মুন্সীগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতির বেয়াই-পুত্রার কান্ড!

hamla1মোজাম্মেল হোসেন সজল: মুন্সীগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মো. মহিউদ্দিনের বেয়াই-পুত্রা পরিচয় দিয়ে জোর করে অন্যের জমি দখল ও জমির মালিকের শ্রমিক জয়নাল আবেদীন (৪৫)-কে গলায় পাড়া দিয়ে শাসরোধ করে হত্যার প্রচেষ্টা করা হয়েছে। শনিবার বেলা ১১ টার দিকে শহরের কলেজপাড়ায় এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় শনিবার বিকেলেই মনির সরকার বাদী হয়ে মুন্সীগঞ্জ সদর থানায় একটা লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন।


ভুক্তভোগী মনির সরকার ও তার ছেলে সাংবাদিক আল-মামুন জানান, মুন্সীগঞ্জ শহরের কলেজ পাড়ায় এক যুগেরও বেশী সময় আগে খরিদকৃত ও নামজারীক্রমে ভোগদখলকৃত একটি ভূমিতে কয়েকমাস আগে ভূয়া কাগজপত্র নিয়ে মালিক দাবি করে পাচঘড়িয়াকান্দির ইয়াসিন গং। পূর্ব শক্রতার জের ধরে আদালত কর্তৃক মীমাংসাকৃত ভূমিতেও বেয়াই আবুল বাসার ও তার ছেলে বিপ্লবকে নিয়ে ইয়াসিন গং আবার বিরোধ সৃষ্টির চেষ্টা করছে। জেলা আওয়ামী লীগের সভাপিত মো. মহিউদ্দিন সাহেবের আত্মীয় পরিচয় দিয়ে এরই মধ্যে তারা একটি ভূয়া নামজারীর মিসকেস রিপোর্ট ১ বছর ধরে আটকে রেখেছে। তার আত্মীয় পরিচয় দেয়ায় ভূমি অফিসের কর্মচারীরা রিপোর্ট দিতে পারছেনা।

বিগত কয়েক সপ্তাহ ধরে জোড়পূর্বক ভূমি দখলের পায়তারা করলে থানায় সাধারণ ডায়রী করা হয়। পরবর্তীতে মহিউদ্দিন সাহেবকে বিষয়টি জানালে তিনি যে যার মত থাকতে বলেন। তিনি আরও বলে দেন, যে যার দখল মত থাকবেন পরে কাগজপত্র যে সঠিক দেখাতে পাবে তারাই জমি পাবে। তিনি বিষয়টির দখল দেখার জন্য উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আফসারউদ্দিন ভুইয়াকে দায়িত্ব দেন। পরে তিনি মনির সরকারের দখল নিশ্চিত হয়ে তাকে জমিতে চাষাবাদ করার জন্য বলেন।

মুন্সীগঞ্জ সদর থানার ওসিসহ স্থানীয় লোকজন জমির কাগজপত্র নিয়ে বারবার একসাথে বসে মীমাংসার কথা বললেও বেয়াই আবুল বাসার জমির কাগজপত্র নিয়ে বসতে অনীহা প্রকাশ করে আসছে।

তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই সাখাওয়াত জানান, ওসি সাহেবের নির্দেশে আমি দুই পক্ষকে জমির কাগজ নিয়ে বসতে বলেছি। এক পক্ষ রাজি থাকলেও বাসার সাহেব বসতে চাচ্ছেন না। ভুক্তভোগী পরিবারের নামে বিভিন্ন হয়রানীমূলক পদক্ষেপ নিয়ে যাচ্ছে। এমতাবস্থায় ভুক্তভোগী পরিবার অনিরাপদবোধ করছেন। বেয়াই আবুল বাসারের সাথে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও তাকে পাওয়া যায়নি।

Leave a Reply