টঙ্গীবাড়ীতে অর্ধকোটি টাকা হাতিয়ে দিগন্ত মাল্টিপারপাস কোম্পানি উধাও

kajalব.ম শামীম: মুন্সীগঞ্জের টঙ্গীবাড়ী উপজেলার বালিগাওঁ বাজার থেকে দিগন্ত ক্ষুদ্র ব্যাবসায়ী কো-অপারেটিভ সোসাইটি লিমিটেড নামের একটি পাল্টিপারপাস কোম্পানি প্রায় অর্ধকোটি টাকা হাতিয়ে নিয়ে উধাও হয়েছে। গত এক মাস যাবৎ উক্ত প্রতিষ্ঠানের গেটে তালা ঝুলতে দেখে গ্রাহকদের মধ্যে তীব্র উৎকন্ঠা ও চাপা ক্ষোভ বিরাজ করছে। এ ব্যাপারে ভূক্তিভোগী গ্রাহকরা টঙ্গীবাড়ী থানা ও উপজেলা সমবায় অফিসে একাধিক অভিযোগ করেও কোন প্রতিকার না পেয়ে ক্ষোভে ফুসেঁ উঠছে।

টঙ্গীবাড়ী উপজেলা সমবায় অফিস সুত্রে জানাগেছে, গত ১৭ অক্টোবর ২০১২ ইং তারিখে মুন্সীগঞ্জের সদর উপজেলার আধারিয়াতলা গ্রামের আবু বকর সিদ্দিক এর ছেলে মাহবুবুর রহমান মাখন এবং টঙ্গীবাড়ী উপজেলার নয়াগাঁও গ্রামের হাজী মো. ইব্রাহিম মাদবর এর ছেলে আব্বাস উক্ত নামে একটি সমবায় সমিতির রেজিষ্টেশন নিয়ে মাল্টিপারপাস ব্যাবসা শুরু করে। যাহার রেজিনং-৮৪৬। তারা ৬ মাস ব্যাবসা পরিচালনা করার পর উক্ত সমবায়টির পরিচালনার দায়িত্ব উপজেলার বালিঁগাঁও গ্রামের মৃত আলতাফ দেওয়ান এর ছেলে কাজল দেওয়ানকে বুঝিয়ে দিয়ে আতœগোপন করে। পরে গত প্রায় ৬ মাস যাবৎ কাজল দেওয়ান উক্ত মাল্টিপারপাস কোম্পানিটি পরিচালনা করে প্রায় ১ শত গ্রাহকের নিকট থেকে ৫০ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নেয়।


এর পর গত ইদুল আযহার ছুটি উপলক্ষে ঈদের ১ সপ্তাহ পূর্ব থেকে অফিস বন্ধ হলেও অফিসের ম্যানেজার ক্যাষিয়ার কেউ ফিরে না আসায় এবং অফিস বন্ধ দেখে ভুক্তিভোগী গ্রাহকরা উক্ত প্রতিষ্ঠান পরিচালনকারী কাজল এর নিকট অফিস বন্ধের কারন জানতে চাইলে, সে বিভিন্ন সময় বিভিন্ন কথা বলে আসছে। ভুক্তভোগী গ্রাহক মো. তোফাজ্জল হোসেন জানান, আমাকে প্রতি লক্ষ টাকায় মাসে ২ হাজার ৫ শত টাকা লাভ দিবে বলে আমার নিকট হতে মোট ৫ লক্ষ টাকা ইষ্টেম্পের উপর লিখিত দিয়ে নেয় উক্ত প্রতিষ্ঠানটি। কিন্তু আমায় এ পর্যন্ত কোন লাভ এবং মূল টাকা ফেরত না দিয়ে তালবাহনা শুরু করছে।

এ ব্যাপারে আমি টঙ্গীবাড়ী থানা ও উপজেলা সমবায় অফিসে অভিযোগ করেও কোন প্রতিকার পাচ্ছিনা। অপর গ্রাহক তানিয়া আক্তার ও কাজল বেগম জানান, ডিপিএস এর কথা বলে সাপ্তাহিক সঞ্চয় এর মাধ্যমে তাদের দু-জনের নিকট হতে ২ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নিয়েছে উক্ত প্রতিষ্ঠানটি। সরোজমিনে বৃহস্পতিবার সকালে প্রতিষ্ঠানটির কার্যালয়ে গিয়ে তা বন্ধ পাওয়া গেছে।

এ ব্যাপারে কাজলের সাথে একাধিকবার যোগাযোগের চেষ্টা করেও তাকে পাওয়া যায়নি। ভুক্তভোগী গ্রাহকরা জানান, কাজল বর্তমানে আতœগোপন করে রয়েছে। তারা আরো জানান, সে টাকা আতœসাৎ করে বিদেশ চলে যাওয়ার পায়তারা করছে।

kajal
টাকা আতœসাৎকারী কাজল।

Leave a Reply