মাওয়া-কাওড়াকান্দি নৌরুটে টানা যানজট, যাত্রীদের দুর্ভোগ

Mawa-bg20140125151235কাজী দীপু: গত তিনদিন ধরে মাওয়া-কাওড়াকান্দি নৌরুটের উভয়পাড়ে অব্যাহত যানজটে দক্ষিণাঞ্চলের ২১ জেলার হাজার হাজার যাত্রীদের দুর্ভোগ অসহনীয় পর্যায়ে পৌঁছেছে।

শনিবার দুপুর ১টা পর্যন্ত মাওয়া প্রান্তে ৫ থেকে ৬ শতাধিক যানবাহন পারাপারের অপেক্ষায় আটকে পড়েছে। তবে পণ্যবাহী ট্রাকসহ ৩ শতাধিক যানবাহন মাওয়া প্রান্তে রয়েছে বলে পুলিশ জানিয়েছে।

পারাপারের অপেক্ষায় শত শত যানবাহন ঘণ্টার পর ঘণ্টা নৌরুটের উভয়পাড়ে আটকে পড়ায় বৃহস্পতিবার থেকে মাওয়া-কাওড়াকান্দি নৌরুটের উভয়পাড়ে যানজট সৃষ্টি হয়। যা শুক্রবার পেরিয়ে শনিবার দুপুর পর্যন্ত গড়িয়েছে।


ঘন কুয়াশায় ফেরি চলাচল বন্ধ থাকা ও ফরিদপুরে ওরস অনুষ্ঠানকে কেন্দ্র করে অতিরিক্ত যানবাহনের চাপে এ যানজট পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে বলে জানা গেছে।

এর ফলে যাত্রীবাহী বাস ও অন্যান্য যানবাহনে থাকা শত শত যাত্রী গত তিনদিন ধরে চরম দুর্ভোগের শিকার হয়েছেন। এসময় শিশু ও নারীদের অসুস্থ হয়ে পড়তে দেখা গেছে।

শনিবার দুপুর পর্যন্ত যানজট পরিস্থিতি অপরিবর্তিত রয়েছে। তিনদিন ধরে যানজট অব্যাহত থাকায় যাত্রীদের দুর্ভোগ অসহনীয় পর্যায়ে পৌঁছেছে।

অন্যদিকে ঘণ্টার পর ঘণ্টা শত শত পণ্যবাহী ট্রাক আটকে পড়ায় সেখানে থাকা অনেক কৃষিপণ্য বিনষ্ট হওয়ার আশঙ্কায় দিশেহারা হয়ে পড়েছে ব্যবসায়ীরা।

এ সুযোগে সিরিয়াল ভঙ্গ করে পণ্যবাহী ট্রাক চালক ও ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে টাকা নিয়ে স্থানীয় পুলিশ তাদের পারাপার করে দেওয়ার ব্যবস্থা করে দিচ্ছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

মাওয়া ঘাট সূত্র জানায়, ঘন কুয়াশার কারণে মাওয়া-কাওড়াকান্দি নৌরুটে ৬ ঘণ্টা ফেরি চলাচল বন্ধ থাকা ও অতিরিক্ত যানবাহনের চাপে বৃহস্পতিবার সকাল থেকে নৌরুটের উভয়পাড়ে যানজটের সৃষ্টি হয়। যা দিনভর অব্যাহত থাকে। সেদিন পণ্যবাহী ট্রাক, যাত্রীবাহী বাসসহ ৬ শতাধিক যানবাহন পারাপারের জন্য আটকা পড়ে।

বৃহস্পতিবারের যানজট দিবাগত রাত পেরিয়ে শুক্রবারও অব্যাহত থাকার এক পর্য়ায়ে ফরিদপুরের আটরশির বিশ্ব জাকের মঞ্জিলের ওরশ শরীফের ভক্তদের অতিরিক্ত যানবাহন মাওয়া প্রান্তে জড়ো হয়। এর ফলে যানজট পরিস্থিতি আরও জটিল হয়ে তা দীর্ঘ হয়ে পড়ে।

এতে যানজট পরিস্থিতি লৌহজং উপজেলার মাওয়া ঘাট থেকে শ্রীনগর উপজেলার দোগাছি এলাকা পর্যন্ত বিস্তৃতি লাভ করে। এর ফলে বিভিন্ন যানবাহনে থাকা শত শত যাত্রী প্রচণ্ড শীতে দুর্ভোগের শিকার হন।
Mawa-bg20140125151235
এসময় অনেক নারী ও শিশু যাত্রীকে খাবার ও পনি সঙ্কটের কারণে অসুস্থ হয়ে পড়তে দেখা গেছে বলে জানিয়েছেন বাস শ্রমিক আওলাদ হোসেন।

এদিকে দিনভর যানজট অব্যাহত থাকায় ও অতিরিক্ত যানবাহন যুক্ত হওয়ায় শুক্রবার সন্ধ্যার পর নৌরুটের উভয়পাড়ে সহস্রাধিক যানবাহন আটকা থাকে পারাপারের অপেক্ষায়। এতে যানজটের আটকা পড়ে একদিকে যেমন যাত্রীরা দুর্ভোগের শিকার হয়েছেন অপরদিকে পন্যবাহী ট্রাকে থাকা কৃষিপণ্য বিনষ্ট হয়েছে। এখনো বিনষ্ট হওয়ার আশঙ্কায় ব্যবসায়ীরা দিশেহারা অবস্থায় পড়েছে।

অন্যদিকে মাওয়া ঘাটেরর মতো কাওড়াকান্দি ঘাটেও একই অবস্থা বিরাজ করছে। সেখানেও ঢাকাগামী যানবাহন আটকা পড়ে যানজটের সৃষ্টি হয়েছে। এ ঘাটেও ৩ থেকে ৪ শতাধিক যানবাহন আটকা পড়ে রয়েছে। অনেক যাত্রী বিকল্প ভাবে পরিবার পরিজন নিয়ে নিজ গন্তব্যে রওনা হয়েছেন।

বিআইডব্লিউটিসির মাওয়া কার্যালয়ের ব্যবস্থাপক সিরাজুল হক বাংলানিউজকে জানান, ফেরি চলাচল অব্যাহত রয়েছে। নৌরুটের উভয়পাড়ে বর্তমানে ৫ শতাধিক যানবাহন আটকা পড়েছে।

মাওয়া ঘাট এলাকার একাধিক প্রত্যক্ষদর্শীরা অভিযোগে করেন, যানজটর পরিস্থিতির সুযোগ নিয়ে সংশ্লিষ্ট পুলিশের সদস্যরা সিরিয়াল ভঙ্গ করে আগে যাওয়ার সুযোগ দেওয়ার প্রলোভন দিয়ে বিনিময়ে টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে। এতে যানজট আরও জটিল হয়ে যাচ্ছে।

মাওয়া নৌ ফাঁড়ির উপ পরিদর্শক (এসআই) হাফিজুর রহমান বাংলানিউজকে জানান, মাওয়া প্রান্তে সৃষ্ট যানজটে নতুন নতুন যানবাহন যুক্ত হওয়ায় যানজট পরিস্থিতি অপরিবর্তিত থেকে যাচ্ছে।

তিনি আরও জানান, ঘন কুয়াশায় ফেরি চলাচলে বিঘ্ন সৃষ্টি ও যানবাহনের বাড়তি চাপের কারণে এ পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে। যানজট পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে পুলিশের তৎপরতা অব্যাহত রয়েছে।

বিআইডব্লিউটিসি কর্তৃপক্ষ ও সংশ্লিষ্ট পুলিশ যানজট নিরসনের জন্য আপ্রাণ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন বলেও দাবি করেন ওই পুলিশ কর্মকর্তা।

অপরদিকে কাওড়াকান্দি ঘাটের ট্রাফিক পরির্দশক উত্তম কুমার বাংলানিউজকে জানান, ৩দিন ধরে অব্যাহত যানজট নিরসনে পুলিশ কাজ করে যাচ্ছে। কাওড়াকান্দি ঘাটের চেয়ে মাওয়া ঘাটে একটু চাপ বেশি।

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর

Leave a Reply