তৈরি হচ্ছে আলোকিত মানুষ

bscইমদাদুল হক মিলন
প্রথমেই মানচিত্রের গল্পটা বলি। বাড়ির ছোট্ট ছেলেটি অতিদুরন্ত। তার জন্য ঘরে কিছুই রাখা যায় না। বিশেষ করে কাগজপত্র যা পায় তা-ই সে ছিঁড়ে ফেলে। বাবা স্কুল-শিক্ষক। ক্লাসের ছাত্রছাত্রীদের দেশ চেনাবার জন্য বাংলাদেশের একটা মানচিত্র কিনে এনেছেন। এনে ছেলেটিকে বলেছেন, খবরদার মানচিত্রটা তুমি ধরবে না। এটা আমার স্কুলের কাজের জন্য এনেছি। ছেলেটি হাসিমুখে বলেছে, না বাবা, আমি ধরব না। বাবা খুশিমনে কাজে বেরিয়ে গেছেন। ফিরে এসে দেখেন, ছেলেটি সেই মানচিত্র ছিঁড়ে কুটি কুটি করে বসার ঘরে ফেলে রেখেছে। বাবা খুবই রেগে গেলেন। ছেলেকে ডেকে বললেন, তোমাকে বলেছিলাম মানচিত্রটা ধরবে না, তুমি তো ওটা ছিঁড়ে কুটি কুটি করে ফেলেছ। এখন আমি তোমাকে কঠিন শাস্তি দেব। তোমাকে সারা রাত বাড়ির উঠোনে কান ধরিয়ে দাঁড় করিয়ে রাখব। ছেলেটি বলল, কী করলে এই শাস্তি থেকে মাফ পেতে পারি? বাবা রাগী গলায় বললেন, মানচিত্রটা যদি হুবহু আগের মতো জোড়া লাগিয়ে দিতে পারো তাহলে তোমাকে আমি মাফ করব। ছেলে হাসিমুখে বলল, ঠিক আছে। মানচিত্রের টুকরোগুলো নিয়ে সে পাশের ঘরে চলে গেল। পনেরো-কুড়ি মিনিট পর মানচিত্রটি ঠিক আগের মতো জোড়া দিয়ে নিয়ে এলো। বাবা বিস্মিত। ছেঁড়া মানচিত্র জোড়া লাগানো তো খুব কঠিন কাজ। এটা তুমি কী করে করলে? ছেলেটি হাসতে হাসতে বলল, বাবা, আমি তো মানচিত্র জোড়া দিইনি। মানচিত্রটির পেছনে একজন মানুষের ছবি ছিল, আমি যখন মানচিত্রটি ছিঁড়েছি, সঙ্গে সঙ্গে মানুষটিরও হাত-পা-গলা-মাথা সব ছিঁড়ে গেছে। আমি সেই মানুষটিকে জোড়া দিয়েছি, সঙ্গে সঙ্গে মানচিত্রটিও জোড়া লেগে গেছে।

এই গল্প আমাকে বলেছিলেন বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা অধ্যাপক আবদুল্লাহ আবু সায়ীদ। গল্প শেষ করে গল্পের সারমর্মটাও বুঝিয়ে দিয়েছিলেন। ১৯৭১-এর মহান মুক্তিযুদ্ধের মধ্য দিয়ে আমরা একটি দেশ পেয়েছি, আমরা একটি মানচিত্র পেয়েছি। কিন্তু আমাদের দুর্ভাগ্য, আমরা আমাদের মানুষগুলোকে তৈরি করতে পারিনি। প্রত্যেকে প্রত্যেকের হাত ধরে দেশটিকে স্বপ্নের দেশ হিসেবে গড়ে তুলতে পারিনি, দেশটিকে আলোকিত করতে পারিনি। আমি সেই আলোকিত মানুষ তৈরির কাজটা করার চেষ্টা করছি।

‘আলোকিত মানুষ চাই’- এই স্লোগান নিয়ে পঁয়ত্রিশ বছর আগে সায়ীদ স্যার শুরু করেছিলেন বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্র। ছেলেমেয়েদের বইয়ের আলোয় আলোকিত করার মহান ব্রত নিয়ে কাজে নেমেছিলেন। প্রায় একক প্রচেষ্টায় সত্যিকার অর্থেই বছরের পর বছর ধরে তিনি তৈরি করে চলেছেন আলোকিত মানুষ, আলোকিত প্রজন্ম। আমাদের চারপাশে এখন রাষ্ট্রের গুরুত্বপূর্ণ জায়গাগুলোতে, সমাজের বিভিন্ন ক্ষেত্রে যেদিকেই তাকাই বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্রের ছোঁয়ায়, বইয়ের আলোয় আলোকিত হওয়া কিছু মানুষ দেখতে পাই। এই মানুষের সংখ্যা প্রতিদিনই বাড়ছে, প্রতিবছরই বাড়ছে। আগামী তিন বছরে বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্রের ‘বইপড়া’ কর্মসূচির আওতায় যুক্ত হবে সাড়ে চার লাখ ছাত্রছাত্রী।

দশ বছর ধরে স্কুলের ছাত্রছাত্রীদের মধ্যে বইপড়া কর্মসূচি শুরু করেছে বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্র। ২০০৯ সালের বইপড়া কর্মসূচিতে অংশ নিয়েছিল ঢাকার পঁচাত্তরটি স্কুলের প্রায় পঁচিশ হাজার ছাত্রছাত্রী। রমনা বটমূলে দুই দিনব্যাপী তাদের নিয়ে হয়ে গেল পুরস্কার বিতরণী উৎসব। প্রায় সাড়ে পাঁচ হাজার ছাত্রছাত্রীর হাতে তুলে দেওয়া হলো পুরস্কার। পুরস্কার মানে শুধুই বই। দুই দিনে মোট চারটি পর্বে ভাগ করা হয়েছিল অনুষ্ঠান। ছাত্রছাত্রীরা কেউ এসেছে অভিভাবকের সঙ্গে, কেউ শিক্ষকের সঙ্গে। তাদের উচ্ছ্বাস-আনন্দ আর হইচইয়ে মুখরিত হয়ে উঠেছিল রমনার বটমূল এলাকা। অধ্যাপক আবদুল্লাহ আবু সায়ীদ স্যারের সঙ্গে ছাত্রছাত্রীদের উৎসাহিত করতে এসেছিলেন দেশের কিছু কৃতিমানুষ। তাঁদের হাত থেকে পুরস্কার নেওয়ার সময় কী যে আনন্দিত দেখাচ্ছিল একেকটি কচিমুখ!

একজন অভিভাবককে আমি জিজ্ঞেস করলাম, এই যে বইপড়া প্রতিযোগিতায় অংশ নিয়েছে আপনার সন্তান, আজ পুরস্কার পাচ্ছে, আপনার অনুভূতি কী? তিনি বললেন, আমি চাই আমার সন্তান হোক একজন আলোকিত মানুষ। একজন সৎ ও দেশপ্রেমিক মানুষ। আলোকিত মানুষ হলে কোনো অশুভ ছায়া তাকে স্পর্শ করতে পারবে না।

ক্লাস এইটে পড়া এক ছাত্রী বলল, সায়ীদ স্যার তাঁর বক্তৃতায় বলেছেন, পৃথিবীতে সবচেয়ে বড় হচ্ছে মানুষের হৃদয়। সেই হৃদয়কে আলোকিত করে বই। আমি বই পড়ে হৃদয়কে আলোকিত করার জন্য এখানে এসেছি।

ছাত্রছাত্রী, শিক্ষক, অভিভাবক- সব মিলিয়ে হাজার হাজার মানুষ কোন মন্ত্রবলে একত্রিত হয়েছিলেন, কোন মন্ত্রে সায়ীদ স্যার তাঁদের মন্ত্রমুগ্ধ করেছেন, কচি মুখগুলোর দিকে তাকিয়ে এসব ভাবছিলাম, আর তাদের মুখ থেকে, চোখের ভেতর থেকে যে আলো ঠিকরে বেরোতে দেখছিলাম, সেই আলোয় দেখতে পাচ্ছিলাম আগামী পনেরো-কুড়ি বছর পরের বাংলাদেশ। আগামী পনেরো-কুড়ি বছরে বাংলাদেশ হবে আমাদের স্বপ্নের বাংলাদেশ, আলোকিত বাংলাদেশ। এই যে ছেলেমেয়েরা তৈরি হচ্ছে, বাংলাদেশকে তারাই দাঁড় করাবে। আমাদের মানুষগুলোকে জোড়া লাগাবে, আমাদের মানচিত্রটিকে শক্ত করবে।

কালের কন্ঠ

Leave a Reply