মুন্সীগঞ্জের কৃষকরা আলু চাষে ব্যস্ত

potatoসারা বাংলাদেশের বর্তমানে সর্ব বৃহত প্রধান অর্থকরী ফসল হচ্ছে মুন্সীগঞ্জের আলু। মুন্সীগঞ্জে এখন আলু রোপনের ধুম পরেছে। জেলার সর্বত্র এখন আলু বীজ বপনে ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছে এ জেলার অর্ধলক্ষাধীক চাষী। গেলো ৪ বছরের লোকসান পুষিয়ে নিতে এবারও আলু রোপনে ব্যস্ত চাষীরা। দেশের মোট উৎপাদনের প্রায় ৬০ ভাগ আলু উৎপাদন হয় এই মুন্সীগঞ্জে। এ জেলার কৃষকরা তাদের স্ত্রী-কন্যার গয়না-গাটি বন্ধক রেখে, মহাজনদের থেকে ধার-কর্জ করে সকল পুঁজি খাটায় এ আলু চাষে। গতবার আলুতে লাকসান হলেও আগ্রহের ভাটা পড়তে দেখা যাচ্ছে না চাষিদের চোখে মুখে। তাদেরও বিশ্বাস এবার আলুতে ভাল দাম পাওয়া যাবে। তবে সরকারীভাবে আলু কিনে বা আলুতে ভর্তুকি দিলে লোকসানের ঘানি টানতে হতো না বলে আলু চাষীদের। তাদের দাবী সরকার সব ধরনের সারের দাম কমালে উৎপাদন খরচ কম পড়তো।

কৃষি স¤প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্রমতে, এ জেলার কৃষকরা আলু চাষে প্রচুর সার ও কিটনাশক ব্যবহার করে বলে উৎপাদন খরচ বেশি পড়ে। এবার মুন্সীগঞ্জে আলু আবাদেরর লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করেছে ৩৬ হাজার ৯৮২ হেক্টর জমি এবং উৎপাদনে লক্ষ্যমাত্রা প্রতি হেক্টর জমিতে ৩৩ মেট্রিকটন, যা জাতীয় উৎপাদনের প্রায় দ্বিগুণ। গতবছর আলু চাষ করা হয়েছিল ৩৭ হাজার ৩৩০ হেক্টর জমিতে এবং আলু উৎপাদন হয়েছিল ১২ লক্ষ্য ৫০ হাজার ৭০৪ মেট্রিক টন। এ বার বিএডিসি আলু বীজের দাম প্রতি কেজিতে ১০ টাকা কমানো হয়েছে। ইউরিয়া সার কেজি প্রতি ৪ টাকা কমানো হলেও টিএসপি এবং এমওপি সারের দাম কমানো হয়নি।

এ জেলায় ডায়মন্ড আলু বীজের চাহিদা বেশি। ৯৮ ভাগ আলু বীজ বপন করা হয় ডায়মন্ড জাতের। প্রায় ৮০ ভাগ আলু বীজ আসে কোল্ডস্টোরেজে সংরক্ষিত আলু বীজ থেকে। বাকি আলু বীজ আসে হল্যান্ডে থেকে আমদানীকৃত বাক্সজাত এবং বিএডিসির আলু বীজ থেকে। এবার বিএডিসির এ-গ্রেড ও বি-গ্রেডের আলু বীজ কেজি প্রতি ৮-১০ টাকা কমানো হয়েছে। এবার হল্যান্ডে থেকে আমদানীকৃত বাক্সজাত আলু বীজের দাম অনেক চড়া, ৫০ কেজি বাক্সেও দাম সাড়ে ১১ হাজার থেকে ১২ হাজার টাকা। গতবার এর দাম ছিল ৫ হাজার থেকে ৬ হাজার টাকা।
potato
মুন্সীগঞ্জ কৃষি স¤প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক কৃষিবিদ হাবিবুর রহমান জানান, মুন্সীগঞ্জে দেশের সবচাইতে বেশি আলু উৎপাদন হয়। গত বছর আলুতে কৃষকদের প্রচুর লোকসান হলেও এবার কৃষকরা আগ্রহ হারায়নি। এ অঞ্চলের কৃষকরা আলু চাষে অনেক অভিজ্ঞ। তারা প্রয়োজনের তুলনায় বেশি সার ও কীটনাশক ব্যবহার করে। তারা মনে করে বেশি সার দিলে বেশি আলু পাওয়া যায়। আসলে তা সঠিক নয়। সঠিক মাপে জমিতে সার ও কীটনাশক প্রয়োগ করা হলে উৎপাদন খরচ কম হবে এবং এতে লোকসান হওয়ার সম্ভাবনা থাকে না।

এবিনিউজ

Leave a Reply