হারিয়ে যাচ্ছে ঠুক্কু শাপ

thukkuপ্রযুক্তির কড়াল গ্রাসে ও যৌন উত্তেজনা বর্ধক ওষুধ তৈরির জন্য ব্যাপক হারে ঠুক্কু শাপ ধরা পড়ায় কালের আবর্তে হারিয়ে যাচ্ছে বিরল প্রজাতির এই শাপ। বহুদিন আগে সিরাজদিখান উপজেলার রামানন্দ মসজিদে ২০০ গ্রাম ওজনের একটি ঠুক্কু ও দুদিন আগে তার সমপরিমাণ ওজনের আরেকটি ঠুক্কু আবিরপাড়া গ্রামের জাহাঙ্গিরের মাধ্যমে ধরা পড়েছে। স্থানীয়ভাবে ঠুক্কু বিভিন্ন নামে পরিচিত। যেমন-হক্কেং, টুট্টেং, টক্ক ও ঠুক্কু। রাতারাতি ধনী হওয়ার স্বপ্নে বিভোর সিরাজদিখানের উঠতি বয়সের যুবকেরা অনেকেই ছুটছে ঠুক্কুর পেছনে, সংগ্রহও করছে।

স্থানীয় প্রভাবশালী অনেকেই এব্যবসার সাথে জড়িত। এ ব্যবসার সঙ্গে জড়িত কেউ ঠুক্কুর বিষয়ে বিস্তারিত বলতে রাজি হননি। কেউ বলছেন যৌন উত্তেজনা বর্ধক ওষুুধ তৈরী করা হয় বলে তারা শুনেছেন। কেউ বলছেন, ক্যান্সার নিরাময়ে ওষুধ তৈরি হয় আবার কেউ বলছেন, বিদেশে নিয়ে মানুষের আয়ু বাড়ানোর ওষুধ তৈরি করা হয়। জানা যায়, জীবিত অবস্থায় একটি ঠুক্কুর ওজন ৩০০ গ্রাম হলে স্থানীয়ভাবে বিক্রি হয় ১৫-১৬ লক্ষ টাকা আর ৪০০ গ্রাম হলে দাম ৫০ লক্ষ টাকা। ২০০ গ্রাম ওজন হলে ১৫-২০ হাজার টাকায় বিক্রি হয়।
thukku
সিরাজদিখান উপজেলার ঠুক্কুর তথ্য সরবরাহকারী দুই যুবক আবির পাড়ার সৈকত (২০) ও কমলাপুরের রিফাতের (২১) সাথে কথা বলে জানা যায়, তারা এটির জন্য দীর্ঘদিন অপেক্ষা করে আসছে। তারা আরো জানান, ঠুক্কু বিভিন্ন ঝোপ-ঝাড়, বন-জঙ্গল ও পুরাতন দেয়ালে পাওয়া যায়। আইএফসি বাংলাদেশ নদী ও পরিবেশ কমিটি মুন্সিগঞ্জ জেলা শাখার প্রচার ও যোগাযোগ সম্পাদক ইকবাল হোছাইন ইকু জানান, এভাবে বিলুপ্ত প্রায় ঠুক্কু শাপ ধরতে থাকলে একদিন এই উপকারি শাপটি আমাদের প্রকৃতি থেকে হারিয়ে যাবে। তিনি আরো জানান, অতি সত্তর যদি প্রশাসন এর ব্যবস্থা গ্রহণ না করেন তাহলে আমাদের প্রকৃতি ও পরিবেশের বিরুপ প্রভাব ফেলবে তাতে কোন সন্দেহ নেই।

মুন্সিগঞ্জেরকাগজ

Leave a Reply