টানা ভুলের খেসারতে হংকং লজ্জা

farukতখন পুরো ২০ ওভার খেলা নিয়েই সংশয়ে বাংলাদেশ। তবু নিশ্চিত ওয়াইড হতে যাওয়া বলে ব্যাট চালিয়ে আউট আবদুর রাজ্জাক। অন্য প্রান্তে স্বীকৃত ব্যাটসম্যান নাসির হোসেন থাকা সত্ত্বেও আড়াআড়ি শট খেলতে গিয়ে বোল্ড রুবেল হোসেন। আর শেষ ব্যাটসম্যান আল-আমিন কিনা তুলে মারতে গিয়ে ক্যাচ দিলেন, তখনো অন্য প্রান্তে নাসির!

বৃহস্পতিবার টিভিতে এসব দেখে টেলিফোনে সাবেক এক ক্রিকেট অধিনায়কের ক্ষোভ, ‘এই দলটার কি কোচ-টোচ বলে কিছু নেই! টেল এন্ডারদের উইকেটে টিকে থাকার সামান্য পরামর্শ দেওয়ার লোকও নেই ড্রেসিংরুমে!’ তাঁর চূড়ান্ত ক্ষোভটা কিন্তু মুশফিকুর রহিমদের ওপরই, ‘এ যুগে এসব কি কাউকে বলে দেওয়া লাগে নাকি!’ নাসির যখন আছেন, তখন হংকংয়ের অতি সাধারণ বোলিংয়ের বিপক্ষে পুরো ২০ ওভার ব্যাটিং অভাবিত কিছু নয়। কিন্তু লোয়ার অর্ডারের ‘ব্যাখ্যাতীত’ ব্যাটিংয়ে সেটি হয়নি, ১০৮ রানে অল আউট হওয়াটা এক অর্থে বাংলাদেশের ‘স্বমহিমা’য় ফেরাও!

টানা পাঁচটা ম্যাচ জেতা দল হারতেই এ জাতীয় কথাবার্তা শুরু হওয়াটা নিঃসন্দেহে পছন্দ করবে না বাংলাদেশ দল। অবশ্য সমালোচনা কারোরই ভালো লাগে না, মুশফিকুর রহিমরা তো আরো স্পর্শকাতর। তাই সংবাদ সম্মেলনে এসে অধিনায়ক বলতে পারেন, ‘আপনারাই তো বলেন যে রাজ ভাইয়ের (আবদুর রাজ্জাক) চেয়ে আরাফাত সানি ভালো বোলার। যে ভালো বোলার, তাকেই তো পাওয়ার প্লেতে বোলিং করাব!’ মিডিয়ার দাবি মেনে গঠিত একাদশে দলীয় পরিকল্পনার ছাপ থাকে না, সেটি দীর্ঘ ৯ বছরের আন্তর্জাতিক ক্রিকেট অভিজ্ঞতা থেকে অনুধাবন করা উচিত মুশফিকের।
icc20
‘হংকং লজ্জা’র ব্যাখ্যায় এ জাতীয় সমস্যাই চোখে পড়েছে ফারুক আহমেদের, ‘আমার কাছে মনে হয়েছে ভিন্ন ভিন্ন পরিস্থিতির সঙ্গে মানিয়ে নিতে পারছে না দল। টি-টোয়েন্টিতে দ্রুতই পরিস্থিতির পরিবর্তন হয়। সেটির সঙ্গে মানিয়ে নিতে পরিকল্পনাতেও পরিবর্তন আনতে হবে।’ প্রধান নির্বাচক আরেকটু খোলাসা করে যা বলেছেন, তা বাংলাদেশের লোয়ার অর্ডারের মনঃপূত নাও হতে পারে, ‘খেয়াল করে দেখবেন সাম্প্রতিক সময়ে জেতা ম্যাচেও লোয়ার অর্ডার থেকে খুব বেশি সাপোর্ট পাওয়া যায়নি। এখন কিন্তু সেই দিন নেই যে, রান সব ওপরের ব্যাটসম্যানরাই করে দেবে। দরকারের সময় নিচে থেকেও রান করতে হবে।’

এ জায়গাটায় কিছুদিন ধরেই বাংলাদেশের মূল সমস্যা নাসির হোসেনের অফ ফর্ম। বোলিংটা ভালো করলেও একদার ‘ফিনিশার’ মাহমুদ উল্লাহর ব্যাটে রান নেই। এর পরের ব্যাটসম্যানদের অবস্থাও গুরুতর! আধুনিক ক্রিকেটে ‘আমি বোলার’ বলে ব্যাটিংয়ের দায় এড়ানোর সুযোগ নেই কারো। নেটেও ব্যাটিংয়ের বিস্তর সুযোগ পান বোলাররা। রান না করুন, অন্তত অন্য প্রান্তের ব্যাটসম্যানকে সঙ্গ দেওয়ার কাজটা তো করতে হবে! আপাতত সেটিও পারছে না বাংলাদেশের ‘লেজ’। হংকং ম্যাচের পর বিক্ষুব্ধ ওই সাবেক অধিনায়ক বলছিলেন, ‘কী করতে হবে, এটা কি ওরা জানে না? এত দিনে না জানার কোনো কারণ নেই। তবু পারছে না। এক-দুটি ম্যাচে এটা হতে পারে। তাই বলে এটাই নিয়ম হবে কেন? কোনো জবাবদিহিতা নেই নাকি?’

জবাবদিহিতা- এই একটি শব্দ দীর্ঘদিন ধরে উচ্চারিত হচ্ছে বাংলাদেশের ক্রিকেটে। একজন ক্রিকেটার বারবার একই ভুল করেও পার পেয়ে যান। একটি বাউন্ডারি কিংবা ছক্কা খেলেই পরের বলেই কেন মিডিয়াম পেসার হয়ে যাবেন আবদুর রাজ্জাক? হংকং ম্যাচের প্রথম ওভারের একটি বল ছক্কা হতেই পরের বলটা তিনি করেন ১০৯ কিলোমিটার গতিতে, খাটো লেন্থের সে বলটি ছুটে যায় পয়েন্ট বাউন্ডারি দিয়ে। পরের বলেও একই পরিণতি। ১০ বছর ধরে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট খেলা কেউ যদি একটি বল বাউন্ডারিতে যেতেই খেই হারিয়ে ফেলেন, তাহলে তাঁর সঙ্গে ‘একান্ত আলাপ’ অতি জরুরি।

এত দিনেও ভুলগুলো যখন শোধরাচ্ছে না, তখন ধরে নিতে হবে সেই ‘আলাপ’টা হচ্ছে না ড্রেসিংরুমে। অথবা হলেও উপযুক্ত ব্যবস্থা না নেওয়ায় কথাগুলো এ-কান দিয়ে ঢুকিয়ে ও-কান দিয়ে বের করে দিচ্ছেন ক্রিকেটাররা। কাজটা অনায়াসে করতে পারেন শেন জার্গেনসেন। তবে অসম্ভব ভদ্রলোক হিসেবে সুপরিচিত প্রয়োজনে কঠোর হতে পারেন কি না, তা নিয়ে বিস্তর সংশয় আছে। বাংলাদেশ দলের উত্থান-পতনের গ্রাফটা আরো বাড়িয়ে দিচ্ছে সে সংশয়। শ্রীলঙ্কা সিরিজের পর এশিয়া কাপ ব্যর্থতা থেকে উতরানোর উপায় খুঁজতে গিয়ে বলা হচ্ছিল একটা জয়ই বদলে দিবে সব কিছু। আফগানিস্তান ও নেপাল ম্যাচে দেখা দেওয়া সে সম্ভাবনা মুছে দিয়েছে হংকংয়ের কাছে হার। এটা নিয়ে ফারুক আহমেদের দুঃখটা আসলে সবারই, ‘হংকং ভালো খেলে জিতলে এতটা কষ্ট লাগত না, আসলে আমরাই খারাপ খেলে হেরেছি।’ আর এই ‘খারাপ’টা নিয়ম করেই ফিরে আসছে, দুশ্চিন্তাটা এখানেই।

বাংলাদেশ দল নিয়ে ফারুক আহমেদের চূড়ান্ত মূল্যায়নেও মতানৈক্যের সুযোগ নেই, ‘এটা একটা তৈরি দল। অনেক দিন একসঙ্গে খেলছে, ভালো রেজাল্টও করেছে। তাই এ দলটাই সামর্থ্য নিয়ে আমার কোনো সংশয় নেই।’ সুপার টেনে কঠিন গ্রুপে পড়লেও বড় কোনো দলের বিপক্ষে বাংলাদেশের জেতাটা অসম্ভবও মনে করছেন না প্রধান নির্বাচক। তবে ঘুরেফিরে ফারুকের প্রধান চাওয়া ওই একটাই, ‘আমার একমাত্র চাওয়া যেন প্রসেসটা ঠিক থাকে। পরিস্থিতির সঙ্গে মানিয়ে নেওয়ার চেষ্টাটা যেন প্রত্যেক খেলোয়াড়ের মাঝে দেখা যায়। এ দলটার সামর্থ্যে আমি শতভাগ বিশ্বাসী। আশা করি, সেই সামর্থ্য প্রমাণের উদ্যোগটা দেখা যাবে পরের ম্যাচগুলোয়।’

কালের কন্ঠ

Leave a Reply