সনাতন ধর্মাবলম্বীদের দুর্গাপূজা পালন

রাহমান মনি
জাপান প্রবাসী সনাতন ধর্মাবলম্বীরা তাদের সর্ববৃহৎ ধর্মীয় উৎসব দুর্গাপূজা পালন করেছে। মহাষষ্ঠীর মাধ্যমে দুর্গাপূজার আনুষ্ঠানিকতা শুরু এবং বিজয়া দশমীর দিনে প্রতিমা বিসর্জনের মাধ্যমে পাঁচ দিনব্যাপী দুর্গাপূজার আনুষ্ঠানিকতা শেষ হলেও প্রবাসে ব্যস্ততম দিন এবং বিভিন্ন বাধ্যবাধকতার কারণে পাঁচ দিনব্যাপী দুর্গোৎসব মাত্র একদিন অর্থাৎ সাপ্তাহিক ছুটির দিনে তা সম্পন্ন করতে হয়। তবে ধর্মীয় আচার পালনে কমতি থাকে না। ১৩ অক্টোবর রোববার টোকিওর আকাবানে কিতা কুমিন সেন্টারে আয়োজিত দুর্গাপূজা উৎসব তেমনি একটি আয়োজন ছিল। সার্বজনীন পূজা কমিটি জাপানের এবারের আয়োজন ছিল ১৮তম।


মহালয়ার মধ্য দিয়ে দশ দিন আগে যে দুর্গতিনাশিনী দেবীর মর্ত্যে আগমন ঘটেছিল, দোলায় চড়ে মর্ত্যলোক ছেড়ে দেবী দুর্গা স্বামী মহাদেব শিবের সান্নিধ্যে কৈলাসে ফিরে যাবার মধ্য দিয়ে শেষ হয়েছে জাপান প্রবাসী সনাতন ধর্মাবলম্বীদের শ্রেষ্ঠ ও সর্ববৃহৎ ধর্মীয় আয়োজন দুর্গোৎসব ২০১৩। ভক্তদের বিনম্র শ্রদ্ধা আনন্দ এবং একইসঙ্গে চোখের জলে দুর্গতিনাশিনী জগজ্জননী দেবী দুর্গা আপাতত বিদায় নিয়ে স্বামীগৃহে ফিরে গেলেও ভক্তরা মনে করেন বা তাদের ধর্মীয় বিশ্বাস আগামী বছর আবার শারদীয় এই সময় দশভুজা দেবী দুর্গা শান্তি প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে কৈলাস ছেড়ে কন্যারূপে দুই মেয়ে লক্ষ্মী এবং সরস্বতী, দুই ছেলে গণেশ এবং কার্তিককে নিয়ে কোটি কোটি সনাতন ধর্মাবলম্বী ভক্তদের পুষ্পাঞ্জলি সিক্ত হবার জন্য মর্ত্যলোকে আসবেন গজে (হাতি) চড়ে।

প্রতি বছরের মতো এবারও সকাল ১১.৩০ পূজার আনুষ্ঠানিকতা শুরু হয়। বেলা ১২.৩০ থেকে ১.৩০ পর্যন্ত পর্যায়ক্রমে মোট ৩ বার অঞ্জলি প্রদান এবং ১.৩০ থেকে প্রসাদ ও মহাভোগ বিতরণ শুরু হয়ে একনাগাড়ে সন্ধ্যা পর্যন্ত চলে।

বিকেল ৪টায় ছিল পূজা বিষয়ক ধর্মীয় আলোচনা। মিজ তনুশ্রী বিশ্বাসের পরিচালনায় আলোচনায় অংশ নেন সার্বজনীন পূজা কমিটি জাপানের সভাপতি সুনীল রায়, সাধারণ সম্পাদক রতন কুমার বর্মন, রাষ্ট্রদূত পতœী সোমা ফাহমিদা জাবিন, রামকৃষ্ণ মিশন জাপানের প্রেসিডেন্ট স্বামী মেধসানন্দ মহারাজ, ড. আব্দুল মোমেন (টোকিওস্ত বাংলাদেশ রাষ্ট্রদূত মাসুদ বিন মোমেনের পিতা, বর্তমানে জাপান সফররত), দূতাবাস কমার্শিয়াল কাউন্সিলর রাশেদুল ইসলাম, সুখেন ব্রহ্ম প্রমুখ। অন্য কাজে ব্যস্ত থাকায় রাষ্ট্রদূত উপস্থিত থাকতে পারেননি।

আলোচনায় অংশ নিয়ে স্বামী মেধসানন্দ বলেন, তিনদিন বা পাঁচদিন আচার করে দেবী পূজা করলেই হবে না। বাকি ৩৬২ দিনও দেবীর পূজা দিতে হবে। তাই দেবী অর্থাৎ মা দুর্গাকে বুকে লালন করে প্রতিদিন মনের পূজা পালন করতে হবে।

ড. আব্দুল মোমেন বলেন, আমি পাশ্চাত্যে পড়াশুনা করা একজন মানুষ। ধর্ম বিষয়ে ওদের যাবতীয় কর্ম রোববারকেন্দ্রিক। সাপ্তাহিক ছুটির দিনেই কেবল তারা ধর্ম পালনে উপাসনালয়ে যায়। কিন্তু আমরা প্রতিদিন, প্রতিটি মুহূর্ত ধর্মীয় আবেশে মগ্ন থাকি। সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি আমাদের সংস্কৃতির একটি অংশ। যুগ যুগ ধরে তা চলে এসেছে। তিনি কৌতুক করে বলেন, আপনারা আমার সঙ্গে যে ভদ্রমহিলাকে দেখছেন, গত ৫২ বছর ধরে তিনি আমার একমাত্র স্ত্রী হিসেবে আমার জীবনসঙ্গিনী হিসেবে একসঙ্গে বসবাস করে আসছেন। আমার ছেলেরও একটি মাত্র স্ত্রী। এটাও আমাদের সংস্কৃতির একটি অংশ। পাশ্চাত্যে যেটা বিরল ঘটনা। ব্যক্তি জীবন সুখের হলে ধর্মীয় কাজে মনোনিবেশ করা যায়। জাপানের মতো ব্যস্ত জীবনে একটি ধর্মীয় আয়োজনে সব ধর্মের অংশগ্রহণে তিনি জাপান প্রবাসীদের ভূয়সী প্রশংসা করেন।

আলোচনা পর্ব শেষে ববিতা পোদ্দারের পরিচালনায় শিশু-কিশোরদের সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান এবং তারপর উত্তরণ সাংস্কৃতিক গোষ্ঠী ভক্তিমূলক গান পরিবেশন করে। স্বরলিপি’র দলীয় নৃত্যটি ছিল উপভোগ্য।

এরপর সন্ধ্যা আরতী, নৃত্য পরিবেশন, সিঁদুর ছোঁয়া, মিষ্টি বিতরণ এবং সবশেষে ঢাক-ঢোল, কাসা, শঙ্খ ও উলুধ্বনির মধ্য দিয়ে প্রতিমা বিসর্জন (প্রতীকী) এর মাধ্যমে আনুষ্ঠানিকভাবে দুর্গোৎসবের সমাপ্তি হয়। এবারের আয়োজন অত্যন্ত সফল আয়োজনের মধ্যে একটি। পূজারী, ভক্ত, অতিথি, শুভানুধ্যায়ী সকলের সহযোগিতায় তা সম্ভব হয়েছে।

rahmanmoni@gmail.com

সাপ্তাহিক

Leave a Reply