আ’লীগের হামলায় বিএনপি প্রার্থী আহত : সেনাবাহিনী চেয়েছে

bnpPCশেখ মো. রতন: মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলা নির্বাচনের গনসংযোগ কালে জেলা বিএনপি’র সভাপতি আব্দুল হাই ও বিএনপি’র মনোনিত চেয়ারম্যান প্রার্থী মোশারফ হোসেন পুস্তীর (আনারশ) উপর প্রতিপক্ষ আ’লীগের মনোনিত চেয়ারম্যান প্রার্থী আনিস উজ্জামানের (দোয়াত-কলম) সমর্থীত ১৫-২০ জনের একটি সন্ত্রাসী বাহীনী হামলা চালায়। শনিবার বেলা ১২ টার দিকে শহরের মুন্সীরহাট এলাকায় এ হামলা চালানো হয়।

এতে জেলা বিএনপি’র সভাপতি আব্দুল হাই ও বিএনপি’র মনোনিত চেয়ারম্যান প্রার্থী মোশারফ হোসেন পুস্তীসহ ২০ জন বিএনপি’র নেতা কর্মী আহত হয়েছে। আহতদের স্থানীয় ভাবে চিকিৎসা দেয়া হয়েছে।
bnpPC
ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে মুন্সীগঞ্জ সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শহিদুল ইসলাম জানান, বেলা ১২ টার দিকে মুন্সীরহাট এলাকায় গনসংযোগকালে তাদের উপর ১৫-২০ জন একটি সন্ত্রাসী দল তাদের উপর এলোপাতাড়ি ইটপাটকেল নিক্ষেপ করা হলে সাবেক উপমন্ত্রী আব্দুল হাই চোখে-কপালে ও বিএনপি’র মনোনিত চেয়ারম্যান প্রার্থী মোশারফ হোসেন পুস্তী মাথায় গুরুতর আঘাত পান।

এ ঘটনার পর-পরই জেলা বিএনপি’র সভাপতি ও চেয়ারম্যান প্রার্থী মোশারফ হোসেন পুস্তী বিএনপি’র নেতাকর্মীদের নিয়ে জেলা রিটার্নিং অফিসার মো: সারওয়ার মুর্শেদ চৌধুরীর কাছে লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন।


এ ঘটনার পরই শনিবার দুপুর ২ টার দিকে শহরের জুবলী রোডে একটি চাইনিজ রেষ্টুরেন্টে সংবাদ সম্মেলন করে জেলা বিএনপি। সংবাদ সম্মেলনে চেয়ারম্যান প্রার্থী মোশারফ হোসেন পুস্তী বলেন- আ’লীগের চেয়ারম্যান প্রার্থী আনিসুজ্জামান আনিসের সমর্থক ও দলীয় শতাধিক কর্মী অতর্কিতে এ হামলা করে।

এ ঘটনায় জেলা রিটার্নিং অফিসার সারওয়ার মোর্শেদের কাছে লিখিত অভিযোগ পত্র দায়ের করেন বিএনপি দলীয় চেয়ারম্যান ও ভাইস-চেয়ারম্যান প্রার্থীরা। তারা জরুরী ভিত্তিতে সদর উপজেলা নির্বাচনে সেনা বাহিনীসহ আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী মোতায়েন দাবী জোর দাবী করেন।

এটিএনবিডি
==================

সাবেক উপমন্ত্রী ও চেয়ারম্যান প্রার্থীর উপর হামলা

মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলা নির্বাচনের প্রচারনাকালে বিএনপি দলীয় সাবেক উপমন্ত্রী জেলা বিএনপির সভাপতি আব্দুল হাই ও চেয়ারম্যান প্রার্থী মোশারফ হোসেন পুস্তির উপর হামলা করা হয়েছে।

শনিবার বেলা ১২ টার দিকে শহরের মুন্সীরহাট এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

মুন্সীগঞ্জ সদর থানার সেকেন্ড অফিসার এসআই সুলতান উদ্দিন যমুনা নিউজকে জানান, বেলা ১২ টার দিকে মুন্সীরহাট এলাকায় প্রচারনাকালে তাদের উপর এলোপাতাড়ি ইটপাটকেল নিক্ষেপ করা হলে সাবেক উপমন্ত্রী আব্দুল হাই চোখে আঘাত পান।


এদিকে, এ ঘটনায় শনিবার দুপুর ২ টার দিকে শহরের জুবলী রোডে একটি চাইনিজ রেষ্টুরেন্টে সংবাদ সম্মেলন করে বিএনপি। এ সময় সাংবাদিকদের সৌজনৌ মধ্যাহ্ন ভোজের আয়োজন করা হয়। সংবাদ সম্মেলনে চেয়ারম্যান প্রার্থী মোশারফ হোসেন পুস্তি বলেন- আ’লীগের চেয়ারম্যান প্রার্থী আনিসুজ্জামান আনিসের সমর্থক ও দলীয় শতাধিক কর্মী অতর্কিতে এ হামলা করে। এ ঘটনায় জেলা রিটার্নিং অফিসার সারওয়ার মোর্শেদের কাছে লিখিত অভিযোগ পত্র দায়ের করেন বিএনপি দলীয় চেয়ারম্যান ও ভাইস-চেয়ারম্যান প্রার্থীরা। তারা জরুরী ভিত্তিতে সদর উপজেলা নির্বাচনে সেনা বাহিনী মোতায়েন দাবী করেছেন।

যমুনা নিউজ
=======

সাবেক উপমন্ত্রী ও চেয়ারম্যান প্রার্থীর ওপর হামলা

সদর উপজেলা নির্বাচনের প্রচারাকালে বিএনপি দলীয় সাবেক উপমন্ত্রী জেলা বিএনপির সভাপতি আবদুল হাই ও চেয়ারম্যান প্রার্থী মোশারফ হোসেন পুস্তির উপর হামলা করা হয়েছে। এ সময় তাদের উপর এলোপাতাড়ি ইটপাটকেল নিক্ষেপ করা হলে সাবেক উপমন্ত্রী আব্দুল হাই চোখে আঘাত পান। আহত হয় মুন্সীগঞ্জ পৌরসভার মেয়র একেএম ইরাদত মানু, ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী শহর বিএনপির সভাপতি শহীদুল ইসলাম, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান রুবী আক্তার। শনিবার দুপুর ১২ টার দিকে মুন্সীগঞ্জ শহরের কাছে মুন্সীরহাট এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।
bnpPChamlaB
সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য রাখছেন ও রির্টানিং অফিসারের কাছে লিখিত অভিযোগ দিচ্ছেন চেয়ারম্যান প্রার্থী মোশাররফ হোসেন পুস্তি। সাথে রয়েছেন সাবেক উপমন্ত্রী, জেলা বিএনপির সভাপতি আবদুল হাই

এ ঘটনায় শনিবার দুপুর ২ টার দিকে শহরের জুবলী রোডে একটি চাইনিজ রেষ্টুরেন্টে সংবাদ সম্মেলন করে বিএনপি। সংবাদ সম্মেলনে চেয়ারম্যান প্রার্থী মোশারফ হোসেন পুস্তি বলেন- আওয়ামী লীগের চেয়ারম্যান প্রার্থী আনিসুজ্জামান আনিসের দোয়াত কলম প্রতীকের সমর্থক চরাঞ্চলের চরকেওয়ারের শীর্ষ সন্ত্রাসী দু’ভাই আতা-মোতা ও পূর্ব শিলমন্দিও নূর হোসেন ভুইয়া, আতাউর ভুইয়ার নেতৃত্বে দলীয় শতাধিক কর্মী লাঠিসোটা নিয়ে অতর্কিতে এ হামলা করে।

এ ঘটনায় জেলা রিটার্নিং অফিসার সারওয়ার মোর্শেদের কাছে লিখিত অভিযোগ পত্র দায়ের করেন বিএনপি দলীয় চেয়ারম্যান ও ভাইস-চেয়ারম্যান প্রার্থীরা। তারা জরুরী ভিত্তিতে সদর উপজেলা নির্বাচনে সেনা বাহিনী মোতায়েন দাবি করেছেন। সংবাদ সম্মেলনে আনারস প্রতীকের চেয়ারম্যান প্রার্থী জেলা বিএনপির সহ-সভাপতি মোশারফ হোসেন পুস্তি বলেন, চরাঞ্চলের ৫টি ইউনিয়নে তারা নির্বাচনী প্রচারণা চালাতে পারছেনা। বিএনপির সমর্থিত নেতাকর্মীদের এলাকায় যেতে দেয়া হচ্ছে না। ভোটারদের বাড়ি বাড়ি লিফলেট দেয়া যাচ্ছে না। আগামী ২৭শে ফেব্রুয়ারি এ উপজেলার নির্বাচন। অথচ শনিবার পর্যন্ত চরাঞ্চলেরর ৫টি ইউনিয়নের কোথাও কোন পোস্টারও লাগানো যায়নি। এ অবস্থায় তিনি চরাঞ্চলের সবক’টি (৪০-৪২টি) ভোট কেন্দ্র অত্যধিক ঝুঁকিপূর্ণ হিসেবে মন্তব্য করে তিনি আরো বলেন, এ ৫টি ইউনিয়নে ৫টি পুলিশ ক্যাম্প, র‌্যাব, পুলিশ ও সেনাবাহিনী মোতায়েনের দাবি জানান।

মুন্সীগঞ্জবার্তা
================

নির্বাচনী প্রচারনাকালে আবদুল হাইয়ের উপর হামলা

মু্ন্সীগঞ্জ জেলা বিএনপি সভাপতির উপর হামলা চালিয়েছে ৪০-৫০ জনের একটি দল।উপজেলা নির্বাচনে বিএনপি সমর্থিত প্রার্থীদের পক্ষে প্রচারনা চালানো কালে এ হামলার ঘটনা ঘটে। সদর থানার মাকহাটী বাজারে দুবৃত্তরা এ হামলা চালায়। এ সময় বিএনপির ৪-৫জন নেতাকর্মী আহত হয়।
bnpPChamla
আব্দুল হাই সাংবাদিকদের জানান, “ গত শনিবারও বিভিন্ন এলাকায় নির্বাচনী প্রচারনা চালাতে গেলে আমাকে বাধা দেয়া হয়। এজন্য পুলিশকে জানিয়ে নির্বাচনী প্রচারনায় অংশ নেই। কিন্ত তা সত্ত্বেও তারা কোন প্রকার নিরাপত্তার ব্যবস্থা করেনি।”

বিএনপি সমর্থিত চেয়ারম্যান প্রার্থী অভিযোগ করেন, পুলিশ প্রশাসনের উপস্থিতিতেই এ হামলা ঘটনা ঘটেছে। পুলিশকে জানানোর পরেও তারা কোন প্রকার ব্যবস্থা নেয়নি।

এ ঘটনার প্রেক্ষিতে জেলা রিটার্নিং অফিসার সারোয়ার মোর্শেদ চৌধুরী জানিয়েছেন, ভবিষ্যতে এ ধরনের ঘটনা ঘটলে তাৎক্ষনিক পুলিশ ও ম্যাজিস্ট্রেট পাঠানো হবে। তিনি সর্বোচ্চ নিরাপত্তার জন্য কাল থেকে র্যা ব মোতায়েনেরও আশ্বাস দেন।

মুন্সিগঞ্জটাইমস
========

সংবাদ সম্মেলনে অভিযোগ : মুন্সীগঞ্জে আ’লীগের হামলায় বিএনপি প্রার্থী আহত : সেনাবাহিনী চেয়েছে

মুন্সীগঞ্জে নির্বাচনী প্রচারণা চালাতে গিয়ে আওয়ামী লীগ প্রার্থী সমর্থিত নেতাকর্মীদের হামলায় প্রার্থীসহ ৭ বিএনপির নেতাকর্মী আহত হয়েছে। শনিবার দুপুরে সদরের মুন্সীরহাটে এ ঘটনা ঘটে বলে সংবাদ সম্মেলন করে বিএনপি সমর্থিত প্রার্থী দাবি করেছে। বিএনপি সদর উপজেলা চেয়ারম্যান প্রার্থী মোশারফ হোসেন পুস্তি জানান, পুলিশকে অবহিত করে সকালে শহরের মুন্সীরহাটে বিএনপির নেতাকর্মী-সমর্থকদের নিয়ে নির্বাচনী প্রচারণা চালাতে গেলে আওয়ামী লীগ সমর্থিত লোকজন তাদের বাধা দেয়। এভাবে ৪ দফা চেষ্টা করলে এক সময় আওয়ামী লীগের স্থানীয় নেতা নূর হোসেন ভূঁইয়া ও আতাউর রহমান ভঁূইয়ার নেতৃত্বে একদল ক্যাডার তাদের ওপর হামলা চালায়। এ সময় বিএনপির জেলা সভাপতি আবদুল হাই, উপজেলা চেয়ারম্যান প্রার্থী মোশারফ হোসেন পুস্তি, সাবেক হরগঙ্গা কলেজের ভিপি ও জেলা বিএনপির সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক শাহিন মিয়া, ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী ও শহর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক শহিদুল ইসলামসহ ৫ ব্যক্তি আহত হয়েছে। এ ঘটনার প্রেক্ষিতে জেলা বিএনপি বিকেলে শহরের একটি রেস্টুরেন্টে সংবাদ সম্মেলন করে আওয়ামী লীগের বিরুদ্ধে ব্যাপক অভিযোগ তোলে।

শহরের জুবলি রোডের একটি চাইনিজ রেস্টেুরেন্টে সংবাদ সম্মেলনে বিএনপি সমর্থিত প্রার্থী মোশারফ হোসেন পুস্তি বলেন, স্থানীয় আওয়ামী লীগ বিএনপি প্রার্থীকে নির্বাচনে গণসংযোগ করতে দিচ্ছে না। বিভিন্ন স্থানে বিএনপি প্রার্থীর সমর্থনে লাগানো পোস্টার, ব্যানার, ফেস্টুন আওয়ামী লীগের লোকজন ছিড়ে ফেলছে বা খুলে নিয়ে যাচ্ছে। মোল্লাকান্দি, আধরা, শিলই, চর কেওয়ারা ও বাংলাবাজার এই পাঁচটি ইউনিয়নে বিএনপির প্রার্থীর সমর্থনে কেউ ভোট চাইতে যেতে পারছে না। আওয়ামী লীগ লোকজন এখানে জনগণের কাছে ভোট চাইতে ব্যাপক বাধার সৃষ্টি করছে। এ ৫টি ইউনিয়নকে ঝুঁকিপূর্ণ আখ্যায়িত করে অনতিবিলম্বে ৫টি ইউনিয়নে ৫টি অস্থায়ী পুলিশ ক্যাম্প স্থাপনের দাবি জানানো হয়েছে। এ বিষয়ে জেলা রিটার্নিং অফিসার এডিসি জেনারেল মো. সারোয়ার মোর্শেদ চৌধুরীর নিকট লিখিত অভিযোগও দেয়া হযেছে। সংবাদ সম্মেলন থেকে শুধু নির্বাচনকালীন সময়েই নয়, নির্বাচনের পরেও কিছু দিন এখানে অস্থায়ী পুলিশ ক্যাম্প রাখার দাবি করা হয়েছে। কারণ হিসেবে নির্বাচন পরবর্তী আওয়ামী লীগের সহিংসতা ও নির্যাতনের হাত থেকে নিরীহ জনগণকে রক্ষায়ও এ পুলিশ ক্যাম্প অত্যাবশ্যক বলে দাবি করা হয়। তাছাড়া দ্রুতই সেনা মোতায়েনের দাবিও জানান তিনি।

শনিবারের হামলার ঘটনায় কাউকে আসামি করে থানায় কোন অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে কিনা ? এ প্রশ্নের উত্তরে মোশারফ হোসেন পুস্তি বলেন, আমরা শান্তিপ্রিয় লোক, মামলা করে নতুন করে ঝামেলায় জড়াতে চাই না।

আওয়ামী লীগ চেয়ারম্যান প্রার্থী মো. আনিছুজ্জামান এসব অভিযোগ অস্বীকার করে বলেছেন, এ ধরনের কোন হামলার ঘটনা ঘটেনি। নির্বাচনী ফায়দা লুটতে বিএনপি নানা অপকৌশল ব্যবহার করে আওয়ামী লীগের ঘাড়ে দায় চাপিয়ে জনগণের কাছ থেকে ফায়দা লুটার চেষ্টা করছে। কারণ আওয়ামী লীগ এবার এখানে শক্ত অবস্থানে থেকে নির্বাচন করছে। বিএনপি প্রার্থীর পরাজয় সুনিশ্চিত জেনেই তারা এখন নানা অপতৎপরতা চালাচ্ছে।

জেলা রিটার্নিং অফিসার মো. সারওয়ার মোর্শেদ চৌধুরী বিএনপির প্রার্থী মোশারফ হোসেন পুস্তির লিখিত অভিযোগ পেয়েছেন স্বীকার করে বলেন, যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হচ্ছে। ইতোমধ্যে এলাকায় পুলিশ মোতায়েন করার কাজ শুরু হয়েছে।

জেলা পুলিশ সুপার হাবিবুর রহমান জানিয়েছেন, মুন্সীরহাটে বিএনপির ওপর কোন হামলার ঘটনা ঘটেনি। তবে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীর লোকজন উচ্চস্বরে মাইক বাজালে বিএনপির লোকজন তাতে বিরক্ত হয়েছেন। তবে যদি হামলার মতো কোন ঘটনা ঘটে থাকে তবে তদন্ত করে যথাযথ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য রাখেন বিএনপি প্রার্থী মোশারফ হোসেন পুস্তি। অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন- জেলা বিএনপির সভাপতি আবদুল হাই, ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী ও শহর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক শহিদুল ইসলাম, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী রুবি আক্তার প্রমুখ।

সংবাদ

Leave a Reply