ইমন কিলিং মিশনের খুনী দম্পতি গ্রেপ্তার

sssনারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলার ফতুল্লার দুর্গম চরাঞ্চল বক্তাবলীর চররাধানগর এলাকায় স্কুল ছাত্র ইমন হোসেনকে নৃশংসভাবে ৯ টুকরো করে কিলিং মিশনের মূল পরিকল্পনাকারী বংশীয় চাচা সিরাজ মিয়া (৪২) ও তার স্ত্রী সালমাকে (৪০)-গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। রোববার বিকেলে মুন্সীগঞ্জ শহরের দক্ষিণ ইসলামপুরের একটি ভাড়া বাসা থেকে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়।

মুন্সীগঞ্জ সদর থানার পরিদর্শক (তদন্ত) ইয়ারদৌস হাসান জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে মুন্সীগঞ্জ সদর ও ফতুল্লা মডেল থানা পুলিশের যৌথ অভিযানে তাদেরকে গ্রেপ্তার করা হয়।


এর আগে এই চাঞ্চল্যকর হত্যাকান্ডের ঘটনায় ২০১৩ সালের ২১ জুলাই গ্রেপ্তারকৃত কিলার নাহিদ আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দীতে উল্লেখ করেন, ২ বছর আগে ইমনের বড় ভাই ইকবাল (সিঙ্গাপুর প্রবাসী) এর সঙ্গে চাচা আহাম্মদ আলীর মধ্যে ঝগড়ায় লাঠির আঘাতে বংশীয় চাচা আহাম্মদ আলীর মাথা ফেটে যায়। ওই ঘটনার প্রায় ২ বছর পর ইকবালের পরিবারের উপর প্রতিশোধ নিতে ইমনকে হত্যার পরিকল্পনা অনুযায়ী ১৩ জুন রাত সাড়ে ৮টায় ইমনকে ডেকে নেন চাচা সিরাজ মিয়ার স্ত্রী সালমা বেগম। তিনি নিজেই ইমনকে ভাতের সঙ্গে অচেতন নাশক বস্তু মিশিয়ে দেন। ওই ভাত খাওয়ার পর ইমন অচেতন হয়ে পড়ে।

পরে তাকে একটি নৌকায় করে নাহিদসহ অন্য কিলাররা মিলে ইমনকে বাড়ির অদূরের একটি ধইঞ্চা ক্ষেতে নিয়ে যায়। সেখানে কিলার আহাম্মদ আলী একটি ধারালো ছুরি দিয়ে জবাই করে শরীর থেকে মাথা বিচ্ছিন্ন করে ফেলে। অপর আসামী সেন্টু তার হাতে থাকা চাপাতি দিয়ে ইমনের দুই হাত ও বুকের মাঝে আঘাত করে শরীর বিচ্ছিন্ন করে দেয়। আর নাহিদ তার হাতে থাকা চাকু দিয়ে দুই পা উরু হতে বিচ্ছিন্ন করে ফেলে।

অন্য আসামী সিরাজ চাপাতি দিয়ে শরীর বিচ্ছিন্ন করে। ইমনের উপর যখন হায়েনারা এভাবে ঝাপিয়ে পড়ে তখন সালমা ও হুসনা মিলে ইমনকে ধরে রেখেছিল। লাশ ৯ টুকরো করার পর খন্ড বিখন্ড লাশের টুকরো ধইঞ্চা ক্ষেতের ভেতরে পানির মধ্যে ছড়িয়ে ছিটিয়ে ফেলা দেওয়া হয়। রক্তমাথা নৌকা, চাকু, চাপাতি পানিতে পরিস্কার করে যার যার বাড়িতে চলে যায় ঘাতকরা।

উল্লেখ্য ২০১৩ সালের ২২ জুন বাসভবনের আধা কিলোমিটার দূরবর্তী একটি ধইঞ্চা ক্ষেত থেকে বক্তাবলীর কানাইনগর উচ্চ বিদ্যালয়ের ৬ষ্ঠ শ্রেনীর ছাত্র ও চররাধানগর এলাকার ইসমাইল হোসেন রমজানের ৩য় ছেলে ইমন হোসেন (১৪) এর ৯ টুকরো লাশ উদ্ধার করা হয়।

মুন্সীগঞ্জ বার্তা

Leave a Reply