লৌহজংয়ে দুই প্রার্থীর মধ্যে সীমাবদ্ধ থাকবে জয়-পরাজয়

upzilalogoশেখ সাইদুর রহমান টুটুল: মুন্সীগঞ্জের লৌহজং উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে বড় দুদলের মধ্যে চেয়ারম্যান ও ভাইস চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী নিয়ে কোনো বিরোধ নেই। তাই দুদলের নেতাকর্মী ও সমর্থকরা নিজ নিজ দলের প্রার্থীর পক্ষে জয়ের মালা ঘরে তুলতে রাতদিন সমানে নির্বাচনী প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন। ইতিমধ্যে দুদলের মধ্যে ছোটখাটো ভুলত্র“টি ও মান-অভিমানগুলো ভাঙানোর চেষ্টা চলছে। দীর্ঘদিন ক্ষমতায় না থাকায় এবং নানা সুযোগ-সুবিধা থেকে বঞ্চিত থাকায় বিএনপিতে এর প্রবণতাটা বেশি থাকলেও নির্বাচনকে ঘিরে মান-অভিমান আর গ্র“পিং অনেকটা কমে এসেছে।

তবে বড় দল হিসেবে আওয়ামী লীগেও কোনো অংশে কম নেই। এর পরও সবার ঐকমত্যে তৃণমূল থেকে প্রার্থী বাছাই প্রক্রিয়ার মাধ্যমে দুদলই একক প্রার্থী দিয়েছে। এদিক থেকে দুদলেরই বিদ্রোহী প্রার্থী নিয়ে কোনো বাড়তি ঝামেলায় পড়তে হয়নি। নির্বাচনে তিনটি পদে আওয়ামী লীগ ও বিএনপির ছয়জন প্রার্থী রয়েছেন। এ ছাড়া ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ-এর সমর্থিত পুরুষ ভাইস চেয়ারম্যান পদে ও স্বতন্ত্র প্রার্থী মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে আরও দুজন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। বিএনপি চাচ্ছে তাদের হারানো গৌরব পুনরুদ্বার করতে।

আর আওয়ামী লীগ চায় জয়ের ধারাবাহিকতা অব্যাহত রাখতে। আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যান ওসমান গনি তালুকদার (দোয়াত-কলম) ও বিএনপির সমর্থিত প্রার্থী শাহজাহান খানের (আনারস) মাঝে হাড্ডাহাড্ডি লড়াই হবে বলে ভোটারদের অভিমত। এবারের নির্বাচন ওসমান গনি তালুকদার ও শাহজাহান খানের আগামী দিনের রাজনৈতিক জীবনের অস্তিত্বের লড়াই হিসেবে দেখছেন অনেকে। রাজনৈতিক মাঠ দখলে বড় দুদলের প্রার্থীরাই জয় নিয়ে ঘরে ফিরতে চান। তবে ৩১ মার্চ তাদের ভাগ্য নির্ধারণ হবে কে টিকে থাকবে রাজনৈতিক মাঠে। লৌহজং উপজেলার ১০টি ইউনিয়নের ৪৫টি কেন্দ্রে মোট ভোটার সংখ্যা ১ লাখ ২৪ হাজার ৮২৯। নির্বাচনের দিন যত ঘনিয়ে আসছে ততই ব্যস্ত হয়ে পড়ছেন প্রার্থীরা।

বিরামহীনভাবে তারা প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন। সকাল থেকে গভীর রাত পর্যন্ত চলছে গণসংযোগ। গত ৫ বছরে ওসমান গনি তালুকদার চেয়ারম্যান থাকাকালীন সময়ে উপজেলায় কি কি উন্নয়নমূলক কাজ করেছেন তারই হিসাব-নিকাশ কষছেন সাধারণ ভোটাররা। আবার ৫ বছরের উন্নয়নের কথা এখন চায়ের দোকান আর হাট-বাজারগুলোতে খুব বেশি প্রচারিত হচ্ছে। অপরদিকে শাহজাহান খান নিজ এলাকায় মসজিদ, মাদ্রাসা, কবরস্থানসহ দরিদ্র মানুষের সাহায্য-সহযোগিতায় সবসময় এগিয়ে আসেন।

আঞ্চলিকতার প্রশ্নে নিজ এলাকায় উপজেলা চেয়ারম্যান রাখতে চায় বেজগাঁও ইউনিয়নবাসী। ধারাবাহিকতা ধরে রাখতে চায় ৫ বছরের সফল চেয়ারম্যান ওসমান গনি তালুকদারের নিজ ইউনিয়ন কুমারভোগ ইউনিয়নবাসীও। নির্বাচনে ভাইস চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগ থেকে বর্তমান ভাইস চেয়ারম্যান জাকির হোসেন বেপারী (তালা) ও বিএনপি থেকে হাবিবুর রহমান অপু চাকলাদার (চশমা), ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ থেকে আবদুল্লাহ আল মামুন (বই) প্রতীক নিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

নারী ভাইস চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগ থেকে নাজনিন আক্তার স্বর্ণা (পদ্ম ফুল), বিএনপি থেকে রিফফাত হোসেন লুচি (ফুটবল), স্বতন্ত্র থেকে সানজিদা আক্তার ডালিয়া (কলস) প্রতীক নিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। উভয় দল থেকে তরুণ প্রার্থীদের ভাইস চেয়ারম্যান পদে মনোনয়ন দেয়া হয়েছে।

যুগান্তর

Leave a Reply