সদর আওয়ামীলীগের পোয়াবারো

3 ucউপজেলা পরিষদ নির্বাচনকে সামনে রেখে উৎসবের আমেজ বিরাজ করছে মুন্সীগঞ্জ জেলা সদরে। ২৭ ফেব্রুয়ারি মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলার নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। এরই মধ্যে নির্বাচনের প্রাথমিক আনুষ্ঠানিকতা শেষ করে প্রার্থীদের মধ্যে প্রতীক বরাদ্দ দিয়েছে স্থানীয় প্রশাসন। দুটি পৌরসভা ও ১০টি ইউনিয়ন নিয়ে গঠিত মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলার ভোটার সংখ্যা ২ লাখ ৫৬ হাজার ৬০০ জন।


নির্বাচনে দলীয় সিদ্ধান্ত অনুযায়ী আওয়ামী লীগ থেকে নির্বাচন করছেন বর্তমান চেয়াম্যান ও জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি মোহাম্মদ মহিউদ্দিনের ছোট ভাই আনিসুজ্জামান আনিস। অপরদিকে বিএনপি থেকে দলীয়ভাবে সমর্থন দেয়া হয়েছে সদর উপজেলার রামপাল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও দিগন্ত টিভির পরিচালক মোশারফ হোসেন পুস্তিকে। এদিকে দলীয় সমর্থন থেকে বঞ্চিত হয়ে বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনের মাঠ দাপিয়ে বেড়াচ্ছেন জেলা আইনজীবী সমিতির সাবেক সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট সালাউদ্দিন খান স্বপন।


প্রতীক বরাদ্দ দেয়ার পর থেকেই মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলা প্রার্থীদের প্রচারণায় মুখর হয়ে উঠেছে। ব্যানার ও পোস্টারে ছেয়ে গেছে শহরের প্রধান সড়ক, গুরুত্বপূর্ণ মোড় ও পাড়া মহল্লা। ভোটারদের আকৃষ্ট করতে মাইকিং করে চলছে ব্যাপক প্রচারণা। ভোটারদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে প্রার্থীরা দিচ্ছেন নানা প্রতিশ্রুতি। এদিকে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মোহাম্মদ মহিউদ্দিনের সঙ্গে তার আপন ছোট ভাই চেয়ারম্যান প্রার্থী আনিসুজ্জমান আনিসের দীর্ঘদিনের পারিবারিক ও রাজনৈতিক কোন্দল থাকলেও নির্বাচন সামনে রেখে এক হয়েছেন তারা।

এছাড়া দলীয় প্রার্থীর বিজয় নিশ্চিত করতে মাঠে রয়েছেন মুন্সীগঞ্জ-৩ আসনের আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্য মৃণাল কান্তি দাস। এ কারণে শক্ত অবস্থানে রয়েছেন আওয়ামী লীগ প্রার্থী আনিসুজ্জামান আনিস। অপরদিকে নির্বাচন করার ঘোষণা দিয়ে মনোনয়ন পত্র জমা দেয়ার পর থেকেইে নির্বাচনী মাঠ গরম করে রেখেছেন বিএনপির বিদ্রোহী প্রার্থী জেলা আইনজীবী সমিতির সাবেক সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট সালাউদ্দিন খান স্বপন। দলের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী মনোনয়ন পত্র প্রত্যাহার না করায় সম্প্রতি মুন্সীগঞ্জ শহর বিএনপির সহ-সভাপতি পদে থাকা স্বপনকে দল থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে। দলের ওই সিদ্ধান্তের পর তিনি আরও চাঙ্গা হয়ে উঠেছেন। দিন-রাত তিনি প্রচারণায় ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন নির্বাচনী এলাকায়। তার নেতাকর্মীদের মধ্যে উৎসাহ-উদ্দীপনার কমতি নেই।
3 uc
এদিকে জেলা বিএনপির সভাপতি সাবেক উপমন্ত্রী আবদুল হাই মাঠে নেমেছেন বিএনপি সমর্থিত প্রার্থী রামপাল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও দিগন্ত টিভির পরিচালক মোশারফ হোসেন পুস্তিকে নিয়ে। তবে দলের বিদ্রোহী প্রার্থী থাকায় তার নির্বাচনী বৈতরণী পার হওয়া অনেকটা কঠিন হয়ে পড়েছে। প্রকাশ্যে দলীয় নেতাকর্মীরা তার পক্ষে কাজ করলেও গোপনে অনেকেই বিদ্রোহী প্রার্থীর পক্ষেও কাজ করছেন বলে একটি সূত্র নিশ্চিত করেছে। বিএনপিতে গৃহদাহ থাকার কারণে আওয়ামী লীগ প্রার্থীর নির্বাচনী বৈতরণী পাড়ি দিতে সহজ হবে বলে মনে করেন স্থানীয় ভোটাররা।

আলোকিতবাংলাদেশ

Leave a Reply