আমাদের দৈনন্দিন জীবনে রবীন্দ্রনাথ

purabibasuপূরবী বসু: রবীন্দ্রনাথ তাঁর জীবদ্দশায় বহুবার বহুভাবে নিজেকে নিজে অতিক্রম করে গেছেন। অপেক্ষাকৃত বৃহত্তর বা মহত্তর কিছু অর্জনের বা গ্রহণের আকাঙ্ক্ষায় অনেক সময়েই পুরাতন, জীর্ণ এবং অকেজো অনেক কিছু পেছনে ফেলে সামনে এগিয়ে গেছেন তিনি। এটাই ছিল তাঁর ধারা বা রীতি। কিন্তু আশ্চর্যের ব্যাপার হলো, রবীন্দ্রনাথ নিজে ক্রমাগত নিজেকে ছাড়িয়ে গেলেও আমরা কিন্তু রবীন্দ্রনাথকে অতিক্রম করে আজো এক পা এগুতে পারি না। জন্ম থেকে মৃত্যু পর্যন্ত আমরা বিভিন্ন কারণে বার বার রবীন্দ্রনাথের কাছে ফিরে ফিরে আসি।

কী নবজাতককে সাগ্রহে পরিবারে বরণ করে নেওয়া, তার নামকরণ, বৎসারন্তে জন্মতিথি পালন, জীবনের পরতে পরতে নানাবিধ তীব্র মানবিকবোধ অথবা অনিবার্য ঘটনা, যেমন আনন্দ, শোক, দুঃখ, মৃত্যু, দুর্দশা, দুঃসময়, প্রেম, মিলন, উল্লাস, বিরহ, হতাশা, ক্লান্তিকে প্রতিনিয়ত মোকাবেলা করতে করতে আমাদের যে আত্মিক অনুধাবন ও প্রতিক্রিয়া, তাতে পুনঃ পুনঃ আমরা রবীন্দ্রনাথকে স্মরণ করি। এছাড়া দৈনন্দিন দিনযাপনের অংশ হিসেবে সাধারণ কিছু বিষয় যেমন, বিশেষ কোন উপহার নির্বাচন, অনুষ্ঠানে নান্দনিক উপস্থাপনা বা পরিবেশনা, প্রকৃতির সঙ্গে একত্রিত হয়ে বিভিন্ন ঋতুতে সংগীত ও নৃত্যের মাধ্যমে বৈচিত্র্যময় সব উৎসব-উদযাপন, বৃক্ষ বা ফুলের চাড়া রোপণ, ফুল-পাতাসহ প্রাকৃতিক সরঞ্জাম দিয়ে গৃহের শ্রী-বর্ধন ও বিভিন্ন সাজসজ্জা, সৃজনশীল প্রতিষ্ঠান বা কর্মের শিরোনাম নির্ধারণ, ইত্যাদি থেকে শুরু করে অপেক্ষাকৃত জটিল ও কঠিন সব শুভ উদ্যোগ বা অনুশীলন, যেমন, আধুনিক ও বিজ্ঞানমনষ্ক হয়ে ওঠার প্রচেষ্টা, দেশ ও দরিদ্র্যের সেবায় অনুপ্রাণিত হওয়া, কৃষি, পরিবেশ, জ্যোতির্বিদ্যা ও পদার্থবিজ্ঞানের অগ্রগতি সম্পর্কে সজাগ থাকা ও সফলভাবে_ যোগ্যতার সঙ্গে প্রাত্যহিক জীবনে সেসবের প্রয়োগ, পারস্পরিক যুদ্ধ ও রেষারেষি বন্ধ করা, দেশপ্রেম ও জাতীয়তাবোধে উদ্বুদ্ধ হয়েও সর্বদা স্বদেশে, স্বসমাজে আবদ্ধ না থেকে আন্তর্জাতিক ও উদারপন্থি হয়ে ওঠা, কুসংস্কার ও মানুষে মানুষে ভেদাভেদ মুছে ফেলা, পরস্পরের প্রতি প্রতিযোগিতার পরিবর্তে পারস্পরিক সহমর্মিতা জাগ্রত করা, পেছনে পড়ে থাকা মানুষকে টেনে ওপরে তোলা, অন্যায় কিংবা অত্যাচারীর আচরণ সহ্য না করে প্রতিবাদ জানানো এবং ন্যায় বিচার দাবি করা_ মোটকথা আমাদের জীবনের প্রতিটি ইতিবাচক ও সাহসী পদক্ষেপ গ্রহণ করা এবং তার জন্যে প্রয়োজনীয় মানসিক শক্তি যোগাড় করার জন্যে রবীন্দ্রনাথের কাছে বার বার ফিরে আসি আমরা। তাঁর কথা কিংবা তাঁর জীবনাচরণ থেকে কিছু শেখা বা ধার করার চেষ্টা করি।

রবীন্দ্রনাথের জীবনচর্চা এবং সৃষ্টিকর্ম উভয়ই আমাদের প্রাত্যহিক জীবনের অনুপ্রেরণা। দীর্ঘ আশি বছরের জীবনে বহু প্রিয়জনের মৃত্যুকে প্রত্যক্ষ করতে হয়েছে তাঁকে। জীবনের শুরুতে মা ও প্রিয় বৌদি কাদম্বিনী দেবী থেকে শুরু করে, একে একে এবং অতি অল্প সময়ের ব্যবধানে স্ত্রী, কনিষ্ঠ পুত্র, দুই কন্যা, নাতি_ অনেককেই হারিয়েছেন তিনি। তাঁর জীবনের এক বিশাল শক্তিশালী প্রভাব, তাঁর পিতা মহর্ষি দেবেন্দ্রনাথ ঠাকুর-ও এই সময়েই মারা যান; তবে মৃত্যুকালে তাঁর যথেষ্ট বয়স হয়েছিল। পিতা ছাড়া ওপরে উলি্লখিত প্রতিটি ঘনিষ্ঠজনের মৃত্যুই ছিল অতি অসময়ে, আকস্মিকভাবে। কিন্তু এতো সব ব্যক্তিগত শোক ও বিষাদ সত্ত্বেও রবীন্দ্রনাথের সৃজনশীল কাজ-কর্ম, চিন্তার তীক্ষ্নতা অথবা মানুষের সঙ্গে যোগাযোগ বা তাদের প্রতি সহমর্মিতা থেমে থাকেনি, কমে যায়নি। প্রিয়জনের মৃত্যুজনিত যন্ত্রণা যত তীব্রই হোক, মৃত্যুকে তিনি সবসময় জীবনের-ই অবধারিত একটি অধ্যায়_ একটি সমপ্রসারণ বা বিস্তার, অর্থাৎ একটি বিশেষ পর্ব বা পর্যায় বলে মেনে নিয়েছিলেন। তাই মৃত্যুকে কখনো রবীন্দ্রনাথ সেই সুযোগ দেননি যাতে তা জীবনকে স্থবির করে দিতে পারে, করণীয় কাজ বা কর্তব্যকে থামিয়ে দিতে পারে, কিংবা পারে তাঁকে জীবন-বিমুখ করে তুলতে।

এছাড়া, মানবিক মৃত্যু যা জীবনের ধারাবাহিকতার-ই অনিবার্য এক পরিণতি বলতে ব্যক্তি-মানুষের সম্পূর্ণ নিঃশেষ ও বিলীন হয়ে যাওয়া কক্ষনো মনে করতেন না তিনি। রবীন্দ্রনাথ বলেছেন, ফবধঃয রং হড়ঃ বীঃরহমঁরংযরহম ঃযব ষরমযঃ; রঃ রং ড়হষু ঢ়ঁঃঃরহম ড়ঁঃ ঃযব ষধসঢ় নবপধঁংব ঃযব ফধহি যধং পড়সব. মৃত্যুকে তিনি জন্মের মতোই জীবনের আর একটি পর্যায় বলে গ্রহণ করেছিলেন, ফবধঃয নবষড়হমং ঃড় ষরভব ধং নরৎঃয ফড়বং. কনিষ্ঠ পুত্র শমি এক বিয়েতে নেমতন্ন খেতে গিয়ে অকস্মাৎ কলেরায় মারা গেলে তাকে দাহ করিয়ে রবীন্দ্রনাথ যখন একা ট্রেনে করে কলকাতা ফিরছিলেন, হঠাৎ খোলা জানালা দিয়ে বাইরে তাকালে দেখতে পেলেন, আকাশে বিশাল গোলাকার এক চাঁদ উঠেছে। জ্যোৎস্নায় চরাচর ভেসে যাচ্ছে। শোকাতুর মনের এই গভীর যন্ত্রণার মুহূর্তেও প্রকৃতির এই অপরূপ সৌন্দর্য অবলোকন করে মুগ্ধ হতে পেরেছিলেন তিনি। এ সম্পর্কে কন্যা মীরা দেবীকে এক বিস্তৃত চিঠিও লিখেছিলেন ট্রেনের কামরায় বসেই। তাঁর পক্ষেই তাই বলা সম্ভব, ওভ ুড়ঁ পৎু নবপধঁংব ঃযব ংঁহ যধং মড়হব ড়ঁঃ ড়ভ ুড়ঁৎ ষরভব, ুড়ঁৎ ঃবধৎং রিষষ ঢ়ৎবাবহঃ ুড়ঁ ভৎড়স ংববরহম ঃযব ংঃধৎং. বলা সম্ভব, মরণরে, তুঁহু মম শ্যাম সমান। প্রিয়জনের মৃত্যুজনিত শোক ধারণ, বহন ও সহন ক্ষমতা অর্জনের জন্যে আমরা তাই বারে বারে রবীন্দ্রনাথকে স্মরণ করি।

এককথায়, আধুনিকমনষ্ক ও যুক্তিবাদী হয়ে গড়ে উঠতে, নান্দনিক দৃষ্টিভঙ্গি ও রুচি নির্মাণে, অর্থাৎ সুন্দর করে পোশাক পরতে, কথা বলতে, গান বা আবৃত্তি করতে, ঘর সাজাতে, বিভিন্ন মিষ্টি ও রকমারি খাদ্য প্রস্তুত, বণ্টন ও গ্রহণে, এবং সামগ্রিকভাবে সমাজের উন্নয়নে আমরা রবীন্দ্রনাথ ও তাঁর পরিবারের কয়েকজন সদস্যের কাছে প্রতিনিয়ত শিক্ষা গ্রহণ করি। তিনি যে লিখিত বাংলা ভাষাকে, বিশেষ করে বাংলা গদ্যকে এক লাফে আমাদের মুখের ভাষার কাছাকাছি এনে দিয়েছেন, বাংলা ভাষাকে পরিণত, নিয়মতান্ত্রিক ও সমসাময়িক অন্যান্য উন্নত ভাষার সমকক্ষ করে গড়ে তুলেছেন, বাংলা সাহিত্যকে আধুনিক করে তুলেছেন, বিশেষ করে বাংলা ছোটগল্পের নতুন দিকনির্দেশনা দিয়েছেন, সে সম্পর্কে কোন সন্দেহ নেই। জীবনের অনিবার্য ও গুরুত্বপূর্ণ সকল ঘটনা, সম্পর্কের দোলাচল এবং বিভিন্ন ধরনের আবেগ-অনুভূতি ও টানাপোড়েন মেনে নিয়েও সুস্থিরভাবে মানব কর্তব্য ও দায়িত্ব পালন করে যাওয়া সম্পর্কে সজাগ থাকতেও আমরা শিক্ষা নিই রবীন্দ্রনাথের কাছেই।

তবে যত বিশাল-ই হোক তাঁর ব্যক্তিত্ব, আর যত প্রশস্ত-ই হোক তাঁর চলাচলের ব্যাপ্তি, রবীন্দ্রনাথও তো ছিলেন একজন মানুষই, দেবতা বা অলৌকিক কোন শক্তি তো নন! ফলে সর্বক্ষেত্রে, সর্বাংশে, সম্পূর্ণ নিখুঁত একটি চরিত্র হিসেবে তাঁকে আশা বা কল্পনা করা আমাদের উচিত হবে না। একজন মানুষের কাছে, যত বড়মাপের-ই হোন না কেন তিনি, সেটা অন্যায় দাবি করা হবে। তিনি তাঁর চলার পথে হরদের বদ্ধ জলাধারের মতো কখনো স্থির হয়ে থেমে থাকেননি। স্রোতস্বিনীর মতো নিরবধি বয়ে গেছেন সামনের দিকে।

সংস্কারে আবদ্ধ জীর্ণ পুরাতনকে বর্জন বা পরিত্যাগ করে নতুনকে স্বাগত জানাতে। তাঁর এই নিরন্তর চলা ও স্বচ্ছ গতির জন্যে মাঝে মাঝে বাঁক পরিবর্তনের প্রয়োজন ছিল, কেননা, সমাজ ও সংস্কৃতিকে এগিয়ে নিয়ে যাবার দুরূহ কাজটি স্বেচ্ছায় তিনি তাঁর ঘাড়ে তুলে নিয়েছিলেন। ফলে বিভিন্ন সময়ে লেখা বা বলা তাঁর কিছু উদ্ধৃতি বা কর্মপ্রণালী বিচ্ছিন্নভাবে তুলে ধরে বিচার করলে অথবা প্রাসঙ্গিকতা অগ্রাহ্য করে সেগুলোর পারস্পরিক তুলনা করলে কখনো কখনো তাঁর সৃষ্টি বা কর্মে কিছু কিছু বৈপরীত্য ও তারতম্য লক্ষ্য করা যেতে পারে। এতে অবাক হবার কিছু নেই।

রবীন্দ্রনাথকে বুঝতে হলে, তাঁর সমালোচনা করতে গেলে, তাঁর পুরো জীবন ও কর্মের ধারাবাহিকতা অনুসরণ করতে হবে, অন্তরে ধারণ করতে হবে সেই সময়কার সামাজিক ও পারিপাশ্বর্িক বাস্তবতা আর সীমাবদ্ধতার কথা। তারপর এই সমস্ত কিছুর পরিপ্রেক্ষিতে সামগ্রিকভাবে তুলনা কিংবা বিচার করতে হবে তাঁর সকল কর্ম, সৃষ্টিঁ ও বক্তব্যকে। তাঁর জীবদ্দশায় ভারত উপমহাদেশের সেই সঘন ক্রান্তিকাল, সাম্রাজ্যবাদের দাপট ও ক্রমশ ভাঙ্গন, সমাজ ও রাজনৈতিক পট পরিবর্তনের সুদীর্ঘ ও বন্ধুর পথ, সশস্ত্র ও অহিংস আন্দোলনের সেইসব উথালপাথাল দিন, দ্রুত পরিবর্তনশীল সামাজিক মূল্যবোধ ও সমাজ কাঠামোর অবয়ব, প্রথম বিশ্বযুদ্ধের ভয়াবহতা এবং দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সূচনায় সারা পৃথিবী জুরে তোলপাড়, এসব কোন কিছুই ভুলে গেলে চলবে না।

রবীন্দ্রনাথের বিভিন্ন সুকুমার গুণাবলী ও সামাজিক স্তরে বহুমাত্রিক মৌলিক অবদানের প্রসঙ্গে কথা বলতে গিয়ে প্রায়শঃই আমরা তাঁর রাজনীতি সচেতনতার কথা উল্লেখ করতে ভুলে যাই। এক অবিবেচক ইংরেজ অফিসারের নিষ্ঠুর আদেশে অবিভক্ত ভারতের অন্য এক প্রান্তে, জালিওয়ানাবাগে, নির্দোষ অসহায় শত শত ভারতীয়কে নির্মমভাবে হত্যা করার প্রতিবাদে ইংল্যান্ডের সর্বোচ্চ সম্মানীয় উপাধি নাইটহুড-ই শুধু পরিত্যাগ করেননি তিনি, আরো বহুভাবে, তাঁর অসংখ্য সৃষ্টি ও কর্মে তিনি দেশের পরাধীনতার অবসান দাবি করেছেন।

কিন্তু তা সত্ত্বেও বিজ্ঞান-মনষ্ক রবীন্দ্রনাথ গান্ধীর চড়কা দিয়ে দেশি কাপড় বোনার আন্দোলনের অসারতা, এর সময়-অনুপযোগিতা ও অবাস্তবতার সমালোচনা করতে পিছপা’ হন নি। কিংবা, বিহারের সেই ভয়ঙ্কর ভূমিকম্পকে গান্ধী যখন অস্পৃশ্যদের প্রতি উঁচুবর্ণের হিন্দুদের অন্যায় ও অমানবিক আচরণের অভিশাপ বলে উল্লেখ করে বসেন, কঠিন ভাষায় রবীন্দ্রনাথ গান্ধীর এই কুসংস্কারাচ্ছন্ন মন্তব্যের কড়া প্রতিবাদ ঠিকই করেছিলেন, যদিও গান্ধীর মতোই তিনিও বর্ণপ্রথা এবং উঁচুবর্ণের হিন্দুদের এই ধরনের নিষ্ঠুর রীতিনীতিকে ভীষণ ঘৃণা করতেন।

কিন্তু একটি প্রবল ভূমিকম্পে অসংখ্য নির্দোষ, অসহায়, নরনারী-শিশুর মৃত্যুকে অন্য কারোর অন্যায় আচরণ বা দুষ্কর্মের অভিশাপ বলে মেনে নিতে যুক্তি-নির্ভর, বিজ্ঞান-মনষ্ক রবীন্দ্রনাথের আপত্তি ছিল, বয়সে যদিও তিনি গান্ধীর চাইতে কিছুটা বড়-ই ছিলেন, এবং ভারতের রাজনীতির নেতৃত্বে গান্ধীর জনপ্রিয়তা, এবং তাঁর ভূমিকা ও অবদানকে তিনি মেনেও নিয়েছিলেন। সেটা মেনে নিয়েছিলেন বলেই গান্ধীকে লেখা তাঁর চিঠিতে তিনি সকাতরে জানিয়েছিলেন মুসলমান ও অস্পৃশ্যদের প্রতি উঁচু বর্ণের হিন্দুদের আচরণ ও দৃষ্টিভঙ্গি পরিবর্তনের আশু প্রয়োজনীয়তার কথা এবং সেই সঙ্গে অনুরোধ করেছিলেন তাঁদের প্রাপ্য মানবিক ও রাজনৈতিক অধিকার প্রদানের ব্যাপারে গান্ধীর তরফ থেকে বাস্তবসম্মত কিছু পদক্ষেপ গ্রহণ করার জন্যে। তিনি নির্দ্বিধায় জনগণের ওপর গান্ধীর আধিপত্য মেনে নিয়েছিলেন, আর তাই বুঝতে সক্ষম হয়েছিলেন যে এই ব্যাপারে একমাত্র গান্ধীই পারেন একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করত, কারণ সাধারণ জনগণের ওপর গান্ধীর সেই অবিশ্বাস্য প্রভাব রয়েছে।

গান্ধীর নেতৃত্বে বিশ্বাস ছিল বলেই এরকম একটি মৌলিক ও দুরূহ কাজের দায়িত্ব তিনি গান্ধীকে গ্রহণ করতে বিশেষভাবে অনুরোধ করেছিলেন। এই কাজটি না করলে ভারতকে একত্রে ধরে রাখা যে সম্ভব হবে না সেটি চিত্তরঞ্জন দাসের মতোই রবীন্দ্রনাথ ভালো করেই বুঝতে পেরেছিলেন। বলাবাহুল্য, গান্ধী রবীন্দ্রনাথের এই দূরদৃষ্টিসম্পন্ন পরামর্শ বা উপদেশ যথেষ্ট গুরুত্বের সঙ্গে গ্রহণ করেননি এবং এ ব্যাপারে উল্লেখযোগ্য কোন পরিকল্পনা বা কর্মপন্থাও হাতে নেননি। নিলে দেশভাগ, সামপ্রদায়িক দাঙ্গা, অজগ্র নিরপরাধ মানুষের অপমৃত্যু, সহস্র গৃহহারা লোকের অপরিসীম যন্ত্রণা-কষ্ট, দেশত্যাগ, ভগ্ন সংসার, উদ্বাস্তু-শরণার্থীর প্রকট দুরবস্থা, নানান পর্যায়ে ঐ অঞ্চলের ভিন্ন ভিন্ন স্থানে সন্ত্রাসের উন্মেষ ও বিস্তার ইত্যাদি বিভিন্ন সমস্যা থেকে উত্তরণ সম্ভবপর হতো কিনা, বা হলে কতখানি হতো, তা আর আজ এই সম্পূর্ণ পরিবর্তিত অবস্থায় কল্পনা করা সহজ নয়।

কোন সৎ ও সাহসী জনহিতকর কর্মে ঝাঁপিয়ে পড়ার সময় সহযোদ্ধা বা সঙ্গী হিসেবে কাউকে সঙ্গে না পেলে নিরুৎসাহিত হবার আগে তাঁর কাছেই আবার ফিরে যাই আমরা শক্তি ও অনুপ্রেরণা সংগ্রহ করার আশায়, যদি তোর ডাক শুনে কেউ না আসে, তবে একলা চল রে। রবীন্দ্রনাথের গান গেয়ে, এবং তাঁর কবিতা ও সংগীত মন্ত্রের মতো উচ্চারণ করে (যেমন, বাংলার মাটি, বাংলার জল) বিংশ শতাব্দির গোড়ার দিকে ইংরেজদের দ্বারা দ্বিখ-িত বাংলাকে পুনরায় জোড়া লাগিয়ে একবার বঙ্গভঙ্গ রোধ করতে সফল হয়েছিল বাঙালি।

হিন্দু-মুসলমান পরস্পরের হাতে রাখি বেঁধে নিজেদের মধ্যে ভ্রাতৃত্ব, একাত্মতা ও অখ-তা ঘোষণা করেছিল সেদিন স্বয়ং রবীন্দ্রনাথের-ই প্রেরণায়। দ্বিতীয়বার বাংলা-ভাগের সময় অর্থাৎ সাতচলি্লশের দেশভাগের সময় রবীন্দ্রনাথ বেঁচে ছিলেন না। তবে, একাত্তরে বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধেও বাঙালিরা ঝাঁপিয়ে পড়েছিল রবীন্দ্রনাথের সোনার বাংলার স্বপ্নে বিমোহিত হয়েই। মুক্তিযোদ্ধাদের প্রতিদিন রণকৌশল রপ্ত করার সময়, সম্মুখ যুদ্ধক্ষেত্রে কঠিন সংগ্রামকালে, এমনকি প্রতিটি বাঙালির, বাংলাদেশ-বাসীর গৃহে, প্রতিটি অন্তরে-প্রান্তরে সেই স্বপ্নের বাণী, চিরদিন তোমার আকাশ তোমার বাতাস আমার প্রাণে বাজায় বাঁশি ক্রমাগত উচ্চারিত ও ধ্বনিত হয়েছিল। আর তাই স্বাধীনতার পরবর্তীকালে সেই সংগীতকেই দিয়েছে তারা জাতীয় সংগীতের মর্যাদা।

তবে রবীন্দ্রনাথ কেবল বাংলাদেশের জাতীয় সংগীত রচয়িতাই নন, আমরা সবাই জানি, তিনি আরেকটি দেশের-ও জাতীয় সংগীতের রচয়িতা, আর সেটি হলো, বহু-ভাষার দেশ ভারত যার রাষ্ট্র ভাষা হিন্দি। কিন্তু যে সংবাদটা আজো বেশিরভাগ লোকের কাছেই অজানা সেটা হলো, শ্রীলঙ্কার জাতীয় সংগীতের প্রথম ও মূল গানখানির কথাও রবীন্দ্রনাথেরই লেখা। শ্রীলঙ্কা থেকে বিশ্বভারতীতে রবীন্দ্রনাথের কাছে পড়তে আসা তাঁর ছাত্র আনন্দ সমরকুনের অনুরোধে রবীন্দ্রনাথ শ্রীলঙ্কার জন্যে বাংলায় একটি দেশাত্মবোধক গান রচনা করেছিলেন।

পরে ১৯৩৯-৪০ এর দিকে আনন্দ সেই গানখানি-ই সিংহলী ভাষায় অনুবাদ করেন_ যা স্বাধীনতার পর শ্রীলঙ্কার জাতীয় সংগীত হিসেবে নির্বাচিত হয়। ভাবতে অবাক লাগে, এই তিনটি দেশই স্বাধীনতা অর্জন করেছে রবীন্দ্রনাথের মৃত্যুর বেশ কয়েক বছর পরে। কিন্তু তাঁর অন্তর্ধান দক্ষিণ এশিয়ার এই তিন তিনটি স্বাধীন সার্বভৌম রাষ্ট্রে, যথাসময়ে, তাঁর লিখিত গান বা কবিতার রাষ্ট্রীয় সংগীতের মর্যাদা পেতে কোন অন্তরায় হয়ে দাঁড়ায়নি। পৃথিবীর অন্য কোন ব্যক্তির জীবনে এমন দুর্লভ সম্মান-প্রাপ্তি ঘটেছে বলে শোনা যায় না। এই তিন দেশের বৈচিত্র্যময় ১৫০ কোটি মানুষের মধ্যে যে যেই ভাষাতেই কথা বলুক, যে যেই বর্ণের লোক-ই হোক, যে যে-কোন ধর্মে বিশ্বাসী অথবা অবিশ্বাসী হোক, যে যে-কোন অঞ্চলের অধিবাসীই হোক, প্রত্যেকের মুখেই জীবনের কোন না কোন সময় উচ্চারিত হয় তার সবচেয়ে প্রিয় দেশাত্মবোধক সংগীত_ তার নিজভূমির মাঙ্গলিক উচ্চারণ জাতীয় সংগীত, যার প্রতিটির স্রষ্টা একই বাঙালি কবি_ অদ্বিতীয় রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর, যিনি সাহিত্যক্ষেত্রে সমগ্র পৃথিবীতে প্রথম নন-ইউরোপিয়ান নোবেল বিজয়ী।

সংবাদ

Leave a Reply