নিজেদের স্বার্থ রক্ষা করেই কথা বলতে হবে’ – ফারুক আহমেদ

farukজাতীয় দলের সাবেক অধিনায়ক ও সাবেক প্রধান নির্বাচক ফারুক আহমেদ আবারও জাতীয় দলের প্রধান নির্বাচক হিসেবে দায়িত্ব নিয়েছেন। ২০০৭ সালে ওয়েস্ট ইন্ডিজ বিশ্বকাপের সুপার এইট খেলেছিল বাংলাদেশ, যা এ দেশের ক্রিকেটের অন্যতম বড় সাফল্য। ওই বিশ্বকাপের প্রথম রাউন্ডে টাইগাররা হারিয়েছিল বিশ্বসেরা ব্যাটিং লাইনআপ সমৃদ্ধ ভারতকে। সুপার এইটে হারিয়েছিল ক্রিকেট পরাশক্তি দক্ষিণ আফ্রিকাকে। ওই দল যারা নির্বাচন করেছিলেন, সেই নির্বাচক প্যানেলের প্রধান ছিলেন ফারুক আহমেদ। ফারুক ছিলেন সাবেক ক্রিকেটার এবং অধিনায়ক। ছয় বছর পর আবারও তিনি প্রধান নির্বাচক পদে ফিরে এসেছেন। শ্রীলঙ্কা ক্রিকেট দল বর্তমানে বাংলাদেশ সফর করছে। সফরকারী দলটির বিপক্ষে প্রথম টেস্টের জন্য ১৪ সদস্যের দল ঘোষণা করেন প্রধান নির্বাচক ফারুক আহমেদ। এ সময় তার সঙ্গে ছিলেন অপর দুই নির্বাচক মিনহাজুল আবেদীন নান্নু এবং হাবিবুল বাশার সুমন। সামনে এশিয়া কাপ এবং মার্চ মাসে টোয়েন্টি-২০ বিশ্বকাপের আসর। বলা যায় নির্বাচক হিসেবে ব্যস্ত সময় কাটবে ফারুক আহমেদের সঙ্গীদেরও। দ্বিতীয়বার বিসিবির প্রধান নির্বাচক হওয়ার পর প্রথমবারের মতো জাতীয় দল ঘোষণা করেছেন সাবেক অধিনায়ক ফারুক আহমেদ। ক্রিকেট নিয়ে বিস্তর কথা বলেছেন সাপ্তাহিক-এর সঙ্গে সাক্ষাৎকার নিয়েছেন মোয়াজ্জেম হোসেন রাসেল

সাপ্তাহিক : দ্বিতীয়বারের মতো প্রধান নির্বাচকের দায়িত্ব নিলেন। এবার দায়িত্ব নিতে মানসিকভাবে কতটা প্রস্তুত ছিলেন আপনি?
ফারুক আহমেদ : বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের প্রধান নির্বাচকের দায়িত্ব দ্বিতীয়বারের মতো নিতে পেরে আমি খুশি। এ পদের জন্য আমাকে নির্বাচন করায় বিসিবি’র প্রতি আমি কৃতজ্ঞ। সত্যি কথা বলতে কি জাতীয় দলের বাইরে চলে গেলেও নিজেকে ক্রিকেটের সঙ্গে সম্পৃক্ত রাখতে পারাটা গৌরবের। বাংলাদেশের ক্রিকেট এখন তরতরিয়ে উপরের দিকে উঠছে। দেশের ক্রিকেটের সেবা করার জন্য আমি সবসময়ই প্রস্তুত।

সাপ্তাহিক : প্রথমবার দায়িত্ব নিয়ে যখন দায়িত্ব ছেড়েছিলেন তখনকার সঙ্গে এবারের কি কি পার্থক্য দেখছেন?
ফারুক আহমেদ : বাংলাদেশ ক্রিকেট এখন উন্নয়নের রাস্তায় রয়েছে। প্রতিনিয়তই নিজেদের উন্নতির চিহ্ন রাখছে মুশফিকুর রহিমরা। তিন বছর আগের সঙ্গে বর্তমান দলের অনেক পার্থক্য। এখনকার দল অনেক বেশি পরিণত। ক্রিকেটাররা অনেক বেশি লড়াকু মানসিকতার। তাদের মধ্যে জয়ের ক্ষুধা রয়েছে। এটা ভালো সাইন। বাংলাদেশকে এখন অনেকটাই গোছানো দল বলতে পারেন। আগে তো আমাদের হেসে-খেলেই প্রতিপক্ষ দলগুলো হারাতো। এখন তো সে অবস্থা থেকে বের হতে পেরেছি। বিশ্বের কোনো দলই এখন আর আমাদের জন্য মাথা ব্যথার কারণ হতে পারছে না।

সাপ্তাহিক : বাংলাদেশকে প্রথমবারের মতো টোয়েন্টি-২০ বিশ্বকাপের বাছাইপর্ব খেলতে হচ্ছে। নিজ দেশে বিশ্বকাপের মতো বড় আসরের আগে দায়িত্ব নেয়াটা কি একটু চ্যালেঞ্জিং হয়ে গেল না?
ফারুক আহমেদ : চ্যালেঞ্জ নিতে ভালোবাসি বলেই এ সময় দায়িত্ব নিয়েছি। প্রথমবারের মতো টোয়েন্টি-২০ বিশ্বকাপের বাছাইপর্ব খেলতে হচ্ছে বাংলাদেশকে, এটা ক্রিকেটপ্রেমী সবারই জানা। মাঠে ছেলেরা বেটার ক্রিকেট খেলতে পারলে চ্যালেঞ্জে জয়ী হওয়া আমার জন্য অনেকটাই সহজ হয়ে যাবে।

সাপ্তাহিক : বাংলাদেশের ক্রিকেটের ইতিহাসে প্রধান নির্বাচক হিসেবে দ্বিতীয়বার থাকার নজির নেই। সে হিসেবে আপনার কাছে এবারের দায়িত্বটা কেমন মনে হচ্ছে?
ফারুক আহমেদ : আমার ওপর বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি) আস্থা রেখেছে বিধায় আমি দ্বিতীয়বারের মতো প্রধান নির্বাচকের চেয়ারে বসতে পেরেছি। দ্বিতীয়বার দায়িত্ব নেয়া বলতে আমার কাছে তেমন কোনো পার্থক্য মনে হচ্ছে না অনুভূতির দিক থেকে। তবে দায়িত্বটা বেড়েছে বলে মনে হচ্ছে।

সাপ্তাহিক : নিজেদের মাটিতে সর্বশেষ নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে দুর্দান্ত ক্রিকেট খেলেছে বাংলাদেশ। সে সিরিজে আপনি নির্বাচক ছিলেন না। এবার কেমন মনে করছেন?
ফারুক আহমেদ : নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে বাংলাদেশ দল দুর্দান্ত ক্রিকেট খেলেছে। ওয়ানডে সিরিজে তো দ্বিতীয়বারের মতো হোয়াইট ওয়াশ করেছিল তাদের। এছাড়া কিভাবে বুক চিতিয়ে টেস্ট ম্যাচ ড্র করতে হয় সেটাও শিখিয়েছেন বাংলাদেশের ছেলেরা। আমি দলের প্রায় সব খেলাই দেখার চেষ্টা করেছি। সাফল্য পাওয়ার কারণ কি কি সেটাও বিশ্লেষণ করেছি। এবার কিন্তু আমাদের গতবারের প্রায় পুরো দলটাই রয়েছে। আমার কাছে তো খারাপ ফলাফলের কোনো কারণই দেখছি না।

সাপ্তাহিক : শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে তাদের মাটিতে সর্বশেষ সিরিজে ভালো খেলেছে বাংলাদেশ। প্রথমবারের মতো পূর্ণাঙ্গ সফরে আসা লঙ্কানদের বিপক্ষে আপনার প্রত্যাশা কি?
ফারুক আহমেদ : বাংলাদেশের কাছে প্রত্যাশা তাদের স্বাভাবিক খেলা। এটা করতে পারলে ফলাফল খারাপ হবে বলে মনে করছি না। তারপর শ্রীলঙ্কা সর্বশেষ পাকিস্তানের বিপক্ষে সিরিজেও খুব একটা ভালো করতে পারেনি। আমাদের স্বাগতিক দলের অ্যাডভানটেজ নিতে হবে। দর্শকদের উৎসাহ দেয়ার বিষয়টিকে কোনোভাবেই চাপ হিসেবে নেয়া যাবে না। এ বিষয়গুলো লক্ষ্য রাখলে ফলাফল খারাপ হওয়ার কোনো কারণই দেখছি না আমি।

সাপ্তাহিক : শ্রীলঙ্কা সিরিজের পরপরই এশিয়া কাপ, এরপর টোয়েন্টি-২০ বিশ্বকাপ। দায়িত্ব আগের যে কোনো সময়ের তুলনায় একটু বেশি নয় কি?
ফারুক আহমেদ : যে কোনো খেলাতেই আপনি যত খেলবেন ততই শিখবেন। ক্রিকেটও এর বাইরে নয়। নিজেদের মাটিতে টানা সিরিজগুলো খেলার কারণে সবচেয়ে বেশি সুবিধা বাংলাদেশেরই পাওয়ার কথা। এখানে চাপ অনুভব করার কোনো কারণ নেই। ঘন ঘন খেলা হলে খেলোয়াড়দের প্র্যাকটিস ম্যাচের কোনো ঘাটতি থাকবে না। মূল দায়িত্ব তো খেলোয়াড়দের, তাদের দিকে সবাই তাকিয়ে।

সাপ্তাহিক : যে অবস্থায় বাংলাদেশের ক্রিকেটকে রেখে গিয়েছিলেন এখন দলের মধ্যে কতটা পরিবর্তন দেখতে পাচ্ছেন?
ফারুক আহমেদ : বাংলাদেশ তো দিনে দিনে উন্নতি করছে। আমি যে অবস্থায় রেখে গিয়েছিলাম বাংলাদেশ দলকে সেখান থেকে অনেক উন্নতি করেছে। আগে যেখানে পরাজয়ের ব্যবধান কমানোর চিন্তা ছিল এখন সেখানে জয়ের চিন্তা করতে পারাটাও কম কৃতিতের নয়। বিশেষ গত বছরের হিসাব করলেও তো আমাদের উন্নতিটা স্পষ্টভাবে চোখে পড়বে।

সাপ্তাহিক : যে পরিবর্তন বাংলাদেশের ক্রিকেটে সাধিত হয়েছে তা কি আপনার প্রত্যাশা পূরণ করতে পেরেছে, নাকি আরও বেশি প্রত্যাশা করেছিলেন?
ফারুক আহমেদ : অবশ্যই প্রত্যাশা পূরণ করতে পেরেছে। তবে আরও অনেক বেশি শিখতে হবে, সাফল্য অর্জন করতে হবে তবেই এগিয়ে যাবে।

সাপ্তাহিক : প্রধান নির্বাচকের পেশাটা কতটা চ্যালেঞ্জিং মনে হয়?
ফারুক আহমেদ : এক অর্থে চ্যালেঞ্জিং, কারণ আপনাকে একটা সিরিজের আগে যে দলটা তৈরি করে দিতে হয় সে দল সাফল্য না পেলে কিছুটা দায়িত্ব আপনার ওপর বর্তাবে। এছাড়া কোনো নতুন খেলোয়াড় নেয়া হলে সে যদি ভালো খেলে তাতে কোনো সমস্যা নেই, কিন্তু যদি খারাপ খেলে তবে নির্বাচকদের একহাত নিতেও ছাড়ে না কেউ। তবে এটা খেলার অংশ। আমার কাছে প্রধান নির্বাচকের পদটাকে কিছুটা চ্যালেঞ্জিং মনে হয়।

সাপ্তাহিক : ভারত, অস্ট্রেলিয়া আর ইংল্যান্ড যে ’ক্রিকেট কল্প’ বাংলাদেশের মতো দেশের ওপর চাপিয়ে দেয়ার প্রস্তাব করেছে, এটা কতটা যুক্তিযুক্ত?
ফারুক আহমেদ : দেখেন এটা নিয়ে কথা বলতে গেলে অনেক কথাই বলতে হবে। আমি শুধু বলব এটা অন্যায় ভারি অন্যায়। আপনি যদি টেস্ট খেলা নাই খেলতে পারেন তবে স্ট্যাটাস দিয়ে লাভ কি? এটা নিয়ে এখনই কোনো সিদ্ধান্তে আসা ঠিক হবে না, অনেক কিছুই ভাববার আছে।

সাপ্তাহিক : বাংলাদেশের মতো দেশ কি ধরনের ক্ষতির সম্মুখীন হতে পারে?
ফারুক আহমেদ : অনেক দিক থেকেই ক্ষতির সম্মুখীন হতে হবে। ক্রিকেট থেকে আয়ের যে বণ্টন নীতিমালা প্রস্তাব করা হয়েছে, তাতে আর্থিক ক্ষতি হওয়ার সম্ভাবনাই প্রবল। এ প্রস্তাব অনুমোদিত হয়ে গেলে টিভি স্বত্ব বিক্রি করা নিয়েও বিসিবি নতুন সঙ্কটে পড়বে বলে মনে হয়। এফটিপি যদি না-ই থাকে, তাহলে কিসের ভিত্তিতে টিভি রাইটস বিক্রি করবে? সাদা চোখে দেখলে এটাই ক্ষতি, পেছনে আরও অনেক ক্ষতি হতে পারে। বলতে পারেন দেশের ক্রিকেট কাঠামোর ওপর আঘাত হানতে পারে।

সাপ্তাহিক : পাকিস্তান, দক্ষিণ আফ্রিকা, শ্রীলঙ্কা ও ওয়েস্ট ইন্ডিজ এরই মধ্যে এ প্রস্তাবের বিরোধিতা করলেও নিউজিল্যান্ড সমর্থন করেছে। বিষয়গুলোকে কিভাবে দেখছেন?
ফারুক আহমেদ : পাকিস্তান, দক্ষিণ আফ্রিকা, শ্রীলঙ্কা ও ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিরোধিতার বিষয়টি অবশ্যই সাধুবাদ পাওয়ার যোগ্য। নিউজিল্যান্ড ক্রিকেট বোর্ড সমর্থন দিলেও তাদের প্লেয়ার্স অ্যাসোসিয়েশন কিন্তু শুরু থেকেই বিরোধিতা করে আসছে। তারা হয়ত তাদের অবস্থান থেকে বিষয়টি নিয়ে কথা বলেছে।

সাপ্তাহিক : বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের কি অবস্থান নেয়া উচিত বলে মনে করেন?
ফারুক আহমেদ : আমরা ক্রিকেটে এখনও নতুন একটি দেশ। এখনই এসব রাজনীতির মধ্যে না জড়ানোটাই ভালো। তবে নিজেদের স্বার্থ রক্ষা করে কথা বলতে হবে। যে যেনো ক্রিকেটের কোনো ক্ষতি না হয়।

সাপ্তাহিক : এমনিতেই মোটে ১০টি দল টেস্ট খেলছে, সেটাও খুব বেশি নিয়মিত নয়। এমন প্রস্তাব পাস হলে তো টেস্ট ক্রিকেটই পড়ে যাবে সঙ্কটের মুখে?
ফারুক আহমেদ : এখনও যেহেতু বিষয়টি নিয়ে আলোচনা চলছে সে কারণে সেভাবে মন্তব্য করাটা ঠিক হবে না। যারা এসব নিয়ে কথা বলছে তাদের তো একটা যুক্তি থাকতে পারে।

সাপ্তাহিক : ভারতের মতো দেশ এখনও পর্যন্ত বাংলাদেশকে তাদের দেশে পূর্ণাঙ্গ সিরিজ খেলার আমন্ত্রণ জানায়নি, এখন যদি তারা এমন সিদ্ধান্ত নেয় তবে তো বিষয়টি আরও বেশি দুঃখজনক হবে?
ফারুক আহমেদ : যে আলোচনা হচ্ছে তা যদি বাস্তবে রূপ নেয় তবে তা ক্রিকেটের জন্য অবশ্যই ক্ষতির কারণ হবে বলে আমি মনে করি। ক্রিকেটের সার্বিক দিক বিবেচনা করেই সবার সিদ্ধান্তে আসা উচিত।

সাপ্তাহিক : আর এক মাস পরই টোয়েন্টি-২০ বিশ্বকাপের বাছাইপর্বে খেলতে হবে বাংলাদেশকে, কতটা সম্ভাবনা দেখছেন চূড়ান্ত পর্বে খেলার?
ফারুক আহমেদ : বাংলাদেশ যে ক্রিকেট গত কয়েক বছর ধরে খেলছে তাতে করে আশাবাদী হওয়াই যায়। এছাড়া খুব শক্ত প্রতিদ্বন্দ্বিতায় আমরা পড়ব বলে মনে করছি না। বাংলাদেশ তার স্বাভাবিক খেলাটা খেলতে পারলেই সাফল্য আসবে। অতিরিক্ত চাপ নেয়াটা মোটেও ঠিক হবে না। ধারাবাহিক পারফরম্যান্সই বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় শক্তি। আমি নিজেও সেটা নিয়েই আশাবাদী।

সাপ্তাহিক : টোয়েন্টি-২০ বিশ্বকাপে প্রথমবারের মতো বাংলাদেশ-জিম্বাবুয়ের মতো দেশগুলোকে বাছাইপর্ব খেলতে হচ্ছে, বিষয়টি কি একটু বেমানান লাগছে না?
ফারুক আহমেদ : যেহেতু বিষয়টি আইসিসির সিদ্ধান্তের সুতরাং এটা নিয়ে কথা না বলাই ভালো। তবে বাংলাদেশ ও জিম্বাবুয়েকে বাছাইপর্বে না খেলালেও পারত।

সাপ্তাহিক : বাংলাদেশের ক্রিকেট অবকাঠামো যেভাবে চলছে তাতে কি প্রধান নির্বাচক হিসেবে আপনি সন্তুষ্ট?
ফারুক আহমেদ : এখন ক্রিকেটাররা সারা বছরই খেলার মধ্যে থাকে। জাতীয় লিগ হচ্ছে, প্রিমিয়ার লিগ হচ্ছে। এছাড়া সিরিজ খেলার ফাঁকে ফাঁকে তিনদিনের ম্যাচ থেকে শুরু করে টোয়েন্টি-২০ টুর্নামেন্টও আয়োজন করা হচ্ছে। বিসিএলও নিয়মিত আয়োজন করা হচ্ছে। সমালোচনা থাকলেও বিপিএল আয়োজন করা হচ্ছে। বলা যেতে পারে ক্রিকেট একটা জায়গায় এসে দাঁড়িয়ে গেছে।

সাপ্তাহিক : এবার জাতীয় দল গঠন নিয়ে আপনার মতামত প্রকাশ করুন?
ফারুক আহমেদ : বাংলাদেশ দলে এখন পারফরমারের ছড়াছড়ি। সে কারণে দল গঠন করতে গিয়ে অনেক বিষয় চিন্তা করতে হয়েছে। পারফরম্যান্স একটা ব্যাপার। সেটাও এক-দুই ম্যাচের নয়, এই দুই ব্যাটসম্যান ছয় মাস ধরেই ভালো খেলছে। আর যাদের নেয়া হয়েছে এরা দলে নতুন আসেনি, অভিজ্ঞ। পারফরম্যান্সের সঙ্গে অভিজ্ঞতাই প্রাধান্য পাবে এটাই স্বাভাবিক। আমি এখনও মনে করি, বিজয় (এনামুল হক) খুবই সম্ভাবনাময় খেলোয়াড়। সেও টেস্ট খেলতে পারে। কিন্তু গত ছয় মাসে অভিজ্ঞরা ভালো খেলেছে। এই মুহূর্তে যারা ফর্মে আছে এবং অভিজ্ঞতা বেশি, আমরা তাদেরই দীর্ঘ পরিসরের ক্রিকেটে সুযোগ দিতে চাচ্ছি। বলা যেতে পারে ভালো একটি দলই শ্রীলঙ্কা সিরিজের জন্য নির্বাচন করা হয়েছে।

সাপ্তাহিক : নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ওয়ানডে সিরিজে ধারাবাহিক পারফরমার নাইম ইসলাম বাদ পড়ার পেছনে কারণ কি?
ফারুক আহমেদ : নাইম নিঃসন্দেহে ভালো খেলছে ইদানীং। এখানে তার সঙ্গে প্রতিদ্বন্দ্বিতা হয়েছে মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের সঙ্গে। শ্রীলঙ্কা দলে তিনজন বাঁহাতি ব্যাটসম্যান। মাহমুদউল্লাহ খেললে অধিনায়কের সুযোগ থাকবে সোহাগ গাজীর সঙ্গে আরেকজন অফ স্পিনার নেয়ার। দীর্ঘ পরিসরে নাঈমের চেয়ে ভালো বোলিং করতে পারে মাহমুদউল্লাহ। তবে নাঈমের হতাশ হওয়ার কিছু নেই। নির্বাচকদের চিন্তায় তিনি ভালোমতোই আছেন। এ জায়গায় আরেকজন প্রতিদ্বন্দ্বী ছিলেন ফরহাদ রেজা। বোলিং বৈচিত্র্য আর ব্যাটিংয়ের জন্য দল নির্বাচনী টেবিলে এই পেস বোলিং অলরাউন্ডারকে নিয়ে লম্বা আলোচনা হয়েছে। শেষ পর্যন্ত টেস্টের জন্য না হলেও ওয়ানডে আর টোয়েন্টি-২০ দলে ফরহাদ ভালোভাবেই বিবেচনায় আছেন। মিডল অর্ডারে দীর্ঘসময় ধরে বল করার মতো ও ব্যাটিংয়ের হিসাবে বাদ পড়েছেন নাঈম ইসলাম। নাসির হোসেন, মাহমুদউল্লাহ ও নাঈম ইসলাম একটা খেলোয়াড়। নাঈমের সঙ্গে তুলনায় বোলিংয়ে ভালো করায় দলে এসেছেন মাহমুদউল্লাহ।

সাপ্তাহিক : ওপেনিং-এ তামিম ইকবালের যোগ্য সঙ্গী অনেকদিন থেকেই খুঁজে পাচ্ছে না বাংলাদেশ। সেখানে কি ইমরুল কায়েসই যোগ্য?
ফারুক আহমেদ : তামিম ইকবাল নিয়মিতই পারফর্ম করছে। কিন্তু ওপেনিং-এ তার যোগ্য সঙ্গীর অভাব অনেক দিনের। এনামুল হক বিজয়কে বাদ দিয়ে ইমরুল কায়েস ও শামসুর রহমান শুভকে দলে ডাকা কারণ তারা দুজনই বর্তমানে খুব ভালো খেলছেন। ইমরুল অনেক অভিজ্ঞ। শামসুর রহমানও ভালো করছেন। তাই অভিজ্ঞতা ও ভালো ফর্মে থাকার কারণে তাদের দুজনকে নেয়া হয়েছে। বিজয় এখনও তরুণ, তাছাড়া সর্বশেষ সিরিজে সে ভালো করতে পারেনি। টোয়েন্টি-২০ ও ওয়ানডে ক্রিকেটে সে ভালো মানের ক্রিকেটার তা নিয়ে কোনো সন্দেহ নেই। তবে তামিমের সঙ্গে কে ওপেন করবেন তা ঠিক করবে টিম ম্যানেজমেন্ট। তামিম বাঁহাতি ব্যাটসম্যান। ইমরুল কায়েসও বাঁহাতি। সেটা হয়ত ম্যাচের আগেরদিন ঠিক হতে পারে।

সাপ্তাহিক : মাশরাফি মর্তুজাকে কি আপাতত টেস্টের বাইরে রাখার চিন্তা আপনাদের?
ফারুক আহমেদ : মাশরাফি দীর্ঘ পরিসরের ক্রিকেটের জন্য কতটা প্রস্তুত সেটা একটা বড় বিষয়। মধ্যাঞ্চলের হয়ে বিসিএলের প্রথম চার দিনের ম্যাচটি কোনো সমস্যা ছাড়াই খেলেছেন মাশরাফি বিন মর্তুজা। আমরা এখনও মনে করছি না যে টেস্টে মাশরাফি খেলতে পারবে। ঘরোয়া ম্যাচে আপনি চাইলে বল করলেন, না চাইলে করলেন না। কিন্তু টেস্টে যখন খেলবেন, তখন বলা যাবে না বল করতে পারব না। ২৫-৩০ ওভারও বল করতে হতে পারে। ওই অবস্থা এখনও আসেনি। সে কারণে তাকে নিয়ে এখনও সময় নিচ্ছি আমরা।

সাপ্তাহিক : মাহমুদউল্লাহ রিয়াদকে বাদ দিয়ে সহ-অধিনায়ক হিসেবে তামিম ইকবালকে নির্বাচন করার উদ্দেশ্য কি একটু বলবেন?
ফারুক আহমেদ : আগেই বলেছি দলে এখন অনেক পারফরমার রয়েছে। গত কয়েক ম্যাচে মাহমুদউল্লাহ রিয়াদকে একাদশে থাকার জন্য লড়াই করতে হয়েছে। তার পজিশনে অনেকেই ভালো করছে। তবুও তাকে আমরা দলে রেখেছি। আমি বলছি না মাহমুদউল্লাহ ভালো খেলছে না। কিন্তু, তামিমকে ইনফর্ম ব্যাটসম্যান হিসেবেই দলের সহ-অধিনায়ক নির্বাচন করা হয়েছে।

সাপ্তাহিক : নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে বাজে পারফরম্যান্স করার পরও তো মার্শাল আইয়ুব দলে রয়েছেন?
ফারুক আহমেদ : মার্শাল আইয়ুব ঘরোয়া ক্রিকেটে একজন পরীক্ষিত পারফরমার। গত নিউজিল্যান্ড সিরিজের দুই টেস্টে সুযোগ পেয়ে চার ইনিংসে সে রান করেছে মাত্র ১০৬। তার পরও দলের স্থিতিশীলতা ধরে রাখার স্বার্থেই মার্শাল আইয়ুবকে আরেকটি সুযোগ দেয়া। আমার মনে হয়, সর্বশেষ টেস্টে বড় ইনিংস খেলতে না পারলেও সে ভালো নৈপুণ্য দেখিয়েছে। আমরা চাই একজন তরুণ খেলোয়াড়। যখন সুযোগ পায়, সে যেন নিজেকে প্রমাণ করতে পারে। তাকে আরও একটু সুযোগ দিতে চাই।

সাপ্তাহিক : সাম্প্রতিক পারফরম্যান্স বাংলাদেশকে আশা জাগাচ্ছে। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে কেমন করতে পারে বাংলাদেশ?
ফারুক আহমেদ : আমি চাইছি ক্রিকেটাররা তাদের স্বাভাবিক খেলাটা খেলুক। নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে যে লড়াকু পারফরম্যান্স তারা দেখিয়েছে সেটার ধারাবাহিকতা ধরে রাখা প্রয়োজন, বাংলাদেশের ক্রিকেটের স্বার্থেই। তাই আমি আশাবাদী ভালো পারফরম্যান্স করার বিষয়ে।

সাপ্তাহিক : বাংলাদেশের ক্রিকেট নিয়ে আপনার স্বপ্ন কি?
ফারুক আহমেদ : সেভাবে আসলে স্বপ্ন দেখা হয় না। তবে আমি স্বপ্ন দেখি আগামী ১০ বছরের মধ্যে বাংলাদেশ সেরা ৫/৬টি দলের একটি হবে।

সাপ্তাহিক

Leave a Reply