প্রবাসীদের প্রাণের মেলা টোকিও বৈশাখী মেলা

moniBরাহমান মনি: প্রবাসে বাংলাদেশ কমিউনিটি বাংলাদেশের জাতীয় দিবসগুলো পালনে বিভিন্ন কর্মসূচি নিয়ে থাকে। তবে রাজনৈতিক ক্ষমতায়নে জাতীয় দিবসগুলো আয়োজনে প্রায়শই কিছুটা ভিন্নতা পরিলক্ষিত হলেও বৈশাখী মেলা আয়োজনে আদিকাল থেকেই এর ধারাবাহিকতা বজায় রয়েছে। এই একটি মাত্র আয়োজনে সবাই একাকার হয়ে যায়। ভুলে যায় তাদের দলীয় মতামতের ভিন্নতা কিংবা ধর্মীয় অনুসরণের স্বকীয়তা। সবাই আনন্দে মেতে ওঠে। জানান দেয় বৈশাখী মেলা বাংলাদেশি, বাংলাভাষীদের প্রাণের মেলা।

দেখা হবে টোকিও বৈশাখী মেলায় জাপানপ্রবাসীদের অতিপ্রিয় একটি সেøাগান। দিন দিন এই মেলার জনপ্রিয়তা বৃদ্ধি পাচ্ছে। উৎসাহ-উদ্দীপনার কোনো কমতি নেই এই মেলাকে ঘিরে। প্রায় প্রতিটি প্রবাসী বাংলাদেশি এককাতারে দাঁড়িয়েছে টোকিও বৈশাখী মেলাকে ঘিরে। গত বছর প্রবাস প্রজন্ম জাপানপ্রবাসীদের প্রিয়, পাঠকপ্রিয় সাপ্তাহিক-এ রীতিমতো বিজ্ঞাপন দিয়ে জানান দিয়েছিল ‘আমরা থাকব ইকেবুকুরো মেলা প্রাঙ্গণে। আপনি আসছেন তো?’ বিজ্ঞাপনটি ব্যাপক সাড়া জাগিয়েছিল। বাংলাদেশে বর্ষবরণ অনুষ্ঠানের কথা এলে যেমন রমনার বটমূলে ছায়ানটের আয়োজনের কথা সর্বাগ্রে চলে আসে, ঠিক তেমনি জাপানপ্রবাসীদের বাংলা নববর্ষ উদযাপন বলতে একবাক্যে চলে আসে ইকেবুকুরো নিশিগুচি কোয়েন এর কথা।
moniB
ইকেবুকুরো নিশিগুচি কোয়েন যে কেবল বৈশাখী মেলা প্রাঙ্গণ হিসেবে সুপরিচিত, তা কিন্তু নয়। এই মাঠেই মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়ে আছে বাঙালি জাতির গর্ব, বাঙালির শ্রেষ্ঠ অর্জন, বিশ্ব মাতৃভাষার স্বাধিকারের প্রতীক, আমাদের মহান শহীদ মিনার। বৈশাখী মেলা আয়োজনে সাফল্যের ধারাবাহিকতা এবং মেলা কমিটির ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় দেশের বাইরে বাংলাদেশ সরকার কর্তৃক স্থাপিত প্রথম শহীদ মিনার। শহীদ মিনার হয়ে উঠেছে প্রবাসী বাংলাদেশিদের সবকিছুর প্রাণকেন্দ্র। বাংলাদেশ থেকে বিশিষ্টজনরা জাপান সফর করলে এই স্থান পরিদর্শন করেন। বিশিষ্টজনদের পদচারণে মুখরিত হয়ে ওঠে টোকিও শহীদ মিনার প্রাঙ্গণ।

এই উৎসব বাংলা নববর্ষ কর্ম দিবসে হওয়ায় জাপানে পরবর্তী রোববার অর্থাৎ ২০ এপ্রিল টোকিও বৈশাখী মেলার আয়োজন করা হয়। তবে যথারীতি এর কার্যক্রম শুরু হয় ৩ মাস আগে থেকেই। একাধিক সভা করে বিভিন্ন কমিটি, উপকমিটি গঠন করে দায়িত্ব বন্টন করে কাজের তদারক করা হয় কেন্দ্র থেকে। কেন্দ্রীয় কমিটির প্রধান সমন্বয়ক ড. শেখ আলীমুজ্জামান নেতৃত্ব দেন এই তদারকির কাজে। তবে ব্যক্তিগত কাজে জাপানের বাইরে সময় কাটাতে হয় বিধায় তার অবর্তমানে দায়িত্ব পালন করেন সুখেন ব্রহ্ম।

ড. শেখ আলীমুজ্জামানের দক্ষ নেতৃত্ব ও পরিচালনায় টোকিও বৈশাখী মেলা যে কতটা গোছালো এবং পরিকল্পিত, তা না দেখলে বোঝার উপায় নেই। সেই সঙ্গে রয়েছে সর্বস্তরের প্রবাসীদের অকুণ্ঠ সমর্থন এবং স্থানীয়দের সহযোগিতা। বিভিন্ন দেশের দর্শনার্থীদের পদচারণে মেলা প্রাঙ্গণে মুখরিত হয়ে ওঠে সকাল থেকেই। যদিও সকাল ১০টায় মেলার আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন হয়। এবারের মেলায় প্রায় ১২ হাজার দর্শনার্থীর আগমন ঘটে, যার অধিকাংশই স্থানীয় জাপানি এবং অন্যান্য দেশের নাগরিক। আর এখানেই জাপানপ্রবাসীদের সার্থকতা। প্রায় প্রতিটি আয়োজনেই উল্লেখযোগ্য সংখ্যক স্থানীয়দের সম্পৃক্ততা দেখে আগত অতিথিবৃন্দ অভিভূত হন।

কবিগুরুর ‘এসো হে বৈশাখ’ গান দিয়ে মেলার উদ্বোধন হয়। এবারের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে দীর্ঘদিনের প্রচলিত ফিতা কাটার নিয়ম রাখা হয়নি। অনেকটা সাদামাটাভাবেই উদ্বোধন হলেও উচ্ছ্বাসের কমতি ছিল না। এর পর থেকে একে একে পরিচিতি পর্ব (মেলা পরিচালনা কমিটি, স্টল ও স্পন্সরদের পরিচিতি), বড়দের উন্মুক্ত অনুষ্ঠান (এ আয়োজনে উপস্থিত যে কেউ অংশ নিয়ে প্রতিভার বিকাশ ঘটাতে পারেন), ছোটদের চিত্রাঙ্কন (উন্মুক্ত), ছোটদের সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান (নাচ, গান, আবৃত্তি, অভিনয়, কৌতুক, যেমন খুশি সাজো ইত্যাদি নিয়ে সাজানো হয়), বাংলা নববর্ষ উপলক্ষে জাপানি প্রোগ্রাম (জাপানি নৃত্য দল আরাধনা কর্তৃক নৃত্য পরিবেশন এবং কোয়ো ঢাক দলের ঢাকের বাজনা), অতিথি সংবর্ধনা ও হাজার কণ্ঠে বাংলাদেশের জাতীয় সঙ্গীত, মেলার স্পনসরদের পরিচিতি ও ক্রেস্ট প্রদান, পহেলা বৈশাখ কনসার্ট (স্থানীয় প্রবাসী সাংস্কৃতিক দল উত্তরণ বাংলাদেশি সাংস্কৃতিক দল, স্বরলিপি কালচারাল একাডেমি এবং বাংলাদেশ থেকে আমন্ত্রিত শিল্পীরা এই পর্বে অংশ নেন) এবং সব শেষে সমাপনী ঘোষণা দিয়ে শেষ হয় দিনব্যাপী বৈশাখী মেলার।

এবার বাংলাদেশ থেকে আমন্ত্রিত হয়ে এসেছিলেন সাজ্জাদ হোসেন পলাশ এবং শাহনাজ রহমান স্বীকৃতি। দলে অন্যান্য সদস্যরা হলেন, গিটারে রিচার্ড কিশোর, কী-বোর্ডে রূপতনু দাশ শর্মা এবং ড্রামে মো. আলমগীর হোসেন। বাংলাদেশ থেকে আগত শিল্পীরা মঞ্চ মাতিয়েছেন। দীর্ঘদিন পর প্রবাসী আনন্দে মেতেছে আমন্ত্রিত শিল্পীদের সঙ্গে। শিল্পীরা তাদের নিজেদের জনপ্রিয় গানগুলোর পাশাপাশি দেশবরেণ্য শিল্পীদের জনপ্রিয় গানগুলো গেয়ে পুরো আয়োজনকে প্রাণবন্ত করে তোলেন।

এবারের মেলাতে বিশেষ অতিথি ছিলেন একুশে পদকসহ জাতীয় বিভিন্ন পদকপ্রাপ্ত চিত্রশিল্পী হাশেম খান। শুভেচ্ছা বক্তব্যে তিনি বলেন, ‘আমি মুগ্ধ, আমি অভিভূত। জাপানের মাটিতে যে আপনারা এমন সুন্দর, গোছালো এবং উৎসবমুখর আয়োজন করতে পারেন, তা না দেখলে আমি বুঝতেই পারতাম না। ধন্যবাদ আপনাদের, বাংলাদেশি সংস্কৃতিকে বিশ্ববাসীর কাছে তুলে ধরার প্রয়াস দেশকে গভীর ভালোবাসলেই কেবল সম্ভব। যার প্রমাণ আপনারা রেখেছেন। সবচেয়ে বড় কথা, আপনারা জাপানিদের সম্পৃক্ত করতে পেরেছেন।’

প্রধান অতিথি রাষ্ট্রদূত মাসুদ বিন মোমেন তার শুভেচ্ছা বক্তব্যে বলেন, ‘আপনারা জাপানে বাংলাদেশকে যেভাবে তুলে ধরছেন, আমি গর্বিত। আমার ব্যক্তিগত, বাংলাদেশ দূতাবাসের পক্ষ থেকে এবং বাংলাদেশ সরকারের পক্ষ থেকে আমি কৃতজ্ঞতাসহ ধন্যবাদ জানাই। এই মেলাতে জাপানিদের সম্পৃক্ত করায় মেলার মান যেমন বৃদ্ধি পেয়েছে, তেমনি বাংলা সংস্কৃতি সর্বোপরি বাংলাদেশকে তুলে ধরার সুযোগ সৃষ্টি হয়েছে। জাপান বাংলাদেশের ভালো বন্ধু, আপনাদের মাধ্যমে জাপানিরা বাংলাদেশকে আরও গভীরভাবে জানতে পারবে।’

এ ছাড়াও অতিথি সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন স্থানীয় প্রশাসন তোশিমা সিটির ডেপুটি মেয়র মাছাহিকো মিজুশিমা এবং আয়োজক সংগঠন জাপান বাংলাদেশ সোসাইটির সভাপতি ড. ওসামু ওৎসুবো। উল্লেখ্য, তোশিমা সিটি মেলা আয়োজনের অনুমতিসহ আয়োজন প্রাঙ্গনে শহীদ মিনার স্থাপনের জন্য বাংলাদেশকে জায়গা প্রদান করে এবং ড. ওসামু ওৎসুবো বাংলাদেশের একজন ভালো বন্ধু এবং মেলা আয়োজনের পৃষ্ঠপোষক সংগঠন জেবিএসের চেয়ারম্যান। তারই উদারতায় গত ১৪ বছর যাবৎ মেলা আয়োজন সম্ভব হচ্ছে, যা জাপানপ্রবাসীদের অন্যতম মিলনমেলা।

এবারই প্রথমবারের মতো মেলা প্রাঙ্গণে হাজার কণ্ঠে বাংলাদেশের জাতীয় সঙ্গীত পরিবেশিত হয়। এই সময় দর্শকদের হাতে জাতীয় পতাকা শোভা পায় এবং স্থানীয় জাপানিরাসহ আগত বিভিন্ন দেশের দর্শনার্থী দাঁড়িয়ে বাংলাদেশের জাতীয় পতাকা নিয়ে জাতীয় সঙ্গীতের প্রতি সম্মান প্রদর্শন করে।

বিনামূল্যে স্বাস্থ্যসেবা প্রদান টোকিও বৈশাখী মেলার একটি অন্যতম মানবিক উদ্যোগ। এবারও তার ব্যতিক্রম হয়নি। শুধু বাংলাদেশিদের জন্য জাপান-বাংলাদেশ সোসাইটির উদ্যোগে বিনামূল্যে স্বাস্থ্য পরীক্ষা করানো হয়। কর্মব্যস্ততার জন্য যেসব প্রবাসী বাংলাদেশি নিয়মিতভাবে স্বাস্থ্য পরীক্ষা করে উঠতে পারেন না এবং বিশেষ করে ভাষাগত সমস্যার কারণে যারা স্বাস্থ্য পরীক্ষা করাতে ইতস্তত বোধ করেন তাদের জন্য এই উদ্যোগ। একসময় স্বাস্থ্যবীমা জটিলতার কথা চিন্তা করে এই উদ্যোগটি নেয়া হয়েছিল। ভ্রাম্যমাণ হলেও এই স্বাস্থ্য কেন্দ্রে সঠিক পরীক্ষার মাধ্যমে পরবর্তীতে রিপোর্ট এবং পরামর্শ ডাকযোগে জানানো হয়ে থাকে। এটা প্রশংসাযোগ্য একটি সেবামূলক উদ্যোগ।

শিশু-কিশোরদের সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে অতিথি ছিলেন রাষ্ট্রদূতপতœী ফাহমিদা যাবিন। শিশু-কিশোর সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে অংশ নিয়ে তাদের প্রতিভার জানান দেয়। এই সময় মেলা প্রাঙ্গণে শিশু-কিশোররা উন্মুক্ত চিত্রাঙ্কনে অংশ নিয়ে চিত্রের মাধ্যমে তাদের মনের ভাব ফুটিয়ে তোলে।

টোকিও বৈশাখী মেলার স্বকীতয়তা বজায় রাখার জন্য আগত দর্শনার্থী বিশেষ করে বাংলাদেশিদের সবার আরও সতর্কতা এবং দায়িত্ববোধ জেগে উঠুক, জাপানের মাটিতে বাংলাদেশকে সঠিকভাবে তুলে ধরা হোকÑ এই প্রত্যাশা রেখে দেখা হবে আগামী মেলাতে সেই পর্যন্ত সবার ভালো থাকাই কামনা।

rahmanmoni@gmail.com

সাপ্তাহিক

Leave a Reply