গজারিয়ায় জ্বলছে না সন্ধ্যাবাতি, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান অনির্দিষ্টকাল বন্ধ

মুন্সীগঞ্জ গজারিয়ায় উপজেলা গত ২৩ই মার্চ ২০১৪ইং উপজেলা নির্বাচন সহিংসতায় চেয়ারম্যান পদে প্রতিদন্দ্বী একাধিক প্রার্থী সমর্থনদের মধ্যে সংঘর্ষ, মারামারি ঘটনায় ২৪ শে মার্চ সকাল ৯ টায় বাউশিয়া ইউনিয়নের মধ্যম কান্দি গ্রামে মোঃ মাহাবুব আলম জোটন নিহত হন। নিহত জোটনকে কেন্দ্র করে হত্যা মামলাসহ তিনটি মামলায় ফরাজীকান্দি গ্রামবাসীদের মধ্যে ৩৫জনের বেশি আসামী করা হয়েছে।

সরেজমিনে পরিদর্শন কালে মোঃ আলাউদ্দিন, পিতা- মৃত মতিন ফরাজী কান্দি বাসী তিনি জানান, গ্রামের ৩৬০টি বেশি ঘরবাড়ি রয়েছে। এর মাঝে একমাত্র আমি গ্রামে আছি। জোটন নিহত হওয়ার দিন থেকে ঐ গ্রামের সকল নারী পুরুষ ঘর বাড়ি তালা দিয়ে নিজ নিজ নিরাপত্তা স্থানে আশ্রয় নিয়েছে। কেউ আসামীদের আত্বীয়, কেউ পাড়া প্রতিবেশি, এক কথায় গ্রামের সকল মানুষ নিরাপত্তাহীন ভোগ করেন। পাল্টা হামলা, মারপিট এর স্বীকার হতে পারেন। এমন মনে করে তিনশত ষাট ঘর বাড়ির সকল নারাী ও পুরুষ ছেলে মেয়েসহ পরিবারবর্গ নিয়ে গ্রাম ছেড়ে চলে গিয়েছে।

ঐ গ্রামে একটি শহীদ মুক্তিযোদ্ধা উচ্চ বিদ্যালয় ও একটি সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়, একটি মসজিদ, একটি কেজি স্কুল অনির্দিষ্ট কালের জন্য বন্ধ হয়ে আছে। পলাতক গ্রামবাসীর পক্ষ থেকে প্রতি রাত্রে বাড়ি ঘরে মালামালের লুটপাটের অভিযোগ রয়েছে। বাদীপক্ষ মধ্যমকান্দি গ্রামবাসীর বিরুদ্ধে অপর দিকে নিহত জোটন এর আত্বীয় আলাপ কালে জানান যে, আমাদের জানামতে কোন বাড়ি ঘরের মালামাল লুটপাট হয়নি। বরং তাদের মালামালের নিরাপত্তার জন্য আইন শৃঙ্খলা বাহিনীতে আমরা ব্যবস্থা নিতে বলেছি। এদিকে গ্রামবাসীর মালামাল নিরাপত্তার জন্য গজারিয়া থানা ভারপ্রাপ্ত ওসি মোঃ ফরিদ উদ্দিন জানান, ঐ এলাকার ঘর বাড়ির মালামালের নিরাপত্তার জন্য টহল পুলিশ মোতায়েন হয়েছে। আর বাড়ি ঘরের মালামাল লুট হয়েছে এমন কোন অভিযোগ আমার জানা নাই।

এফএনএস

Leave a Reply