মুন্সীগঞ্জে ক্রীড়াবিদ সৃষ্টি না হওয়ার নেপথ্যে!

stadiumমীর নাসিরউদ্দিন উজ্জ্বল: বড় মাঠ! মুন্সীগঞ্জের ক্রীড়াঙ্গনের প্রাণ কেন্দ্রের নাম এটি। সভ্যতার জনপদ বিক্রমপুর তথা মুন্সীগঞ্জে নামটি আশির দশক পর্যন্ত ছিল সকলের মুখে মুখে। যে ‘বড় মাঠ’ সৃষ্টি করেছিল দেশ কাপানো ক্রীড়াবীদদের, বর্তমান প্রজন্মের কাছে সেটি স্টেডিয়াম। ‘৯৩ সালে বড় মাঠের ওপর জুড়ে বসে স্টেডিয়াম। এরই সাথে বিলুপ্ত ঘটে বড় মাঠের, পরিচিতি পায় স্টেডিয়াম। বর্তমানে স্টেডিয়ামের ভেতরে এই মাঠের ব্যাসার্ধ ১ হাজার ৪শ’ ২০ মিটার।

তবে মূল মাঠের একটি অংশ পূর্ব পাশের স্টেডেয়িামের বাইরে পড়ে আছে অকেজো হয়ে। মাঠের এই অংশটি এখন একবারেই অলস। ব্যবহার না হওয়ায় ঘাস আর ময়লা আর্বজনার স্তুপ। যে নামেই ডাকা হউক না কেন এই মাঠ কালের স্বাক্ষী। বরণ্যেসব ক্রীড়াবীদদের বিচরণ ভূমি ছিল এটি।

তখন রাজধানীর কাছের ক্রীড়াউপযোগী এই মাঠে দেশের গুরুত্বপূর্ণ টুর্নামেন্ট ছাড়াও বহু চ্যারাটি ম্যাচ হয়েছে। আর দেশী-বিদেশী নামী দামী খেলোয়ার ও ক্রীড়ামোদীদের কলরবে ছিল মুখোরিত। এই মাঠে ফুটবলের স্বর্ণযুগ ’৮০, ’৮২ ও ’৮৩ সালে পর তিন বছর বাংলাদেশের আলোচিত ‘কালিপদ দাস স্মৃতি ফুটবল টুর্নামেন্টে’ সারা জাগিয়েছিল। ঢাকার মোহামেডান, ওয়ান্ডার্স, ওয়ারী ও ভিক্টোরিয়া ক্লাবের ফুল টিম মফস্বলের এই মাঠে খেলেছে। ’৭৮ সালে এশিয়ান গেমসের বাছাই পর্বের অনুর্ধ ১৮ জাতীয় দল প্রদর্শনী ম্যাচও হয় এই মাঠে। দেশের শ্রেষ্ঠ মাঠগুলোর মধ্যে একটি ছিল এটি। এই মাঠের জৌলস এতই ছড়িয়ে ছিল যে দেশের বাইরেও মাঠটি ছিল সমান পরিচিত। আর এই মাঠ ঘিরেই শহরের মাঠপাড়া গ্রামের নামকরণ হয়।

শুধু এই মাঠই নয় ক্রীড়াবীদ সৃষ্টি না হওয়ার পেছনে রয়েছে কুক্ষিগত করার নানাসব ঘটনা। ক্লাব আছে, নেই খেলা, নেই লীগ। আর নামে মাত্র যা হয় তাও ভাড়া করা খোলোয়ার দিয়ে। উৎপত্তিঃ ১৮৮৫ সালে শহরের মুন্সীগঞ্জ হাই স্কুল প্রতিষ্ঠা লগ্ন থেকেই এই মাঠের উৎপত্তি। স্কুলটির যাবতীয় ক্রীড়াকান্ড পরিচালিত হতো এই মাঠে। লেখাপড়ার মতই বিদ্যালয়টিতে শিক্ষার্থীদের খেলাধুলার প্রতিও সমান গুরুত্ব দেয়া হতো। এতে শিক্ষার্থীদের দেহ ও মন দুটোই সুস্থ থাকতো। লেখাপড়ায় সুনামের পাশাপাশি ক্রীড়ায়ও আলোড়ন তুলে। তৎকালীন এই অঞ্চলের জমিদার আক্রামুন্নেছার পরিবারের জমিতে মুন্সীগঞ্জ হাই স্কুল প্রতিষ্ঠিত হয়। স্কুলের জন্য তাই এই মাঠসহ আশপাশের বিপুল পরিমান জমি দান করেন পরিবারটি। শ্বশুরবাড়ির দিক থেকে এই জমিদারী প্রাপ্ত হন আক্রামুন্নেছার স্বামী মোচন মিয়া।

পরে তার ছেলে সৈয়দ মেজবা উদ্দিন জামিদারী প্রাপ্ত হন। তাদের পৃষ্ঠপোষকতা এবং ক্রীড়ামোদের আগ্রহেই মাঠটি এই অঞ্চলের ক্রীড়ার মূল কেন্দ্রে পরিনত হয়। বিকাল হতেই মানুষের বাঁধ ভাঙ্গা ¯্রােত বইতো মাঠ ঘিরে। কেই আসতো খেলতে আর কেউ আসতো খেলা দেখতে। মফস্বল শহরের বিনোদনের মূলেই ছিল এই মাঠ। শিশু, তরুন, যুবক, পৌড় ও বৃদ্ধসহ সব বয়সীরই পদচারনা ছিল এই মাঠে। দিনটিই যেন অপূর্ণ থেকে যেত এখানে সময়কাটাতে না পারলে। মুন্সীগঞ্জ হাই স্কুলের স্থাবর সম্পত্তি হিসাবে ছিল বড় মাঠটির অর্ধেকাংশ। বাকী অর্ধেকাংশ ছিল টাউন কমিটির। টিনের প্যাভিলিয়নঃ বড় মাঠের পূর্বাংশ ছিল হাইস্কুলের মালিকানায়।

আর পশ্চিমাংশ ছিল টাউন কমিটির মালিকানায়। দু’মাঠের মাঝখানেই ছিল টিন কাঠের বিশাল প্যাভিলিয়ন। এই প্যাভিলিয়নের দু’পাশেই টপ বারান্দা আর মাঝখানে কক্ষ। যেখানে খেলোয়ারা পোশাক পরিবর্তনের জন্য ব্যবহার করতেন। উত্তর দক্ষিণে এমনভাবে প্যাভিলিয়নটি ছিল, যে দু’পাশের মাঠেরই খেলা দেখা যেত। ভিআইপ দর্শকরা এই প্যাভিলিয়ন থেকেই খেলা দেখতেন। তবে আগে নানা কারণে হাই স্কুলের অংশেই খেলাধূলা হত বেশী। ইন্টার স্কুলসহ সবধরণের খেলাই চলতো এই মাঠে। হাইস্কুল মাঠের পাশের বর্তমান হরগঙ্গা কলেজের জায়গাটিও ছিল মুন্সীগঞ্জ হাই স্কুলের।

কলেজ প্রতিষ্ঠার স্বার্থে এই জমি কিনেই প্রতিষ্ঠা হয় হরগঙ্গা কলেজ। পরে এই কলেজের শিক্ষার্থীরাও খেলাধূলা করতে হাই স্কুলের এই মাঠে। মোদ্দা কথা এটি ছিল এই অঞ্চলের খেলাধুলার মূল কেন্দ্র। তবে ৬৪ সালের সংস্কার করার কারণে পৌর মাঠটি ভালো হয়ে যায়। এরপর থেকে পৌরসভার মাঠে খেলা হয় বেশী। বর্ষার কারণে তখন মাঠটি তলিয়ে যেত থৈ থৈ পানিতে। তখনও এই প্যাভিলিয়নের গুরুত্ব কিন্তু কমেনি। চাঁদনি রাতে এখানে অনেকেই আড্ডা দিতো। দু’পাশের থৈ থৈ পানির মাঝে প্যাভিলিয়নটি যেন ভাসছিল। এর মাঝে প্রান জুড়ানো বাতাস। এখানে এসে মন ভরে যেত। অনেকে প্যাভিলিয়নে বসে গান করতেন। চাঁদনি রাতে বসত গানের আসর।

এক সময় প্যাভিলিয়নটি নাইট স্কুল হিসাবেও ব্যবহৃত হত। ক্রীড়া সংগঠকগণ সুবিধাবঞ্চিত নিরক্ষদের এই স্কুলে পড়াতেন। মাঠের উন্নয়নঃ পাকিস্তান শাসন আমলে ’৬৭ সালে মাঠে মাটি ভরাট করা হয়। তাও বর্ষার পানি ঠেকানো যায়নি। তখন মহাকুমা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক ছিলেন সেন্টু মিয়া। সরকারি কোন ফান্ড ছাড়াই স্থানীয় ক্রীড়ামোদীদের সহায়তায় প্রথম উন্নয়ন হয় ’৭৩ সালে।

তখন মহকুমা ক্রীড়া সংস্থার সভাপতি ছিলেন মহাকুমা প্রশাসক আব্দুল হালিম। সাধারণ সম্পাদক মাহফুজুর রশিদ নিলু এবং যুগ্ম সম্পাদক ছিলেন মো. ইকবাল হোসেন। হাই স্কুল ও পৌরসভার (টাউন কমিটির) মাঠের মাঝখানে দেয়াল দেয়া হয়। পৌরসভা অংশের মাঠের পশ্চিম সাইডে গ্যালারি এবং অংশ বিশেষ প্যাভিলিয়ন করা হয়। এতে মাঠ সংরক্ষণ ও সহজ হয়। বন্ধ হয় গরু চড়ানো।

তখন রুলার ব্যবহার করে ঠিক রাখা হত মাঠ। ’৮০ দশকে পশ্চিমপাশের গ্যালরি ও প্যাভিলিয়ন আরও প্রসারিত করা হয়। স্টেডিয়ামে রূপান্তরঃ ১৯৯৩ সালে এই মাঠ স্টেডিয়ামে রূপান্তরের কাজ শুরু হয়। পৌরসভার মাঠের সাথে এই স্টেডিয়ার করার জন্য মুন্সীগঞ্জ হাই স্কুলের অধিকাংশ মাঠ দখল করে নেয় স্টেডিয়ামের জন্য। তখনই সকলের প্রিয় বড় মাঠের আকৃতির পরিবর্তন ঘটে। ন্যাচারেল আকৃতি পাল্টে যায়। তখন ক্রীড়ামোদীদের দাবী ছিল ঐতিহ্যবাহী মাঠটি ‘বড় মাঠ’ হিসাবেই থাকুক। সার্কিট হাউজের আশপাশে প্রচুর জায়গা ছিল।

সেখানে স্টেডিয়ামের প্রকল্পটি বাস্তবায়নে দাবী তোলে। কিন্তু সব কিছু উপেক্ষা করে অপরিকল্পিতভাবে স্টেডিয়াম গড়ে তোলা হয়। গ্যালরী, প্যাভিলিয়ন তৈরীও ছিল নি¤œমানের। গ্যালরী যথাযথ না হওয়ায় এগুলোর পেছনের অংশ দোকান হিসাবে ব্যবহার করাও কঠিন হয়ে পড়ে। মাঠের পাশের পুকুর ভরাট করা হয়। যেটি ছিল ক্রীড়াবীদদের গোসল করা ও সাঁতারের প্রিয় স্থান। কিন্তু দক্ষিণ অংশে ও দক্ষিণপূর্ব অংশে গ্যালারিও করা হয়নি। স্টেডিয়াম হলেও নেই মাঠের কোন পরিচর্যা। তাই ঐতিহ্যবাহী মাঠটি এখন আর ক্রীড়াবীদদের কাছে ভালো মাঠ হিসাবে পরিচিত নয়।

এটির গেট আটকে রাখার কারণে উন্মুক্ত খেলাধুলাও বন্ধ হয়ে যায়। শহরে খেলার আর কোন মাঠও নেই। যাঁদের উত্থান ঃ বহু নামীদামী খোলোয়াড়ের স্মৃতি জড়িয়ে আছে এই মাঠ জুড়ে। এই মাঠ জন্ম দিয়েছে বহু জাতীয় ক্রীড়াবীদ। চাল্লিশ থেকে পঞ্চাশের দশকে ফুটবলে মনমথ মুখার্জী, আইজি রকিব খন্দকার, এরপরই কালিপদ ধর, কালিপদ দাস, লোকমান, শীবু, আকরাম, নুরুল ইসলাম অনু মিয়া, নুরুদ্দিন চৌধুরী অনু, আবুল বাশার, পোক্রা দাস (সেন্টু উকিলের চাচা), গোলকীপার সবদর আলী (এ্যাডভোকেট মুজিবুর রহমানের ভায়রা), এর পর ষাটের দশকে আরজান খান, প্রভাত দাস, প্রদ্যুত দাস, প্রতাপ শঙ্কর হাজারা, নজরুল ইসলাম, নারু চক্রবর্তী, গোলকিপার সুভাস কর্মকার, ছাবেদ, ছাবের। ’৭০-এর দশকে নরশের, শরীফ, মাসুম চৌধুরী, কিসুল, খোকা, পিকলুস, রশিদ, আঙ্গুর, অভয় সাহা, ইস্টএন্ড’র কাপ্টেন ফিরোজ। ’৮০-এর দশকে জাতীয় দলের অধিনায়ক স্বপন দাস, তারিক কাসেম খান মুকুল। এর পর আরিফ, আশরাফ, বাচ্চু, শঙ্কর দাস মুকুল, মইন কাদের রবিন, বাহারুল আলম।

এই মাঠ থেকেই এই তারাকা ফুটবলারদের উত্থান ঘটে। তবে ৯০ দশকে অর্থাৎ স্টেডিয়ামের হওয়ার পর থেকে এই মাঠে আর কোন নামীদামী ফুটবলারের আত্ম প্রকাশ ঘটেনি। শুধু ফুটবল বা এ্যাথলেট নয় পঞ্চাশ দশক থেকে এই মাঠের ফুটবলের পাশাপাশি ক্রীকেট টুর্নামেন্ট হত। ভবানী, আক্রম, নরুল ইসল অনু, নুরউদ্দিন চৌধুরী, আনোয়ার হোসেন, আঙ্গুর, হারুনসহ অনেকেই তখন ক্রীকেট খেলতেন। এখানকার পাড়ায় পাড়ায় ক্রীকেট টুর্নামেন্ট হয়েছে। এই মাঠের খেলোয়ার মো. এসহাক মিয়া সাইক্লিংয়ে সুনাম বয়ে আনেন।

এ্যাথলেট এই মাঠে ছিল অনেক জনপ্রিয়। দেশের খ্যাতনামা এ্যাথলেটার আরজান খান, আব্দুল খালেক, শাহ আলম ও ইকবাল এই মাঠেররই সৃষ্টি। অল পাকিস্তানের সেরা দৌড়বীদ ছিলেন আব্দুল খালেক ও শাহ আলম। ’৭২ সালে হরগঙ্গা কলেজের বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতায় এই মাঠে দেশের প্রখ্যাত এই দু’জন দৌড়বীদ একেসাথে ১শ’ মিটার প্রতিযোগিতায় অংশ নেন। এই দৌড় প্রতিযোগিতা প্রত্যক্ষ করতে মাঠটিতে দর্শকের ঢল নামে। শুরু হল- সেয়ানে সেয়ানে লড়াই। এগিয়ে গেছেন বয়সে অপেক্ষাকৃত জুনিয়র শাহ ্আলম। কিন্তু ফিনিশিংয়ে আগে আরম্ভর স্পর্শের সুযোগ করে দিলেন আব্দুল খালেকে। ঘটনাটি এখনও এখানে স্মরণীয়।

এই মাঠে এমন নানা ক্রীড়ার ভ্রাতৃত্ববোধের নানা দৃষ্টান্ত রয়েছে। যাঁরা খেলছেন ঃ গফুর বালুচ, গোলাম সারোয়ার টিপু, গাউস, মনজু, জলিল, নরুন্নবী চৌধুরী, শিতাংসু, সলিমুল্লাহ, কায়কোবাদ, কাজী সালাউদ্দিন, আসলাম, সালাম মুর্শেদী, মহসিন, কানন, সাব্বির, মনু, ডন, ইউসুফ, কায়সার হামিদ, জনি, মুন্না, এমেকা, আমির বক্স, মাওলা বক্স, পাকিস্থান জাতীয় দলের খেলোয়ার মারি, কোলকাতা লীগের এবং পাকিস্তানি নামী দামী প্রায় সব ফুটবলারই এই মাঠে খেলেছেন। এছাড়াও দেশী-বিদেশী খ্যাতনামা বহু ফুটবলারের চমকপ্রদ ক্রীড়া নৈপুন্য প্রদর্শনের স্মৃতি বহন করছে এই মাঠ। মাঠ ছিল উৎসবের কেন্দ্র বিন্দুঃ স্কুল পর্যায়ে জেলা, মহাকুমা ও থানা পর্যায়ে বড় ধরনের টুর্নামেন্ট হতো এই মাঠে। এই টুর্নামেন্টে ঘিরে তৎকালীন মহকুমা শহর মুন্সীগঞ্জ পরিনত হত উৎসবের শহরে। স্টেডিয়াম ঘিরে তখন মানুষের ঢল নামতো। আর যদি আবাহনী, মোহামেডান, আজাদ স্পোটিং ক্লাবের খেলা থাকতো বা নামী দামী খেলোয়ারদের অংশ গ্রহন থাকতো তবে পরিনত হত মহোৎসবে। লোকে লোকারণ্য থাকতো শহর। দেশী বিদেশী খোলায়াড়ের বিচরণ ভূমি উন্মুক্ত মাঠটি ঘিরে প্রাণের স্পন্দনের যেন সীমা ছিল না।

তাই মাঠের যেমন কদর ছিল, মাঠের যতœও ছিল যথাযথ। রাজনৈতিক সমাবেশঃ এই মাঠ রাজনৈতিক সমাবেশেরও গুরুত্বপূর্ণ স্মৃতি বহন করে চলেছে। ’৭০ সালের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নির্বাচনী সমাবেশটি এই মাঠের স্মরণকালে বড় সমাবেশ। বঙ্গবন্ধুর স্মৃতি ধারণ ছাড়াও এই মাঠে রয়েছে হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দীর স্মৃতি। ’৫০ এর দশকে হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দীর এই মাঠে সমাবেশ করেছেন।

বৃটিশ শানামলে এখানে রাজনৈতিক সমাবেশ করেছেন শ্যামা প্রসাদসহ অনেক খ্যাতিমান ব্যক্তিবর্গ। এছাড়া মাঠের খেলা দেখতে এসেছেন জাতীয় নেতা তাজউদ্দিন। তিনি এটি টুর্নামেন্টে প্রধান অতিথি হয়ে এসেছিলেন ’৭০ এর দশকে। পরবর্তীতে ’৮০ দশকে এই মাঠে বড় সমাবেশ করেছেন তৎকালীন আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনা। রাষ্ট্রপতি হওয়ার পর ২০০২ সালে অধ্যাপক ডা. একিউএম বদরুদ্দোজা চৌধুরীকে এই মাঠে গণসংবর্ধনা দেয়া হয়। এই এ সময় মঞ্চে ছিলেন তৎকালীন শিক্ষাবীদ অধ্যাপক ড. ইয়াজউদ্দিন আহম্মেদ। মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতি ঃ স্বাধীনতা যুদ্ধের সময়ও এই মাঠ ছিল মুক্তিযোদ্ধাদের প্রথম ট্রেনিং সেন্টার। এই অঞ্চলের বহু মুক্তিযোদ্ধা এখানে ট্রেনিং নিয়েছেন। ২৭ মার্চ মহকুমা ড্রেজারি লুট করে মুক্তিকামী জনতা এই মাঠেই ড্রেজিংয়ের সূচনা করে।

এর আগে মুক্তিযুদ্ধে অংশ গ্রহণের নানা প্রস্তুতি সভাও এখানে হয়েছে। ৭ মার্চ ভাষণের পর থেকেই এই মাঠে নিজেরদের তৈরী করার নানা ট্রেনিং চলে এই মাঠে। পাকবাহিনী হরগঙ্গা কলেজে ক্যাম্প স্থাপনের পর এই মাঠে ট্রেনিং বেশ কিছু দিন বন্ধ ছিল। পরবর্তীতে দেশ স্বাধীন হওয়ার পরও অনেক মুক্তিযোদ্ধা বেশ কিছুদিন এই মাঠেই ট্রেনিং করেছেন। চাঁন মারিঃ ঐতিহ্যবাহী এই মাঠের পূর্ব-দক্ষিণ কোনে ছিল চাঁন মারি। রাইফেল শুটিং হতো এখানে। এই চাঁনমারীতে রাইফেল শুটিংয়ের স্মৃতিও অনেক। ফুটবল, এ্যাথলেট, ক্রীকেট ছাড়াও চাঁনমারি থাকায় এখানে রাইফেল শুটিংয়ের সুযোগ সৃষ্টি হয়। রাইফেলস ক্লাব এখানে শুটিং করতো। এছাড়া আনসারসহ বিভিন্ন বাহিনীও শুটিং প্যাকটিস করাতো। পাকিস্থান আমলে আনসার বাহিনীর ফান্ড বন্ধ হয়ে যাওয়ায় শুটিং প্যাকটিস বন্ধ হয়ে যায়।

পরে শহরের রতনপুরে আনসার ক্যাম্প সরিয়ে নেয়ার পর চাঁন মারি ব্যবহার ছিল বন্ধ প্রায়। এর আগে এই মাঠেই আনসার ট্রেনিং হত নিয়মিত। পরবর্তীতে ’৯৩ সালে স্টেডিয়াম করার সময় চাঁনমারি ভেঙ্গে ফেলঅ হয়। স্পোটর্স ক্লাব ঃ মাঠটি ঘিরে বহু স্পোর্টস ক্লাব সৃষ্টি হয়। টাউন ক্লাব, কোর্টগাঁও বয়েজ ক্লাব ও মাঠপাড়া সমাবেশ ক্লাবের ঐতিহ্য দেশজোরা। এই ৩টি ক্লাবেরই রয়েছে স্বর্ণোজ্জ্বল ইতিহাস। তাই জেলার বাইরেও এই ক্লাবগুলোর পরিচয় ছড়িয়ে পরে। পার্শ্ববর্তী মিরকাদিমের রিকাবীবাজারের গ্রীন ওয়েল ফেয়ার ক্লাবও এই মাঠে লীগসহ নানা টুর্নামেন্টে অংশ নেয়। এছাড়াও ছোট পর্যায়ের ক্লাব সৃষ্টি হতে থাকে। নিয়মিত লীগ ও জাঁকজমকপূর্ণ বিভিন্ন টুর্নামেন্টে এই ক্লাবগুলো অংশ নিত।

এতে স্থানীয় খেলোয়ারগণ খেলার সুযোগ সৃষ্টি করা হত। তাই ক্লাবগুলোর দ্যুতি ছড়িয়ে পড়ে। এই ক্লাবের খেলোয়ারদের প্র্যাকটিস হত এই মাঠেই। বর্তমানে স্টেডিয়াম হয়েছে। সরকার বড় ফান্ড দিচ্ছে, ক্রীড়া সামগ্রী দিচ্ছে। ক্লাবও বেড়েছে। কিন্তু প্রকৃত খেলাধুলা বাড়েনি। স্থানীয়ভাবে খেলোয়ার তৈরির ক্ষেত্র হয়নি। তাই ক্লাবগুলোও চলে ভাড়া করা খোলোয়ারে। নিজস্ব খেলোয়ার না থাকায় নিয়মিত লীগও হচ্ছে না। ক্লাবগুলো বর্তমানে চলছে শুধুই নামে। খেলার চর্চা বন্ধ রেখে ক্লাবগুলোকে ঠুটো জগন্নাথে পরিনত করেছে। দীর্ঘ ৪০ বছর ধরে মাঠপাড়া সমাবেশ ক্লাবের সভাপতির দায়িত্ব পালন করা এ্যাডভোকেট আর্শেদউদ্দিন চৌধুরী ক্লাবগুলোর ইতিহাস উল্লেখ করতে গিয়ে বলেন, “ সম্ভবনা থাকা সত্ত্বেও বর্তমানে জাতীয় পর্যায়ের মুন্সীগঞ্জের কোন খেলায়ার নেই।

জাতীয় পর্যায়ের ক্রীকেট টুর্নামেন্টেও মুন্সীগঞ্জ অংশ নিতে পারে না। প্রকৃত খেলাধূলা এখানে না থাকায় নেশাসহ নানা অপরাধ বেড়ে যাচ্ছে।” তিনি জানান, নানা প্রকিূলতার মধ্যেও সমাবেশ ক্লাব ২০১০ সালে নিটল টাটা জাতীয় ফুটবল টুর্নামেন্টে অংশ নিয়ে আঞ্চলিক চ্যাম্পিয়ন হয়ে ফাইনালে উন্নীত হয়ে বেষ্ট ডিসিপ্লিন এ্যাওয়ার্ড অর্জন করে। কিন্তু পরবর্তীতে আর এগিয়ে যাওয়া সম্ভব হয়নি। মঞ্চ নাটকঃ এই মাঠে ঐতিহাসিক মঞ্চ নাটকও হয়েছে। ১৯৭২ সালে। মাঠে মঞ্চ তৈরী করে নাট্যকার আতম আসাদুজ্জামানের রচনা ও নির্দেশনায় ‘জল্লাদের পতন’ নাটক মঞ্চস্থ হয় এই মাঠে। ১৯৬৭ সালে একজিবিশনে ‘মুক্তিনিশান’ নাটক মঞ্চস্থ হয় এই মাঠে।

এই একজিবিশনে বড় আকারের কুমরা, কৃষিজাত নানা পন্য, ময়ূর, নানা প্রজাতির মাছ, হাতি, হনুমানসহ নানা প্রনীর প্রদর্শন কগ। সার্কাস ও পুতুল নাচ বিশেষ আকর্ষন তৈরী করত এই মাঠে। সার্কাসে বিরতিহীন ঘন্টার পর ঘন্টা সাইকেল চালানো, সাইকেলে চালনা অস্থায়ই খাওয়া দাওয়া। এমন নানা বৈচিত্রপূর্ণ নানা বিষয় উপস্থাপিত হত। সংস্কৃতি সপ্তাহ উদযাপিত হয়েছে বহুবার। কয়েক বছর পরপরই এই মাঠে একজিবিশন বসত। এছাড়া শিল্পী মমতাজের একক সঙ্গীত আসরসহ বহু আলোচিত সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানও হয়েছে এখানে। স্মৃতি চারণঃ সরকারী হরগঙ্গা কলেজের অধ্যাপক সুখেন চন্দ্র ব্যানার্জী স্মৃতি চারণ করতে গিয়ে বলেন, স্কুলে পাশ দিয়ে তখন ছিল রাস্তা, এরপর খাল। খালের ওপর কাঠের পুল পাড় হলেই এই মাঠ। শুধু পাশ্চিম দিকে গ্যালারী ছিল। হাই স্কুলের মাঠেই সব খেলা হত।

তখন মাটি ছিল ভালো। তিনি বলেন, আমি ১৯৬৯ সালে হরগঙ্গা কলেজে একাদশ শ্রেণিতে ভর্তি হয়ে পাশে বিশাল মাঠ দেখে বিমোহিত হই। মাঠ নয় যেন সবুজ ছড়ানো, কোলাহল। সারা শহরের মানুষ ভেঙ্গে পড়তো এখানে। মাঠটি যেন ছিল সব ক্রীড়ার কেন্দ্র বিন্দু। বিকাল হলেই সব ছেলেরা এখানে জড়ো হত। খেলতে বা প্র্যাকটিস করতে আসত। তখন রেডিও’র প্রসার লাভ করেছে। তবে টিভি তেমন ছিল না। খেলাধুলাই ছিল একমাত্র বিনোদন ব্যবস্থা। জড়ো হয়ে অনেকেই বাদাম খেতে বসতো আর খেলা উপভোগ করতো। ক্রীড়ামোদী অভিজিৎ দাস ববি জানান, ’৯৩ সালের ন্যাচারেল মাঠ নষ্ট হয়ে যায়। এরপরই এখানকার ক্রীড়াজগতে ছন্দপতন ঘটে। তাই এই মাঠের ক্রীকেট ও ফুটবল খেলোয়ারদের দাবী ছিল স্টেডিয়ামের। তবে সেটি এই মাঠ নষ্ট করে নয়।

মাঠের নানা স্মৃতির সাথে জড়িত ক্রীড়া সংগঠক মো. ইকবাল হোসেন বলেন, এই মাঠ ছিল এই অঞ্চলের মানুষের প্রাণ। মাঠটির ঐতিহ্য দেশের অনেক মাঠের চেয়েই সমৃদ্ধ। কিন্তু সফলতার স্মৃতি আমরা ধরে রাখতে পারিন। তাই পুনরুদ্ধারের সময় এসছে। ঢাকা বিশ্ব বিদ্যালয়ের ব্লু প্রাপ্ত ও ঢাকা লীগের সুপরিচিত এই মাঠের খেলোয়ার মাসুম চৌধুরী বলেন, এই মাঠ আমাদের প্রাণের সাথে মিশে গেছে। জীবনের ক্রীড়াঙ্গনের সফলতার মূলেই ছিল এই মাঠ। তিনবারের পৌর মেয়র এ্যাডভোকেট মুবিজুর রহমান বলেন, মুন্সীগঞ্জের ক্রীড়াঙ্গনের যত সফলতা আছে তার মূলে এই মাঠ। মাঠের বিকৃতি এবং আমাদের রুচির বিকৃতির কারণেই ক্রীড়াজগতে আমাদের সম্মান ম্লান করেছি।

জাতীয় দলের সাবেক অধিনায়ক ও বতর্মানে জাতীয় কোচ স্বপন কুমার দাস বলেন, এই মাঠ থেকে আমার উত্থান। আমার বাবাও কালিপদ দাসও এই মাঠে খেলেই সুপরিচিতি লাখ করেছেন বহু সম্মান পেয়েছেন। কিন্তু আমার সন্তান এই মাঠের পাশে থেকেও ভালো খেলোয়ার হতে পারেনি। তার ছেলে সৌরভ দাস হরগঙ্গা কলেজের একাদশ শ্রেণিতে এবং কন্যা মাস্টার্সের ছাত্রী। তারা কেউ ক্রীড়াবীদ নন। তিনি মনে করছেন-বর্তমানে ক্রীড়া চর্চা করার নেই। এজন্য ক্রীড়া সংগঠক তথা ক্রীড়া সংস্থাকে দায়ী করেছেন। পাশাপাশি তিনি বর্তমান শিক্ষা ব্যবস্থাকেও দায়ী করেন। তিনি বলেন, এখন পড়াশোনার অতিরিক্ত চাপ। স্কুল ক্রীড়া শিক্ষক আছে কিন্তু নেই ক্রীড়া অনুশীলন।

বাইরে যে খেলাধুধা করবে সে সুযোগও নেই। বিকাল স্কুল থেকে ছাড়া পাবার পর হোম ওয়ার্ক সারতে অনেক সময়লেগে যায়। তারপর প্রাইভেট টিউটর তো আছেই। খেলাধুলার সময় কই। তিনি মাঠের বর্তমান নাজুক অবস্থা উল্লেখ করে বলেন, অবস্থা এতটাই খারাপ প্র্যাকটিস করার অবস্থা নেই। সকালে সাড়ে ৬ টা থেকে সাড়ে ৭টা, এক ঘন্টা করে আমি ৭/৮ জন ছেলেকে ফুটবল শিখাই। কিন্তু মাঠের অবস্থা খারাপ থাকায় নানা সমস্যা হচ্ছে। মাঠের একবারেই যতœ হচ্ছে না। এর ওপর অহেতুক যেখানে সেখানে গর্ত করে বাঁশ কুপে যখন কমিউনিটি সেন্টার হিসেবে অনুষ্ঠানাদি করে তখন মনে হয় নিজের বুকে আঘাত লাগছে। প্যাভিলিয়ন থাকার পরও অহেতুক মাঠে গর্ত করা হচ্ছে। তার আবার যথাযথভাবে ভরাটও করা হচ্ছে না।

শহরে আর কোন ভালো মাঠও নেই। মহাকুমা ক্রীড়া সংস্থা থেকে শুরু করে অর্থাৎ স্থানীয় ক্রীড়া সংস্থার জন্ম লগ্ন থেকে জড়িত ছিলেন এ্যাডভোকেট আর্শেদউদ্দিন চৌধুরী। প্রথমে সদস্য, পরবতীর্তে যুগ্ম সম্পাদক ও সহ সভাপতির দায়িত্ব পালন করেছেন। তিনি মনে করেন নতুন প্রজন্মকে ক্রীড়ামুখী করতে উদ্যোগ নেয়া জরুরি। ক্রীড়া মেধার বিকাশে বেশী অবদান রাখে। আর ক্রীড়ামুখী করবার জন্য ঐতিহ্যবাহী ‘বড় মাঠ’ ইতিহাস জানা জরুরি। মুন্সীগঞ্জের জেলা প্রশাসক মো. সাইফুল হাসান বাদল বলেন, মাঠ যে সভ্যতাকে এগিয়ে নেয়ার ক্ষেত্রে কি অবদান রাখে তার উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত মুন্সীগঞ্জের বড় মাঠ। কিন্তু আমরা মাঠকে নষ্ট করে ফেলছি। এটা কোনভাবেই কাম্য নয়। মুন্সীগঞ্জরে ঐতিহ্যবাহী বড় মাঠে স্টেডিয়াম হলেও এটি সাধারণ ক্রীড়াবীদদের জন্য উন্মুক্ত করা বা বিকল্প কি করা যায় সে ব্যাপারে কার্যকরী পদক্ষেপ গ্রহন করা হবে।

মুন্সিগঞ্জেরকাগজ

Leave a Reply