লাশের ডাম্পিং জোনে পরিনত হয়েছে মুন্সীগঞ্জ

lash2একের পর এক হত্যাকান্ডে লাশের ডাম্পিং জোনে পরিনত হয়েছে মুন্সীগঞ্জ। ঘাতকরা নিরাপদ স্থান হিসেবে মুন্সীগঞ্জকে লাশ ফেলার স্থান হিসেবে বেছে নিয়েছে। আর অনেকক্ষেত্রেই এসব জোনে ফেলা লাশগুলোর পরিচয় মিলছে না। বেশিরভাগ লাশেরই পরিচয় না মিলায় ঘাতকরাও থেকে যাচ্ছে ধরা-ছোঁয়ার বাইরে। গত ৫ বছরে মুন্সীগঞ্জ ও এর আশে পাশে প্রায় অর্ধশতাধিক লাশ পাওয়া গেছে। যার মধ্যে অনেক লাশেরই পরিচয় পাওয়া যায়নি। ফলে বেওয়ারিশ লাশ হিসেবে দাফন হচ্ছে এসব স্বজনহারা দুর্ভাগাদের।


পুলিশ সূত্র জানায়, নানা ধরনের দ্বন্দ্ব, বিরোধের জের ধরে অপহরণের পর তাদের হত্যা করে দুর্বৃত্তরা। পচন ধরে গন্ধ বের হওয়ার পর এসব লাশের হদিস মেলে। বেশিরভাগ ক্ষেত্রে এই লাশগুলো ততদিনে বিকৃত হয়ে যায়। এতে হতভাগ্যদের পরিচয় পর্যন্ত জানা সম্ভব হচ্ছে না। ফলে তদন্তের ফলাফল থাকে শুন্য।ঘাতকদের সনাক্ত করা দূরের কথা অধিকাংশ মামলার তদন্ত কার্যক্রমও বন্ধ হয়ে যায়। অন্যদিকে যাদের লাশও পাওয়া যায়নি তাদের পরিবারের সদস্যরা বুকভরা দীর্ঘশ্বাস নিয়ে আজীবন খুঁজে বেড়ায় নিখোঁজ স্বজনকে।
lash2
সবচেয়ে ভয়াবহ ব্যাপার হল আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য পরিচয়ে অপহরণের অপহরনকৃত ব্যক্তিকে হত্যা করা। এসব অপহৃতদের উদ্ধারের ব্যাপারে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর ভূমিকাও সন্তোষজনক নয়। নিখোঁজ হওয়ার পর লাশ উদ্ধার হলে সে লাশ নিয়েই পরিবারের সদস্যদের সন্তুষ্ট থাকতে হচ্ছে।

মুন্সিগঞ্জটাইমস

Leave a Reply