সিআইডি’র সাবেক কর্মকর্তা খুনের ঘটনা কিনারা করতে পরেনি ডিবি

aaaMunshigonjরাজধানীর রামপুরায় নিজ বাড়িতে সন্ত্রাসীদের গুলিতে অবসরপ্রাপ্ত সিআইডি পুলিশের অতিরিক্ত সুপার ফজলুল করিম (৬৪) খুনের ঘটনায় এখনো কাউকে গ্রেফতার করতে পারেনি পুলিশ।

এই চাঞ্চল্যকর হত্যাকান্ডের ঘটনার ১৮ দিন পাড় হলে মামলার তদন্তে কোন অগ্রগতিও নেই। আর হত্যাকান্ডের সুনিদিষ্ট কোন কারণও পুলিশ বের করতে পারেনি বলে সংশ্লিষ্ট সুত্র জানিয়েছে।

তবে ঘটনার পর নিহতের একমাত্র মেয়ে ও পরিবারের সদস্যরা গ্রামের সম্পত্তি নিয়ে বিরোধের কারণে তাকে পরিকল্পিতভাবে খুন করা হয়েছে বলে দাবি করে আসছিলেন।

সাবেক এই সিআইডি কর্মকর্তা ফজলুল করীমের খুনের ঘটনর পর ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পলিশের কর্মকর্তাগণ মাদক ব্যবসায়ীদের সাথে বিরোধকে সামনে রেখেই তদন্ত করা হচ্ছে।


আর নগরীর রামপুরার ওয়াপদা এলাকায় র‌্যাব ও গোয়েন্দা পুলিশ কয়েক দফা অভিযান ুচালিয়ে বেশ কয়েক জন আটকও করা হয়েছিল।

তবে এই হত্যাকান্ডের ঘটনার পর পুলিশ নিহত পুলিশ কর্মকর্তার গাড়ি চালক লিটনকে প্রথমেই আটক করেন।

এরপর তাকে ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদ করা হলেও পুলিশ তার কাছ থেকে তেমন কোন তথ্য উদ্ধার করতে পারেনি। তবে জিজ্ঞাসাবাদের সে জানিয়েছে ঘাতকদের দেখলে সে চিনতে পারবে বলে গোয়েন্দা সংশ্লিষ্ট সুত্র জানিয়েছে।

গোয়েন্দা পুলিশের অপর এক সুত্র জানান, সিআইডি পুলিশের সাবেক কর্মকর্তা ফজলুল করিম খুনের ঘটনা প্রথমে কলা সেলিম, কসাই ফরিদ, রাজন ও সুমন নামে ৪জনকে আটক করা হয়। এসব আটককৃতরা এলাকার চিহ্নিত সন্ত্রাসী ও মাদক ব্যবসায়ী।

সুত্রটি আরো জানায়, নিহত ফজলুল করিমের পরিবারের সদস্যসহ ৮/৯ ব্যক্তিকে এই চাঞ্চল্যকর হত্যাকা-ের ব্যাপারে পুলিশ জিজ্ঞাসাবাদ করেছে। তাদের কাছ থেকে পাওয়া তথ্যগুলো মামলার তদন্ত কর্মকর্তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে বলে তদন্ত সংশ্লিষ্ট সুত্র জানিয়েছে।

এ ব্যাপারে মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের উপ-কমিশনার (ডিসি) জাহাঙ্গীর হোসেন মাতুব্বর জানান, পুলিশ কর্মকর্তা ফজলুল করিম হত্যাকা-ের সাথে জড়িত কাউকে এখনো গ্রেফতার করা হয়নি। এছাড়া এখন তাদেরকে আটকও কেউ নেই।

উল্লেখ্য, গত ৩১ আগস্ট সকালে পশ্চিম রামপুরার ৭৫/২ ওয়াপদা রোডস্থ নিজ বাড়িতে সন্ত্রাসীরা মাথায় গুলি করে ফজলুল করিমের মাথায় গুলি করে পালিয়ে যায়।

পরে তার পরিবরের সদস্যরা তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়ার পর কর্তব্যরত চিকিৎসক তামে মৃত ঘোষণা করেন।

এ ঘটনার একদিন পর নিহতের মেয়ের জামাই ব্যারিষ্টার মকিম উদ্দিন খানজাহান আলী বাদি হয়ে রামপুরা থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেন।

যমুনা নিউজ

One Response

Write a Comment»
  1. Tar Shala ,Towhid Kasem Khan Prince zake sbai Fencikhor hisebei jane , taake remande niye ram dholai dilei sob beriye asbe /

Leave a Reply