সরে যাচ্ছে মাওয়া ঘাট

mawa-2-munshiganjপদ্মা সেতু প্রকল্পের মূল সেতু নির্মাণে জন্য মাওয়া ঘাট সরিয়ে নেয়া হচ্ছে। আগামী মে মাসের মধ্যে বর্তমান ঘাটের পাশেই কান্দারপাড়ায় নতুন ফেরি ও লঞ্চ ঘাট তৈরির সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। প্রায় ৫২১ কোটি টাকা ব্যয়ে এই নতুন ঘাট এলাকায় ঘাটের পাশাপাশি বাসস্ট্যান্ড এবং সংযোগ সড়ক নির্মাণ করা হবে।

সেতু বিভাগ সূত্রে জানা যায়, পদ্মা সেতু প্রকল্পের মূল সেতু নির্মাণের দরপত্র ইতোমধ্যে গ্রহণ করা হয়েছে। এ প্রকল্পের নদী শাসন কাজের দরপত্র আগামী ২০ ফেব্র“য়ারি গ্রহণ করা হবে। সে হিসেবে আগামী জুন মাসে মূল সেতু নির্মাণের কাজ শুরু করার পরিকল্পনা রয়েছে। এ জন্য পদ্মা সেতু প্রকল্পের জন্য অধিগ্রহণ করা এলাকায় বিদ্যমান মাওয়া ঘাট আগামী মে মাসের মধ্যে অন্যত্র সরিয়ে নিতে নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়কে চিঠি দেয়া হয়েছে।


বিষয়টি স্বীকার করে নৌপরিবহন মন্ত্রী শাজাহান খান যায়যায়দিনকে বলেন, পদ্মা সেতু নির্মাণের জন্য মাওয়া ফেরিঘাট অন্যত্র সরিয়ে নেয়ার সিদ্ধান্ত হয়েছে। সেতু বিভাগের বেঁধে দেয়া সময়ের মধ্যে মাওয়া ঘাটটি স্থানান্তরের জন্য দ্রুততার সঙ্গে কাজ চলছে।

নৌপরিবহন মন্ত্রণালয় সূত্র জানায়, মাওয়া ঘাট দিয়ে দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের ২১টি জেলার প্রায় ৫০ হাজার মানুষ দৈনিক যাতায়াত করে। এ অঞ্চলের সব ধরনের ব্যবসা-বাণিজ্যও এ বন্দরের মাধ্যমে পরিচালিত হয়। তাই এ ঘাটটি অন্যত্র সরিয়ে নিতে হলে বড় ধরনের অবকাঠামো নির্মাণ করতে হবে। এ জন্য আনুমানিক প্রায় ৫২১ কোটি টাকা ব্যয় ধরা হয়েছে। তার মধ্যে ভূমি অধিগ্রহণ ৪২ কোটি, ক্ষতিপূরণ ১৯ কোটি ৯০ লাখ, নতুন ফেরিরুট নির্মাণ ৭২ কোটি, বন্দর সুবিধাদি নির্মাণ ১৬ কোটি ৪৩ লাখ, বিবিধ ৫ কোটি ৫৬ লাখ, নদীতীর রক্ষাকরণ ৩১৭ কোটি এবং সংযোগ সড়ক নির্মাণ ৪৮ কোটি টাকা।

বর্তমান ফেরিঘাট থেকে কান্দিপাড়া এলাকা দুই হাজার ফুট উজানে অবস্থিত। ঘাট স্থানান্তরের জন্য প্রস্তাবিত এলাকায় মোট জমির পরিমাণ ২৩ দশমিক ৭১ একর। কান্দিরপাড়া এলাকায় ৭০০ বসতবাড়ি এবং প্রায় ১২ হাজার ছোট বড় গাছপালা রয়েছে। এসব বসতবাড়ির মধ্যে বেশ কিছু সরিয়ে নিতে হবে। আর অল্প কিছু গাছ কেটে ফেলে অবকাঠামো নির্মাণের পরিকল্পনা করা হয়েছে। আগামী ২২ জানুয়ারি অর্থমন্ত্রণালয়ে এই সংক্রান্ত বৈঠকে জমি অধিগ্রহণসহ সার্বিক বিষয়ে আলোচনা হবে এবং অর্থায়নের অনুমতি দেয়া হবে।

বহুল আলোচিত পদ্মা সেতু প্রকল্পের মূল কাঠামো চূড়ান্ত দরপত্র গত বছরের ২৬ জুন যোগাযোগ মন্ত্রণালয়ের সেতু বিভাগ আহ্বান করে। পরের মাসের ৭ তারিখ থেকে দরপত্র বিক্রি শুরু হয় এবং শেষ হয় ৯ সেপ্টেম্বর। প্রকল্পটির মূল সেতু অংশের জন্য ব্যয় ধরা হয়েছে প্রায় ৯ হাজার ১৭২ কোটি টাকা। ২৯০ কোটি ডলারে ৬ কিলোমিটার দীর্ঘ এ সেতু নির্মাণে বিশ্বব্যাংকের ১২০ কোটি ডলার ঋণ দেয়ার কথা ছিল। এছাড়া এডিবি ৬১ কোটি, জাইকা ৪০ কোটি ও আইডিবি ১৪ কোটি ডলার ঋণ দিতে চুক্তি করে বাংলাদেশ সরকারের সঙ্গে। তবে প্রকল্পের পরামর্শক নিয়োগ নিয়ে দুর্নীতির অভিযোগ তুলে ঋণ সহায়তা বাতিল করে বিশ্বব্যাংক। পরবর্তীতে কয়েকটি শর্তে বিশ্বব্যাংক এ প্রকল্পে পুনরায় অর্থায়নের আগ্রহ প্রকাশ করলেও দীর্ঘসূত্রতার কথা বলে সরকার বিশ্বব্যাংকের ঋণ না নিয়ে নিজেদের অর্থে পদ্মা সেতু নির্মাণের সিদ্ধান্ত নেয়। এই অবস্থায় বিশ্বব্যাংক এ প্রকল্পে না থাকায় অন্য দাতা সংস্থাগুলো নিজেদের গুটিয়ে নেয়। তবে জাইকা এখন আবার বলছে, সরকার চাইলে তারা আবার পদ্মা প্রকল্পে ফিরবে। শুধু জাইকা নয় আরো দু’-একটি দাতা সংস্থাগুলো আবার এই প্রকল্পে ফেরার সম্ভবনা রয়েছে বলে ধারণা করছেন সংশ্লিষ্টরা।

যাযাদি

Leave a Reply