পেট কেটে লাশ ভাসানো চলবে না

pet‘আমাদের লাশ চাই। পেট কেটে নদীতে ভাসানো চলবে না।’ এভাবেই ক্ষুব্ধ স্বজনরা উত্তাল হয়ে ওঠেন। শুক্রবার দুপুর আড়াইটায় দুর্ঘটনাস্থলে আসেন নারী সংসদ সদস্য ফজিলাতুন্নেসা ইন্দিরা। তাকে পেয়েই স্বজনদের আক্ষেপ যেন বেড়ে যায়। ঘিরে ধরে স্বজনরা জানতে চায় উদ্ধারকাজে ধীরগতির কারণ।

কিন্তু তাদের কোনো কথার উত্তর দেননি ইন্দিরা। সবাইকে এড়িয়ে নৌকায় চড়ে উদ্ধারকারী জাহাজের দিকে পা বাড়ান। এতে স্বজনদের ক্ষোভ আরও বেড়ে যায়। প্রতিবাদ জানাতে ছুটে আসে স্থানীয় প্রশাসনের দিকে। এসময় গজারিয়া উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা ড. এটিএম মাহবুবুল করিমকে ঘিরে ধরেন তারা।

এসময় তিনি স্বজনদের শান্ত্বনা জানিয়ে বলেন, ‘আমরা উদ্ধারের সর্বোচ্চ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি। আপনারা ধৈর্য ধরেন। শীঘ্রই রেজাল্ট পাবেন।’

কিন্তু ক্ষুব্ধ স্বজন এমন আশ্বাসে শান্ত হতে পারেননি। তারা উল্টো প্রতিবাদ জানিয়ে বলেন, সকাল থেকেই উদ্ধারে গড়িমসি করা হচ্ছে। আমাদের স্বজনদের লাশগুলো ফেরত দিতে হবে।’

লঞ্চে আটকেপড়াদের মরদেহ কেটে কেটে নদীতে ভাসিয়ে দেয়া হচ্ছে বলেও অভিযোগ করেন স্বজনরা।

বেলা ৩টা পর্যন্ত ২৮টি মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে বলে পুলিশ সূত্রে জানা গেছে। সর্বশেষ উদ্ধার হওয়া মরদেহটি আব্দুল কাদেরের (৬৫)। তার বাড়ি চাঁদপুর জেলায়।

বাংলামেইল

Leave a Reply