মুন্সীগঞ্জের ৭টি বধ্যভূমি

BadhaBhumi1মুন্সীগঞ্জ জেলায় ৬টি উপজেলার মধ্যে ৩টি উপজেলায় অর্থ্যাৎ গজারিয়ায়, মুন্সীগঞ্জ সদর ও টঙ্গীবাড়ি উপজেলায় বধ্যভূমির তথ্য পাওয়া গেছে। এর মধ্যে গজারিয়া উপজেলায় অন্তত ৭টি বধ্যভূমির মধ্যে রয়েছে। এগুলোর মধ্যে রয়েছে-

গজারিয়া টিএন্ডটি অফিসের কাছের পাকা ব্রিজের কাছের গোসইরচর বধ্যভূমি এই অঞ্চলের সবচেয়ে বড় গণকবর। এখানে শতাধিক শহীদদের গণকবর দেয়া হয়। ’৭১ সালের ৯ মে গোসইরচর গ্রামে ১৩৫ জন নিরীহ নিরঅস্ত্র বাঙালিকে হত্যা করে হানাদার বাহিনী। অনেক লাশ পার্শ্ববর্তী ফুলদী নদীতে ভেসে যায়। এর দক্ষিণের দিকে নয়ানগর বধ্যভূমি। ’৭১ সালের মে গজারিয়ার যে ১০টি গ্রামে গণহত্যায় ৩৬০ জন বাঙালিকে হত্যা করা হয়েছিল তার একটি গ্রাম হচ্ছে নয়ানগর। এছাড়াও প্রধানের চর, বালুরচর, নাগেরচর, কলসেরকান্দি ও দড়িকান্দি এলাকায় ছড়িয়ে ছিটিয়ে রয়েছে গণ কবর।

BadhaBhumi2
অন্য গণকবরগুলের মধ্যে রয়েছে ফলদী নদী বধ্যভূমি (অসংখ্য মানুষকে হত্যার পর গজারিয়ার সোনারী মার্কেটের কাছে এই নদীতে ভসিয়ে দেয়া হয়), কাজীপুরা বধ্যভূমি (২ জনের গণকবর), করিংখা বধ্যভূমি(৫/৬ জনের গণকবর এখানে), ভবেরচর কলেজ রোড বধ্যভূমি (১২/১৩ জনের রয়েছে গণকবর এখানে), বাউশিয়া ফেরিঘাট বধ্যভূমি (পুরনো সিএন্ডবি ফেরিঘাট) বধ্যভূমি। ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের বর্তমান মেঘনা-গোমতী সেতুর পাশের এই বধ্যভূমিতেই চির নিদ্রায় শায়িত আছেন একেএম নজরুল ইসলাম কিরণ।


মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলার সাতানিখিল খাল বধ্যভূমি (কেওয়ার খাল বধ্যভূমি) এখানে ১৪ জন বুদ্ধিজীবীকে হত্যা করে ফেলে রাখা হয়। লাশগুলো সৎকার করারও সাহস পায়নি কেউ।

সরকারি হরগঙ্গা কলেজ বধ্যভূমি এখানে অগনিত মুক্তিকামী মানুষকে হত্যা করে, একটি গর্তেও ভেতরে ফেলে রাখাহত লাশগুলো। আরেকটি বধ্যভূমি হচ্ছে- পাঁচঘরিয়াকান্দি খাল বধ্যভূমি। এটি সরকারি হরঙ্গা কলেজের পাশের এই খালেই হত্যা করে ফেলে রাখ হয় বহু বাঙালিকে।
BadhaBhumi1
টঙ্গীবাড়ি উপজেলার আব্দুল্লাপুর পালবাড়ি বধ্যভূমি। এখানে অন্তত ১৭ জনকে হত্যা করে পালবাড়ি পুকুর পাড়ে ফেলে রাখা হয়।

বধ্যভূমিগুলো এখনও রয়েছে অযত্ন অবহেলায়। শুধুমাত্র সরকারি হরগঙ্গা কলেজ বধ্যভূমিটিতে সরকারিভাবে স্তম্ভ নির্মাণ করা হয়েছে, তাও অসম্পূর্ণ। স্থানীয়ভাবে আব্দুল্লাপুর পালবাড়ি বধ্যভূমি ও গজারিয়া টিএন্ডটি অফিসের কাছের বধ্যভূমিতে স্তম্ভ নির্মাণ করা হয়েছে কোন রকম। বাকি বধ্য রয়েছে অরক্ষিত অবস্থায়।

এছাড়া শ্রীনগর, লৌহজং ও সিরাজদিখান উপজেলায় কোন বধ্যভূমির সন্ধান এখনও পাওয়া যায়নি।
এর বাইরেও অজানা রয়েগেছে আরও অনেক বধ্যভূমি জানালেন মুক্তিযোদ্ধা মো. ইকবাল হোসেন ও সাবেক পৌর মেয়র এ্যাডভোকেট মুজিবুর রহমান। তাঁরা জানান, স্থানীয়ভাবে তথ্যাদি সংগ্রহ করে বধ্যভূমিগুলো চিহ্নিত করে সংরক্ষণ করা জরুরি।

মুন্সীগঞ্জ নিউজ

Leave a Reply