সাংবাদিক সাগরের লাশ টঙ্গীবাড়ীতে দাফন

sagor tongibaiউত্তরা থানা হতে রহস্যজনকভাবে মৃত্যূ হওয়া
ব.ম শামীম: ঢাকার উত্তরা পশ্চিম থানার ছাদ হতে পরে রহস্যজনকভাবে মৃত্যূ হওয়া সাপ্তাহিক অপরাধ দমন প্রত্রিকার স্টাফ রির্পোটার সাংবাদিক শাহ আলম সাগরের লাশ তার গ্রামের বাড়ি টঙ্গীবাড়ী উপজেলার পাচঁগাঁও আসবল কবরস্থানে দাফন করা হয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার ভোরে তার লাশ দাফন করা হয়।

এর আগে সোমবার রাতে তার লাশ নিজ বাড়িতে আনা হলে এক হৃদয় বিদারক দৃশ্যর সুচানা হয়। নিহতের পিতা আঞ্জু মোল্লা ও বৃদ্ধা মাতা সমর্থ বেগম ছেলের মৃত্যূতে কান্নায় কন্ঠস্বর রোধ হয়ে গেছে। মা সমর্থ বেগমের কন্ঠ দিয়ে কোন শব্দই বের হচ্ছেনা। চোখ বেয়ে শুধু পানি ঝরছে।

নিহতের স্ত্রী মুক্তা আক্তার সুমা জানান, রোববার সকাল ১০ টায় সাগরকে ফোন করে থানায় যেতে বলে উত্তরা থানা ওসি। পরে আমি সাগরের মোবাইলে দেড়টা বাজে ফোন দিলে তার মোবাইল বন্ধ পাওয়া যায়। পরে রাত সাড়ে ১০ টায় কদমতলি থানার এস আই মজিবুর ফোন করে আমায় জানায়, আপনার স্বামী উত্তরা থানা এলাকায় মারা গেছে তার লাশ ঢাকা ম্যাডিকেল কলেজ হাসপাতালে মর্গে নেওয়া হয়েছে। পরে খবর পেয়ে আমি উত্তরা থানায় গেলে আমাকে থানায় ঢোকতে দেয়নি থানা পুলিশ। আমি সাগরের মোবাইল এবং ক্যামেরা চাইলে তাও আমাকে দেওয়া হয়নি। মুক্তা পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশের জের ধরে সাগরকে পুলিশে পিটিয়ে হাত পা ভেঙ্গে থানার উপর হতে ফেলে দেওয়ার অভিযোগ করেন।

এদিকে সাগরের হাতে পায়ে বাধাঁর চিহ্ন রয়েছে। পত্যক্ষদর্শীরা জানান, তার দু-পায়ের হার ৮ টি স্থানে এবং হাত দুটি একাধিক স্থানে ভাঙ্গা ছিলো। এ ব্যাপারে উত্তরা পশ্চিম থানার ওসি রফিকুল ইসলামের সাথে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হলে সে জানায়, প্রতিপক্ষের লোকজন থানার বাইরে তার উপর হামলা চালালে সে থানার ছাদ হতে পাইপ বেয়ে পালানোর চেষ্টাকালে পরে নিহত হয়। প্রতিপক্ষ কারা আক্রমান চালিয়েছিলো এব্যাপারে জানতে চাইলে সে ক্ষিপ্ত হয়ে উঠে বলে, এতো কথা মোবইলে বলা যাবেনা। প্রয়োজন হলে থানায় আসেন।

Leave a Reply