ফুকুশিমা বিপর্যয়ের তৃতীয় বার্ষিকী : বিশ্ববাসী দেখবে যে জাপান পারে

tokMoniরাহমান মনি: ১১ মার্চ ২০১১ জাপানে ভয়াবহ ভূমিকম্প এবং পরবর্তীতে এর ফলে সৃষ্ট সুনামি বিপর্যয়ের তৃতীয় বার্ষিকী ভাঙা হৃদয়ের গভীর শ্রদ্ধা এবং প্রার্থনার মাধ্যমে পালন করল জাপানি জনগণ এবং জাপানে বসবাসকারী অন্যান্য দেশের নাগরিকবৃন্দ। দিবসটি উপলক্ষে রাষ্ট্র, স্থানীয় সরকার এবং বেসরকারি উদ্যোগে বিভিন্ন কর্মসূচি গ্রহণ করা হয় যার বেশিরভাগই ছিল প্রার্থনা। আর এসব প্রার্থনা সভায় যোগ দেন জাপানিদের পরম পূজনীয় সম্রাট আকিহিতো, প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবে, মন্ত্রিপরিষদ সদস্যবৃন্দ, স্থানীয় সরকারগুলোর গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ, বিভিন্ন দেশের কূটনৈতিক নেতৃবৃন্দ এবং বিপুলসংখ্যক স্থানীয় জনগণ। কিছুক্ষণের জন্য থমকে দাঁড়ায় জাপান।

২০১১ সালের ১১মার্চ বেলা ২.৪৬ এ জাপানের উত্তর-পূর্বে বিস্তারিত এলাকাজুড়ে ইতিহাসের ভয়ঙ্করতম ভূমিকম্প এবং এর ফলে সৃষ্ট সুনামি-পরবর্তী বিপর্যয়ে ১৫ হাজার ৮৮৪ জন নিশ্চিত মৃত্যুবরণ এবং ২ হাজার ২৩৬ জন এখনও নিখোঁজ রয়েছেন সরকারি হিসেব মতে। ইওয়াতে, মিয়াগি এবং ফুকুশিমা প্রিফেকচারে নিহত এবং নিখোঁজদের সিংহভাগ। নিখোঁজদের সবাইকে মৃত বলে ধরে নেয়া হচ্ছে। সেই হিসাবে মৃতের সংখ্যা ১৮ হাজার ১২০ জন। জাপানে অবশ্য মৃতের সংখ্যা নিয়ে কোনো তারতম্য হয় না। কারণ এখানে নিশ্চিত হওয়ার পর জাপান পুলিশের দেয়া পরিসংখ্যানের ওপর সংখ্যা নির্ধারণ করা হয়। আন্দাজ বা অনুমাননির্ভর কোনো সংখ্যা দিয়ে মৃত্যু সংক্রান্ত কোনো রিপোর্ট করা হয় না। সে সুযোগও নেই। এখানে সবকিছুরই একটা সঠিক পরিসংখ্যান রয়েছে। মানবকুলের বেলায়ও তা প্রযোজ্য।
tokMoni
২৬ এপ্রিল ১৯৮৬ রাশিয়ায় চেরনোবিল বিপর্যয়ের পর মানব জাতির ইতিহাসে সবচেয়ে ভয়াবহতম দুর্যোগ জাপানের ভূমিকম্প-পরবর্তী সুনামি। যদিও চেরনোবিল বিপর্যয়ে বিভিন্ন স্তরে মৃতের মোট সংখ্যা ছিল ৪ হাজার। সেই হিসাবে মানব বিপর্যয়ের দিক থেকে চেরনোবিল থেকে জাপানের ফুকুশিমা অনেক বেশি এগিয়ে।

১১ মার্চ মঙ্গলবার দিবসটির তৃতীয় বার্ষিকী উপলক্ষে জাপান সরকার জাতীয় থিয়েটারে এক শোক ও স্মরণসভার আয়োজন করে। সম্রাট আকিহিতো এবং সম্রাজ্ঞী মিচিকো উপস্থিত থেকে ভয়াবহতম ওই দুর্যোগে নিহত ও নিখোঁজদের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা এবং আহত ও ক্ষতিগ্রস্তদের প্রতি সমবেদনা জানান। জাতীয়ভাবে এই আয়োজনে সম্রাট এবং সম্রাজ্ঞী ছাড়াও আবে প্রশাসনের সকল সদস্য, উচ্চ ও নিম্ন কক্ষের প্রতিনিধিবৃন্দ, উচ্চপদস্থ কর্মকর্তাগণ, কূটনৈতিক কোরের সদস্যসহ ১২শ’ জন উপস্থিত ছিলেন, যাদের মধ্যে নিহতদের পরিবারের সদস্যরাও ছিল।

স্মরণসভায় সম্রাট আকিহিতো বলেন, আমার হৃদয় ভেঙে খান খান হয়ে যায় যখন আমি তা স্মরণ করি। হৃদয়ে রক্তক্ষরণ হয়। যারা বেঁচে আছেন তাদের প্রতি সমবেদনা জানিয়ে সম্রাট আকিহিতো বলেন, আমি জানি আপনাদের এই ক্ষতি পূরণীয় নয়। জাপানি জনগণের কাছে সম্রাট বলেন, ক্ষতিগ্রস্তরা যেন সব ভুলে ভালো স্বাস্থ্য নিয়ে স্বপ্ন নিয়ে বেঁচে থাকার প্রেরণা পান, সেই জন্য সবাইকে পাশে থেকে কাজ করে যেতে হবে।

দিবসটি উপলক্ষে প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবে ১০ মার্চ সোমবার তার কার্যালয়ে এক সাংবাদিক সম্মেলনের আয়োজন করেন। সান্ধ্যকালীন এই আয়োজনে সাপ্তাহিক টোকিও প্রতিনিধিও উপস্থিত ছিলেন।

সাংবাদিক সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রী আবে বলেন, আমি প্রথমেই ১১ মার্চ ২০১১-তে নিহত, নিখোঁজদের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা, ক্ষতিগ্রস্ত এবং আহতদের প্রতি সমবেদনা এবং বিশ্ব মিডিয়া ও জাপানি জনগণের প্রতি কৃতজ্ঞচিত্তে ধন্যবাদ জানাই দুর্যোগে পার্শ্বে থাকার জন্য। সকলের সহযোগিতা না পেলে এমন বড় বিপর্যয় মোকাবেলা সম্ভবহতো না।

প্রধানমন্ত্রী আবে বলেন, ২০১২ সালের শেষ নাগাদ আমি দায়িত্ব গ্রহণ করার পর বিভিন্ন সমস্যার মোকাবেলা করতে হচ্ছে। মাত্র কয়েক মাসের মাথায় দ্বিতীয় বাষির্কীতে এখানে আপনাদের সামনে আমি কথা দিয়েছিলাম যে, একদিন আগে হলেও আমরা ক্ষতিগ্রস্তদের স্বাভাবিক জীবনে ফিরিয়ে দেবার চেষ্টা করব। আমি আরও কথা দিয়েছিলাম, আগামী এক বছর অর্থাৎ তৃতীয় বার্ষিকীর আগেই আমরা ৭০% পুনর্বাসনের কাজ করতে সক্ষম হব।

আবে বলেন, ইওয়াতে এবং মিয়াগিতে আমরা অনেকটাই এগিয়ে গিয়েছি। সেখানে অনেকেই এখন স্বাভাবিক জীবনযাত্রায় ফিরে যেতে সক্ষম হয়েছেন। যদিও ২ লাখ ৬৭ হাজার লোককে এখনও অস্থায়ী বাসস্থানে জীবনযাপন করতে হচ্ছে। আগামী এক বছরের মধ্যে তাদের অনেককেই ফিরিয়ে নেয়া সম্ভব হবে। তিনি বলেন, অনেকেই এখন স্বাভাবিক কাজকর্ম শুরু করে দিয়েছেন। কৃষি কাজেও তারা মনোনিবেশ করেছেন। আগামী মাসের মধ্যে এলাকাগুলোতে দোকানপাটসহ ব্যবসা প্রতিষ্ঠান সব খুলে দেয়ার উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। সবাই যেন নিজেদের মতো করে জীবনযাপন করতে পারেন, এজন্য প্রশাসনের পাশাপাশি প্রতিটি জাপানি নাগরিককে হাতে হাত রেখে কাজ করে যেতে হবে।

আবে বলেন, আগামী বছর গোল্ডেন উইকের আগেই আমাদের অনেক কাজই এগিয়ে নিতে হবে, যাতে করে বেশিসংখ্যক লোক গোল্ডেন উইকের আনন্দে অংশীদার হতে পারে। উৎসাহিত করতে হবে স্থানীয় উৎসবগুলোতে যেন সবাই অংশ নিতে পারে। স্থানীয়ভাবে যেন নবান্ন উৎসব করতে পারে। সবাইকে উদার হতে হবে স্থানীয় পণ্য ব্যবহারে।

তিনি বলেন, আমার দিনটি শুরু হয় ফুকুশিমায় উৎপন্ন পণ্য খাওয়ার মাধ্যমে। গত বছর থেকে আমি ফুকুশিমাতে উৎপন্ন চাল খেয়ে আমার দৈনন্দিন কাজের শক্তি সঞ্চার করি। এ অন্য রকম এক মানসিক প্রশান্তি।

আবে বলেন, ইতোমধ্যে আমরা বেশকিছু হাইওয়ে সংস্কার করতে সক্ষম হয়েছি। দ্রুতগতিতে বাকিগুলো সংস্কার করার উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। নতুন নতুন পরিকল্পনাও গ্রহণ করা হয়েছে। ২০২০ সালের টোকিও অলিম্পিক শুরুর আগেই তা সম্পন্ন করে বিশ্ববাসীকে তাক লাগিয়ে দিতে চাই। জাপানকে একটি মডেল রাষ্ট্র হিসেবে বিশ্ববাসীর সামনে উপস্থাপন করাই হবে আমাদের সার্থকতা। বিশ্ববাসী দেখবে যে, জাপান পারে। সংবাদ মাধ্যমের সহযোগিতা প্রয়োজন।

প্রধানমন্ত্রী আবে বলেন, আজ যে শিশুটি তৃতীয় জন্মদিন পালন করবে আগামী ৩ বছর পর সে শিক্ষাজীবন শুরু করবে এবং আরও ৩ বছর পর প্রাথমিক শিক্ষাজীবনে টোকিও অলিম্পিক উপভোগ করবে। আজ থেকে ৫০ বছর পূর্বে আমিও ওই বয়সে টোকিও অলিম্পিক দেখেছি একই অবস্থানে থেকে। আমি জানি সে কি অনুভূতি। আমি চাই আমাদের এই প্রজন্ম যেন আরও সুন্দর পরিবেশে, নিশ্চিত জীবনযাপন করে অলিম্পিক উপভোগ করতে পারে। শিশুরা যদি স্বাভাবিক পরিবেশে হেসে খেলে বড় হতে না পারে, তা হলে মেধার বিকাশ ঘটবে না। আর শিশুদের বিকাশ না ঘটলে রাষ্ট্র মেধাশূন্য হয়ে যাবে, মেধাশূন্য হলে সঠিক নেতৃত্ব তৈরি হবে না বলে আবে যোগ করেন।

১১ মার্চ ২০১১ ভূমিকম্প এবং পরবর্তী সুনামি বিপর্যয়ে জাপানের আর্থিক খতির পরিমাণ সর্বোচ্চ ২৫ ট্রিলিয়ন (২৫,০০,০০০,০০,০০,০০০ বা পঁচিশ লাখ কোটি) ইয়েন বলে ধারণা করা হচ্ছে। যদিও সঠিক পরিমাণ নির্ধারণ করা কোনোভাবেই সম্ভব নয়। এর মধ্যে সর্বোচ্চ ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে ইমারত (বাসস্থান, ব্যবসা প্রতিষ্ঠান, কলকারখানা), দ্বিতীয় স্থানে আছে অবকাঠোমো (নদী, রাস্তাঘাট, বিমানবন্দর অর্থাৎ যোগাযোগ ব্যবস্থা) এবং তৃতীয় স্থানে রয়েছে লাইফ লাইন (গ্যাস, বিদ্যুৎ, টেলিযোগাযোগ)।

বিপর্যয়ে আমেরিকার অনুদান ছিল ৭১ কোটি ২৬ লাখ মার্কিন ডলার এবং বিশ্ব রেডক্রস ৩১ কোটি ২০ লাখ ডলারের সমপরিমাণ ইয়েন। প্রবাসী বাংলাদেশিরা সংগ্রহ করেছেন ২৫ লাখ ইয়েন। এই অর্থ তারা জাপান রেডক্রসকে হস্তান্তর করেন।
১১ মার্চ ২০১১ শুক্রবার বেলা ২.৪৬ মিনিটে প্রথম আঘাত হানে জাপানের তোহোকু অঞ্চলে ৯.০ মাত্রার ভূমিকম্প। এতে অর্ধকোটি নাগরিক প্রত্যক্ষভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হন। ৪৭ লাখ বাসিন্দাকে গৃহহীন অবস্থায় স্থানাস্তর করতে হয়। ৩০ লাখ লোকের স্থান হয় বিভিন্ন আশ্রয় কেন্দ্রে। ২০১৩ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত মাত্র ৯৭ হাজার জনকে স্বাভাবিক জীবনে ফিরিয়ে দেয়া সম্ভব হয়। আশ্রয়কেন্দ্রগুলোতে অবস্থান সময়ে শুধু ফুকুশিমাতে ১৬শ’ লোক হতাশায় ভুগে মৃত্যুবরণ করে। সুনামির আঘাতে ঢেউয়ের উচ্চতা ৩৪ ফুট ছাড়িয়ে যায়, যা একটি রেকর্ডও বটে। ফুকুশিমা দাইইচি পারমাণবিক চুল্লির ব্যাপক ক্ষতি হয়। ছড়িয়ে পড়ে তেজস্ক্রিয়তা, যা মোকাবেলায় কর্তৃপক্ষকে এখনও হিমশিম খেতে হচ্ছে।

rahmanmoni@gmail.com

সাপ্তাহিক

Leave a Reply