এস,আই তাহের নিরীহ মানুষকে ইয়াবা দিয়ে ফাঁসিয়ে টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে

hatimara2হাতিমারা পুলিশ ফাঁড়ি
মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলার হাতিমারা পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের এস,আই তাহের নিরীহ মানুষকে বিভিন্ন মামলায় ফাঁসিয়ে মোটা অঙ্কের টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে। জেলার আইনশৃংঙ্খলা বৈঠকে মাদকের ওপর বিশেষ নজর রাখার জন্য পুলিশকে নির্দেশ দেওয়া রয়েছে। সে নির্দেশের বলে এস,আই তাহের নিরীহ মানুষকে ধরে ধরে ইয়াবা মামলায় চালান করে দিচ্ছে। তবে যারা তার কথা মতো মোটা অঙ্কের টাকা দিতে পারছে তাদের শুধু তার হাত থেকে নি®কৃতি মেলে।

এস,আই তাহেরের এহেন বাণিজ্যের কারনে মাদক ব্যবসার প্রকৃত অপরাধীরা তাকে মোটা অঙ্কের টাকার বিনিময়ে মাদক ব্যবসা চালিয়ে যেতে পারছে। ফাঁড়ির আওতায় মাদকের অনেক স্পট রয়েছে। তারা মাসোহারা দিয়ে অবলীলায় মাদক ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে নির্বিঘেœ। যারা বিড়ি-সিগারেট পর্যন্ত খায় না এমন ছেলেদের পর্যন্ত ফাঁড়িতে ধরে নিয়ে টাকা দাবী করেছেন এস,আই তাহের। কিন্তু যারা মাদক খায় না এমনকি বিক্রিও করে না তারা কেন এস,আই তাহেরকে মোটা টাকা দিতে যাবে? সে কারনেই তাদের স্থান হয়েছে এখন জেল খানা। অনুসন্ধানীমূলক তদন্তে বেরিয়ে এসেছে এস,আই তাহেরের লোমহর্ষক অনেক কাহিনী।


এর আগে তার বিরুদ্ধে প্রতিবেদন প্রকাশ করা হয়েছিল কিন্তু না, তার বিরুদ্ধে পুলিশ সুপার মহোদয় কোন ব্যবস্থা গ্রহন করেননি। এবারের ঘটনা ঘটেছে রামগোপাল পুরে। সাহাবুদ্দিন আহমেদ বদুর ছেলে মেহেদী হাসান নামে এক ছেলেকে বাড়ীর পাশের মাঠ থেকে ধরে নিয়ে যায় এস,আই তাহের। ফাঁড়িতে নিয়ে তার কাছে ৩০ হাজার টাকা দাবী করেন। কিন্তু তার পরিবারের কথা আমার ছেলে সিগারেট পর্যন্ত খায় না। বেঁচা-বিক্রির সাথে পর্যন্ত জড়িত নয় তাহলে কেন পুলিশকে ত্রিশ হাজার টাকা দিতে যাবো? টাকা না পাওয়ায় ১০ টি ইয়াবা দিয়ে তাকে কোর্টে চালান করে দেয় এস,আই তাহের। তাকে গ্রেফতারের সময় দুটি মোবাইল এবং ৮০০ টাকা সাথে ছিল তার। এখন পর্যন্ত ১টি মোবাইল এবং ৮০০ টাকা তাকে ফেরত দেয়নি।


এখানেই শেষ নয় ঘটনা, মেহেদীর পাশেই আরেক বাড়ীর আরিফ চৌধুরী নামে নিরীহ এক ছেলেকে ধরে নিয়ে যায় এস,আই তাহের। সে রিকাবীবাজার টিন-কাঠ ব্যবসায়ী। সেও সিগারেট পর্যন্ত খায় না। এলাকায় তার বিরুদ্ধে কেউ কোন অভিযোগ দিতে পারবে না। তাকে ধরে নিয়ে মোটা অঙ্কের টাকা দাবী করে এস,আই তাহের। কিন্তু তার চাহিদা মোতাবেক টাকা দিতে না পাড়ায় তাকেও ইয়াবা দিয়ে চালান করে এস,আই তাহের। অনেক ভূর্ক্তভোগী জানায়,তাহেরের কাছে সব সময় ইয়াবা থাকে। উঠতি বয়সের কোন ছেলেকে দেখলে থামিয়ে ইয়াবা পকেটে ঢুকিয়ে দেয়। তার পর নিয়ে যায় ফাঁড়িতে। সেখানে চলে মোটা টাকার দাবী। দিতে পরলেই শুধু নি®কৃতি মেলে। তাছাড়া প্রকৃত ইয়াবা ব্যবসায়ীদের বিপুল টরিমান ইয়াবা ধরেও টাকা বিনিময়ে ছেড়ে দেওয়া হয়। সেই ইয়াবায় বিক্রি করেন এবং কিছু নিরীহ মানুষেকে হয়রানি করতে তার কাছে রেখে দেয়।

তাই যে পুলিশ এলাকার মানুষের জানমাল রক্ষার্থে এগিয়ে আসবে তা না করে এখন অবৈধ বাণিজ্যে করতে যেয়ে এলাকার আইনশৃঙ্খলার ব্যাপক অবনতি ঘটাচ্ছে। দালাল পাড়া ফাঁড়ির নিকটবর্তী হলেও পুলিশ নি®কৃয় থাকায় ডাকাতির মতো ঘটনা ঘটছে। তাই সাধারণ মানুষের ক্ষোভ এখন ভয়াবহ আকার ধারন করছে। তাদের কথা হলো তাহের কি এভাবেই মানুষকে হয়রানি করে যাবে? তাকে রোধ করার মতো কেউ কি নেই? এ প্রতিবেদন তৈরী করার সময় যাদের গ্রেফতার করা হয়েছে তাদের আশপাশে সরেজমিন তদন্ত করে দেখা গেছে নির্দোষ মানুষদেরই এস,আই তাহের ফাঁসিয়ে দিয়েছে। তাদের বক্তব্যও রেকর্ড করা হয়েছে।


মুন্সীগঞ্জ পুলিশ সুপার সাহেবকে বলবো প্রতিবেদনে উল্লেখিত মেহেদী এবং আরিফের বিষয়টি তদন্ত করে দেখে যেন দায়ী এস,আই তাহেরের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন করেন। যে মানুষের করের টাকায় পুলিশের বেতন ভাতা হয় সে নিরীহ মানুষদের ধরে ধরে ইয়াবা দিয়ে চালান দেওয়ার জন্য এস,আই তাহেরকে ফাঁড়িতে পাঠানো হয়নি। এলাকার আইনশৃঙ্খলা এবং মাদক ব্যবসা রোধ করা তার কর্তব্যে ও দায়িত্বের মধ্যে বর্তায় তা তিনি করতে পারছে না।

মুন্সীগঞ্জ বাণী

One Response

Write a Comment»
  1. SI taher need to be dismiss from the job and procecut for drug business. In reality it will not happen, police super will not take action because he is involved in this business. If he is not then action should be taken. If he says he don’t know, that’s a lie. Police is very good in laying.

Leave a Reply