব্যর্থ পিতা হিসেবে।

ঐশী যে কাজটি করেছে বা করেনি তা প্রমাণের আগে ঐশীকে নিয়ে অনেক রসালো গল্প প্রচার হবে। এতদিন যারা তার কাছের ছিল তারা অচেনা হয়ে যাবে। নতুন দরদিও পাওয়া যাবে নিঃসন্দেহে।

পাপকে ঘৃণা করো পাপীকে নয়। আমি পাপকেই ঘৃণা করতে চাই। পাপের মাত্রা বিবেচনায় এনে পাপের শাস্তি হোক এটাই আমার কামনা। এই পাপের যদি সর্বোচ্চ শাস্তি না হয় তাহলে সমাজে আরও অসংখ্য ঐশীর জন্ম হবে। এখনকার ঐশীরা আরও বেপরোয়া হয়ে যাবে। অভিভাবকরা আতঙ্কে থাকবে। বয়সের কথা চিন্তা করে যদি শাস্তির পরিমাণ কমানো হয় তাহলে কিশোর-কিশোরীরা এ ধরনের কাজে উৎসাহিত হবে। এ ধরনের কাজে নিরুৎসাহিত করে আলোকিত সমাজ গড়ার লক্ষ্যে শিক্ষার্থীদের বইমুখী করতে হবে।

কিশোরী বয়সের একজন ঐশীর পক্ষে মাদকাসক্ত অবস্থায় যে কাউকে খুন করা হয়ত সম্ভব কিন্তু খুনের পরবর্তী ঘটনা এত নিখুঁতভাবে পরিচালনা করা সম্ভব নয়। সেই অসম্ভব কাজটি সম্ভব করেছে ঐশী। খুনের পরবর্তী ঘটনা ধামাচাপা দেয়ার যে কৌশল এবং তদন্তকারী কর্মকর্তাদের বিভ্রান্ত করা একজন পেশাদার খুনির পক্ষেই সম্ভব। রাগের মাথায় খুন করা কিশোরীর পক্ষে সম্ভব নয়। ভয়ে আতঙ্কে এবং অনুতপ্ত হয়ে ভেঙে পড়ার কথা, যার কোনোটিই ঐশীর মধ্যে দেখা যায়নি। যে বাবা-মাকে খুন করতে পারে তার কাছে ভাই নিরাপদ নয়।

আমাদের কিশোর-কিশোরীরাই আগামী দিনের জনক-জননী হবেন। দেশের শাসনভার তাদের উপর বর্তাবে। তাই এই বিচারকার্য যেন তাদের কাছে দৃষ্টান্ত হয়ে থাকে।

মাদকাসক্ত একটি জাতিকে ধ্বংসের মুখে ঠেলে দিতে পারে। প্রকৃত ধার্মিক সমাজ ব্যবস্থা এবং পারিবারিক নৈতিক শিক্ষাই কেবল পারে এই ধ্বংসের হাত থেকে রক্ষা করতে। যে যে ধর্মই পালন করুক না কেন প্রকৃত ব্যবস্থা এবং তার প্রতি শ্রদ্ধাবোধ থাকা উচিত। ধর্মীয় শাসন ব্যবস্থার বিরুদ্ধে কথা বলা আজ অনেকের কাছেই ফ্যাশনে পরিণত হয়েছে। যে যত তার ধর্মের বিরুদ্ধে কথা বলবে সে তত প্রগতিশীল। অথচ তারা কিন্তু ধর্ম পরিবর্তন করবে না। যেটি অন্যান্য দেশে করে থাকেন। মৃত্যুর পর কবরে যাওয়ার জন্য মৌলভী বা চিতায় উঠার জন্য মন্ত্রপাঠ গ্রহণের সুবিধা ঠিকই নিয়ে থাকেন তারা। অথচ যৌবন অবস্থায় ধর্মকর্মের ধারও ধারে না তারা। ধর্মান্ধতাও গ্রহণযোগ্য নয়।
সমাজ থেকে মাদকের মূল উৎপাটন, ধার্মিক এবং নৈতিক শিক্ষাই পারে ঐশীদের জন্ম রোধ করতে।

rahmanmoni@gmail.com

সাপ্তাহিক

Leave a Reply