মাওয়ায় ভাঙনের কবলে নৌ-পুলিশ ফাঁড়ি!

mawa policeমোজাম্মেল হোসেন সজল: পদ্মা গ্রাস করে চলেছে মাওয়াকে। এখন হুমকির মুখে রয়েছে মাওয়া নৌ-পুলিশ ফাঁড়িটি। সেখানে বড় ধরণের ফাঁটল দেখা দিয়েছে। যে কোন সময় ফাঁড়িটি ধ্বসে পদ্মার পেটে চলে যাওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। ভাঙন ফাঁড়ি সংলগ্ন রাস্তার কাছাকাছি এসে পৌঁছেছে। ফাঁড়ি থেকে রয়েছে মাত্র ১শ’ গজ দূরত্বে।

বৃহস্পতিবার মাওয়াঘাটের ২নম্বর পুরাতন ফেরিঘাটের বিআরটিসি পরিবহনের যাত্রী ছাউনী, বাস কাউন্টার, ৩টি দোকান ঘর ও মাওয়া-ভাগ্যকুল-দোহার লিংক রোড সম্পূর্ণ পদ্মায় বিলীন হয়ে গেছে। এতে প্রায় ৪০ ফুট এলাকা পদ্মার পেটে চলে গেছে। দেখা দিয়েছে অসংখ্য ফাঁটল। এতে করে মাওয়ার সঙ্গে ঢাকার দোহারের সড়ক যোগাযোগ বন্ধ হয়ে রয়েছে।


এ ব্যাপারে মাওয়া নৌ-পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ এসআই মো. হাফিজুর রহমান জানান, ফাঁড়িটি এখন মারাত্মক হুমকির মুখে রয়েছে। ভাঙন আতঙ্কে তাদের দিন কাটছে।

এদিকে গত ১৯ দিনের ব্যবধানে মাওয়ায় ৭ দফা ভাঙন দেখা দেয়। কিন্তু সরকারের পক্ষ থেকে ভাঙনরোধের কোন ব্যবস্থা ও ক্ষতিগ্রস্থদের কোন আর্থিক সহযোগিতা দেয়া হয়নি বলে ভুক্তভোগীরা জানিয়েছেন।
mawa police
এর আগে ১৩ই সেপ্টেম্বর সকাল ৭টার দিকে পুরাতন দুই নম্বর ফেরিঘাট এলাকার মাওয়া-ভাগ্যকুল সড়কের ২০ ফুট পাকা রাস্তাসহ ৫০-৬০ ফুট এলাকা পদ্মার পেটে চলে যায়। এতে করে মাওয়া-ভাগ্যকুল-দোহার সড়কের সড়ক যোগাযোগ বন্ধ হয়ে রয়েছে। গত ১০ই সেপ্টেম্বর সন্ধ্যা সাড়ে ৬ টার দিকে আকস্মিক মাওয়া লঞ্চঘাটের পাড় ধ্বসে পড়ে। এতে করে লঞ্চঘাট এলাকার ৪০ ফুট এলাকা ভেতরে ঢুকে পড়ে। এতে মাওয়া লঞ্চঘাটের বিশাল এলাকা ও লঞ্চঘাটের পন্টুনের ৩টি সিঁড়ির মধ্যে ২টি স্থানচ্যুত হয়ে গেছে।

গত ৪ই সেপ্টেম্বর সন্ধ্যায় মাওয়ার পরিত্যক্ত তিন নম্বর পুরাতন ফেরিঘাট এলাকায় ৩০ ফুট এলাকা নদী গর্ভে চলে গেছে। গত ২রা সেপ্টেম্বর বিকেলে ও সকালে উপজেলার মেদিনীমন্ডল ইউনিয়নের পরিত্যক্ত মাওয়া পুরাতন ফেরিঘাট এলাকায় দু’দফা ভাঙন দেখা দেয়। ওইদিন বিকেলে ফেরিঘাটের ফাটল এলাকায় শতাধিক লোক নিয়ে ৩০ ফুট ফাটলটি পাকা সড়কসহ নদী গর্ভে বিলীন হয়ে যায়। এ সময় অজ্ঞাতনামা ২শিশুসহ কয়েকজন আহত হয়।

পরদিন ৩রা সেপ্টেম্বর প্রশাসনের পক্ষ থেকে সেখানে লাল নিশানা টাঙিয়ে দেয়া হয়। গত ৩১শে আগস্ট বিকেল সাড়ে ৫টার দিকে আকস্মিক ভূ-কম্পনের কারণে দক্ষিণবঙ্গের প্রবেশ দুয়ার মাওয়া-কাওড়াকান্দি নৌরুটে মাওয়ায় পরিত্যক্ত পুরাতন ফেরিঘাট এলাকার সড়কে প্রথম দফায় অসংখ্য ফাঁটল দেখা দেয়। এতে মাওয়া পুরাতন ৩ নং রো-রো ফেরিঘাট ও ২নং ফেরিঘাট এলাকায় দ্রুত নদী ভাঙন দেখা দেয়। এ সময় ফেরিঘাটের একটি মসজিদের অর্ধাংশ, ৩টি ব্যবসা প্রতিষ্ঠানসহ অন্তত ৩৫-৪০ ফুট এলাকা নদী গর্ভে বিলীন হয়ে যায়।

কয়েকদিনের অব্যাহত ভাঙনে ২০-২৫টি বসতবাড়ি ও ২৫-৩০টি ব্যবসা প্রতিষ্ঠান, একটি মসজিদ ও একটি মাজার পদ্মা পেটে চলে যায়। এসব ভাঙনে অন্তত ৮ হাজার বর্গমিটার এলাকা পদ্মা গর্ভে বিলীন হয়ে গেছে।

ঢাকারিপোর্টটোয়েন্টিফোর

Leave a Reply