মিরকাদিম পৌর মেয়রের হাতে লাঞ্ছিত মহিলা আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক

shবিগত পৌর নির্বাচনে দলীয় মনোনীত প্রার্থী হাজী আ. ছালামের পক্ষ সমর্থন করায় তাকে এই লাঞ্ছনা করা হয় বলে জানিয়েছেন তিনি। ফাতেমা বেগম জানান, মেয়র শাহীন নিজ বাড়িতে ডেকে এনে অপর দুই সহযোগী সন্ত্রাসী জালাল ও বাপ্পির সহযোগিতায় তার চুলের মুঠি ধরে মাটিতে ফেলে লাথি, কিল, ঘুসি মেরে মারাত্মক জখম করে তার শ্লীলতাহানি ঘটায়।

এ সময় সহযোগী বাপ্পি মেয়রের নির্দেশে তার ভ্যানিটি ব্যাগ থেকে ৫ হাজার নগদ টাকা ও একটি মোবাইল ফোন এবং অপর সহযোগী জালাল ৭ আনা ওজনের স্বর্ণের কানের দুল জোরপূর্বক ছিনিয়ে নেয়। ঘটনার সময় পৌর মেয়র আইনের আশ্রয় নিলে তাকে প্রাণে মেরে ফেলার ও মিরকাদিম পৌর এলাকা হতে বিতাড়িত করার হুমকি প্রদর্শনও করে বলে জানান ফাতেমা বেগম।

এ সময় নিজের ওপর নির্যাতনের বর্ণনা দিতে গিয়ে কান্নায় ভেঙে পড়ে তিনি আরো বলেন, মুন্সীগঞ্জে বিগত ২০১১ সালের পৌর নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে মেয়র নির্বাচিত হয়ে পৌর এলাকায় ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করে রেখেছেন মিরকাদিম পৌরসভার মেয়র শহীদুল ইসলাম শাহীন। তার অত্যাচারে এলাকার শান্তিপ্রিয় জনগণ অতিষ্ঠ ও ক্ষুব্ধ। এই বিষয়ে বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন পত্রিকায় প্রতিবেদন প্রকাশিত হলেও আইনশৃঙ্খলাবাহিনীর টনক নড়েনি। ফলে পৌর মেয়রের অত্যাচারের মাত্রা বেড়েই চলেছে। তাকে আশ্রয় প্রশ্রয় দিচ্ছে সুবিধাভোগী একটি বিশেষ মহল।

এখন মেয়র ও তার সহযোগিদের প্রতিনিয়ত ভয়-ভীতি ও হুমকির কারণে তিনি মানবেতর জীবনযাপন করছেন। আর তাই এই বিষয়ে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী স্বপ্রণোদিত হয়ে যথাযথ ব্যবস্থা নেবেন বলে তিনি ও এলাকার শান্তিপ্রিয় জনগণ প্রত্যাশা করেন।

মুন্সিগঞ্জটাইমস

Leave a Reply