ক্ষুব্ধ খালেদা বাদ দিচ্ছেন ফখরুল, মোশাররফ, খোকাদের

akhrul_khoka_mosharofভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরসহ শীর্ষ নেতাদের অনেকেই বাদ পড়ছেন বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব থেকে। তরুণ ও ত্যাগী নেতৃত্বের তত্ত্বাবধানে দলকে আরো গতিশীল করার জন্য চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার নেওয়া বিশেষ উদ্যোগের কারণেই তাদের বাদ পড়ার এই আশঙ্কা তৈরি হয়েছে বলে জানিয়েছে দলীয় সূত্র।

সূত্রমতে, লোভ-লালসার উর্দ্ধে থেকে দলকে এগিয়ে নিতে পারেন এমন পরীক্ষিত তরুণ নেতাদের হাতেই দলের নেতৃত্ব তুলে দিতে চান বিএনপি প্রধান। তাই দলের স্বার্থ ও দলটির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানের স‍ৎ আদর্শ সমুন্নত রাখতে কাজ করছেন এমন তরুণ নেতাদেরই শীর্ষ নেতৃত্বে উঠিয়ে আনতে চান তিনি। যাতে তারা ভয়-ভীতির উর্দ্ধে থেকে দলকে আরো জনমুখী করে এগিয়ে নিতে পারেন।


এছাড়া দুর্নীতি ও সন্ত্রাসে জড়িত বিতর্কিতদেরও মূল নেতৃত্ব থেকে বাদ দিতে চান খালেদা জিয়া। সম্প্রতি তৃণমূলে চরম অসন্তোষের কারণে কেন্দ্রীয় নেতাদের সাংগঠনিক সফর বাতিলের পর থেকেই বিএনপি প্রধান এ নিয়ে উঠেপড়ে লেগেছেন বলে মনে করা হচ্ছে।

দলের বিভিন্ন স্তরে এ নিয়ে জোর আলোচনাও শোনা যাচ্ছে। কে কে বাদ পড়ছেন, কেন বাদ পড়ছেন সে আলোচনাও চলছে দলীয় পরিমণ্ডলে।
akhrul_khoka_mosharof
দলীয় সূত্রের আভাস, খালেদা জিয়ার পরিকল্পনা বাস্তবায়ন হলে পদ হারাবেন বর্তমান স্থায়ী ও কেন্দ্রীয় কমিটির অনেক নেতা। এদের মধ্যে ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের পদ খোয়ানোর সম্ভাবনা অত্যন্ত প্রবল। এ তালিকায় আরো আছেন স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, ঢাকা মহানগর বিএনপির আহবায়ক সাদেক হোসেন খোকা, সদস্য সচিব আব্দুস সালাম প্রমুখ।

এছাড়া অসুস্থ থাকায় স্থায়ী কমিটির সদস্য তরিকুল ইসলাম। এম শামসুল ইসলাম, নজরুল ইসলাম খান প্রমুখরাও বাদ পড়তে পারেন যার যার পদ থেকে।

এক্ষেত্রে তরিকুল ইসলাম, নজরুল ইসলাম খান ও এম শামসুল ইসলামরা বিভিন্ন সময়ে দল ও দলের প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানের প্রতি নিজেদের কমিটমেন্টের উজ্জ্বল প্রমাণ রাখলেও তাদের পরীবর্তে তরুণ নেতৃত্ব দলকে আরো গতিশীল করতে পারবে বলেই বিশ্বাস করছেন বিএনপি প্রধান।

সূত্র বলছে, সরকার পতনের আন্দোলনে সরাসরি মাঠে না থেকে পালিয়ে থাকায় ভারপ্রাপ্ত মহাসচিবের ওপর ভীষণ নাখোশ খালেদা জিয়া। তিনি মনে করছেন, কেন্দ্রীয় নেতাদের এমন সরে থাকার কারণেই সরকার বিরোধী আন্দোলনে ব্যর্থ হয়ে এখন মাশুল গুণছে বিএনপি।

আর ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেনের লাগামহীন দুর্নীতি, মির্জা আব্বাসের সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড বেশ ভুগিয়েছে বিএনপিকে।

গত ২৯ ডিসেম্বর মার্চ ফর ডেমেক্রেসি কর্মসূচি ব্যর্থ হওয়ার পর বার বার বলেও দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য সাবেক স্পিকার ব্যারিস্টার জমির উদ্দিন সরকার ও ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেনকে দিয়ে প্রেস কনফারেন্স করাতে পারেননি খালেদা জিয়া। দলীয় সিদ্ধান্তের সঙ্গে এক সুরে না গেয়ে মিডিয়ার সঙ্গে ইচ্ছামতো কথা বলায় স্থায়ী কমিটির অন্যতম সদস্য সাবেক সেনাপ্রধান লে. জেনারেল (অব.) মাহবুবুর রহমানের ওপরও ভীষণ নাখোশ তিনি।

নানা দুর্নীতি ও অনিয়ম ছাড়াও বিএনপিতে মাইনাস খালেদা ফর্মুলার অন্যতম প্রবক্তা সাদেক হোসেন খোকা ও তার সতীর্থদের ব্যাপারেও খালেদা জিয়া বেশ কঠোর হতে পারেন বলেই আভাস দিচ্ছে তার ঘনিষ্ঠ সূত্রগুলো।

সূত্রগুলোর দাবি, এমন পরিকল্পনার অংশ হিসেবেই তিনি সম্প্রতি ঢাকা মহানগর কমিটি পুনর্গঠনের উদ্যোগ নিয়েছেন।

তাই দুর্নীতি, সন্ত্রাস, অসুস্থতা ইত্যাদি বিবেচনায় শীর্ষ নেতৃত্ব থেকে বাদপড়াদের তালিকা প্রায় চূড়ান্তই করে ফেলেছেন খালেদা জিয়া। বিপরীতে চূড়ান্ত করেছেন তরুণ, উদ্যমী নেতাদেরও তালিকাও।

এরই মধ্যে তিনি দলের তিন যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী, বরকত উল্লাহ বুলু ও মোহাম্মদ শাহজাহানসহ অপেক্ষাকৃত তরুণ নেতৃত্বকে দেশব্যাপী সংগঠন গোছানোর মৌখিক নির্দেশ দিয়েছেন বলে নিশ্চিত করেছে একাধিক দলীয় সূত্র।

তবে খালেদা জিয়ার এমন বৈপ্লবিক উদ্যোগ নিয়ে এখনো বেশ দরকষাকষি চলছে শীর্ষ মহলে। এর আগেও কয়েক দফা বিতর্কিতদের দল থেকে বাদ দিতে চেয়েও পারেননি বিএনপি প্রধান। সিদ্ধান্তে অটল থাকতে না পারলে এবারও তার পরিকল্পনা আঁতুর ঘরে মরে যাওয়ার আশঙ্কা তাই অমুলক নয়।

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর

Leave a Reply