কিভাবে ফিটনেসবিহীন লঞ্চ চালানোর অনুমতি পায় সেটা বিস্ময়কর ব্যাপার

Miraz161মেঘনায় লঞ্চডুবি
সারি সারি লাশ। শিশু, তরুণ ও বয়স্ক মানুষের। মনে হয় ঘুমিয়ে আছে। সময় যাচ্ছে আর সারি বাড়ছে। বাড়ছে মানুষের আহাজারি। এই লাশের সারি মুন্সীগঞ্জ মেঘনা নদীর মর্মান্তিক লঞ্চডুবির। জানা গেছে, লঞ্চটি সফর ঢাকার সদরঘাট থেকে গন্তব্যে পৌঁছার পথে মুন্সিগঞ্জের গজারিয়ায় মেঘনা নদীতে ঝড়ের কবলে পড়ে। এই দুর্ঘটনায় ইতিমধ্যে ৫৫টি লাশ উদ্ধার করা হয়েছে, এবং এখনও অনেকে নিখোজ। এই লঞ্চডুবির ঘটনা যখন ঘটল তার এক সপ্তাহ আগে পালিত হলো নৌ-নিরাপত্তা দিবস। নৌযান ও নৌপথে চলাচলকারী যাত্রীদের নিরাপদ চলাচল নিশ্চিত করে নৌযান শিল্পের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট সকলকে সচেতন করতেই পালন করা হয় এই নৌ-নিরাপত্তা দিবস।

দেশে নৌপথগুলো এমনিতে খুব একটা নিরাপদ নয়। কেননা নৌপথে আগে দেখা যেত দিকনির্দেশনাকারী ‘বিকন’ লাইট। এখন ‘বিকন’ লাইট খুব একটা চোখে পড়ে না। নেই সুষ্ঠু পর্যাপ্ত নৌ-ট্রাফিক ব্যবস্থাও। তার সঙ্গে যুক্ত হয়েছে ফিটনেসবিহীন লঞ্চ, অদক্ষ চালক দিয়ে লঞ্চ চালানোর বিষয়টি। রয়েছে ধারণ ক্ষমতার তুলনায় অতিরিক্ত যাত্রী নেয়ার বিষয়টি। মেঘনার গজারিয়ায় ডুবে যাওয়া লঞ্চটিতেও ধারণ ক্ষমতার তুলনায় অনেক বেশি যাত্রী বেশি ছিল। নৌ-রুটগুলো নিরাপদ করতে হবে। এর জন্য পর্যাপ্ত বিকন লাইট, নদী ড্রেজিং, নদী ভাঙ্গনরোধসহ লঞ্চগুলোকে ফিটনেসযুক্ত ও দক্ষ চালক দিয়ে চালানোর ব্যবস্থা করতে হবে। এছাড়া প্রতিটি লঞ্চে থাকতে হবে পর্যাপ্ত পরিমাণ লাইফ বোটসহ জীবন রক্ষাকারী সরঞ্জাম।

কিভাবে ফিটনেসবিহীন লঞ্চ চালানোর অনুমতি পায় সেটা বিস্ময়কর ব্যাপার। দক্ষতার ভিত্তিতেই লঞ্চ চালকের লাইসেন্স দেয়া উচিত। লঞ্চডুবির মানবসৃষ্ঠ কারণগুলো আগে অনুধাবন করে ব্যবস্থা নিতে হবে। লঞ্চ চলাকালে প্রাকৃতিক দুর্ভোগের আভাস সম্পর্কে সতর্কদৃষ্টির বিষয়টিও চালককে গুরুত্ব দিতে হবে ।

জনকন্ঠ

Leave a Reply