আড়িয়াল বিলে ধান কাটার মহোৎসব

arial1খরায় পুড়ছে দেশ, ফসলের মাঠ ফেটে চৌচির। তপ্ত ধরণীর বুক। ফসলের মাঠে খাঁ-খাঁ রোদে পুড়ছে কৃষক ও কৃষাণী- এমন অবস্থায় চলতি সপ্তাহে দেশের শস্যভাণ্ডার খ্যাত মুন্সীগঞ্জের আড়িয়াল বিলে ধান কাটার উৎসব শুরু হয়েছে।

সোনালি ধানে ভরে উঠেছে কৃষকের ফসলের গোলা। ধান কাটায় মহাব্যস্ত কয়েক হাজার কৃষক। দখিনা বাতাসে সোনালি ধানের ম-ম ঘ্রাণে কৃষক-কৃষাণীর বুক ভরে যায়। যেন নবান্ন উৎসবে মেতে উঠেছেন বিলের চোরমর্দন গ্রামের রহিমা বেগম, হাতিম আলী, করিম খাঁ, রমিজ বেপারির মত হাজারো কৃষক-কৃষাণী।

সরেজমিনে আড়িয়াল বিলের আলমপুর, বাড়ৈখালী, চোরমর্দন, হাষাড়া, শ্রীধরপুর ও মদনখালী ঘুরে দেখা গেছে, বিস্তীর্ণ ফসলের মাঠে এখন ধান কাটার মহোৎসব চলছে।

জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতর সূত্র মতে, প্রায় এক লাখ বর্গাচাষি এ বিলে ধান চাষ করে থাকেন। এ বিলের প্রায় ১৪ হাজার ১৬৪ হেক্টর জমিতে এবার ধান চাষ করা হয়েছে।

মুন্সীগঞ্জের ছয় উপজেলা মিলিয়ে এবার ধান চাষ করা হয়েছে ২৫ হাজার ১৬২ হেক্টর জমিতে। আবাদের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ২৫ হাজার ১৪৭ হেক্টর। অর্থাৎ জেলার অর্ধেক পরিমাণ ধানের আবাদ হয় শুধু আড়িয়াল বিলে।
arial2
বিলের মদনখালীতে ধান কাটার শত ব্যস্ততার ফাঁকে হাসিমাখা মুখে কৃষক শরীফুদ্দিন বলেন, সারাদেশের মানুষের ২৭ দিনের অন্নের জোগান হয় এ আড়িয়াল বিল থেকে। এ বিল আল্লাহর দান, আল্লাহর বিশেষ রহমত আমাদের জন্য। মুন্সীগঞ্জের শ্রীনগর ও সিরাজদীখান উপজেলা এবং ঢাকার দোহার ও নবাবগঞ্জ উপজেলার প্রান্তরজুড়ে এ বিলের অবস্থান।

কৃষক সিরাজ মিয়া বলেন, ধানে ধানে ভরে উঠেছে বিল। পাকা ধানের ম-ম গন্ধে দেহ-মন জুড়িয়ে যাচ্ছে। কৃষক-কৃষাণীর হাসিমুখ সর্বত্র।

দ্য রিপোর্ট

Leave a Reply