১ এপ্রিল ২০১৪ থেকে জাপানে বিক্রিকর বৃদ্ধি কার্যকর

রাহমান মনি
১ এপ্রিল ২০১৪ থেকে জাপানে বিক্রিকর বৃদ্ধি কার্যকর হতে যাচ্ছে। নতুন এই কর ৮% হারে আদায় করা হবে, যা বর্তমানে ৫% হারে আদায় করা হচ্ছে। আর এই সিদ্ধান্ত কার্যকর হলে দুই দশকের মধ্যে এটি হবে জাপানের সবচেয়ে বড় ধরনের কর বৃদ্ধির ঘটনা।

বর্তমান ক্ষমতাসীন এলডিপি (লিবারেল ডেমোক্র্যাটিক পার্টি) ১৯৮৯ সালের এপ্রিলে জাপানে প্রথমবারের মতো ৫% বিক্রি কর আদায় অনুমোদন দেয় তৎকালীন নোবোরু তাকেশিতার কেবিনেট। দীর্ঘ ৮ বছর পর ১৯৯৭ সালে একই দলের রিয়ুতারো হাশিমোতোর মন্ত্রিপরিষদ তা কার্যকর করে।
এরপর ২০১২ মার্চ ৩০ তৎকালীন ক্ষমতাসীন ডিপিজের (ডেমোক্র্যাটিক পার্টি অব জাপান) প্রধানমন্ত্রী ইয়োশিহিকো নোদা প্রশাসন ভোগ্যকর ৫% থেকে বাড়িয়ে দ্বিগুণ করার প্রস্তাব অনুমোদন করে। তবে তা একবারে দ্বিগুণ না বাড়িয়ে দুই দফায় বাড়ানোর প্রস্তাব রেখে পার্লামেন্টের অনুমোদনের জন্য পাঠানো হয়। প্রস্তাব অনুযায়ী ২০১৪ এপ্রিল থেকে ৮% এবং ২০১৫ অক্টোবর থেকে ১০% হারে ভোগ্যকর বৃদ্ধি আদায়ের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।

জাপান পার্লামেন্টের উভয় কক্ষে (নিম্নকক্ষ এবং উচ্চকক্ষ) পাঠানোর পর ৩০ মার্চ ২০১২ প্রধানমন্ত্রী নোদা তার কার্যালয়ে ডাকা এক সাংবাদিক সম্মেলনে আনুষ্ঠানিক তা প্রকাশ ও প্রচার করেন। এ সময় তিনি বিক্রিকর বৃদ্ধির কারণ বিশদ ব্যাখ্যা করেন।

১ অক্টোবর ২০১৩ জাপানের প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবের মন্ত্রিসভা বিক্রিকর বৃদ্ধি ৫% থেকে বাড়িয়ে ৮% করার চূড়ান্ত অনুমোদন করে। যা আগামী ১ এপ্রিল ২০১৪ থেকে কার্যকর করা হবে। একই বৈঠকে ভোগ্যকর বৃদ্ধির নেতিবাচক প্রভাবকে সামাল দিতে একই সঙ্গে একটি প্রণোদনা প্যাকেজও বরাদ্দের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। পরিস্থিতি সামাল দিতে পাঁচ হাজার কোটি ডলার সমপরিমাণ অর্থের একটি সম্পূরক বাজেট বরাদ্দের পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়।

আবে তার বক্তব্যের শুরুতে বলেন, আজ থেকে পঞ্চাশ বছর আগে ঠিক এই দিনে (১৯৬৩ অক্টোবর ১) তোকাইডো শিনকান সেন (বুলেট ট্রেন) ভালু এবং তার ঠিক ১০ দিন পর ‘টোকিও অলিম্পিক’ নামে জাপানের মাটিতে প্রথমবারের মতো অলিম্পিক শুরু হয়েছিল। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ পরবর্তী জাপানের সবচেয়ে বড় সাফল্য ছিল সেটি। সাফল্যের সঙ্গে জাপান তা করতে পেরেছিল।

প্রধানমন্ত্রী আবে বলেন, ভালো কাজের প্রতিদান অবশ্যই পাওয়া যায়, দেয়া উচিতও। সেই থেকে জাতীয় অবসর ভাতা প্রদান সিস্টেম চালু হয়। তারপর ’৮০ দশকের শেষ এবং ’৯০ দশকের শুরুর দিকে জাপানের বাবল্ ইকোনমির কথা আপনাদের সকলের জানা। কিন্তু দুর্ভাগ্যবশত পরবর্তী ১৫টি বছর আমাদের অর্থনৈতিক মন্দার কবলে পড়ে সামাজিক, অর্থনৈতিক নিরাপত্তার ভিত্তি নড়বড়ে হয়ে গেছে। কিন্তু এভাবে চলতে দেয়া যায় না। আমাদের এর থেকে উত্তরণের পথ খুঁজতে হবে। পরবর্তী প্রজন্মের জন্য আমাদের একটি সুন্দর, মজবুত এবং টেকসই অর্থনৈতিক ভিত্তি দাঁড় করাতে হবে যেখানে সামাজিক এবং অর্থনৈতিক নিরাপত্তা নিয়ে ভাবতে হবে না। স্বাচ্ছন্দ্যে এবং সঠিক ব্যবহার করে নিরাপদ জীবনযাপন করতে পারবে।

আবে বলেন, ২৫০ বছর পূর্ব থেকে জাপানে ঘাটতি বাজেট চলে আসছে। দিন দিন জাতীয় ঋণের বোঝা বেড়েই চলেছে। বর্তমানে তা সর্বোচ্চ পর্যায়ে এসে ঠেকেছে। আমাদের এ ঘাটতি থেকে বেরিয়ে আসতে হবে। আগামী ২০২০-এ জাপানের রাজধানী টোকিওতে ৫৬ বছর পর দ্বিতীয়বারের মতো অলিম্পিকের আসর বসতে যাচ্ছে। এই ২০২০ এর মধ্যে আমাদের বাজেট ঘাটতি পুষিয়ে নিতে হবে এবং বাজেট যেন উদ্বৃত্ত থাকে সেই পরিকল্পনা নিতে হবে।

আবে তার বক্তব্যে বলেন, ২০১২তে পাস হওয়া বিক্রিকর বৃদ্ধির আইন মোতাবেক আমি কেবল ঘোষণা দিচ্ছি মাত্র। আপনারা জানেন ৮% বিক্রিকর আদায় বিলটি আগেই পাস হয়েছিল। আমি জাপান জনগণের সহযোগিতা প্রার্থনা করছি।

প্রধানমন্ত্রী আবে তার বক্তব্যে যাই বলেন না কেন অর্থনীতিবিদদের কেউ কেউ ভিন্ন মত প্রকাশ করেন। অর্থনীতিবিদদের কেউ কেউ মনে করেন মূলত দেনার চাপ কমাতে আবে বিক্রিকর বৃদ্ধির সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত করেছেন। তবে তোলা দুধে যে পোলা বাঁচানো যাবে না এই প্রকৃত সত্যটি আবে বুঝেও না বুঝার ভান করছেন। এর আগেও বাবল্ ইকোনমির পর ১৯৯৭ সালে ৫% হারে বিক্রিকর আদায় সত্ত্বেও গত ১৫ বছরে কাজের কাজ কিছুই হয়নি। তার চেয়ে বরং সমাজকল্যাণের অর্থ ব্যয় সত্যিকার অর্থে আমূল পরিবর্তন করে সঠিক ব্যবহার করলেই দেশের অর্থনীতির উন্নয়ন ঘটানো যাবে। দেনার পরিমাণও কমবে। ২০১১ অর্থবছর শেষে জাপান সরকারের দেনার পরিমাণ ছিল ১০৯৪ ট্রিলিয়ন ইয়েন। পরিবারপিছু এই দেনার পরিমাণ ১৮৪ মিলিয়ন ইয়েন এবং মাথাপিছু এই দেনার পরিমাণ ৮ মিলিয়ন ইয়েন। প্রতি মুহূর্তে এর পরিমাণ ক্রমাগত বেড়েই চলেছে। প্রতি সেকেন্ডে জাপানের দেনার পরিমাণ বাড়ছে ৮০,০০০ ইয়েন হারে। গড় হিসাবের তারতম্য অবশ্যই আছে।

বিশেষজ্ঞদের মতে উন্নত বিশ্বের মধ্যে সবচেয়ে বেশি দেনায় ভারাক্রান্ত জাপান দেনার বোঝার ভার থেকে রেহাই পেতে কর বৃদ্ধির উদ্যোগ নেয়, যা সাধারণ দৃষ্টিতে খুব সহজ দেখাচ্ছে। ব্যাপারটা কিন্তু সত্যিকার অর্থে অতটা সহজ নয়। কারণ পূর্ব অভিজ্ঞতা আমাদের সুখকর নয়। কর বৃদ্ধির পর বিষয়টি কি দাঁড়াবে তা নিয়ে গভীর উদ্বেগ রয়েই গেছে। কারণ, ১৯৯৭ সালে ৫% কর আদায় জাপানকে অর্থনৈতিক মন্দার মধ্যে ঠেলে দেয়।

বিশেষজ্ঞদের কেউ কেউ জাপানের দেনার পরিমাণ হ্রাস করতে রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা এবং সদিচ্ছা বজায় রাখার ওপর গুরুত্বারোপ করেন। কারণ ঘন ঘন সরকার বদলানো অর্থনীতির ওপর যে চাপ পড়ে তার দায় রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দের ওপরই বর্তায়। গত ৫ বছরে ৬ জন প্রধানমন্ত্রী উপহার অর্থনীতির ওপর বড় ধরনের চাপ। আর এই চাপ বহন করতে হচ্ছে জাপানবাসীকে।

কর বৃদ্ধি নিয়ে সাধারণ জাপানিদের মধ্যে তেমন কোনো প্রতিক্রিয়া নেই। তারা মনে করে সরকার আইন করে থাকলে কিছু করার নেই। দিতেই হবে। যদিও কিছু কিছু সংগঠন এর বিরোধিতা করে আসছে প্রথম থেকেই। তাদের মতে রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দের ভোগবিলাসের জন্য জাপানের দেনার পরিমাণ দিন দিন বেড়েই চলেছে। ক্ষমতা দখলের লড়াই না করে দেশ গড়ার লড়াইয়ে অংশ নিলে দেনার পরিমাণ অনেক আগেই কমে যেত। তারা মনে করেন নতুন কর বৃদ্ধিতে সমাজকল্যাণের অর্থের ওপর নির্ভরশীলদের অর্থ ব্যয়ের পরিধি আরও ছোট হয়ে আসবে।

এই মুহূর্তে জাপানের বড় সমস্যা হলো প্রবীণদের সংখ্যা বৃদ্ধি। অদূর ভবিষ্যতে যা আরও প্রকট আকার ধারণ করবে। বর্তমানে জাপানের মোট জনসংখ্যায় ২৬% হলো ৬৫ বছর বা তদূর্ধ্ব। তাদের পেনশন পরিশোধ করতে সরকারকে হিমশিম খেতে হবে। তবে সবকিছুই ভবিষ্যৎ-ই বলে দিবে বিক্রিকর বৃদ্ধির প্রভাব।

rahmanmoni@gmail.com

সাপ্তাহিক

Leave a Reply