বাসস্ট্যান্ডের অভাবে মুন্সীগঞ্জে যাত্রীদের দুর্ভোগ চরমে

busstandমুন্সীগঞ্জে সরকারি কোনো বাসস্ট্যান্ড না থাকায় দীর্ঘদিন ধরে ঢাকা-মুন্সীগঞ্জ বাস যাত্রীদের চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। বছরের পর বছর এই রুটে কয়েকটি পরিবহণের বাস চলাচল করলেও শহরে বা শহরতলীতে কোনো বাসস্ট্যান্ড নেই। শহরের যত্রতত্র বাস থামিয়ে রাখায় রাস্তাঘাটে স্বাভাবিক যান চলাচল যেমন ব্যাহত হচ্ছে, তেমনি যানজটও বাড়ছে।

ব্যস্ততম সড়ক মুন্সীগঞ্জের কাচারী চত্বরে এই দৃশ্য এখন নিত্য-নৈমিত্তিক ঘটনা হয়ে দাঁড়িয়েছে। বিষয়টি নিয়ে কয়েকদফায় পৌর মেয়রদের সঙ্গে আলোচনা হলেও লাভ হয়নি কিছুই। একের পর এক মেয়র পাল্টালেও তারা কেবল জমি ও জায়গা নির্ধারণেই বছরের পর বছর সময় ব্যয় করছেন। এ বিষয়ে তাদের তৎপরতা প্রশ্নবিদ্ধ হয়ে দেখা দিয়েছে। পৌরবাসী বা শহরবাসী জানেন না যে আদৌ কোনো বাস টার্মিনাল হবে কি-না।

এদিকে, ঢাকা-মুন্সীগঞ্জ রুটে দিঘীরপাড় ট্রান্সপোর্ট, ঢাকা ট্রান্সপোর্ট, কুসুমপুর পরিবহন, বাস মালিক সমিতি নামে বেশ কয়েকটি পরিবহণের বাস চলাচল করছে। কিন্তু তাদের পক্ষ থেকেও কোনো জোরালো পদক্ষেপ নেয়া হচ্ছে না। তারা শহরের কোর্ট এলাকায় অস্থায়ী বাসস্ট্যান্ড বানিয়ে দিব্যি ব্যবসা করে যাচ্ছেন। স্থানীয়দের ‘ম্যানেজ’ করেই নিরিবিলি ব্যবসা পেতে বসেছেন তারা। অথচ এখানে আদালত পাড়া, ডিসি অফিস ও চার-পাঁচটি স্কুল-কলেজও রয়েছে। এত ভিড়ের মধ্যে বাসস্ট্যান্ড ও যত্রতত্র বাস ফেলে রাখায় সমস্যায় পড়েন জনসাধারণ। তাই তাদের দাবি- নির্দিষ্ট স্থানে বাস থাকবে। রাস্তার মাঝে বাসস্ট্যান্ড করে নাগরিকদের ভোগান্তিতে না ফেলে শিগগিরই বাস টার্মিনাল বানানো উচিত।

মুন্সীগঞ্জ থেকে ঢাকার বিভিন্ন স্থানে প্রতিদিন বাসে করে অফিসে যাতায়াত করেন এমন অনেক যাত্রীই জানান- বাসের মান ভালো নয়, ভাড়া বেশী, তার উপর আছে বাসচালক ও সহকারীর বাজে আচরণও। কিন্তু বাধ্য হয়ে সবকিছু মেনে নিয়েই তারা এই রুটে চলাচল করেন। কিন্তু এত কিছু পরে আবার মুন্সীগঞ্জের মতো একটি ঐতিহ্যবাহী শহরে সরকারি কোনো বাস টার্মিনাল নেই, বাইপাস সড়ক নেই এগুলো মেনে নেয়া কষ্টকর। তাই বিষয়টি গুরুত্বের সঙ্গে বিবেচনা করে সংশ্লিষ্টদের এই বিষয়ে জরুরি উদ্যোগ নেয়া উচিত বলে মনে করেন তারা।

কয়েকটি বাস মালিকের সঙ্গে এই বিষয়ে আলোচনা করে জানা যায়, তারাও এ বিষয়ে ক্ষুব্ধ। বাস টার্মিনাল না থাকায় যত্রতত্র তাদের বাস থামিয়ে রাখতে হয়। তাতে করে রাতে তাদের গাড়িতে চুরি হয়। গাড়ির মূল্যবান জিনিসপত্র চুরি হয়ে যায়। এছাড়া জনগণের ভোগান্তি বাড়ে। তারা চান, দ্রুত সময়ের মধ্যে বাস টার্মিনাল নির্মাণ করা হোক। তাহলে বাস মালিকরা যেমন শান্তি পাবেন, যাত্রীরাও শান্তি পাবেন।

বাস মালিকেরা বলেন, “সামনে বৃষ্টির দিন। খোলা আকাশের নিচে শহরে কোনো যাত্রী ছাউনি না থাকায় খুব কষ্ট হয়। যাত্রীদের বৃষ্টিতে ভিজতে হয়। ভিজে ভিজে বাসে উঠতে হয়, ভেজা জামা-কাপড় নিয়ে অফিস করতে হয়।”

এই বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে মুন্সীগঞ্জের পৌর মেয়র এ কে ইরাদত জানান, বাস টার্মিলালের জন্য প্রাথমিকভাবে দু’টি জায়গা দেখা হচ্ছে- মানিকপুরের হেলিপ্যাড আর কাটাখালীর খালের আশপাশের স্থান। তবে এই বিষয়ে চূড়ান্ত কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি এবং কবে হবে তাও জানাতে পারেননি তিনি।

নতুন বার্তা

One Response

Write a Comment»
  1. rright kotha

Leave a Reply