মুন্সীগঞ্জে আ’ লীগ অফিস ও বাসে অগ্নিসংযোগ

oborodh1জাতীয় নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার প্রতিবাদে ৪৮ ঘন্টা সড়ক, নৌপথ ও রেলপথ অবরোধ কর্মসূচির দ্বিতীয়দিন বুধবার মুন্সীগঞ্জে আওয়ামী লীগের ২টি অফিসে অগ্নিসংযোগ, ঝাড়ু মিছিল, প্রধান নির্বাচন কমিশনারের কুশ পুত্তলিকা দাহ, সমাবেশ, সড়ক অবরোধ ও বাসে আগুন দেয়ার ঘটনা ঘটেছে। শহরের পিটিআই মোড়, বাসস্ট্যান্ডসহ কয়েকটি স্থানে ৬টি ককটেল বিস্ফেরণের ঘটনা ঘটে। সকালে লৌহজং উপজেলার মাওয়া চৌরাস্তা সংলগ্ন কুমারভোগ ইউনিয়ন ও উত্তর কাজির পাগলা ৫নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের অফিসে অগ্নিসংযোগ করা হয়েছে।

এ ঘটনায় জড়িত সন্দেহে বিএনপি ও স্বেচ্ছাসেবক দলের চার কর্মীকে আটক করেছে পুলিশ। আটককৃতরা হলেন- কুমারভোগ ইউপির ৪নং ওয়ার্ড স্বেচ্ছাসেবক দলের সাধারণ সম্পাদক সেকান্দার খান বাবুল (৪৬), হলদিয়া ইউপির মৌছা ৬ নং ওয়ার্ড বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মো. শরাফত শেখ (৪৩), মেদিনী মন্ডল ইউপির ৭নং ওয়ার্ড বিএনপির সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক মো জসিমউদ্দিন (৪৭) ও বিএনপি কর্মী মো সেলিম খানকে (৪০) আটক করেছে পুলিশ। লৌহজং থানার ওসি আবুল কালাম ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেন।

এদিকে সকালে জেলা বিএনপির সভাপতি আব্দুল হাইয়ের নেতৃত্বে সকালে অবরোধের পক্ষে মুন্সীগঞ্জের মিরকাদিম লঞ্চ ঘাট এলাকায় অবস্থান নেন। সেখানে এক ঘন্টা থাকার পর তারা শহরের উপকন্ঠ মুক্তারপুরে বিক্ষোভ মিছিল নিয়ে ঢাকা- মুন্সীগঞ্জ সড়কের মুক্তারপুর ব্রীজের উপরে অবস্থান নিয়ে এবং সড়ক অবরোধ করে রাখে। তারা রাস্তার আশপাশে থাকা আওয়ামী লীগের বিভিন্ন ফেস্টুন ও তোড়ন ভাংচুর এবং টায়ার জ্বালিয়ে বিক্ষোভ করে। এ সময় পুলিশের সাথে বিক্ষোভকারীদের হাতাহাতির ঘটনা ঘটে। বিক্ষোভকারীরা পুলিশকে লক্ষ্য করে ইটপাটকেল ছোড়ে। পরে পুলিশ বিক্ষোভকারীদের ছত্রভঙ্গ করে দেয়। সদর থানার ওসি শহীদুল ইসলাম জানান, পরিস্থিতি বর্তমানে নিয়ন্ত্রনে রয়েছে। গুরুত্বপূর্ণ সকল স্থানে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। জেলা মহিলা দলের সভানেত্রী রহিমা সিকদারের নেতৃত্বে শহরে একটি ঝাড়ু মিছিল বের হয়। মিছিলটি শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে জেলা বিএনপির কার্যালয়ের সামনে এসে শেষ হয়। সেখানে তারা প্রধান নির্বাচন কমিশনারের কুশপুত্তলিকা দাহ করে রাস্তায় অবস্হান নেয়ার চেষ্টা করলে পুলিশী বাধায় তা ব্যর্থ হয়। পরে তারা বিএনপির কার্যালয়ের ভিতরে অবস্থান নেয়।

এদিকে সকালে একইভাবে টঙ্গীবাড়ি উপজেলার বেতকায় জেএম পরিবহনের একটি বাসে অগুন দেয়া হয়। লোকজন তাৎক্ষনিক আগুন নিয়ন্ত্রনে আনলেওবাসের অংশ পুড়ে যায়। টঙ্গীবাড়ি থানার ওসি আব্দুল মালেক জানান, বাসটি রাস্তার পাশে পার্কিং করা ছিল। সকালে কে বা কারা বাসের পেছনের অংশে আগুন ধরিয়ে দেয়। এ সময় বাসে কেউ ছিল না। তদন্ত চলছে। তিনি আরও জানান উপজেলার কোথাও কোন অপ্রীতিকর কিছু ঘটেনি। কোন পিকেটিংও হয়নি।

ঢাকা-মাওয়া ও ঢাকা-চট্রগাম মহাসড়কে লোকাল যানবাহন চলছে স্বাভাবিকভাবে। তবে দুর পাল্লার যান চলচল করতে দেখা যাচ্ছে না। স্বাভাবিক ভাবেই চলছে ছোট-বড় যানবাহন। তবে মাওয়া ঘাটে ফেরি ও লঞ্চ চলছে স্বাভাবিক ভাবে । তবে যাত্রী ও যানবাহন কম থাকায় নিয়মিত চলাচলকারী লঞ্চ ও ফেরি গুলো ছেড়ে যাচ্ছে বিলম্বে। এছাড়া জেলার গজারিয়া, শ্রীনগর ও সিরাজদিখান উপজেলার কোথাও কোন অপ্রীতিকর ঘটনার খবর পাওয়া যায়নি।

স্বদেশ

Leave a Reply