সোনালী ব্যাংক মাওয়া শাখায় চাঁদাবাজির অভিযোগ

chadabaziলৌহজং উপজেলার মাওয়া সোনালী ব্যাংক শাখার ম্যানেজার কে.এম, আসাদুজ্জামান ও অফিস ষ্টাব চক্রের সিন্ডিকেটে চাঁদাবাজির। অভিযোগ পাওয়া যায় ও হয়রানীর শিকার গ্রাহকরা অনুসন্ধানে জানা যায় মাওয়া প্রতিদিনই সোনালী ব্যাংক শাখায় চাঁদাবাজির অভিযোগ ব্যাপক এ ব্যাপারে ব্রিপাকে গ্রাহকরা – যানান কেউ একাউন্ড রাখবেনা এই শাখায়! কেউ কেউবলেন লাইনে দাড়া করে রেখে অফিসাররা ফোনে আলাপ করে গ্রাহককে মূল্য দেয়না অন্যদিকে দুই লাখ টাকা থেকে ৪/৫ লাখ টাকা একাউন্ড থেকে নিতে চাইলেই ১দিন পরে আসেন ক্যাশে টাকানেই ম্যানেজার বলেন আবার লাখ প্রতি দুই শত টাকা করে ঘোষ দিলে টাকা নেওয়া সম্ভব হয় এই অভিযোগ মাওয়া সোনালী ব্যাংক শাখায় তিন শতাদিক গ্রাহক দের সোনালী ব্যাংক শাখায়!


মাওয়া সোনালী ব্যাংক শাখায় অফিসার বিমল চন্দ্র দাস জানান চাঁদাবাজির নাম উঠেছে আমরা জানি তবে এখন ও আমি . চাঁদাবাজি চক্রের কাউকে ধরতে পারিনি তবে গ্রাহকের অভিযোগে ৮০ ভাগই ম্যানেজার কে দোষি বোঝায় দির্ঘদিন এর অফিসার মোঃ আঃ রাজ্জক জানান দির্ঘদিন যাবদ গ্রাহকরা বেশি এমাউন্ড টাকা চাইলে ম্যানেজার ৯০ ভাগই অইচ্ছুক হন কিছু টাকা পাওয়ার আশায় এ ব্যাপারে দুঃখ প্রকাশ করেন কেশিয়ার আবুল হাশেম তিনি জানান ম্যানেজার এর এই আচরনের কারনে মাওয়া সোনালী ব্যাংক শাখায় আগের মতো গ্রাহক দেখা যায়না তিনি এ কথাও বলেন শোনে আসছি মাওয়া সোনালী ব্যাংক শাখায় সাবেক ম্যানেজার মোঃওহাব সাহেব আরও চরা মেজাজি ছিল তাই সকল গ্রাহক রা মাওয়া সোনালী ব্যাংক শাখার সমালোচনা করেন আমাদের সহ !! সোনালী ব্যাংক মাওয়া শাখার বেশ কিছু গ্রাহক পদ্মা সেতুর অবকাঠামোর চেক মাওয়া শাখার জমা দিলে লাখ প্রতি চারশত টাকা ঘোষ দিয়ে নিতে হয়েছে !

অন্যদিকে তদন্ত করে পাওয়া যায় এ শাখায় কেউ নতুন কোন একাউন্ড খোলতে আসেন ম্যানেজার ৫০০শ থেকে হাজার টাকা করে ঘোষ দাবি করে

মুন্সিগঞ্জটাইমস

Leave a Reply