পরিবর্তনের পক্ষে নন ফারুক আহমেদ

farukপরিবর্তন করে কোনো লাভ নেই। আমি পরিবর্তনের পক্ষপাতি নই। কোনো খেলেয়াড় পরিবর্তন করতে হলে তার যোগ্য বদলি খেলোয়াড় লাগে। কিন্তু তা বাংলাদেশের পাইপলাইনে নেই। কথাগুলো জাতীয় দলের প্রধান নির্বাচক ফারুক আহমেদের। সোমবার তিনি দ্য রিপোর্ট প্রতিবেদকের সঙ্গে আলাপ কালে এসব কথা বলেছেন তিনি।

প্রশ্ন : টোয়েন্টি২০ বিশ্বকাপের একটি ম্যাচ বাকি, অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে দল নিয়ে কি পরিকল্পনা থাকছে?

ফারুক আহমেদ : কাগজে-কলমে অস্ট্রেলিয়া সেরা দল। অবশ্যই তারা বাংলাদেশের চেয়ে এগিয়ে থাকবে। যদিও তারাও বাংলাদেশের মতো একটি ম্যাচও জিতেনি। আমাদের লক্ষ্য হওয়া উচিত এ ম্যাচে আত্মবিশ্বাসটা ফিরিয়ে আনা। একটি ভালো ম্যাচ খেললে পরের ম্যাচগুলোতে সেই আত্মবিশ্বাস প্রয়োগ করা সম্ভব হয়। আগামীকালকের ম্যাচটিতে আমাদের সুযোগ থাকছে বেশি। আমি জয় কিংবা পরাজয়ের কথা বলছি না। আমি বিশ্বাস করি না, একটি ম্যাচ জিতলেই আমাদের অবস্থার পরিবর্তন হয়ে যাবে। আমি সব সময় বিশ্বাস করি ক্রমাগত ধারবাহিকভাবে খেলতে থাকলে একসময় একটা শক্তিশালী দল তৈরি হবে আমাদের।

প্রশ্ন : সামনে দলে কোনো পরিবর্তন আসছে কি?

ফারুক আহমেদ : এ মুহূর্তে দলে পরিবর্তন করা খুব কঠিন। আমরা যে কয়েকজন ক্রিকেটারকে দলে সুযোগ দিয়েছি তারা সবাই শেষ ৬ মাসে সবচেয়ে ভালো পারফর্মার ছিল। ধারাবাহিক ক্রিকেট খেলছিল তারা। আমি প্রধান নির্বাচক হওয়ার আগে যে দলটা ছিল সেটাই প্রায় ৯০ ভাগ এখন বর্তমানে রয়েছে। বরং আমরা ২/১টি জায়গায় চেষ্টা করেছি যারা ফর্মে এসেছে তাদের দলে নিয়ে দলটাকে শক্তিশালী করার। হুট করে কোনো পরিবর্তনের পক্ষপাতি আমি নই। আমি যদি মনে করি ছেলেগুলো ভালো করবে যে কোনো সময় তাহলে কেন পরিবর্তন। সেরা দলটাই আমরা নিয়েছি।

প্রশ্ন : শেষ ম্যাচে দলের কম্বিনেশন কেমন হবে?

ফারুক আহমেদ : ম্যাচের কম্বিনেশন তো কেমন হতে পারে তা সবাই জানে। টিম ম্যানেজমেন্টকে এ ব্যাপারে আমরা সাহায্য করি অধিনায়ক ও কোচ মিলে। টিম ম্যানেজমেন্ট যদি কোনো সহযোগিতা চায় তাহলে আমরা তাদের সাহায্য করি। তবে কোনো নির্দিষ্ট জায়গায় অস্ট্রেলিয়ার দুর্বলতা যদি আমরা খুঁজে পাই তবে সে অনুযায়ী আমরা পরিকল্পনা গ্রহণ করতে পারি। তবে মাশরাফি ইনজুরিতে আক্রান্ত তার পরিবর্তে দলে অন্য কেউ সুযোগ পেলেও পেতে পারে।

প্রশ্ন : বিশ্বকাপ আয়োজনে কেমন দেখছেন বাংলাদেশকে?

ফারুক আহমেদ : বাংলাদেশি হিসেবে আমি গর্বিত এত বড় একটি টুর্নামেন্ট করতে পেরেছি। শুধু ছেলেদের টুর্নামেন্ট নয়, মেয়েদের টুর্নামেন্টও করতে পেরেছি। এটা একটি বড় অর্জন আমাদের জন্য। দেশের ভেতর ভালো কাজের অর্জন খুব কম। বেশিরভাগ সময়ই নেতিবাচক কারণে আমরা শিরোনাম হই। সেদিক দিয়ে চিন্তা করলে বাংলাদেশ বড় একটি টুর্নামেন্টের দায়িত্ব পালন করছে। এটা দেশের জন্য বড় একটি পাওয়া।

প্রশ্ন : বাংলাদেশের পারফরমেন্স কেমন দেখলেন?

ফারুক আহমেদ : আর সবার মতো প্রধান নির্বাচক হিসেবে আমিও হতাশ বলতে পারেন। আমরা এর চেয়ে অনেক বেশি ভালো আশা করেছিলাম। যদিও বিগত কয়েক বছর ভালো খেলায় আমাদের ছেলেরা এ আশা তৈরি করছে। এ ছাড়া টোয়েন্টি২০ বিশ্বকাপে আমরা স্বাগতিক হওয়ায় আমাদের প্রত্যাশাও ছিল বেশি। খেলোয়াড়রা প্রত্যাশা পূরণ করতে পারেনি। তারপরও আমি বলব এটা খুব যে অস্বাভাবিক বিষয় না। একটি গুরুত্বপূর্ণ সময়ে আমাদের ভালো কিছু ক্রিকেটার অফ ফর্মে চলে যাওয়ায় এ সমস্যার সৃষ্টি হয়েছে। আমাদের ব্যাটিং সাইটে বেশ কিছু খেলোয়াড় অফ ফর্মে রয়েছে। সেটা একটি বড় কারণ। টোয়েন্টি২০ একটি হাই ভোল্টেজ গেম। ভুল করলে শুধরানোর সময় খুব কম। শ্রীলঙ্কার বিপেক্ষ হোম সিরিজেও আমার বেশ কিছু ম্যাচ ভালো খেলেছি, হয়ত জয় পাইনি। এশিয়া কাপে পাকিস্তানের বিপক্ষে ৩২৬ করেছি। যেটা আশা করেছিলাম জয় পাব। ওটা হয়নি। টোয়েন্টি২০ বিশ্বকাপে উল্লেখ্যযোগ্য কোনো ভালো পারফরমেন্স আমরা করতে পারিনি। দল হিসেবে আমরা ভালো না করলে অনেকগুলো জিনিস আবার ইতিবাচক হয়েছে।

প্রশ্ন : কেন ব্যর্থ হচ্ছে বাংলাদেশ এ ব্যাপারে কি সুনির্দিষ্ট কোনো কিছু?

ফারুক আহমেদ : অস্ট্রেলিয়াও পারছে না। ৩ ম্যাচে ৩টি ম্যাচ হেরেছে। আমার আশা করেছিলাম অস্ট্রেলিয়া সেরা একটি দল। এ টুর্নামেন্টে ওদের ব্যাটিং ও বোলিং লাইনআপ যদি আপনি দেখেন কাগজে-কলমে সবচেয়ে শক্তিশালি দল অস্ট্রেলিয়া। এটা হতেই পারে। আমাদের দেখতে হবে প্রসেসগুলো ঠিক আছে কিনা। আমাদের ছেলেগুলোর অনুশীলন ঠিকমতো করছে কিনা, শৃঙ্খলা ভঙ্গ করছে কিনা, তাদের ফোকাস ঠিকমতো আছে কিনা এ জিনিসগুলোই জরুরি। আমার মনে হয় বাংলাদেশ দল অত্যন্ত ফোকাস একটি দল। শুধু মাত্র বড় একটি টুর্নামেন্টের সময় আমাদের ভালো কিছু ক্রিকেটার অফ ফর্মে ছিল। অনেকে বলছে আমাদের অবনতি হয়েছে। কথাটার সঙ্গে আমি একদমই একমত নই। অবনতি হলে ৩ মাসের মধ্যে চোখে পড়বে কিভাবে। এশিয়া কাপ ও শ্রীলঙ্কা সিরিজ আমরা তো ভালো ম্যাচ খেলেছি। তাহলে অবনতি হলো কিভাবে। হয়ত ভালো পারফরমেন্সের কারণে আশাটা বেড়েছে দর্শকদের। জয় না পাওয়ায় তাদের হতাশ হতে হয়েছে।

প্রশ্ন : দল হিসেবে বাংলাদেশ কি ফিরে আসতে পারবে ঠিক রাস্তায়?

ফারুক আহমেদ : আমি জানি ও বিশ্বাস করি এখান থেকে আমাদের উত্তরণ হবে। ভালো খেলব। এর আগে আমাদের ছেলেরা প্রমাণ দিয়েছে। এখন ওদের সাপোর্ট দরকার। এত ব্যর্থতার পর দর্শকরা ঠিকই খেলোয়াড়দের পাশে রয়েছে। মাঠে গিয়ে সমর্থন জোগাচ্ছে। সমালোচনা তো কিছু না কিছু হবেই। এটা একটি স্বাভাবিক প্রক্রিয়া। এটা আমাদের গ্রহণ করতে হবে। সব খেলোয়াড়, ম্যানেজমেন্ট বোর্ড সবাইকে সমালোচনা নিতে হবে। বাংলাদেশ কোথা থেকে কোথায় এসেছে তা সবাই জানে। আমাদের আরও উন্নতি করার জায়গা আছে।

দ্য রিপোর্ট

Leave a Reply