মুন্সীগঞ্জের তিন উপজেলার নির্বাচনে ভোট কেন্দ্র দখলের আশঙ্কা

upzilalogoসোমবার অনুষ্ঠিত হচ্ছে মুন্সীগঞ্জের টঙ্গীবাড়ি, লৌহজং ও সিরাজদিখান উপজেলা পরিষদের নির্বাচন। এখানে লড়াই হচ্ছে প্রধান দুইদল আওয়ামী লীগ ও বিএনপি সমর্থিত প্রার্থীদের মধ্যে। ৩টি উপজেলায় চেয়ারম্যান, ভাইস চেয়ারম্যান ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে দুইটি দল থেকেই এককভাবে প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। কোন বিদ্রোহী প্রার্থী নেই উপজেলা তিনটি। আওয়ামী লীগ থেকে তিনটি উপজেলায় বর্তমান চেয়ারম্যানরাই পুনরায় দলীয়ভাবে প্রার্থী হয়েছেন। এদের ব্যক্তি ইমেজও অক্ষুন্ন রেখেছেন। আর বিএনপিও উপজেলা তিনটিতে সরাসরি রাজনীতিতে জড়িত এমন ৩জন বাঘা প্রার্থীকে চেয়ারম্যান হিসেবে মনোনীত করেছেন। ফলে দুই দলেই শক্তিশালী চেয়ারম্যান পদে প্রার্থী দেয়ায় উপজেলা তিনটিতে হাড্ডাহাড্ডি লড়াই হতে যাচ্ছে। তবে, শেষাবধি উপজেলা তিনটির বিভিন্ন ভোট কেন্দ্র সরকার দলীয় প্রার্থীরা দখলের পরিকল্পনা করছেন বলে শোনা যাচ্ছে। আর কেন্দ্র দখল হলে বিএনপি তা প্রতিরোধ করলে গত ২৩ শে অনুষ্ঠিতব্য গজারিয়া উপজেলা নির্বাচনের মতো উপজেলা তিনটিতে সহিংসতায় ব্যাপক রক্তপাতের আশঙ্কা করছেন এলাকার ভোটাররা। আওয়ামী লীগের ভোট কেন্দ্র দখলে বিএনপি প্রতিরোধ না করলে গত ২৭শে ফেব্রুয়ারি অনুষ্ঠিত মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলা পরিষদের নির্বাচনের মতো সকাল ১০টায় আওয়ামী লীগ প্রার্থীদের দখলে থাকবে ভোট কেন্দ্রগুলো-এমনই আশঙ্কা করছেন এলাকার রাজনৈতিক সচেতন মহল। এদিকে, পুরুষ ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থীরা দলীয়ভাবে সিলেকশন হওয়ায় তাদের মধ্যেও হাড্ডাহাড্ডি লড়াই হবে।

টঙ্গীবাড়ি উপজেলা : এ উপজেলার ৭৪টি ভোট কেন্দ্রে মোট ভোটার সংখ্যা ১লাখ ৪১হাজার ৫৬টি। এরমধ্যে পুরুষ ভোটার ৭২ হাজার ৮৭০টি ও মহিলা ভোটার রয়েছে ৬৮হাজার ১৮৯টি। এখানে চেয়ারম্যান পদে দুইদলের ২জন, ভাইস চেয়ারম্যান (পুরুষ) পদে তিনদলের ৩জন ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে দুই দলের ২জন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। চেয়ারম্যান পদে জেলা আওয়ামী লীগের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক ও বর্তমানে উপজেলা চেয়ারম্যান ইঞ্জিনিয়ার কাজী আব্দুল ওয়াহিদ (দোয়াত কলম) ও জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক, সোনারং-টঙ্গীবাড়ি ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান আলী আজগর মল্লিক রিপন (আনারস) প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন দল থেকে মনোনীত হয়ে। আওয়ামী লীগ প্রার্থী কাজী ওয়াহিদ এলাকায় একজন শান্তিপ্রিয় ও সমাজসেবী হিসেবে পরিচিত। চেয়ারম্যান হওয়ার আগে বিভিন্ন দান-অনুদান করে এলাকায় তিনি পরিচিত লাভ করেন। অপরদিকে, বিএনপির প্রার্থী আলী আজগর মল্লিক রিপনও এলাকায় বেশ জনপ্রিয়। টঙ্গীবাড়িতে মল্লিক পরিবার বেশ প্রভাবশালী পরিবার হিসেবে পরিচিত। জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক পদের বদৌলতেই দলীয় নেতাকর্মীরা তাকে জয়ী করতে যথাসাধ্য চেষ্ঠা চালিয়ে যাচ্ছেন।

এদিকে, এ উপজেলায় আওয়ামী লীগ থেকে ভাইস চেয়ারম্যান হিসেবে জেলা ছাত্রলীগের সাবেক যুগ্ন-সম্পাদক রুবেল খান (টিয়া পাখি), বিএনপি থেকে যুবদলের কেন্দ্রীয় নেতা মাহবুবুর রহমান (তালা) ও খেলাফত মজলিস থেকে আল-আমিন (জাহাজ) প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। এখানে প্রধান দুই দলের প্রার্থীর মধ্যেই তীব্র প্রতিদ্বন্দ্বিতা হবে বলে এলাকার ভোটারদের ধারণ। এ উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের বর্তমান মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান এমিলি পারভীন (কলম) ও বিএনপি থেকে জেলা মহিলা দলের সাংগঠনিক সম্পাদক পাপিয়া ইসলাম (ফুটবল) লড়ছেন। তাদের মধ্যেও তীব্র প্রতিদ্বন্দ্বিতা হবে-যদি ভোট কেন্দ্র দখল না হয়।

লৌহজং উপজেলা : এ উপজেলায় মোট ভোটার ১লাখ ৬৪ হাজার ৩৭৬টি। এরমধ্যে পুরুষ ভোটার ৬৪হাজার ৩৭৬টি ও মহিলা ভোটার রয়েছে ৬০হাজার ১২২টি। মোট ভোট কেন্দ্র রয়েছে ৪৫টি। এখানে আওয়ামী লীগ ও বিএনপির দুই প্রার্থী এলাকায় বেশ প্রভাব ও অর্থশালী। আবার আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্য, সাবেক হুইপ সাগুফতা ইয়াসমিন এমিলি ও সাবেক স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ প্রতিমন্ত্রী এবং বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির কোষাধ্যক্ষ মিজানুর রহমান সিনহার বাড়িও এ উপজেলায়। ফলে দুই দলের শীর্ষ নেতাদের এখানে প্রেস্টিজ লড়াই হচ্ছে। এখানে বিএনপি থেকে উপজেলা বিএনপির সভাপতি আলহাজ শাহজাহান খান (আনারস) প্রতীক নিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। এলাকায় তিনি একেবারে শান্তিপ্রিয় ও দানশীল নেতা হিসেবে পরিচিত। তার বাবা মুনছুর খান মৃত্যুর আগ পর্যন্ত উপজেলার বেজগাঁও ইউনিয়নের দীর্ঘ বছর জনপ্রিয় চেয়ারম্যান ছিলেন। মুন্সীগঞ্জ জেলা বিএনপির সভাপতি, সদর আসন থেকে পরপর ৫বার নির্বাচিত সাবেক সংসদ সদস্য আবদুল হাই প্রার্থী শাহজাহান খানের ভগ্নিপতি। এদিকে আওয়ামী লীগ থেকে বর্তমান চেয়ারম্যান ওসমান গণি তালুকদার (দোয়াত কলম) পুনরায় দলীয় সিলেকশনে চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। এলাকায় তিনিও ভদ্র সজ্জন ব্যক্তি হিসেবে পরিচিত। দলের মধ্যেও তার আর্থিক অবদান রয়েছে বেশ। ফলে এ উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে প্রধান দুই দলের দুই ক্লিন ইমেজের লড়াই হচ্ছে। সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ নির্বাচনে হলে যে কেউ জনগণের ম্যান্ডেট নিয়ে জয়লাভ করতে পারেন।

ভাইস চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগ থেকে বর্তমান ভাইস চেয়ারম্যান জাকির হোসেন বেপারী (তালা), বিএনপি থেকে উপজেলা যুবদলের সভাপতি হাবিবুর রহমান অপু চাকলাদার (চশমা) ও ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ থেকে আব্দুল্লাহ আল মামুন (বই) নিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। এখানে বিএনপির অপু চাকলাদার ও জাকির বেপারীর মধ্যে তীব্র প্রতিদ্বন্দ্বিতা হবে বলে ভোটারদের অভিমত।

এখানে মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে রিফফাত হোসেন লুসি (ফুটবল), আওয়ামী লীগ থেকে নাজনিন আক্তার স্বর্ণা (পদ্মফুল), স্বতন্ত্র হিসেবে সানজিদা আক্তার ডালিয়া (কলস) প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। এখানেও প্রধান দুই দলের ২প্রার্থীর মধ্যে মূল লড়াই হবে।

সিরাজদিখান উপজেলা : এ উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে ৩, ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৩জন এবং মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৩ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। তবে, নির্বাচনের শেষমুহুর্তে দলীয় সিদ্ধান্তে বৃহস্পতিবার রাতে আনুষ্ঠানিকভাবে উপজেলা বিএনপির সভাপতি আব্দুল কুদ্দুস ধীরণ চেয়ারম্যান পদ থেকে সরে দলীয় অপর প্রার্থীকে সমর্থন দিয়েছেন বলে তিনি নিজেই জানিয়েছেন।

এ উপজেলায় মোট ভোটার ১লাখ ৭৯ হাজার ৫১০টি। এদের মধ্যে ৯৫ হাজার ৬১৪ জন পুরুষ ও ৯৩ হাজার ৮৯৬ জন মহিলা ভোটার রয়েছে। ভোট কেন্দ্র রয়েছে ৭৩টি এবং ভোটকক্ষের সংখ্যা ৪২৩টি।

এখানে চেয়ারম্যান পদে বর্তমান উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা অওয়ামী লীগ সভাপতি মহিউদ্দিন আহম্মেদ (কাপ-পিরিচ) ও বিএনপি থেকে সাবেক ২বারের উপজেলা চেয়ারম্যান বিএনপি নেতা আব্দুস সালাম সরকার (আনারস) দলীয়ভাবে মনোনীত হয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। এখানে আওয়ামী লীগ ও বিএনপির দুই প্রার্থীই ভোটার কাছে বেশ গ্রহণযোগ্য ব্যক্তিত্ব। শান্তিপূর্ণ নির্বাচন হলে যে কেউ বেরিয়ে আসতে আসেন। তবে, এ উপজেলা বিএনপির ভোট ব্যাংক হিসেবে পরিচিত। এ উপজেলায় রয়েছে কয়েকটি চর অধ্যুষিত ইউনিয়ন। এখানে পেশিমক্তির ব্যবহার হবে এমনটাই আশঙ্কা করছেন এলাকার সাধারণ ভোটাররা।

ভাইস চেয়ারম্যান পদের ৩প্রার্থী হলেন-মুন্সীগঞ্জ জেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক এডভোকেট আবুল কাশেম (টিউবওয়েল), মুন্সীগঞ্জ জেলা জামায়াতে ইসলামী সাধারণ সম্পাদক আব্দুল আউয়াল জেহাদী (তালা) ও স্বতন্ত্র প্রার্থী নাফিছ খান (চশমা)। এখানে টিউবওয়েল ও তালা প্রতীকের মধ্যেই মূলত প্রতিদ্বন্দ্বিতা হচ্ছে।

মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদের ৩ প্রার্থী হচ্ছেন- বিএনপি সমর্থিত শীলা কামাল (প্রজাপতি), আওয়ামী লীগ সমর্থিত হেলেনা ইয়াসমিন (কলস) ও স্বতন্ত্র প্রার্থী ফরিদা ইয়াসমিন (হাঁস)। এখানে বিএনপির শীলা কামাল বেশ শক্তিশালী প্রার্থী। সুষ্ঠু, অবাধ নিরপেক্ষ নির্বাচন হলে এখানে হেলেনা ইয়াসমিন ও শীলা কামালের মধ্যে লড়াই জমে উঠবে বলে এলাকার ভোটাররা ধারণা করছেন।

মুন্সীগঞ্জ বার্তা

Leave a Reply