অর্থাভাবে সেতুর কাজ বন্ধ

sir bridঅর্থাভাবে চার বছর ধরে মুন্সীগঞ্জের সিরাজদিখান উপজেলার ইমামগঞ্জ-বাসাইল-রামকৃষ্ণদী সড়ক ও একটি সেতুর নির্মাণকাজ আটকে আছে। এতে দুর্ভোগে পড়েছে উপজেলার ১৫ গ্রামের দেড় লক্ষাধিক বাসিন্দা। তাদের বাসাইল বাজারের ঝুঁকিপূর্ণ একটি সরু সেতু পার হয়ে ঢাকায় যেতে হচ্ছে। প্রায় ৩০ বছর আগে নির্মিত ওই সরু সেতুর দুটি পিলারের একটির অর্ধেক ভেঙে গেছে। সেতুর ওপরে ও নিচে আস্তর খসে পড়েছে। শিগগিরই ওই সেতু ভেঙে প্রশস্ত সেতু নির্মাণ না করলে যে কোনো সময় বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটতে পারে বলে এলাকাবাসী আশঙ্কা প্রকাশ করছে।

এলাকাবাসী জানান, বাসাইল বাজারের পাশেই একটি খাল। খালের দুই পাশে ইমামগঞ্জ-বাসাইল-রামকৃষ্ণদী সড়কটি ছিল কাঁচা। তখন ওই মেঠোপথ দিয়ে তেমন কোনো ভারী যানবাহন চলত না। এলাকাবাসীর পারাপারের সুবিধার্থে খালের ওপর পাঁচ ফুট প্রশস্ত ওই সেতু নির্মাণ করে সরকার।

ওই মেঠোপথে এখন ইট বসেছে। ঢাকার কেরানীগঞ্জ উপজেলা সংলগ্ন বাসাইল ও পাশের লতব্দি ইউনিয়নের ১৫টি গ্রামের লোকজন প্রতিদিন রাজধানীতে গিয়ে চাকরি, ব্যবসা-বাণিজ্য ও পড়াশোনা করছেন। কয়েকটি ইউনিয়নের লোকজনকে ওই সেতু পার হয়ে উপজেলা সদরে যেতে হয়।
sir brid
এলাকাবাসীর দীর্ঘদিনের দাবির পরিপ্রেক্ষিতে স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর (এলজিইডি) ২০১০ সালে সরু ওই সেতু ভেঙে প্রশস্ত সেতু নির্মাণের জন্য অধিদপ্তরের ইউএনআর-জিডিপি প্রকল্পের আওতায় এক কোটি টাকার দরপত্র আহ্বান করে। সেতুর দুই পাশে এক কিলোমিটার পাকা সড়ক নির্মাণের জন্য একই প্রকল্পের আওতায় ৫০ লাখ টাকার দরপত্র আহ্বান করা হয়।

মেসার্স বাদল এন্টারপ্রাইজ সেতু নির্মাণ ও বিলিয়েন্ট কনস্ট্রাকশন সড়ক নির্মাণের কাজ পায়। তারা কার্যাদেশ পেয়েও অর্থাভাবে কাজ শুরু করতে পারেনি। একপর্যায়ে ২০১২ সালের ১২ জানুয়ারি তৎকালীন জিডিপি প্রকল্প পরিচালক জাহিদুর রহমান নির্মাণকাজ স্থগিত রাখার নির্দেশ দেন।

বাসাইলের বাসিন্দা শামসুজ্জামান বলেন, বর্ষাকালে সেতুর নিচ দিয়ে ট্রলার চলাচলের সময় একটি পিলার অর্ধেকের মতো ভেঙে গেছে। সেতুর আস্তর ধসে গিয়ে চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে।


রফিকুল ইসলাম বলেন, প্রায় সময় সরু ও ঝুঁকিপূর্ণ সেতুর দুই পাশে প্রাইভেট কার, মালবাহী ট্রাক, অ্যাম্বুলেন্স আটকে থাকতে দেখা যায়। অনেক সময় প্রাইভেট কার, রিকশাসহ ছোট ছোট যানবাহন ঝুঁকি নিয়েই সেতু পার হয়। যানবাহনের ধাক্কায় সেতুর দুই পাশের রেলিং ক্ষতিগ্রস্ত হয়।

সেতু নির্মাণের ব্যাপারে জিডিপি প্রকল্পের পরিচালক মো. নুরুল ইসলাম প্রথম আলোকে বলেন, প্রকল্পে টাকা না থাকায় কাজ বন্ধ করা হয়। এখন আবার সেই দরপত্র বাতিল করে পুনরায় দরপত্র প্রদান করে কাজ শুরু করা হবে।

প্রথমআলো

Leave a Reply