সোনারং উচ্চ বিদ্যালয়, সফল প্রশাসনিক ব্যবস্থা

sonarangসরকারি স্কুল এবং জেলা পর্যায়ের স্কুলগুলোকে পেছনে ফেলে জুনিয়র বৃত্তি পরীক্ষায় অভূতপূর্ব সফল্য পেয়েছে টঙ্গীবাড়ি উপজেলার সোনারং পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়। মফস্বলের বিদ্যালয়টির ২৫ শিক্ষার্থী বৃত্তিলাভ করেছে। এর মধ্যে ৭ শিক্ষার্থী ট্যালেন্টপুলে বৃত্তি পেয়েছে। এই ফলাফল অনুযায়ী টঙ্গীবাড়ি উপজেলায় প্রথম এবং জেলা পর্যায়ে দ্বিতীয় স্থান অধিকার করেছে ঐতিহ্যবাহী এই বিদ্যাপীঠ। গ্রামের স্কুলটির সাফলতায় অনানুষ্ঠানিকভাবে জেলা প্রশাসনের তরফ থেকে ফুল নিয়ে আকস্মিক হাজির হয়েছেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (শিক্ষা ও আইসিটি) সাগরিকা নাসরিন। বিকালে ৩টায় তিনি বিদ্যালয়টিতে গিয়ে শিক্ষকদের হাতে গোলাপ ও রজনীগন্ধ তুলে দেন। একইভাবে বৃত্তিপ্রাপ্ততের হাতেও ফুল তুলে দেন।

পরে পড়াশুনার মান আরও উন্নয়নে শিক্ষকদের নিয়ে এক মতবিনিময় সভার আয়োজন করা হয়। এতে এডিসি সাগরিকা নাসরিন ছাড়াও বক্তব্য রাখেন সরকারি হরগঙ্গা কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ অধ্যাপক সুখেন চন্দ্র ব্যানার্জী, মুন্সীগঞ্জ প্রেসক্লাব সভাপতি মীর নাসিরউদ্দিন উজ্জ্বল, স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান ও ম্যানেজিং কমিটির সদস্য আব্দুল কাদের মল্লিক, প্রধান শিক্ষক মো. রফিকুল ইসলাম, সহকারী প্রধান শিক্ষক আবুল কালম খান, সিনিয়র শিক্ষক দিনেশ দত্ত ও রঞ্জিত কুমার বাড়ৈ প্রমুখ।
sonarang
এদিকে ২০১৩ সালের এই জুনিয়র বৃত্তি পরীক্ষায় প্রথম স্থান অধিকার করেছে শহরের প্রেসিডেন্ট প্রফেসর ড. ইয়াজউদ্দিন আহম্মেদ রেসিডেন্সিয়াল মডেল স্কুল এন্ড কলেজ। এই প্রতিষ্ঠানের ৩৭ শিক্ষার্থী বৃত্তি পেয়েছে এর মধ্যে ট্যালেন্টপুলে বৃত্তি পেয়েছে ২১ শিক্ষার্থী। বাকি ১৬ জন পেয়েছে সাধারণ গ্রেডে। জেলা শহরের সরকারি স্কুলগুলোকে পেছনে ফেলে সফলতার একছত্র সাধিপথ্য বিস্তার করায় জেলা প্রশাসন থেকে এই প্রতিষ্ঠানকে শুভেচ্ছা জানিয়েছে।

স্বদেশ

Leave a Reply