সিরাজদিখানে কালী মেলায় লাখো মানুষের ঢল

kaliমুন্সীগঞ্জ সিরাজদিখানে জমে উঠেছে কালী মেলা। প্রতিবছর চৈত্র মাসে একদিনের পূজায় ৩ দিন পর্যন্ত এখানে বসে এই মেলা। প্রায় ৫শ’ বছরের ঐতিহ্যের ধারাবাহিকতায় সোমবার থেকে এবারও বসেছে কালী মেলা। মঙ্গলবার রাতে মা কালীর পূজায় মেলাকে কেন্দ্র করে সিরাজদিখানে লাখো মানুষের ঢল নেমেছে।

জানা গেছে, অনেক মানতের সফল (কামিয়াবী) ভক্তরা বহূদূর বাংলাদেশের প্রতন্ত অঞ্চল থেকে শেখরনগরের এই মেলায় আসেন। মহাশক্তি শ্রীশ্রী কালী মায়ের পূজায়। প্রতিবছর চৈত্র মাসের স্বপ্নে আদেশকৃত তারিখের উৎসবকে কেন্দ্র করে সিরাজদিখান উপজেলার শেখরনগর ইউনিয়নের বিশাল এলাকা জুড়ে কালী পূজার আগের দিন থেকে অনুষ্ঠিত হয় এই মেলা। মেলাকে ঘিরে সমবেত হয় লাখো মানুষ।

মেলা কমিটির সদস্য শিক্ষক রবিউল আউয়াল ও দেবব্রত দাস টুটুল, কালীপদ সরকার বলেন, সনাতন (হিন্দু) ধর্মীয় উৎসব হলেও সব সমপ্রদায়ের মানুষ আসেন এই মেলায়। দেশের দূর-দূরান্ত থেকে হাজার হাজার নারী- পুরুষ ও শিশুরা আসেন। মেলাকে ঘিরে দোকানিরা তাদের পণ্যের পসরা সাজিয়ে বসেন। মেলায় বেচাকেনা চলে গভীর রাত পর্যন্ত। মেলায় পাওয়া যায় মিষ্টি, খেলনা, মনোহরী সামগ্রী।

লোহা ও কাঠের তৈরি আসবাবপত্র, মাটির তৈরি খেলনাসহ বাংলাদেশের বিভিন্ন অঞ্চলের বিক্ষ্যাত সমগ্রী। কালী পূজা উপলক্ষে শেখরনগর মন্দির ,শম্নানঘাট এলাকায় সারারাত চলে ভক্তদের দেহত্বত্ত, সামা সংগীত, ভক্তিগীতি গান। পাপ মোচন ও পুণ্য লাভের আসায় দেশ-বিদেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে হাজার হাজার নারী-পুরুষ সিরাজদিখানের শেখরনগরে আসেন কালী মায়ের কাছে বিপদ থেকে পরিত্রান পাওয়া ভক্তরা মানত দিতে ও কালী মায়ের অশেষ কৃপা আদায় করতে।

শ্রীশ্রী কালী মায়ের মেলার আনন্দে পাল্টে যায় সিরাজদিখানের শেখরনগড়ের চিত্র। মেলার দ্বিতীয় দিন কালী মায়ের পূজায় সময় মঙ্গলবার থেকে মেলায় ক্রেতাদের উপচে পড়া ভিড় পরিলক্ষিত হয়েছে। ওইদিন সকাল থেকে ভোর পর্যন্ত প্রচন্ড ভীর উপেক্ষা করে উৎসবমুখর হয়ে উঠেছিল পুরো মেলা প্রাঙ্গণ। তিল ধারণের ঠাঁই ছিল না। মানুষের ভিড় সামলাতে বেগ পেতে হয়েছে আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের। বিভিন্ন ষ্টলের সেলসম্যানদের প্রচন্ড ব্যাস্ততার মধ্যে গ্রাহকদের সামলাতে হয়েছে।
kali
চিত্ত বিনোদনের জন্য শেখরনগড় রায়বাহাদর শ্রীনাথ ইনস্টিটিউট উচ্চ বিদ্যালয়ের ও শেখরনগর গার্লস উচবিদ্যালয়ের মাঠ জুড়ে চলছে সার্কাস, যাত্রা, মৃত্যু কূপ কার-মোটরসাইকেল খেলা। স্থানীয় সংসদ সদস্য সুকুমার রঞ্জন ঘোষ ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মুহাম্মদ আবুল কাশেম, সিরাজদিখান উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও আওয়ামীলীগ সভাপতি মহিউদ্দিন আহম্মেদ, শেখরনগড় ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আমজাদ হোসেন আইন শৃঙ্খলার প্রতি কঠোর ব্যবস্থা নেয়ায় মেলায় কোন ধরনের অশ্লিলতার সুযোগ মেলেনি।

মেলায় নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসপত্র ছাড়াও আসবাবপত্র, কুটির ও হস্তজাত দ্রব্য, প্রসাধনী, খেলনা, প্লা‌ষ্টিক সামগ্রী, চুড়ি, ফিতা, মিষ্টির দোকানসহ ৩ হাজারের বেশি ষ্টলের বিপুল সম্ভারের পসরা বসানো হয়েছে। তবে মেলায় সব ধরনের পণ্যই পাওয়া যাচ্ছে।

বাংলাপোষ্ট

Leave a Reply