জাপানে বাঙালি ব্যবসায়ী শহীদুল ইসলাম

nannu1১৯৮৫ সালে যখন জাপানে পা রাখেন, পকেটে মাত্র ১৯ ডলার। থাকার জায়গাও ছিল না। রাত কাটাতে হয়েছে পার্কের বেঞ্চে। আর এখন টোকিওর প্রাণকেন্দ্রে বসে ব্যবসা করছেন পৃথিবীর ৩০টি দেশের সঙ্গে। ১৫টি দেশে রয়েছে নিজস্ব শোরুম। সফল ব্যবসায়ী শহীদুল ইসলামকে নিয়ে আজকের স্পটলাইটে লিখেছেন চন্দন চৌধুরী ও মামুন রশীদ; সাক্ষাৎকার নিয়েছেন টোকিও প্রবাসী রাহমান মনি

সবাই ডাকে নান্নু ভাই। কিছু মানুষ চেনেন এম ডি এস ইসলাম নামে। টোকিওর পরিচিত প্রিয় মুখ নান্নু ভাইয়ের পুরো নাম মো. শহীদুল ইসলাম। গাড়ি ব্যবসায়ী। নয়া গাড়ি নয়। রিকন্ডিশন্ড গাড়ি। হলে কী হবে- রাশিয়া, ইউরোপ, আমেরিকাসহ পৃথিবীর ৩০টি দেশে তাঁর ব্যবসা। জন্ম মুন্সীগঞ্জ জেলার লৌহজং উপজেলার ডহুরী নওপাড়া গ্রামে। বাবা আবদুল জব্বার মিয়া এবং মা মমতাজ জব্বার। পাঁচ ভাই ও চার বোনের মধ্যে সবার বড়। ছেলেবেলা কেটেছে ঢাকার গেণ্ডারিয়ায়। ১৯৮২ সালে গেণ্ডারিয়া হাই স্কুল থেকে মাধ্যমিক এবং ১৯৮৪ সালে শহীদ সোহ্রাওয়ার্দী কলেজ থেকে উচ্চ মাধ্যমিক পাস করেন। পড়াশোনায় খুব একটা মন ছিল না। সর্বদাই উড়ুউড়ু করত মনটা। এপাড়া-ওপাড়া, এবাড়ি-ওবাড়ি এবং মহল্লার অলিগলি, বাড়ির ছাদে আড্ডা মেরে সময় কাটাতেন। পরিচিতরা বোঝালেন, এভাবে ঘুরঘুর করলে তো উচ্ছন্নে যাবে জীবনটা। ভাবলেন নিজেও। কিন্তু ভেবে পেলেন না কী করবেন। ঢাকায় ব্যবসা ছিল শহীদুলদের। কিছুদিন বসলেন সেখানে। তবে মনে ধরল না সেই ব্যবসা। এটা করবেন, সেটা করবেন ভেবেই কেটে গেল এক বছর। তারপর একসময় বন্ধুদের সঙ্গে শলা করলেন, দেশ ছাড়বেন।
nannu1
মিশন জার্মানি

১৯৮৫ সালের এপ্রিল মাস। ২০/২২ জন বন্ধুর সঙ্গে পাড়ি জমালেন পশ্চিম জার্মানিতে। তখনো এক হয়নি দুই জার্মানি। জার্মানিতে তখন বাংলাদেশ দূতাবাসও ছিল না। ঘোরাঘুরি করলেন কিছুদিন। কোনো কাজ নেই। সব কিছুতেই ধরাবাঁধা নিয়ম। নিয়মিত এবং সীমিত খাবারদাবার। উন্নত দেশ, সভ্য জাতি এবং তথাকথিত ব্লু-ব্লাড দাবিদার জার্মান জাতির ব্যবহার স্বচক্ষে অবলোকন করে সদ্য কৈশোর পেরিয়ে যৌবনে পা দেওয়া বাঙালি যুবকের মনে সাদা চামড়াধারী পুরো ইউরোপিয়ানদের ওপর বিতৃষ্ণা জন্মে গেল। এশিয়ানদের সঙ্গে বৈষম্যমূলক আচরণও ভালো লাগেনি। তাই জার্মানি ছাড়ার সিদ্ধান্ত নিলেন। ভাবলেন, বাংলাদেশে ফিরে যাওয়াই ভালো। স্বদেশের উদ্দেশে রওনা হয়ে যাত্রাবিরতিতে পৌঁছেন থাইল্যান্ডের ব্যাংকক। পরিচয় হয় অন্য দুই বাংলাদেশির সঙ্গে। জানতে পারেন, বাংলাদেশি যুবকরা জাপান যাওয়া শুরু করেছে। তখন জাপান যাওয়ার ট্রানজিট রুট হিসেবে ব্যাংকক অনন্য। বাংলাদেশে ফেরার আগে একবার জাপান ঘুরে যাওয়ার কথা চিন্তা করলেন শহীদুল। কিন্তু তিনি তো জাপান সম্পর্কে ‘মেড ইন জাপান’ ছাড়া আর কিছুই জানেন না। সেখানে থাকা, খাওয়া, কর্মসংস্থানের ব্যাপারেও সম্পূর্ণ অজ্ঞ। ভরসা হিসেবে পরিচিত এক জাপানি বন্ধু। বয়সটাও ছিল তখন শুধুই অ্যাডভেঞ্চারের, আর মাথার ভেতর শুধু ঘুরপাক খাচ্ছিল কিভাবে উন্নত দেশগুলোতে যাওয়া যায়। যা হওয়ার হবে- এই ভেবে সিদ্ধান্ত নিলেন, ট্রানজিট রুটে জাপান যাবেন। নতুন দুই বন্ধুকে সঙ্গে নিয়ে চলে গেলেন সূর্যোদয়ের দেশে।


গাদাগাদি করে এক ঘরে

নভেম্বর মাস। জাপানে তখন হালকা শীত হলেও নান্নুর কাছে মনে হলো, হাড় কাঁপানো শীত। পকেটে মাত্র ১৯ ডলার নিয়ে পা রাখলেন টোকিওর মাটিতে। খুঁজে খুঁজে বের করলেন বন্ধুর বাসা। কিন্তু বাসা দেখে চোখ কপালে উঠল শহীদুলের। বাসাটা এক রুমের। গেণ্ডারিয়ায় নিজ বাড়ির বাথরুম থেকে সামান্য বড়। সেই রুমেই থাকতে হবে কিনা ছয়জনকে! যেখানে ছয়জন ভালোমতো বসাই যায় না। মেহমান এলে তো কথাই নেই। পরে স্থানসংকুলান না হওয়ায় অনেক রাতই কাটাতে হয়েছে পার্কের বেঞ্চে।

কাজের খোঁজ করতে লাগলেন শহীদুল। জাপান আসার পর প্রথম কাজটি পান একটি প্লাস্টিক কম্পানিতে। সেই থেকেই নান্নুর কর্মজীবন শুরু হয়। তিন-চার মাস কাজ করার পর ১৯৮৬ সালের মার্চে যোগ দেন একই গ্রুপের নিচিনশো নামের আরেকটি কম্পানিতে। ১৯৯০ সালে নান্নু যোগ দেন টোকিওর শেরাটন মিয়াকো হোটেলে (পাঁচতারা)। পার্টি ম্যানেজমেন্টের কাজ। বড় বড় পার্টি সামাল দিতে হতো। খুব কাছ থেকেই তিনি সেখানকার রেস্তোরাঁর খুঁটিনাটি জিনিসগুলো দেখতে থাকেন। কিন্তু অভিবাসন আইনের জটিলতায় সেই কাজ বেশি দিন করা হয়ে ওঠে না। এর সমাধান করতে বেশ ভোগান্তি হয়। সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেন সেই জাপানি বন্ধু তোকুমাৎসু ফুমিকো। তাঁর সঙ্গে রেস্তোরাঁ ব্যবসার পরিকল্পনা করেন নান্নু। কয়েক বছর চাকরি করে কিছু টাকাও জমিয়েছিলেন তিনি। টোকিওর প্রাণকেন্দ্র সিবুয়া দোগেনজাকায় খুলে বসেন ‘হট অ্যান্ড কোল্ড’ নামে একটি রেস্তোরাঁ। এই রেস্তোরাঁ দিয়েই শুরু হয় তাঁর প্রথম ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান। কিন্তু কাজ করতে গিয়ে বুঝলেন, ভাষাটা না জানলে টেকা মুশকিল। ভর্তি হলেন জাপানি ভাষা শিক্ষা কোর্সে। কোর্স শেষ করে নিহন বুনকা সেম্মন গাক্কো (ভোকেশনাল) থেকে ডিগ্রি লাভ করেন।

সামাজিক কাজে যোগ

১৯৮৮ সালে জাপানে প্রতিষ্ঠিত হলো এশিয়ান পিপলস্ ফ্রেন্ডশিপ সোসাইটি (এপিএফএস)। এই সংগঠনের প্রতিষ্ঠাতা সদস্য নান্নু। ১৯৯০ সালে তিনি সাংগঠনিক সম্পাদক নির্বাচিত হন। সভাপতি হন ইয়োশিনারি কাৎসুও। সাংগঠনিক সম্পাদক নির্বাচিত হয়েই নিজের যোগ্যতার প্রমাণ দিলেন নান্নু। কাজ করলেন জাপানে বিদেশি বিয়ে নিয়ে। যার সুফল ভোগ করছেন আজ অনেকেই। কট্টর জাতীয়তাবোধসম্পন্ন জাপানি জাতি সহজে বিদেশি বিয়ে মেনে নিতে চায়নি। তবে বিষয়টি যে গর্হিত কিছু নয়, এপিএফএসের মাধ্যমে সে দেশে তিনি তুলে ধরতে সমর্থ হন। ১৯৯৪ সালে এই সংগঠনের ব্যানারে টোকিওর ইতাবাসি ওয়ামা শপিং এরিয়াতে বাংলাদেশি, চীনা, ইরানি ও ফিলিপিনোদের নিয়ে এশিয়ান ফেয়ার নামে মডেল শো করেন। মডেল শোকে ঘিরে স্থান পায় বাংলাদেশি খাবারের সারি সারি দোকান। বেশ জনপ্রিয় ও উৎসবমুখর হয়ে উঠেছিল আয়োজনটি।


এনকে ইন্টারন্যাশনাল

নিজের রেস্তোরাঁর মধ্য দিয়ে বিভিন্ন মানুষের সঙ্গে যোগাযোগ বাড়তে থাকে। সখ্য গড়ে ওঠে নানা দেশের, নানা পেশার, নানা শ্রেণীর মানুষের সঙ্গে। পাকিস্তানিদের সঙ্গেও বেশ সখ্য গড়ে ওঠে তখন। তা ছাড়া এপিএফএসে অনেক পাকিস্তানি সদস্য ছিলেন। তাঁদের সঙ্গে বন্ধুত্ব হয়ে একটা লাভ হয় শহীদুলের। পাকিস্তানিদের কাছাকাছি পেয়ে রপ্ত করে ফেলেন উর্দু ভাষা। শহীদুল দেখতে পান, কাছের মানুষগুলোর বেশির ভাগই গাড়ি ব্যবসার সঙ্গে জড়িত। আড্ডার সময়ও তাঁরা নিজেদের ব্যবসা নিয়ে কথা বলেন। তাঁদের সঙ্গে চলতে-ফিরতেই মাথায় আসে গাড়ি ব্যবসার চিন্তাটা।

পুরনো গাড়ির ব্যবসা জাপানে অনেক আগে থেকেই ছিল। বিদেশিদের মধ্যে পাকিস্তানিরা বেশ ভালো করেছিল। আশির দশক পর্যন্ত তারাই দাপটের সঙ্গে ব্যবসা করে জাপানিদের সঙ্গে মিলে। নব্বইয়ের দশক থেকে এ ব্যবসা শুরু করে বাংলাদেশিরা। বিদেশিদের মধ্যে এখন নেতৃত্ব দিচ্ছে বাংলাদেশিরা।

বিশ্বে জাপানি পুরনো গাড়ির কদর রয়েছে। বড় বাজার রাশিয়ায়। রাশিয়ায়ও অনেক গাড়ি তৈরি হয়। কিন্তু রাশিয়ায় তৈরি নতুন গাড়ি ও জাপানের রিকন্ডিশন্ড গাড়ির মধ্যে গুণগত মানের পার্থক্য বেশ স্পষ্ট। তাই নিজেদের তৈরি গাড়ি রপ্তানি করলেও রাশিয়ায় জাপানি পুরনো গাড়ির বড় বাজার রয়েছে। ১৬০টি দেশে পুরনো গাড়ির ব্যবসা করে আসছে জাপান। এ প্রসঙ্গে নান্নু বলেন, ‘জাপানিরা যেকোনো জিনিস বাজারজাত করার আগে কোয়ালিটি মেইনটেইন এবং আফটার সার্ভিসের কথা চিন্তা করে সার্ভিস সেন্টার করে। তারপর ম্যানুফেকচার করে থাকে। এ ব্যাপারে বিশ্বে তারা এক নম্বর। কেউ জাপানিদের টিমওয়ার্কের সঙ্গে পারে না। পার্টসও সচরাচর ও সহজলভ্য।’

১৯৯২ সালে রেস্তোরাঁ ব্যবসার পাশাপাশি গাড়ি ব্যবসাও শুরু করেন নান্নু। তবে দুটো ব্যবসার জন্য আলাদা সময় ভাগ করে নেন। দিনে রেস্তোরাঁ ব্যবসা আর রাতে গাড়ি ব্যবসা। কিছুদিনের মধ্যেই নতুন ব্যবসাটির বিভিন্ন দিক আয়ত্ত করে ফেলেন নান্নু। মাস ছয়েকের মধ্যে জাপানের পোর্ট সিটি ইয়াকোহামা এবং কাওয়াসাকি থেকে রাশিয়ান জাহাজে প্রথম পাঁচটি গাড়ি তুলে দিয়েই করেন রিকন্ডিশন্ড গাড়ি ব্যবসার সূচনা। এ কাজেও সহযোগিতা করেন জাপানি বন্ধু তোকুমাৎসু।

ব্যবসা ছড়িয়ে দিলেন সবখানে

১৯৯৫ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল এনকে লিমিটেড কম্পানি, ১৯৯৮ সালে এটি হয় এনকে ইন্টারন্যাশনাল। ব্যবসা শুরু করে প্রচুর চড়াই-উৎরাই পার হতে হয়। রাশিয়া দিয়ে শুরু করলেও পৃথিবীর ৩০টি দেশে এখন রপ্তানির ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে এনকে ইন্টারন্যাশনাল। যার মধ্যে ১৫টি দেশে আছে কম্পানিটির নিজস্ব শোরুম। তবে কম্পানির পরিধি বাড়াতে যৌথ ব্যবসায় যেতে হয়েছে তাঁকে। এপিএফএস সংগঠন করতে গিয়েই পরিচয় হয়েছিল ইয়োশিনারি কাৎসুওর সঙ্গে। তাঁর সঙ্গে সম্পর্কটা ক্রমে গাঢ়ও হয়েছিল। মি. ইয়োশিনারিকে নিজের কম্পানিতে যুক্ত করে নিলেন শহীদুল। যুক্ত করলেন লিটন মাহমুদ, রাশেদুল ইসলাম ও রবিউল ইসলাম নামের তিন বাংলাদেশি প্রবাসীকে। ব্যবসার ক্ষেত্রে সর্বদাই নিজ দেশের কথা মাথায় রেখেছেন শহীদুল। জাপানের মূল অফিসে এখন কর্মীসংখ্যা ৪০। যার অর্ধেকের বেশি বাংলাদেশি, ২২ জন। পাশাপাশি এই কম্পানিতে রয়েছে জাপানি, ভারতীয়, পাকিস্তানি, আফ্রিকান ও রাশিয়ান কর্মী। জাপানের বাইরের অফিসগুলোতে কাজ করছেন ৪৫ জন বাংলাদেশি। যাঁরা প্রতি মাসে বাংলাদেশে রেমিট্যান্স পাঠাচ্ছেন। ফলে বেকারদের কর্মসংস্থান হচ্ছে। লাভবান হচ্ছে দেশ। প্রতি মাসে প্রায় হাজারেরও বেশি গাড়ি বেচাকেনা করে থাকে এই কম্পানি। প্রায় ৫০ মিলিয়ন ডলারের গাড়ি বেচাকেনা হয় প্রতিবছর। বাংলাদেশে এনকে ইন্টারন্যাশনালের তিনটি শোরুম রয়েছে। শোরুমগুলো বারিধারা ও পুরানা পল্টনে।

২৮ এপ্রিল ২০০৭, টোকিওর ওতা-কুতে এনকে বিল্ডিং নামে কম্পানির নিজস্ব জায়গায় বহুতল ভবন নির্মাণ করা হয় এবং হেড অফিস সেখানে স্থানান্তর করা হয়।

দেশের জন্য নান্নু

বছরে কয়েকবার দেশে আসেন। এটা নির্ভর করে কাজের ওপর। বাবা জীবিত নেই। মা, এক ভাই ও এক বোন দেশে আছেন। ব্যবসার জন্য খুব একটা অবসর মেলে না। কিছুটা পেলে পরিবারের সঙ্গে কাটান। স্ত্রী ফারজানা ইসলাম বেবী। দুই মেয়ে ও এক ছেলে নাফাস ইসলাম, ইউস্রা ইসলাম এবং ফারজান ইসলামকে নিয়ে জাপানে বসবাস করছেন এই ব্যবসায়ী। তবে বিদেশে বসে দেশকে আরো বেশি অনুভব করেন- এমনটিই জানান শহীদুল ইসলাম, ‘প্রবাস থেকে বাংলাদেশকে তুলনা করা যায় পাখির চোখের সঙ্গে। পাখি যেমন ওপর থেকে ভূপৃষ্ঠের অনেকটাই দেখতে পায়, তেমনি প্রবাস থেকে নিজ দেশকে অনেকটাই জানা যায়। তবে দুঃখ লাগে, রাজনীতির নোংরা খেলায় দেশের বদনাম হওয়ায় এবং দেশটা দিন দিন পেছনের দিকে ধাবিত হওয়ায়। আমরা তাদের হাতিয়ার হয়ে গেছি। জনগণকে নিয়ে খেলছে আর নিজেদের আখের গোছাচ্ছে। কবে যে এ খেলার শেষ হবে? কবে যে পরিত্রাণ পাবে প্রিয় বাংলাদেশ।’

১৯৯৫ সালে এপিএফএসের সহযোগিতায় বাংলাদেশের বিক্রমপুর এলাকায় নন ফরমাল প্রাইমারি স্কুল প্রতিষ্ঠা করেন। ১৯৯৭ সালে একোব্যাক নামে একটি এনজিও, জেআরএসের (জাহান রিহ্যাবিলিটেশন সার্ভিস) মাধ্যমে খুলনার প্রত্যন্ত অঞ্চলে সামাজিক উন্নয়নমূলক কাজের সঙ্গে যুক্ত হন। জনাব ইয়োশিনারিও তখন সঙ্গে ছিলেন।

২০১০ সালের ডিসেম্বরে তিনি বাংলাদেশ, জাম্বিয়া, উগান্ডা, কেনিয়া, নামিবিয়া, তানজানিয়াসহ আফ্রিকার আরো কয়েকটি দেশ ভ্রমণ করেন। উদ্দেশ্য নতুন বাজার তৈরি। শোরুম চালু করে কর্মসংস্থান সৃষ্টিসহ ব্যবসা আরো বিস্তৃত করা। বাংলাদেশের অভিজ্ঞতা থেকে নান্নু বলেন, ‘আমলাতান্ত্রিক জটিলতা না থাকলে প্রবাসীরা বাংলাদেশে আরো বেশি বেশি বিনিয়োগ করত। কম্পানি খোলার অনুমতি নিতে মাত্র তিন দিন সময় লাগে থাইল্যান্ডে, জাম্বিয়ায় দুদিন। সেখানে আমাদের দেশে লাগে মাসের পর মাস। বিদেশিদের বেলায় নিশ্চয়ই আরো বেশি।’

তিনি মনে করেন, প্রবাসীদের বাংলাদেশে ছোট করে হলেও বিনিয়োগ করা উচিত। তাহলেই দেশ একদিন মালয়েশিয়া বা অন্যান্য উন্নত দেশগুলোর সঙ্গে পাল্লা দিতে সক্ষম হবে। তিনি বলেন, ‘আমাদের দেশে শ্রমমূল্য এখনো কম এবং এই কম পারিশ্রমিকে বাঙালি শ্রমিকরা নিষ্ঠার সঙ্গে কাজ করে। কাজেই বাংলাদেশে বিনিয়োগ লাভজনক।’ বাংলাদেশের জন্য কিছু করা প্রসঙ্গে নান্নু বলেন, ‘বাংলাদেশে কিছু করার জন্য আমি সদা প্রস্তুত। বাংলাদেশে প্রস্তুত করে তিন চাকার সিএনজি বাইক মাত্র এক বছরের মধ্যে বাজারজাত করা সম্ভব। তবে সেসব কাজের ক্ষেত্র তৈরি করার প্রতিবন্ধকতাগুলো দূর করতে হবে। মেড ইন বাংলাদেশ বাইক বা সিএনজি তাহলেই সম্ভব হবে।’ তবে শুধু সরকারের ওপর সব দোষ চাপাচ্ছেন না নান্নু, ‘আমাদের মধ্যেও কিছু অসাধু ব্যবসায়ী আছেন, যাঁরা স্বল্প বিনিয়োগে অল্প সময়ে অধিক মুনাফা লাভে ব্যস্ত হয়ে যান। ফলে পণ্যের গুণগত মান ঠিক রাখা সম্ভব হয় না। বাংলাদেশের ক্রেতারা বিদেশি পণ্যের দিকে ঝুঁকে পড়েন এবং বাংলাদেশি পণ্য গুণগত মানের জন্য বিদেশি বাজারে টিকে থাকতে পারে না।’
nannu2
‘তোকুমাৎসু ফুমিকোর অনুপ্রেরণাই আমাকে এই অবস্থানে নিয়ে এসেছে’

প্রথম জার্মানি গিয়েছিলেন। সেই কথা বলুন।

২০/২২ জন জার্মানি গিয়েছিলাম। আট মাসের মতো ছিলাম। সেই বন্ধুদের অনেকের সঙ্গেই যোগাযোগ আছে। আবার কিছু বন্ধু ইতিমধ্যে না ফেরার দেশে চলে গেছে। তবে আবুল কালাম নামের এক বন্ধুকে এখনো খুঁজে বেড়াচ্ছি। যেমন খুঁজে বেড়াই জিল্লুর ও ওয়াহিদকে।

দেশে ফেরার পথেই তো থাইল্যান্ড নেমেছিলেন?

মাত্র ৮-১০ দিন ছিলাম থাইল্যান্ডে। তবে থাইল্যান্ডে আমার যাতায়াত ছাত্রজীবন থেকেই। বেশ কয়েকবার যাওয়ায় সব কিছুই পরিচিত ছিল।

জাপানে যে বন্ধুর বাসায় উঠলেন, তাঁর সঙ্গে পরিচয় কেমন করে?

তোকুমাৎসু ফুমিকো। একজন কূটনীতিক। তাঁর সঙ্গে পরিচয় জার্মানিতে। তিনি অনেক সহায়তা করেছেন আমাকে। তাঁর অনুপ্রেরণাই আজ আমাকে এ অবস্থানে নিয়ে এসেছে। জাপানে অবস্থান, প্রতিষ্ঠা পাওয়া- সব ক্ষেত্রেই তাঁর ছায়া আমাকে নির্ভরতা দিয়েছে। চার বছর হলো তিনি গত হয়েছেন। তাঁর সঙ্গে পরামর্শ করেই রেস্তোরাঁ দিয়েছিলাম। এনকে ইন্টারন্যাশনাল করার সময়ও সহযোগিতা করেছিলেন। এ ছাড়া ভিসা নিয়ে যখন সমস্যায় পড়লাম, তখনো সহায়তা করেছিলেন।

আপনার রেস্তোরাঁয় কারা খেতে আসতেন?

‘হট অ্যান্ড কোল্ড’ রেস্তোরাঁয় সব ধরনের গেস্ট এলেও বেশির ভাগই ছিল জাপানি। বিভিন্ন ধরনের খাবার ছিল। স্বাচ্ছন্দ্য বোধ না করে কোনো গেস্টকে যেন চলে যেতে না হয় সে দিকটায় নজর রাখতাম।

জাপানে যদি কেউ প্রতিষ্ঠান গড়তে চায়, তাকে কী করতে হবে?

স্থানীয় বাসিন্দা (প্রবাসী) না হলে কেবল ইনভেস্টর ভিসার বেলায় এক লাখ ডলার বিনিয়োগ করার ক্ষমতা দেখাতে হয়। কিন্তু বৈধভাবে অবস্থানকারীরা যেকোনো সময় প্রতিষ্ঠান দিতে পারেন।

পিপলস ফ্রেন্ডশিপ সোসাইটিতে জড়িয়ে আপনি জাপানে বিদেশি বিয়ে নিয়ে কাজ করলেন- সেটা কিভাবে সম্ভব হয়েছিল? আপনারা কী ধরনের ক্যাম্পেইন করেছিলেন?

শুধু যে বিয়ে নিয়ে কাজ করেছি তা নয়। বিভিন্ন কাজ করেছি। তার মধ্যে শ্রমিকদের অধিকার নিয়ে। যেমন- মেডিক্যাল, কাজে দুর্ঘটনায় কবলিত হলে, শারীরিক অক্ষমতা, পারিশ্রমিক আদায়সহ বিদেশি শ্রমিকদের সব ক্ষতিপূরণ আদায়ে কাজ করেছি।

আপনার ব্যবসায়িক পার্টনার ইয়োশিনারি কাৎসুওর সঙ্গে কি সেখানেই পরিচয়?

আসলে এপিএফএস প্রতিষ্ঠা করেন লিয়াকত নামের এক বাংলাদেশি। তাঁর মাধ্যমে পাবলিক গোসলখানায় পরিচয় হয় জনাব ইয়োশিনারি কাৎসুওর সঙ্গে। যিনি বিদেশিদের প্রতি, বিশেষ করে বাংলাদেশিদের প্রতি খুবই সহানুভূতিশীল। এপিএফএস করায় বাঙালিদের মিলিত হওয়ার একটা ক্ষেত্র তৈরি হয়।

এনকে ইন্টারন্যাশনাল করার সময় আপনি কারো অনুপ্রেরণা পেয়েছিলেন?

তোকুমাৎসু ফুমিকো, ইয়োশিনারি কাৎসুও এবং শিমিজু নামের এক ভদ্রলোক আমাকে বিভিন্নভাবে প্রেরণা দিয়েছেন। শিমিজু কানাডায় জাপান দূতাবাসের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা ছিলেন।

অন্য কোনো ব্যবসার সঙ্গে জড়িত আছেন? বাংলাদেশে কোনো ব্যবসা?

পার্টনারশিপ ছাড়াও নিজের ব্যবসা আছে জাপানসহ মোট ১৪টি দেশে। বাংলাদেশে প্রপার্টিজ ব্যবসা করছি। বেনচার ক্যাপিট্যাল (বাংলাদেশ ব্যাংক কর্তৃক অনুমোদিত এবং ২০০০ ব্যবসায়ী উদ্যোক্তা টার্গেট নিয়ে), ইউএমের (ইউনাইটেড মোটরস) বাংলাদেশ সোল অ্যাজেন্ট (নিজস্ব ভবনে), আফ্রিকায় জমি লিজ নিয়ে স্থানীয় কর্মীদের দিয়ে কৃষিপণ্য উৎপাদনের ব্যবসাও করে আসছি।

অনেক দেশ ঘুরেছেন। কোনো বিশেষ ঘটনার কথা বলবেন?

১০০টিরও বেশি দেশ ভ্রমণ করার সৌভাগ্য হয়েছে। আফ্রিকার উগান্ডার রাজধানী কামপালা থেকে প্রায় ৮০০ মাইল দূরে একটি গ্রামের ঘটনা মনে পড়লে আজও শিহরিত হই। জাইকা থেকে জেনেছিলাম, ক্রামোজা নামক একটি দুর্গম এলাকায় পানির তীব্র সংকটের কারণে সেখানকার মানুষ প্রাণীদের রক্ত পান করে থাকে। দুদিন গাড়ি চালিয়ে হাজির হলাম সেখানে। গিয়ে দেখি, সবার গলায়ই একটি নল বা পাইপ এবং একটি করে ইনজেকশনের সিরিঞ্জ রয়েছে। পিপাসা পেলে সিরিঞ্জ বসিয়ে নল দিয়ে প্রাণীদের (জন্তু-জানোয়ারের এমনকি দুর্বল মানুষেরও) রক্ত পান করছে তারা। এটা ২০০৫ সালের ঘটনা। তবে ২০০২ সাল থেকে বাংলাদেশের এনজিও ব্র্যাক সেখানে কাজ করে আসছে। শুনেছি, এখন কিছুটা হলেও উন্নতি হয়েছে। এ জন্য ব্র্যাককে ধন্যবাদ জানাই।

কালের কন্ঠ

Leave a Reply