বিএনপি ক্ষমতায় এলে দেশে খুন-জঙ্গিবাদ বেড়ে যায়

Munshigonj-pmপ্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, বিএনপি-জামায়াত ক্ষমতায় এলে দেশে খুন ও জঙ্গিবাদ বেড়ে যায়। ২০০১ সালের নির্বাচনে তারা ক্ষমতায় এসে দেশে খুন, সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদ কার্যক্রম চালিয়ে দেশকে ব্যর্থ রাষ্ট্রে পরিণত করেছিলো।

শুক্রবার বিকেল সোয়া ৪টার দিকে মুন্সীগঞ্জ-২ আসনের আ’লীগ প্রার্থী ও জাতীয় সংসদের হুইপ সাগুফতা ইয়াসমিন এমিলি’র নির্বাচনী জনসভায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রধান অতিথির বক্তব্যে দেওয়া শুরু করেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, বিএনপি নেতা খালেদা জিয়ার জন্ম বাংলাদেশে হয়নি। তার জন্ম হয়েছে ভারতের শিলিগুড়িতে। এজন্য দেশের জন্য তার কোনো মায়া নেই।

তিনি বর্তমানে যুদ্ধাপরাধীদের দল জামায়াত ইসলামীকে নিয়ে দেশের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র শুরু করে। পেট্রোল দিয়ে আগুনে পুলিশসহ সাধারণ মানুষকে হত্যা করে যাচ্ছে।
Munshigonj-pm
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, বিএনপির সময় দেশে বিদ্যুতের অবস্থা খুবই নাজুক ছিল। আ’লীগ নেতৃত্বাধীন মহাজোট সরকার ক্ষমতায় এসে ১০ হাজার মেঘাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন করেছে। ৫৪টি বিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মাণ করেছি। ৩৪টির কাজ সমাপ্তের পথে। এগুলোও দ্রুত উৎপাদনে যাবে।

তিনি আরো বলেন, আ’লীগ সরকার অপানাদের ভোটে আবারও ক্ষমতায় এলে ২০২১ সালের মধ্যে দেশে হাজার মেঘাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন করা হবে।

লৌহজং উপজেলা আ’লীগের সভাপতি ফকির আব্দুল হামিদের সভাপতিত্বে জনসভায় আরো বক্তব্য রাখেন- প্রেসিডিয়াম সদস্য নূহ আলম লেলিন, জাতীয় সংসদের হুইপ ও আ’লীগ প্রার্থী সাগুফতা ইয়াসমিন এমিলি, কেন্দ্রীয় কমিটির স্বাস্থ্য বিষয়ক সম্পাদক ডা. বদিউজ্জামান ডাবলু, জেলা আ’লীগ সভাপতি ও জেলা পরিষদ প্রশাসক মোহাম্মদ মহিউদ্দিন, মুন্সীগঞ্জ-৩ আসনে বেসরকারি ভাবে নির্বাচিত আ’লীগ প্রার্থী মৃণাল কান্তি দাস, কেন্দ্রীয় নেত্রী ফজিলাতুননেছা ইন্দিরা এমপি, জেলা আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক শেখ লুৎফর রহমানসহ কেন্দ্রীয় ও স্থানীয় নেতারা।


এদিকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আগমনে প্রিয় নেত্রীকে দেখতে শুক্রবার বেলা ১১টার পর থেকে জেলার বিভিন্ন স্থান থেকে খণ্ড খণ্ড মিছিল নিয়ে আ’লীগ প্রার্থী সাগুফতা ইয়াসমিন এমিলির জনসভায় জড়ো হন।

বিকেল সাড়ে ৩টার দিকে লৌহজং কলেজ মাঠ ও আশপাশ এলাকা আ’লীগ নেতাকর্মীদের মিলনমেলায় পরিণত হয়েছে।

এরপর তিনি শ্রীনগর স্টেডিয়ামে অন্য একটি জনসভায় ভাষণ দেওয়ার উদ্দেশে রওয়ানা হন।

কাজী দীপু – বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর
======================

খালেদা জিয়ার বিচারও একদিন বাংলার মাটিতে হবে – প্রধানমন্ত্রী

আরিফ হোসেন: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন বিএনপি-জামায়াত মানুষ হত্যায় মেতেছে। তারা এখন আগুন দিয়ে মানুষ পুড়িয়ে মারছে। দায়িত্বরত পুলিশের উপরও হামলা হচ্ছে। এসকল কর্ম কান্ডের হুকুমদাতা হিসাবে খালেদা জিয়ার বিচার একদিন এই বাংলার মাটিতে হবে। শুক্রবার বিকাল পাচঁটায় শ্রীনগর ষ্টেডিয়ামে মুন্সীগঞ্জ-১ আসনের আওয়ামী লীগ প্রার্থী সুকুমার রঞ্জন ঘোষের নির্বাচনী জনসভায় তিনি এসব কথা বলেন।

শেখ হাসিনা বিএনপি ও জামায়াত শিবিরকে উদ্দেশ্য করে আরো বলেন, আন্দোলনের নামে তারা একাত্তর সালের মতো জ্বালাও পোড়াও, নির্যাতন, লুটতরাজ করছে, মানুষ খুন করছে। এই খুনিদের ঠাই বাংলার মাটিতে হবেনা। এই খুনিদের প্রতিহত করতে হবে। বাংলার মানূষ শান্তি চায়, উন্নতি চায়। শান্তি খালেদা জিয়ার পছন্দ না। দশ মিনিটের বক্তব্যে তিনি খালেদা জিয়াকে অশান্তি বেগম হিসাবে আখ্যায়িত করে বলেন খালেদা জিয়া জরিমানা দিয়ে কালো টাকা সাদা করেছেন তাই তার কোন অসুবিধা নাই। জামায়াত হাইকোর্টের নির্দেশে নির্বাচন করতে পারবেনা বলে খালেদা জিয়া শোকে কাতর হয়ে নির্বাচনে আসেননি। তারা যুদ্ধা অপরাধের বিচারেও বাধার সৃষ্টি করছে। আমার জাতীর জনকের হত্যার বিচার করেছি, বিডিআর হত্যার বিচারও হয়েছে। আমরা নৌকায় ভোট দিয়ে স্বাধীনতা পেয়েছি।


এবার আওয়ামী লীগ নির্বাচনে জয়ী হয়ে সরকার গঠন করে প্রত্যেক উপজেলায় ন্যুন্যতম একটি করে সরকারী স্কুল-কলেজ ও একটি করে কেন্দ্রিয় মসজিদ নির্মান করবে বলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ঘোষনা দেন। উন্নয়নের ধারাকে অব্যাহত রাখতে শেখ হাসিনা আওয়ামী লীগ প্রার্থী সুকুমার রঞ্জন ঘোষকে ভোট দিতে উপস্থিত সকলের প্রতি আহবান জানান।

সুকুমার রঞ্জন ঘোষের সভাপতিত্বে সভায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন মুন্সীগঞ্জ-৩ আসনের নবনির্বাচিত আওয়ামী লীগ প্রাথী মৃণাল কান্তি দাস, আওয়ামী লীগ কেন্দ্রিয় উপকমিটির সহ সম্পাদক গোলাম সারোয়ার কবির, সিরাজদিখান উপজেলা চেয়ারম্যান মহিউদ্দিন আহমেদ, শ্রীনগর উপজেলার ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান সেলিম আহমেদ ভূইয়া, উপজেলা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক তোফাজ্জল হোসেন প্রমূখ।

================

ভোটাধিকার প্রয়োগে বাধা দিলেই প্রতিরোধ

আসন্ন দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ভোটাধিকার প্রয়োগে বাধা দেওয়া হলে কঠোরভাবে বাধাদানকারীদের প্রতিরোধ করা হবে বলে ঘোষণা দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

শুক্রবার বিকালে মুন্সিগঞ্জে মাওয়া ও শ্রীনগেরে নির্বাচনী জনসভায় এ ঘোষণা দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

আসছে ৫ জানুয়ারী উৎসবমুখর পরিবেশে ভোট গ্রহন অনুষ্ঠিত হবে উল্লেখ করে সকল জনগণকে ভোটাধিকার প্রয়োগের আহ্বান জানান প্রধানমন্ত্রী।

তিনি বলেন, নির্বাচন প্রতিহতে বিএনপি নেতৃত্বাধীন জোটের কর্মসূচি এবং রাজশাহীতে বোমা ছুড়ে পুলিশ হত্যার ঘটনার ঘটানো হয়েছে।

জনসভায় খালেদা জিয়াকে ‘অশান্তির নেত্রী’ হিসাবেও আখ্যায়িত করেন প্রধানমন্ত্রী বলেন, দেশের মানুষ শান্তিতে থাকুক বিএনপি নেত্রী তা চান না।

খালেদা জিয়ার নির্দেশেই জামায়াত সারা দেশে তান্ডব চালিয়ে মানুষ হত্যা করেছে বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, পাকিস্তানের পার্লামেন্টে শোক প্রস্তাব পাশে উনি মর্মাহত হননি, কাদের মোল্লার ফাঁসিতে তিনি মর্মাহত হয়েছেন।

শেখ হাসিনা বলেন, আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার পর বাংলাদেশ ‘জঙ্গি ও সন্ত্রাসী রাষ্ট্রের কলঙ্ক’ থেকে মুক্ত হয়েছে।এখন বাংলাদেশ একটি উন্নয়নের রোল মডেলে পরিণত হয়েছে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, নৌকা মার্কা মানে কৃষকের মুখে হাসি, নৌকা মার্কা মানে উন্নয়ন, নৌকা মার্কা মানেই দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন।

তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ সরকার গত পাঁচ বছরে এক কোটি মানুষের কর্মস্থানের ব্যবস্থা করেছে, দারিদ্র-বেকারত্ম দূর করে একটি শান্তির বাংলাদেশ গড়ে তুলেছে।

তিনি বলেন আওয়ামী লীগ দেশকে গড়তে ও ভালবাসতে জানে কিন্তু বিএনপি এ ধারাকে সহ্য করতে পারে না তাই তারা নাশকতা চালিয়ে প্রতিদিন কোটি কোটি টাকার জানমালের ক্ষতি সাধন করছে।

পদ্মাসেতু নিমার্নের কাজ শুরু করা হয়েছে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, এ নির্বাচনের পরেই পদ্মা সেতু নির্মানের মূল কাজ শুরু করা হবে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, বিএনপির দেশ নিয়ে কোনো চিন্তা নেই কারন বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা সেনা বাহিনীর খলনায়ক হয়ে ক্ষমতায় এসেছেন অন্যদিকে খালেদা জিয়ার জন্ম ভারতের শিলিগুড়িতে সে কারনে তাদের পক্ষে দেশের মানুষের ভাল মন্দ উপলব্ধি করার কথাও নয়।

তিনি বলেছেন- আমাদের রোডম্যাপ ২০২১ সাল। তখন আমরা স্বাধীনতার সূবর্ন জয়ন্তি পালন করবো।

আমরা এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছি দেশ। আমরা বাংলাদেশকে ক্ষুধা মুক্ত, দারিদ্রমুক্ত হিসেবে গড়ে তুলবো, ইনশাআল্লাহ জাতির পিতার স্বপ্ন আমরা পুরন করবো। আগামী নির্বাচনে নৌকা মার্কায় ভোট দিন।

তিনি বলেন, সব বাঁধা ডিঙ্গিয়ে ৫ জানুয়ারির নির্বাচন হবেই। আপনাদের ভোটারের অধিকার, ভোটের অধিকার রয়েছে। তাই আপনারা ভোট কেন্দ্রে যাবেন, ভোট দিবেন, বাঁধা এলে প্রতিরোধ গড়ে তুলবেন। আপনাদের প্রত্যেকের কাছে আমি একখানা করে নৌকায় ভোট চাই।

এ সময় মুন্সীগঞ্জ-২ আসনের দলীয় মনোনীত প্রার্থী সাগুফতা ইয়াসমিনকে পরিচয় করিয়ে দিয়ে তাকে নৌকা মার্কায় ভোট দিতে বলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এ সময় প্রধানমন্ত্রীর লৌহজং কলেজ মাঠের জনসভায় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন।

এদিকে প্রধানমন্ত্রীর আগমনকে কেন্দ্র করে উৎসবের নগরীতে পরিনত মুন্সীগঞ্জের লৌহজং ও শ্রীনগর উপজেলা। ব্যাপক নিরাপত্তার চাদরে ঢেকে দেওয়া হয় জনসভাস্থল। সকাল থেকেই যৌথ বাহিনীরি সদস্যরা ডগ স্কোয়াড নিয়ে জনসভার জন্য প্রস্তুত করা মঞ্চ ঘিরে রাখে। বেলা ১২টার পর থেকে খন্ড খন্ড মিছিল নিয়ে দলীয় নেতাকর্মীরা জনসভাস্থলে আসতে শুরু করে। দুপুর ২টার মধ্যে লৌহজং ডিগ্রী কলেজ মাঠের জনসভাস্থল জনসমুদ্রে পরিনত হয়। প্রধানমন্ত্রীর পৃথক দুটি জনসভায় যোগ দিতে জেলা শহর ও আশপাশের এলাকা থেকে নেতাকর্মীরা আসেন দলে দলে। মিছিল শ্লোগানে নৌকা, নৌকা ধ্বতি উচ্চকিত হতে থাকে। ব্যানার, ফেস্টুন, তোড়নে সাজানো হয় সড়ক-মহাসড়ক।

লৌহজং নির্বাচনী জনসভায় উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি ফকির আবদুল হামিদের সভাপতিত্বে অন্যান্যের মধ্যে আরও উপস্থিত ছিলেন, স্থানীয় সংসদ সদস্য সাগুফতা ইয়াসমিন এমিলি, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও জেলা পরিষদ প্রশাসক মোহাম্মদ মহিউদ্দিন, মুন্সীগঞ্জ-৩ আসনে বেসরকারী ভাবে বিনা প্রতিদন্দিতায় নির্বাচীত সংসদ সদস্য এডভোকেট মৃণাল কান্তি দাস, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব শেখ লুৎফর রহমান প্রমূখ।

পরে প্রধানমন্ত্রী সন্ধ্যার একটু আগে জেলার শ্রীনগর স্টেডিয়ামে মুন্সীগঞ্জ-১ আসনের আওয়ামী লীগ মনোননীত প্রার্থী সুকুমার রঞ্জন ঘোষের নির্বাচনী জনসভায় ভাষণ দেন।

যমুনা নিউজ
=======

জামায়াত একটি জঙ্গী সংগঠন : প্রধানমন্ত্রী

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন-জামায়াত একটি জঙ্গী সংগঠন। জামায়াত নির্বাচনে না আসায় বিএনপি আসেনি। আগামী ৫ই জানুয়ারির নির্বাচনে বাঁধা এলে তা প্রতিরোধ করা হবে। বাংলাদেশের মানুষ ভোট দেবে। ভোটে বাঁধা দেয়ার ক্ষমতা বিএনপি-জামায়াতের নেই। তিনি বলেন, বিএনপি-জামায়াতের আন্দোলন মানে মানুষ খুন করা। পুলিশ হত্যা করা। বাসে নিরীহ মানুষ চলাচল করে। বাসের মধ্যে আগুন দিয়ে বাস জ্বালিয়ে দিয়ে মানুষ হত্যা করা। এভাবে জামায়াতকে নিয়ে বিএনপি নেত্রী মানুষ খুন করছে। তারা বাংলাদেশকে ব্যর্থ রাষ্ট্র বানাতে চাইছে। কিন্ত তা হবে না, হতে দেয়া হবে না।

অতীতেও তারা দেশের স্বাধীনতা চায়নি বলে একের পর এক পুলিশ, বিজিবি, সেনা সদস্যসহ সাধারণ মানুষ পুড়িয়ে হত্যা করছে । ১৯৭১সালেও তারা পাকিস্থানী হানাদার বাহিনীর হাতে আমাদেও মা-বোনকে তুলে দিয়েছিল। তারা ক্ষমতায় থেকে দেশের মানুষের অর্থনৈতিক মুক্তি এনে দেয়নি। তারা লুটে খেয়েছে, দেশের টাকা বিদেশে পাচার করেছে। আমরা ক্ষমতায় এসে প্রাথমিক পর্যায়ে বৃত্তি, মাধ্যমিক ৪০ লাখসহ ১লাখ ৩৩ হাজার গরীব-অসহায় ছাত্র-ছাত্রীর মাঝে বৃত্তি দেয়ার ব্যবস্থা করেছি।বিদ্যুৎ উৎপাদন কিেছ। ১লাখের মতো যুবকের কর্মসংস্থান করেছি।

৩ কোটি ৮৬ লক্ষ্য মানুষ ইন্টারনেট সেবা ভোগ করেছে। দেশ এখন অনেক এগিয়ে গেছে । তাই তিনি সকলকে নৌকা মার্কায় ভোট দেয়ার আহবান জানান। আগামীতে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় এলে প্রতিটি উপজেলায় একটি করে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান সরকারীকরণ করার অঙ্গীকার ব্যক্ত করেন তিনি। দারিদ্র ও ক্ষুদামুক্ত বাংলাদেশ গড়াই আমাদের লক্ষ্য। আর সে লক্ষ্যে বাংলাদেশকে আমরা এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছি।

তিনি শুক্রবার বিকেল ৪টার লৌহজং উপজেলা কলেজ মাঠে মুন্সীগঞ্জ-আসনের আওয়ামী লীগের প্রার্থী হুইপ সাগুফতা ইয়াসমিন এমিলির নির্বাচনী জনসভায় প্রধান অতিথির ভাষণদানকালে এসব কথা বলেন। লৌহজং উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ফকির আব্দুল হামিদের সভাপতিত্বে সভায় অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন- আওয়ামীলীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য নূহ- উল আলম লেলিন, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মোহাম্মদ মহিউদ্দিন, সাধারণ সম্পাদক লুৎফর রহমান, আওয়ামী লীগের মহিলা বিষয়ক সম্পাদিকা ফজিলাতুন্নেছা ইন্দিরা, স্বাস্থ্য ও জনসংখ্যা বিষয়ক সম্পাদক বদিউজ্জামান ভুইয়া ডাবলু, উপ-দপ্তর সম্পাদক এডভোকেট মৃণাল কান্তি দাস, এডভোকেট সানজিদা খানম প্রমুখ।

মুন্সীগঞ্জ বার্তা
========

খালেদা জিয়ার জন্ম বাংলাদেশে হয়নি: মুন্সীগঞ্জে প্রধানমন্ত্রী

প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা বলেছেন, “বিএনপির নেত্রীর জন্ম বাংলাদেশে নয়। উনার জন্ম ভারতের শিলিগুড়িতে। উনি বাংলাদেশি নন।” শুক্রবার লৌহজং কলেজ মাঠে স্থানীয় আওয়ামী লীগ আয়োজিত নির্বাচনী জনসভায় তিনি এ কথা বলেন।তিনি আরো বলেন, “বিএনপি নেত্রী জামায়াতকে সাথে নিয়ে মানুষ পুড়িয়ে মারছেন। মানুষ পুড়িয়ে মারার জন্য আপনার বিচার বাংলার মাটিতেই হবে। জামায়াত নির্বাচনে অংশ নিতে পারবে না বলেই বিএনপি নেত্রী নির্বাচনে আসেননি।”

তিনি সব বাঁধা ডিঙ্গিয়ে ৫ জানুয়ারির নির্বাচন অনুষ্ঠানের প্রত্যয় ব্যক্ত করেন। তিনি জনগনকে ভোট কেন্দ্রে যেতে বলেন এবং বাঁধা এলে প্রতিরোধ গড়ে তোলার আদেশ দেন। তিনি আরো বলেন, গরিব মানুষ ভাতে মারাই হচ্ছে বিএনপির কাজ। তিনি (খালেদা) ক্ষমতায় থাকতে মেলা টাকা কামাই করে রেখেছেন। এখন অবরোধ ডেকে ঘরে বসে টিভি দেখেন, মুরগির সুপ খান-রোস্ট চাবান। আর গরিব মানুষ ভাতে মরে।

মুন্সীগঞ্জ-২ আসনের সাগুফতা ইয়াসমিন এমিলিকে নৌকা মার্কায় ভোট দেওয়ার জন্য এলাকাবাসীর প্রতি আহ্বান জানান শেখ হাসিনা। উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ফকির মো. আব্দুল হামিদের সভাপতিত্বে জনসভায় দলের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য নূহ-উল আলম লেনিন, সাংগঠনিক সম্পাদক আহম্মেদ হোসেন, স্বাস্থ্য সম্পাদক বদিউজ্জামান ডাবলু, মহিলা সম্পাদক ফজিলাতুন্নেসা ইন্দিরা, সাগুফতা ইয়াসমিন এমিলি, সাংসদ সানজিদা খানম, দলের উপদপ্তর সম্পাদক মৃনাল কান্তি দাস, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মহিউদ্দিন, সাধারণ সম্পাদক শেখ লুৎফর রহমান, লৌহজং উপজেলা চেয়ারম্যান ওসমান গনি তালুকদার, টঙ্গীবাড়ি উপজেলা চেয়ারম্যান ইঞ্জিনিয়ার কাজী ওয়াহিদ, টঙ্গীবাড়ী আওয়ামী লীগের সভাপতি জগলুল হালদার ভুতু, সাধারণ সম্পাদক আসাদ আল বারেক ও লৌহজং উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আ. রশিদ শিকদার প্রমুখ।

এছাড়াও মুন্সীগঞ্জ-১ আসনের দলীয় প্রার্থী সুকুমার রঞ্জন ঘোষের সমর্থনে শ্রীনগর স্টেডিয়ামে এক জনসভায় সংক্ষিপ্ত বক্তব্য রাখেন শেখ হাসিনা।দলের উপজেলা সভাপতি সুকুমার রঞ্জন ঘোষের সভাপতিত্বে সভায় বক্তব্য রাখেন মৃনাল কান্তি দাস, মহিউদ্দিন আহম্মেদ, শ্রীনগর উপজেলার ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান সেলিম আহম্মেদ ভূইয়া, শ্রীনগর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক তোফাজ্জল হোসেন, সিরাজদিখান উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এসএম সোহরাব হোসেন ও গোলাম সরওয়ার কবির।

মুন্সিগঞ্জ টাইমস
=========

মানুষ পুড়িয়ে মারার বিচার হবে: প্রধানমন্ত্রী

হরতাল-অবরোধসহ বিরোধী জোটের কর্মসূচিতে পুড়িয়ে মানুষ হত্যার বিচার দেশের মাটিতেই হবে বলে মন্তব্য করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

এছাড়া ৫ জানুয়ারির নির্বাচনে কোনো বাধা এলে তা প্রতিরোধ করে ভোটের অধিকার প্রয়োগের জন্য জনগণের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন তিনি।

শুক্রবার বিকালে মুন্সীগঞ্জে আওয়ামী লীগ আয়োজিত দুটি নির্বাচনী জনসভায় প্রধান অতিথির ভাষণে এসব কথা বলেন দলের সভানেত্রী।

বিরোধী দলীয় নেত্রী খালেদা জিয়ার উদ্দেশ্যে তিনি বলেছেন, “বিএনপি নেত্রী জামায়াতকে সাথে নিয়ে মানুষ পুড়িয়ে মারছেন। … মানুষ পুড়িয়ে মারার জন্য আপনার বিচার বাংলার মাটিতেই হবে।”

বিরোধী জোটের কর্মসূচির কারণে ব্যবসা-বাণিজ্য সব বন্ধ হওয়ায় গরিবের পেটে লাথি পড়ছে উল্লেখ তিনি বলেন, “তিনি (খালেদা) ক্ষমতায় থাকতে মেলা টাকা কামাই করে রেখেছেন। এখন অবরোধ ডেকে ঘরে বসে টিভি দেখেন, মুরগির সুপ খান-রোস্ট চাবান। আর গরিব মানুষ ভাতে মরে। এটাই হচ্ছে বিএনপির কাজ।”

বিকালে মুন্সীগঞ্জের লৌহজং কলেজ মাঠে উপজেলা আওয়ামী লীগের আয়োজনে এই জনসভা হয়।

বিএনপির উদ্দেশ্যে প্রধানমন্ত্রী বলেন, জঙ্গী সংগঠন হিসাবে জামায়াতকে নিষিদ্ধ করে হাই কোর্ট রায় দেওয়ায় দলটি নির্বাচনে অংশ নিতে পারবে না। আর জামায়াতের শোকে বিএনপি নেত্রী নির্বাচনে অংশ না নিয়ে তা বানচালের হুকুম দিয়েছেন।

জনগণের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, আগামী ৫ জানুয়ারি নির্বাচন। সেই নির্বাচনে আপনারা সকলে অংশগ্রহণ করবেন, ভোট দেবেন। কেউ যদি বাধা দিতে এলে প্রতিরোধ গড়ে তুলবেন, যাতে আপনাদের অধিকারে কেউ বাধা দিতে না পারে।

মুন্সীগঞ্জ-২ আসনের আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী সাগুফতা ইয়াসমিন এমিলিকে ভোট দেওয়ার জন্য এলাকাবাসীর প্রতি আহ্বান জানান শেখ হাসিনা।
PM_06
উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ফকির মো. আব্দুল হামিদের সভাপতিত্বে জনসভায় দলের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য নূহ-উল আলম লেনিন, সাংগঠনিক সম্পাদক আহম্মেদ হোসেন, স্বাস্থ্য সম্পাদক বদিউজ্জামান ডাবলু, মহিলা সম্পাদক ফজিলাতুন্নেসা ইন্দিরা, সাগুফতা ইয়াসমিন এমিলি, সাংসদ সানজিদা খানম, দলের উপদপ্তর সম্পাদক মৃনাল কান্তি দাস, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মহিউদ্দিন, সাধারণ সম্পাদক শেখ লুৎফর রহমান, লৌহজং উপজেলা চেয়ারম্যান ওসমান গনি তালুকদার, টঙ্গীবাড়ি উপজেলা চেয়ারম্যান ইঞ্জিনিয়ার কাজী ওয়াহিদ, টঙ্গীবাড়ী আওয়ামী লীগের সভাপতি জগলুল হালদার ভুতু, সাধারণ সম্পাদক আসাদ আল বারেক ও লৌহজং উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আ. রশিদ শিকদার প্রমুখ।

এর আগে শ্রীনগর স্টেডিয়ামে মুন্সীগঞ্জ-১ আসনের দলীয় প্রার্থী সুকুমার রঞ্জন ঘোষের সমর্থনে এক জনসভায় সংক্ষিপ্ত বক্তব্য রাখেন শেখ হাসিনা।

দলের উপজেলা সভাপতি সুকুমার রঞ্জন ঘোষের সভাপতিত্বে সভায় বক্তব্য রাখেন মৃনাল কান্তি দাস, মহিউদ্দিন আহম্মেদ, শ্রীনগর উপজেলার ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান সেলিম আহম্মেদ ভূইয়া, শ্রীনগর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক তোফাজ্জল হোসেন, সিরাজদিখান উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এসএম সোহরাব হোসেন ও গোলাম সরওয়ার কবির।

এর আগে নির্বাচনী প্রচারের দ্বিতীয় দিন গোপালগঞ্জের কেটালীপাড়া শহীদ মিনার চত্বরে এক কর্মীসভায় বক্তব্য দেন শেখ হাসিনা।

বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর
=============

Leave a Reply