ফেরদৌস ওয়াহিদের ‘কুসুমপুরের গল্প’

wahidসংগীতশিল্পী ফেরদৌস ওয়াহিদের প্রথম চলচ্চিত্র ‘কুসুমপুরের গল্প’ মুক্তি পাচ্ছে শুক্রবার। পরিচালনার পাশাপাশি এ সিনেমাতে তিনি ‘দিগন্ত আচার্য্য’ নামে একটি গুরুত্বপূর্ণ চরিত্রে অভিনয় করেছেন।

নিজস্ব প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান ওয়াহিদ ফিল্মসের ব্যানারে নির্মিত এ সিনেমা সারাদেশে ১৩টি হলে মুক্তি পাচ্ছে বলে গ্লিটজকে জানিয়েছেন ফেরদৌস ওয়াহিদ।


গানের মানুষ ফেরদৌস ওয়াহিদ ১৯৯৮ সালে আবুল হোসেন খোকন পরিচালিত ‘ভয়ঙ্কর বদমাশ’ সিনেমাতে প্রথমবারের মতো নায়ক চরিত্রে অভিনয় করেন। এতে তার বিপরীতে অভিনয় করেছিলেন ববিতা।

২০০৪ সালে পরিচালক হিসেবে আত্মপ্রকাশ করেন তিনি। তিনি নির্মাণ করেন ‘ডেঞ্জারম্যান’ নামের একটি টেলিফিল্ম। এরপর তিনি ‘দুরন্ত অভিযান’, ‘কয়েদি’ নামে দুটি অ্যাকশন-অ্যাডভেঞ্চারধর্মী টেলিফিল্ম নির্মাণ করেন।

ফেরদৌস ওয়াহিদ বলেন, “নাটক ও টেলিফিল্মের চেয়ে সিনেমার দর্শকের সংখ্যা বেশি। তারা বেশ মনযোগ দিয়ে সিনেমা দেখে। আমার দীর্ঘদিনের ইচ্ছা ছিল একটি বিনোদনমূলক সিনেমা বানাব। এবার সবকিছু অনুকূলে ছিল। তাই সিনেমাটি নির্মাণ করলাম।”

এতে প্রধান চরিত্রে অভিনয় করছেন পলাশ, জেসমিন ও মৌমিতা। তাদের চরিত্রগুলোর নাম রাজা, ময়না ও পুতুল। সিনেমাতে দুই বড়ভাইয়ের চরিত্রে অভিনয় করছেন কাজী রাজু ও বাদল। অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ চরিত্রে অভিনয় করেছেন শিরিন আলম, আনিস চৌধুরী।
wahid
এক হিন্দু জমিদার পরিবারের কাহিনি নিয়ে আবর্তিত হয়েছে ‘কুসুমপুরের গল্প’। এতে দেখা যাবে, সম্পত্তির ভাগবাঁটোয়ারা নিয়ে এক পরিবারের দুই ভাইয়ের মধ্যে শুরু হয় দ্বন্দ্ব। সম্পত্তির লোভে অন্ধ ছোটভাই বাবাকে হত্যার পর বড়ভাইকেও হত্যার পরিকল্পনা গ্রহণ করে। তখন সপরিবারে পালিয়ে যায় বড়ভাই। একদিন দুর্ভাগ্যক্রমে তার একমাত্র ছেলে রাজা হারিয়ে যায়। রাজা বড় হয়ে বাবাকে খুঁজে পায়। এরপর সে জানতে পারে তার ভালোবাসার মানুষ ময়নার বাবা আসলে তার ছোট চাচা।

মাত্র ১৩ হলে মুক্তি পাচ্ছে কেন- এ প্রশ্নের জবাবে ফেরদৌস ওয়াহিদ বলেন, “এটি আমার পরীক্ষামূলক সিনেমা। এ সিনেমার মাধ্যমে আমি বাজার ও দর্শকের মনোভাব বুঝতে চাই। তাই বেশি হলে মুক্তি দিচ্ছি না।”

এ সিনেমার সংগীতায়োজন করেছেন ফেরদৌস ওয়াহিদের ছেলে সংগীতশিল্পী হাবিব ওয়াহিদ। সিনেমাতে গানও গেয়েছেন হাবিব। আরও গেয়েছেন ফেরদৌস ওয়াহিদ, সাবিনা ইয়াসমিন, ন্যান্সি ও কণা।

বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর

Leave a Reply