মামলাটি ২২ দিনেও রুজু হয়নি

court4গজারিয়ায় সহকারী রির্টানিং অফিসার ও ইউএনও ড. এটিএম মাহবুব-উল-করিম শারিরিকভাবে লাঞ্ছিত হওয়ার মামলাটি ২২ দিনেও রুজু হয়নি। মামলাটি গ্রহনের জন্য স্বরাষ্ট মন্ত্রণালয় টেলিফোনিক আলাপ এবং দু’দফা জরুরি পত্র দিয়েও মামলা রুজু করানো যায়নি। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের নির্দেশ অমান্য করায় কেন বিভাগীয় ব্যবস্হা গ্রহণ করা হবে না? এই মর্মে মুন্সীগঞ্জের পুলিশ সুপার মো.হাবিবুর রহমানকে ৭ মধ্যে কারণ কারণ দর্শানোর জন্য বলা হয়েছিল। কিন্তু বৃহস্পতিবার এই সময় শেষ হয়ে হলেও জবাব দেয়নি এই এসপি। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের একটি সূত্র জানিয়েছে-তাই বিভাগীয় ব্যবস্হা নেয়া এখন সময়ের ব্যাপার মাত্র।

এদিকে রির্টানিং অফিসার ও ইউএনও লাঞ্ছিত হওয়ার ঘটনায় সরকারে কমিটির উচ্চ পর্যায়ের কমিটি কাজ করে যাচ্ছে। ইতোমধ্যেই কমিটি গজারিয়ায় এসে ৫০ জনের স্বাক্ষ্য গ্রহণ করেছেন। এই কমিটির রবিবারের (১২ এপ্রিল) মধ্যে রিপোর্ট দেয়ার কথা রয়েছে। তবে কমিটির প্রধান মন্ত্রী পরিষদ বিভাগের অতিরিক্ত সচিব এনএম জিয়াউল আলম শনিবার বিকালে জানিয়েছেন, রিপোর্ট পেশ করতে আরও সময় লাগবে। তাই ১৫ দিন সময় বর্ধিত করার জন্য পত্র দেয়া হয়েছে।

এই কমিটির অপর দুই সদস্য হচ্ছেন স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম সচিব মোস্তাফিজুর রহমান ও পুলিশের ডিআইজি (হাইওয়ে) মো. আসাদুজ্জামান মিয়া। এদিকে ইতোমধ্যেই গজারিয়া উপজেলার নির্বাচনে ব্যাপক সহিংসতা, পুলিশের দায়িত্বে অবহেলা ও অনিয়মের কারণে এসপি মো. হাবিবুর রহমান, গজারিয়ার ওসি মামুন-উর-রশিদ এবং ওসি (তদন্ত) ফরিদউদ্দিনকে প্রত্যাহার হয়েছে। আর ঘটনার দিন রাতেই অভিযুক্ত এএসআই এমদাদুল হককে সমায়িক বরখাস্ত করা হয়েছে।

স্বদেশ

Leave a Reply