ইউএনও লাঞ্ছিতের ঘটনায় তদন্ত রিপোর্ট জমা

গজারিয়া উপজেলার সহকারী রির্টানিং অফিসার এবং ইউএনওকে শারিরিকভাবে লাঞ্ছিত করার ঘটনায় গঠিত সরকারের উচ্চ পর্যায়ের তদন্ত কমিটির রিপোর্ট বৃহস্পতিবার জমা হচ্ছে। জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের সচিব ২৮ পৃষ্ঠার এই তদন্ত রিপোর্টটি গ্রহণ করেছে। এই রিপোর্টে দেশের আলোচিত ঘটনাটি স্পষ্টভাবে উঠেছে এসেছে।

ঘটনার পর থানায় ইউএনও’র এজাহারটি রিসিভ করার পর মামলা গ্রহণ না করায় আইনের শাসনের প্রতি আস্থা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে এই বিষয়টি রিপোর্টে উঠে এসছে বলে সংশ্লিষ্ট সূত্র আভাস দিয়েছে। রিপোর্টে এমন কিছু গুরুত্বপূর্ণ বিষয় এসছে যা মাঠ পর্যায়ের প্রশাসনের জন্য দৃষ্টান্তমূলক হতে পারে। এমন ইঙ্গিত পাওয়া গেছে। মন্ত্রী পরিষদ বিভাগের অতিরিক্ত সচিব এবং তদন্ত কমিটির প্রধান এনএম জিয়াউল আলম বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় রিপোর্ট দাখিল নিশ্চিত করে বলেন, কমিটির তিন সদস্যের ঐক্যমতের ভিত্তিতেই রিপোর্টটি তৈরী করা হয়েছে।

তদন্তকালে সংশ্লিষ্ট ৫৫ জনের স্বাক্ষ্য গ্রহণ করা হয়। তাও রিপোর্টে উল্লেখ রয়েছে। তবে রিপোর্ট জমা দেয়ার নির্দিষ্ট দিবস ছিল গত ১২ এপ্রিল। বিষয়টির সত্য উদঘাটনে সময় বেশী প্রয়োজন হওয়ায় বিলম্বে রিপোর্ট পেশের জন্য মর্জার কথাও রয়েছে। তবে কমিটি নির্ধারিত সময়ের আগেই সময় বৃদ্ধির আবেদন জানিয়েছিলেন।

এই কমিটির অন্য দু’ সদস্য হচ্ছেন স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম সচিব মোস্তাফিজুর রহমান ও পুলিশের ডিআইজি (হাইওয়ে) মো. আসাদুজ্জামান মিয়া।

এদিকে সরকারি নির্দেশ অমান্য ও অসদাচরণের অভিযোগে মুন্সীগঞ্জের সাবেক পুলিশ সুপার মো. হাবিবুর রহমানের বিরুদ্ধে রবিবার বিভাগীয় মামলা করেছে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। একই সঙ্গে সরকারি কর্মচারী (শৃঙ্খলা ও আপিল) বিধিমালা অনুযায়ী, কেন তাঁকে চাকরি থেকে বরখাস্ত ও উপযুক্ত গুরুদন্ড দেওয়া হবে না- এ বিষয়ে কারণ দর্শানোর নোটিশ দেওয়া হয়েছে।

মন্ত্রণালয় থেকে পাঠানো চিঠিতে আগামী ১০ কার্যদিবসের মধ্যে কারণ দর্শানোর জবাব দিতে এসপিকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। তিনি ব্যক্তিগত শুনানি চান কি না, তা-ও জানাতে বলা হয়েছে। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে এ সংক্রান্ত অভিযোগনামাসহ চিঠি এসপি হাবিবুর রহমানসহ পুলিশের মহাপরিদর্শকের কার্যালয়ে পাঠানো হয়েছে। অভিযোগনামায় সই করেছেন স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব সিকিউকে মুসতাক আহমদ।

উল্লেখ্য, গত ২২ মার্চ উপজেলা নির্বাচনের আগের দিন মুন্সীগঞ্জের গজারিয়ার ইউএনও এবং সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তা ড. এ টি এম মাহবুব-উল করিমকে শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত, গালিগালাজ ও পিস্তল দেখিয়ে মেরে ফেলার হুমকি দেন লৌহজং থানার এএসআই মো. এমদাদুল হক। তাঁর বিরুদ্ধে সরকারি কাজে বাধা, নির্বাচনী মালামালসহ প্রয়োজনীয় কাগজপত্র নষ্ট করার অভিযোগও আনা হয়।

এ ঘটনা নিয়ে বেশ কয়েক দিন নির্বাচন কমিশন, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়, মুন্সীগঞ্জ জেলা প্রশাসকের মধ্যে কয়েক দফা চিঠি চালাচালি হয়। ঘটনার পর তৎকালীন পুলিশ সুপার মো. হাবিবুর রহমানকে প্রথমে বাধ্যতামূলক ছুটি ও পরে মুন্সীগঞ্জের পুলিশ সুপার পদ থেকে প্রত্যাহার করে সদর দফতরে সংযুক্ত করা হয়। এদিকে এএসআই মো. এমদাদুল হক সাময়িকভাবে বরখাস্ত করা হয়। প্রত্যাহার করা হয় গজারিয়া থানার ওসি মামুন-অর-রশি ও ওসি(তদন্ত) ফরিদউদ্দিনকে।

স্বদেশ

Leave a Reply