শ্রীনগরে এক সপ্তাহের ব্যবধানে মা-মেয়ে সহ ৬ নারীর আত্মহত্যা!

suicide1আরিফ হোসেন: শ্রীনগরে এক সপ্তাহের ব্যবধানে মা-মেয়ে সহ ৬ নারী আত্মহত্যা করেছে। আত্মহত্যা করতে গিয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে আরো নয় জন। এদের মধ্যে একজন ছাড়া বাকী সবাই নারী। শ্রীনগর থানা ও স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে।

পুলিশ জানায়, এক সপ্তহ আগে মেয়ের অসম প্রেমের কারণে তিন ঘন্টার ব্যবধানে বিষপান করে মা মনিমালা (৪০) ও মেয়ে শান্তা (১৮) আত্মহত্যা করে। উপজেলার পানিয়া গ্রামের জহির উদ্দিনের মেয়ে শান্তার (১৮) সাথে তার চাচাতো চাচা আলামিন (২৫) এর অসম প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠে। এ নিয়ে শান্তার সাথে তার মা মনিমালার মধ্যে ঝগড়া হয়। ঝগড়ার এক পর্যায়ে সকাল সাড়ে নয়টার দিকে মনিমালা বিষ পান করে। মিডফোর্ট হাসপাতালে চিকিৎসারত অবস্থায় দুপুর বারটার দিকে মনিমালার মৃত্যু হয়। মায়ের মৃত্যুর সংবাদ শুনে মেয়ে শান্তাও বিষ পান করে। ঐদিনই দুপুর তিনটার দিকে একই হাসপাতালে শান্তার মৃত্যু হয়।

গত ৩ এপ্রিল গলায় ফাসঁ দিয়ে আতœহত্যা করে ষোলঘর একেএসকে উচ্চ বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণীর ছাত্রী সুমা আক্তার (১৬)। সুমা আক্তার দক্ষিন উমপাড়া গ্রামের আবুল বাশারের মেয়ে। ঐদিন দুপুর বারটার দিকে সে স্কুলের বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগীতায় অংশ নিয়ে বাড়িতে ফিরে। এর দুই ঘন্টা পর তাদের বাড়ির পাশের একটি পরিত্যক্ত ঘর থেকে সুমার ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করা হয়। সুমার আত্মহত্যার বিষয়ে পরিবারের কেউ মুখ খুলছেনা। একারণে তার পরিবারের সাথে সম্পর্ক রয়েছে এমন দুএকজনকে নিয়ে এলাকায় চলছে নানা রকম কানাঘুষা। প্রানচঞ্চল সুমার আকস্কিক মৃত্যুতে তার সহপাঠীরা বিস্মিত, হতাশ।

একই দিন গালায় ফাঁস দেওয়ার পর শ্রীনগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে মৃত্যু বরণ করে গৃহবধূ সানজিদা আক্তার রহিমা (২০)। সে মেদিনী মন্ডল এলাকার গাড়ি চালক শাহাদাৎ হোসেনের স্ত্রী। পারিবারিক কলহের জের ধরে রহিমা গলায় ফাঁস দেয়।

গত ৪ এপ্রিল উপজেলার বালাশুর এলাকার ফজল ঢালীর মেয়ে পারভীন আক্তার (২৩) গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করে। পারিবারিক সূত্র জানায়, এ বছর জানুয়ারী মাসের ৩ তারিখে শ্রীনগর বাবুর দিঘীরপার এলাকার এক যুবকের সাথে পারভীন আক্তারের বিয়ে হয়। বিয়ের এক মাসের মাথায় স্বামীর সাথে বনিবনা না হওয়ার কারনে তার ডিভোর্স হয়ে যায়। তার পর থেকে পারভীন মনমরা হয়ে থাকতো। মূলত হতাশার করণে সে আত্মহত্যা করে।

গত ৫ এপ্রিল বিকাল তিনটার দিকে গলায় ফাসঁ দিয়ে আত্মহত্যা করে বাঘড়া এলাকার দরিদ্র শহিদ শিকদারের মেয়ে আয়শা আক্তার (২০)। পাচঁ মাস পূর্বে একই এলাকার আতিক নামের এক যুবকের সাথে আয়শার বিয়ে হয়। কি কারণে আয়শা আত্মহত্যা করেছে তা কেউ বলতে পারছেনা।

এর আগে ৩ এপ্রিল একটি ঔষধ কোম্পানীর প্রতিনিধি আত্মহত্যার প্রস্তুতি নিয়ে তার মৃত্যুর জন্য কেউ দায়ী নয় জানিয়ে থানায় লিখিত অভিযোগ করে। পরে পুলিশ তকে আটক করে পরিবারের সদস্যদের কাছে সোপর্দ করে।

শ্রীনগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আরএমও ডা: রেজাউল ইসলাম জানান, গত এক সপ্তাহে বিষপান করে ও গলায় ফাসঁ দিয়ে নয়জন ভর্তি হয়। এদের মধ্যে একজন ছাড়া সবাই নারী। তাদের মধ্যে দুইজনকে ঢাকা মিডফোটে হাসপাতালে প্রেরণ করাহয়। বাকীরা চিকিৎসা নিয়ে বাড়ী ফিরে যায়।

অপরদিকে শনিবার তৌশিফ (৪) ও ইয়াসিন (২) নামে দুই শিশু পুকুরের পানিতে ডুবে মৃত্যু বরণ করে।

এ ব্যাপারে নাগরিক উদ্যোগ নামে একটি মানবাধিকার সংগঠনের কর্মী আরিফ হোসেন জানান, সামাজিক অবক্ষয়, নারী নির্যাতন, পারিবারিক নির্যাতন, জীবনের প্রতি ঘৃণা ও হতাশার কারণে আত্মহত্যার ঘটনা ঘটছে। এক্ষেত্রে তিনি ধৈর্য ও সহিষ্নুতার অভাব এবং নৈতিকতা বর্জিত বিদেশী চ্যানেলের সিরিয়ালের প্রভাবকে দায়ী করেন ।

Leave a Reply