সিরাজদিখানের হত্যা মামলার আসামী ওসির ছত্রছায়ায়!

প্রকৌশলী আসাদ হত্যাকান্ড
মুন্সীগঞ্জ জেলার সিরাজদিখান উপজেলার প্রকৌশলী আসাদ খন্দকার হত্যা মামলার প্রধান আসামী বিএনপি নেতা লিটন চৌধুরী বর্তমানে হাইকোর্টের আগাম জামিন নিয়ে সিরাজদিখান থানার ওসির ছত্রছায়ায় এলাকায় ঘুরে বেড়াচ্ছেন বলে অভিযোগ করেছেন বাদী পক্ষ। জামিন না পাওয়ার ভয়ে মুন্সীগঞ্জ জজ কোর্টে না গিয়ে আসামী লিটন চৌধুরী হাই কোট থেকে ২৮ দিনের জন্য জামিন নেন।

এদিকে ২৮নভেম্বর ২০১৩ পর্যন্ত জামিনে ছিল আসামী লিটন। সময় ফুরিয় গেলেও নিন্ম আদালতে তিনি হাজির না হয়ে অদ্যাবদি এলাকায় ঘুরে বেড়াচ্ছে। এবং বাদী পক্ষকে প্রতিনিয়ত ভয়ভীতি প্রদশর্ন করেছেন সিরাজদিখানের ওসির ছত্রছায়ায়। এদিকে বাদী পক্ষের অভিযোগ সিরাজদিখান থানর ওসি আবুল বাশার ছত্রছায়য় থেকে এলাকায় নানা অপকর্ম করে যাচ্ছে লিটন চৌধুরী ও সাঙ্গো পাঙ্গোরা। ২১-১০-১৩ ইং তারিখে হত্যা সংঘটিত হওয়ার পর একই তারিখে মামলা হয়। কিন্তু বাদী পক্ষের অভিযোগ হত্যার ৫২ দিন পর অতিরিক্ত ডিআইজি ঢাকা রেঞ্জ মহোদয়ের টেলিফোনের নিদের্শে ওসি আবুল বাশার ১মবারের মতো ঘটনাস্থলে যান।

এ ঘটনায় এলাকাবাসী চরম ক্ষুদ্ব হয় ।এবং মানব বন্ধন করে আসামীদের গ্রেফতার ও শাস্তি দাবী করে। বর্তমানে এলাকাবাসী জোরদাবী প্রশাসনের কাছে প্রকৌশলী আসাদ খন্দকার হত্যা মামলাটি যাতে ভিন্ন খাতে প্রবাহিত না করে সেদিকে দৃষ্টি রাখা। এবং ন্যায় ও সঠিক বিচার আশায় বুক বেঁধে আছে নিহত আসাদ পরিবার।

এবিষয়ে একাধিক জাতীয় ও স্থানীয় প্রত্রিকায় রির্পোট প্রকাশিত হলে ও লিটন চৌধুরী গ্রেফতার হচ্ছে না।এদিকে ১৬৪ ধারায় বেশ কিছু আসামীগন ও মামলার স্বাক্ষীগন কোর্টে জবানবন্দীতে লিটন চৌধুরীর নেতিত্বে এ হত্যাকান্ডটি সংগঠিত হয় বলে স্বীকারোক্তী দেয়। উল্লেখ্য গত ২১-১০-২০১৩ ইং রাত অনুমান ৯টায় রাজানগর বাজারে এক দল সন্ত্রাসী দেশীয় অস্ত্র / আগ্নিয় অস্ত্র দিয়ে আঘাত করে প্রকৌশলী আসাদ খন্দকারকে হত্যা করে এবং তার ব্যবহারিত মটরসাইকেলটি ভাংচুর ও অগ্নিসংযোগ করে।এ ঘটনায় লিটন চৌধুরীকে প্রধান আসামী করা হয় ।এবং আরো ১৫ জন সহ অজ্ঞাতনামা বেশ কয়েকজন এর নামে মামলা করা হয়।

মুন্সিগঞ্জের কাগজ

Leave a Reply