মাওয়া ও কাওড়াকান্দি এখন কর্মব্যস্ত

mawa14পদ্মাসেতু প্রকল্প
বহু কাঙ্খিত পদ্মাসেতু প্রকল্পের নির্মাণ কাজ দ্রুত গতিতে অব্যাহত থাকায় মুন্সীগঞ্জের লৌহজংয়ের মাওয়া ও মাদারীপুরের কাওড়াকান্দি এলাকায় এখন কর্মব্যস্ততার মিলনমেলায় রূপ নিয়েছে। পদ্মাসেতুর নির্মাণ কাজ নিয়ে এ পরিস্থিতির সৃষ্টি হওয়ায় পদ্মার উভয়পাড়ে কোলাহল বৃদ্ধি পেয়েছে।

এছাড়া সেনাবাহিনীর ইঞ্জিনিয়ারিং কোরের সদস্য, পদ্মাসেতু প্রকল্পের কর্মকর্তা-কর্মচারী, বিভিন্ন প্রকল্পের ঠিকাদার ও নির্মাণ শ্রমিকদের কর্মব্যস্ততায় দক্ষিণাঞ্চলের ২১ জেলার ৫ কোটি জনগণের দীর্ঘ প্রত্যাশিত পদ্মাসেতু প্রকল্পের এখন মূল সেতুর নির্মাণের কাজ চূড়ান্ত পর্যায়ের দিকে এগুচ্ছে।

সরেজমিন মাওয়া ও কাওড়াকান্দি এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, পদ্মাসেতু প্রকল্পের অনুসাঙ্গিক কাজ দ্রুত সম্পন্ন করতে সেনাবাহিনীর ইঞ্জিনিয়ারিং কোরের সদস্য, পদ্মাসেতু প্রকল্পের কর্মকর্তা-কর্মচারী, বিভিন্ন প্রকল্পের ঠিকাদার ও নির্মাণ শ্রমিকদের চলছে ব্যাপক কর্মযজ্ঞ।

সেতুর অ্যাপ্রোচ সড়ক নির্মাণ কাজ ও তীর রক্ষা বাঁধ, নদী শাসনসহ ব্যবস্থা কাজে সকাল থেকে রাত পর্যন্ত কর্মব্যস্তত সংশ্লিষ্ট সবাই।

সেনাবাহিনীর তত্ত্বাবধানে জিও ব্যাগ ভর্তি বালু নদীতে ফেলার কাজ করছে শত শত মানুষ। প্রায় ১শ’ ২০ কোটি টাকা ব্যয়ে পানি উন্নয়ন বোর্ডের নকশা অনুযায়ী ১৩শ’ মিটার দৈর্ঘ্যরে এ নদী শাসন প্রকল্পের কাজ করছে সেনাবাহিনী। এরই মধ্যে ৮৫ ভাগ কাজ সম্পন্ন হয়েছে বলে জানা গেছে।
mawa14
অন্যদিকে মাওয়া ফেরিঘাট শিমুলিয়ায় স্থানান্তরসহ আড়াই কিলোমিটার সড়ক নির্মাণের কাজও দ্রুত গতিতে এগিয়ে নিচ্ছেন সেনাবাহিনীর ইঞ্জিনিয়ারিং কোরের চৌকস সদস্যরা। এছাড়া মাওয়া চৌরাস্তা থেকে দোগাছি পর্যন্ত সেতুর অ্যাপ্রোচ সড়ক নির্মাণের কাজও একই সঙ্গে এগিয়ে চলছে। মূল সেতুর কাজ শুরুর আগেই এসব কাজ শেষে করা যাবে বলে আশা করছে সংশ্লিষ্টরা।

পদ্মাসেতু প্রকল্প সূত্র জানায়, নদী শাসনের জন্য পদ্মাসেতু প্রকল্পের অওতায় আরো ৭ হাজার কোটি টাকার টেন্ডার আহ্বান প্রক্রিয়াধীন। পদ্মাসেতুর প্রকল্পের জন্য নদী শাসনের কাজকে বেশি গুরুত্ব দেওয়া হচ্ছে। এজন্য আগামী ২৯ মে প্রকল্পের নদী শাসনের কাজের আর্থিক প্রস্তাব দাখিল করবে ৪টি প্রতিষ্ঠান।

জানা গেছে, পদ্মাসেতু প্রকল্প বর্তমান আওয়ামী লীগ সরকারের অগ্রাধিকার প্রকল্প হওয়ায় তা দ্রুত সময়ের মধ্যে বাস্তবায়নের লক্ষে যোগাযোগমন্ত্রী, পরিকল্পনামন্ত্রী, নৌপরিবহন মন্ত্রী ও স্থানীয় সংসদ সদস্যসহ শীর্ষ পর্যায়ের কর্মকর্তারা ঘন ঘন মাওয়া ও কাওড়াকান্দি প্রান্ত সরেজমিন পরিদর্শন করে কাজের তদারকি ও গুণগত মান যাচাই বাছাইয়ের ওপর গুরুত্ব দিচ্ছেন।

আর কাজের কাঙ্খিত অগ্রগতির কারণেই জুনের প্রথম সপ্তাহে মূল সেতুর কার্যাদেশ দেওয়া হচ্ছে। এ অবস্থায় স্বপ্নের পদ্মাসেতুর নির্মাণ কাজ বাস্তবে রূপ নেওয়ার যে পরিবেশ তৈরি হয়েছে তাতে দক্ষিণাঞ্চলের ২১ জেলা মানুষসহ খুশি পদ্মাপারের মানুষ।

মুন্সীগঞ্জ-২ আসনের সংসদ সদস্য ও সাবেক হুইপ অধ্যাপিকা সাগুফতা ইয়াসমিন এমিলি জানান, পদ্মাসেতুর মূলকাজ শুরু হবে মাওয়া চৌরাস্তা বরাবর বর্তমান ঘাট এলাকা দিয়ে। যেহেতু দ্রুতই পদ্মাসেতুর কাজ শুরু হচ্ছে, তাই বর্তমান মাওয়া ফেরিঘাটকে জরুরি ভিত্তিতে কুমারভোগের শিমুলিয়া বাজারের কাছে সরিয়ে নেওয়া হচ্ছে।

তিনি আরও জানান, মাওয়া ফোরিঘাটকে স্থায়ীভাবে স্থাপন করতে বর্তমান ঘাট থেকে আরো পূর্ব দিকে কান্দিপাড়ায় সরিয়ে নেওয়ার পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে। এ স্থায়ী ঘাট নির্মাণ করতে প্রায় ১ বছর সময় লাগবে।

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর

Leave a Reply