ফেরারি আসামির ভিডিওকে গুরুত্বহীন বললেন অ্যাটর্নি জেনারেল

mahbube alam tareqবিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমান লন্ডন থেকে পাঠানো ভিডিও বার্তায় ১৯৭২ এর সংবিধানকে ‘গণআকাঙ্খাবিরোধী’ বলায় তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম। এছাড়া তার এই ভিডিওবার্তাকে সম্পূর্ণ গুরুত্বহীন বলে মত দিয়েছেন তিনি।

তারেক রহমানকে অর্বাচীন উল্লেখ করে তার বক্তব্যকে রুচিহীন বলেও মন্তব্য করেছেন দেশের প্রধান আইন কর্মকর্তা।

৫ জানুয়ারির নির্বাচন বয়কট ও প্রতিহত করার ডাক দিয়ে শনিবার লন্ডন থেকে পাঠানো এক ভিডিও বার্তায় তারেক রহমান দেশের সংবিধান নিয়ে কথা বলেন।


তারই এক অংশে তিনি ৭২’র আদি সংবিধানকে ‘গণআকাঙ্খাবিরোধী’ বলে উল্লেখ করেছেন।

এ প্রসঙ্গে অ্যাটর্নি জেনারেল সংবিধানের ব্যাপারে তারেক রহমানের কথা বলার যোগ্যতা নিয়েও প্রশ্ন তোলেন। তিনি বলেন, তারেক রহমানের যে শিক্ষাগত যোগ্যতা তাতে সংবিধানকে মূল্যায়ন করতে পারেন না।

তারেক রহমান তার ২২ মিনিটের ভিডিও বার্তায় বাংলাদেশের সংবিধান প্রসঙ্গে বলেন, সংবিধান তো ঐশী বাণী নয় যে এটিকে পরিবর্তন করা যাবে না। দেশের প্রত্যেকটি মানুষের মত আমিও প্রশ্ন করতে চাই: সংবিধানের জন্য জনগণ, নাকি জনগণের জন্য সংবিধান? জনগণের আশা-আকাঙ্খার প্রতিফলন ঘটাতে এ পর্যন্ত ১৫ বার আমাদের সংবিধান সংশোধিত হয়েছে। এমনকি পার্শ্ববর্তী দেশের সংবিধানে যদি ৯৮ বার সংশোধন এসে থাকে, তাহলে জনগণের চাওয়া অনুযায়ী, দেশ ও দেশের মানুষের কল্যাণে, আমরা কেন ষোড়শ সংশোধনী করতে পারব না? নির্দলীয় সরকারের দাবি অসাংবিধানিক বলে সরকার এটিকে প্রত্যাখ্যান করছে। এটিই যদি তাদের যুক্তি হয়, তবে আমাদের সংবিধানের একটি সংশোধনও করা সম্ভব হত না। আমরা পড়ে থাকতাম সেই ১৯৭২ এর গণআকাংখা বিরোধী সংবিধানে।

এ বিষয়ে কথা বলতে গিয়ে অ্যাটর্নি জেনারেল তারেক রহমানের ভিডিও বার্তাটি সংবাদ মাধ্যমে প্রকাশ করার ব্যাপরেও তার মত দেন। তিনি বলেন, একজন ফেরারি আসামির ভিডিও বার্তা মিডিয়া কেনো প্রকাশ করবে? কেউ যখন জেলখানায় থাকেন তার বক্তব্য কী প্রকাশ করা যায়? প্রশ্ন তুলে মাহবুবে আলম বলেন, সাজাপ্রাপ্ত ফেরারি আসামির রাজনৈতিক বক্তব্য প্রকাশ করে সংবাদমাধ্যগুলো ভুল করেছে।

তারেক রহমানের সংবিধান বিষয়ক বক্তব্যের প্রসঙ্গ মাহবুবে আলম আরও বলেন, পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর নির্যাতন থেকে মুক্তি অর্জনের পর দেশে সংবিধান রচিত হয়েছে। তারাই এর রচয়িতা যারা নির্যাতন দেখেছেন ও সহ্য করেছেন। তাদের সেই আবেগ এবং একটি স্বাধীন সার্বভৌম জাতি গঠনে তাদের প্রত্যাশার প্রকাশ ঘটেছে এই সংবিধানে একে হেয় করে কথা বলা অর্বাচীনদেরই সাজে।

এমন বিষয়ে কথা বলতে রুচিতে বাধে বলেও মন্তব্য করেন অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম।

আমাদের সময়

Leave a Reply