‘অক্টোবর-নভেম্বরেই পদ্মা সেতুর মূল কাজ শুরু’

padma2বহুল আলোচিত পদ্মাসেতুর মূল কাজ আগামী অক্টোবর-নভেম্বরের মধ্যেই শুরু হবে বলে জানিয়েছেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত। বৃহস্পতিবার বিকেলে সচিবালয়ে সরকারি ক্রয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভার বৈঠক শেষে তিনি এ কথা জানান।

মন্ত্রী বলেন, ১২ হাজার ১৩৩ কোটি ৪০ লাখ টাকায় পদ্মাসেতুর মূল কাঠামো নির্মাণের কাজ পেয়েছে চীনা কোম্পানি চায়না মেজর ব্রিজ ইঞ্জিনিয়ারিং কোম্পানি লিমিটেড। সরকারি ক্রয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির বৈঠকে দরপ্রস্তাবটি অনুমোদিত হয়।

সভা শেষে কমিটির সভাপতি অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত উপস্থিত সাংবাদিকদের বলেন, কার্যাদেশের পর চার বছরের মধ্যে পদ্মাসেতুর নির্মাণকাজ শেষ হবে। আর অবকাঠামোর স্থায়িত্ব হবে একশ বছর।

জুন মাসের মধ্যেই ওই কোম্পানির সঙ্গে কাজের চুক্তি করা হবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন। আর কাজ শুরু হবে অক্টোবর-নভেম্বরের মধ্যে। তবে প্রধানমন্ত্রীর জাপান সফর শেষে দেশে আসার পর মন্ত্রিসভার বৈঠকে বিষয়গুলো চূড়ান্ত হবে বলেও তিনি জানান।

অর্থমন্ত্রী বলেন, পদ্মাসেতু নির্মাণে বঙ্গবন্ধু সেতু (যমুনা সেতু) নির্মাণের অভিজ্ঞতা কাজে লাগানো হবে।

নির্মাণ প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে দুর্নীতির অভিযোগে এর আগে বিশ্বব্যাংক পদ্মাসেতু নির্মাণ প্রকল্পের অর্থায়ন বাতিল করেছে। আবার যদি তেমন ঘটনা ঘটে তাহলে বিষয়টি দেখভাল করবে কে ? সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নে অর্থমন্ত্রী বলেন, নির্মাণ প্রতিষ্ঠান বা ব্যক্তির বিরুদ্ধে যদি আবারো দুর্নীতির অভিযোগ ওঠে তাহলে সেটি তত্ত্বাবধান করবে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।

উল্লেখ্য, ২০১১ সালে পদ্মাসেতু নির্মাণে ব্যয় ধরা হয়েছিল ৯ হাজার ১৭২ কোটি ১৭ লাখ টাকা। বর্তমান অংক আগের চেয়ে প্রায় তিন হাজার কোটি টাকা বেশি। পদ্মাসেতুর মূল কাঠামো নির্মাণে কয়েকটি প্রতিষ্ঠান দরপত্র কিনলেও দরপ্রস্তাব জমা দিয়েছিল একমাত্র চীনা এই কোম্পানিটি। গত ২৬ জুন চূড়ান্ত দরপত্র আহ্বানের পর মূলসেতু নির্মাণে সম্ভাব্য ব্যয় প্রাক্কলন করা হয়েছিল ১৩ হাজার ৮৮৫ কোটি টাকা। চায়না মেজর ব্রিজ ১২ দশমিক ৬২ শতাংশ কম দর প্রস্তাব করে। মেজর ব্রিজ ইঞ্জিনিয়ারিং গণচীনের রাষ্ট্রায়াত্ত কোম্পানি, এটি দেশটির রেল মন্ত্রণালয়ের অধীন। এই কোম্পানির বার্ষিক আয় ২০০ কোটি ডলার। কর্মীর সংখ্যা ৭৫ হাজার।

অর্থমন্ত্রী আরো জানান, মন্ত্রিসভা কমিটিতে ২০১৫ শিক্ষাবর্ষের মাধ্যমিক ও এসএসসি ভোকেশনাল স্তরের বিনামূল্যে পাঠ্যপুস্তক তৈরির জন্য ১৮ হাজার মেট্রিক টন মুদ্রণ কাগজ ও এক হাজার ৪৫০ মেট্রিক টন কার্টিজ কাগজ ক্রয়ের দরপত্র অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। এছাড়া রাষ্ট্রীয় পর্যায়ের কানাডিয়ান কমার্শিয়াল করপোরেশন ও বাংলাদেশ কৃষি উন্নয়ন করপোরেশনের মধ্যে স্বাক্ষরিত এমওপি সার আমদানি-সংক্রান্ত ক্রয় প্রস্তাবটিও অনুমোদন দেওয়া হয়।

শীর্ষ নিউজ

Leave a Reply